• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১

 

পরিবেশ রক্ষায় জলাভূমির গুরুত্ব

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২০

একসময় বলা হতো, গোয়াল ভরা গরু, পুকুর ভরা মাছ। কিন্তু ধীরে ধীরে জলাশয় ভরাট হওয়ায় আমরা মাছে-ভাতে বাঙালির পুরনো গৌরব হারিয়ে ফেলেছি। জীবন-জীবিকা ও পরিবেশের সুরক্ষা হুমকির সম্মুখীন। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা নদ-নদী, খাল-বিল, পুকুর-ডোবা, হাওর-বাঁওড়সহ প্রাকৃতিক জলাধারগুলো ব্যাপক ভূমিকা পালন করে থাকে। এছাড়াও পরিবেশকে শীতল রাখা, বর্ষা মৌসুমে বন্যা প্রতিরোধ, শহরে জলাবদ্ধতা নিরসন, পানির চাহিদা পূরণ ও আবর্জনা পরিশোধনে জলাভূমিগুলোর গুরুত্ব অপরিসীম।

কিন্তু দুঃখের বিষয় সময়ের সঙ্গে সঙ্গে শহরে-গ্রামে এখন জলাভূমি হারিয়ে যাচ্ছে। মানুষ নিজেদের ইচ্ছেমতো জলাভূমিগুলো ভরাট করছেন। অথচ জলাভূমিগুলো পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা, উদ্ভিদ ও প্রাণিকুলের টিকে থাকার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এদেশে নদী-নালা, খাল-বিল, পুকুর-ডোবা, হাওর-বাঁওড়ের অভাব নেই, শুধু সংরক্ষণ করার অভাব! গ্রাম, ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা ও শহর পর্যায়ে একের পর এক জলাভূমিগুলো ভরাট করা হচ্ছে।

‘প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন-২০০০’ অনুযায়ী কোনো পুকুর-জলাশয়, নদী-খাল ভরাট করা সম্পূর্ণ বেআইনি। আবার বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন-২০১০ অনুযায়ী জাতীয় অপরিহার্য স্বার্থ ছাড়া কোনো ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সরকারি বা আধা সরকারি, এমনকি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের বা ব্যক্তিমালিকানাধীন পুকুর বা জলাধার ভরাট করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। কিন্তু পরিতাপের বিষয় বর্তমানে আইন অমান্য করে বহু প্রভাবশালী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান প্রাকৃতিক জলাভূমিগুলো ধ্বংস করে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করছেন। এর ফলে জলাভূমির ওপর নির্ভরশীল মানুষ ও জীববৈচিত্র্যের ওপর দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

শহরাঞ্চলে সুষ্ঠুভাবে বসবাসের জন্য জলাভূমির ব্যাপক প্রয়োজন রয়েছে। কেননা জলাভূমিগুলো নগরের তাৎক্ষণিক পানি সরবরাহের সবচেয়ে বড় উৎস। ২০১০ সালে যখন ঢাকার ‘ড্যাপ’ (ঢাকার বিশদ অঞ্চল পরিকল্পনা) বাস্তবায়নের ওপর জোর দেয়া হয়েছিল, তখন ভাবা হয়েছিল ঢাকার চারপাশের জলাভূমিগুলো রক্ষা পাবে। কিন্তু অপরিকল্পিত নগরায়ণ, ভূমিদস্যুতা ও প্রভাবশালীদের চাপে একের পর এক জলাভূমি হারিয়ে গেছে এবং যাচ্ছে। রাজধানী ঢাকা শহরে এক সময় প্রায় ২ হাজার পুকুর, ৫২টি খাল ও অসংখ্য ঝিল ছিল। কিন্তু এর বেশিরভাগই এখন আবাসনের চাহিদা মেটাতে নিচু জায়গা ভরাট করতে গিয়ে ধ্বংস করে ফেলা হচ্ছে। শুধু ঢাকা সিটি করপোরেশন এলাকা থেকে বছরে প্রায় ৫ হাজার একর জলাভূমি হারিয়ে যাচ্ছে। আর এভাবে সারা দেশে প্রতিবছর গড়ে প্রায় ৪২ হাজার একর জলাধার ভরাট করা হচ্ছে। রাজধানী ঢাকা শহরে জলাভূমি ভরাটের বিরূপ প্রভাব পড়েছে। বেশিরভাগ খাল ও নিচু জায়গা ভরাট করে ফেলার ফলে এখন একটু বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতায় পড়তে হয় নগরবাসীকে।

‘নদ-নদীর দেশ’ হিসেবে খ্যাত বাংলাদেশ থেকে একের পর এক জলাভূমি হারিয়ে যাওয়া মানে জেনে-বুঝে দেশের ক্ষতি ডেকে আনা। জলাভূমিগুলো হারিয়ে যাওয়ার ফলে জলাভূমিনির্ভর প্রান্তিক মানুষের জীবন-জীবিকার ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। জলাভূমিগুলো আমাদের সম্পদ, জীববৈচিত্র্যের আধার। জলবায়ু পরিবর্তনের এ পরিবর্তনশীল বাস্তবতায় জলাধারগুলো রক্ষা করা এখন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

মো. জিল্লুর রহমান

চিঠিপত্র : হাট-বাজারে ডিজিটাল ওজন স্কেল স্থাপন করুন

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে সব কাজে ওজন পরিমাপের বিষয়টি জড়িত।

গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির মৌসুমে ভর্তিযুদ্ধে অবতীর্ণ লাখো শিক্ষার্থীর হয়রানির প্রসঙ্গ প্রতি বছর সাধারণ আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

নারী জাগরণের অগ্রদূত

নারী জাগরণের এই অগ্রদূত বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন জন্মগ্রহণ করেন ১৮৮০ সালের ৯ ডিসেম্বর পায়রাবন্দ গ্রামে এবং ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। এই হিসেবে আজ ৯ ডিসেম্বর বেগম রোকেয়ার ১৪০তম জন্মদিন ও ৮৮তম মৃত্যুবার্ষিকী।

sangbad ad

পরিবেশ রক্ষায় জলাভূমির গুরুত্ব

একসময় বলা হতো, গোয়াল ভরা গরু, পুকুর ভরা মাছ। কিন্তু ধীরে ধীরে জলাশয় ভরাট হওয়ায় আমরা মাছে-ভাতে বাঙালির পুরনো গৌরব হারিয়ে ফেলেছি।

হাসপাতালের সামনে ডাস্টবিন কেন

মুক্তাগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি উপজেলার লাখো মানুষের ভরসার স্থান।

আইল কাটার অপসংস্কৃতি বন্ধ হোক

যত দিন যাচ্ছে তত মনে হয় মানুষের নৈতিকতা, মূল্যবোধ, সততা হারিয়ে যাচ্ছে। পেশিশক্তির প্রয়োগ সর্বজায়গায় পরিলক্ষিত।

নদী থাকুক নদীর মতো

নদীর সঙ্গে এ দেশের মানুষের রয়েছে আত্মিক সম্পর্ক।

বইয়ের সঠিক মূল্য লিখুন

image

বই মানুষের জ্ঞান বৃদ্ধি করে। সমাজ আলোকিত করে; সুনাগরিক গঠনেও বইয়ের অন্যতম ভূমিকা রয়েছে।

আম শিল্প সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত

image

যদিও বাংলাদেশ আম উৎপাদনে সারা বিশ্বের মধ্যে সপ্তম কিন্তু বাংলাদেশের আম অন্যান্য যে কোন দেশের থেকে মানে এবং গুণে অনেক ভালো তবুও শিল্পজাত পণ্য হিসেবে আম এখনও অনেক পিছিয়ে রয়েছে।