• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , রোববার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১

 

জাদুকর পিসি সরকার

জোবায়ের আলী জুয়েল

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী ২০২১

image

আধুনিক বাঙালিদের মধ্যে যে কয়জন ক্ষণজন্মা মানুষ আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করেছিলেন পিসি সরকার তাদের মধ্যে অন্যতম। জাদুশিল্পী পিসি সরকারের পুরো নাম প্রতুল চন্দ্র সরকার। ১৯১৩ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইল জেলার আশেকপুর গ্রামে এক মধ্যবিত্ত পরিবারে তার জন্ম। স্থানীয় শিবনাথ হাইস্কুলে তার শিক্ষা জীবন শুরু হয়। পিতার নাম ভগবান চন্দ্র সরকার ও মায়ের নাম কুসুম কামিনী দেবী।

সপ্তম-অষ্টম শ্রেণীতে পড়া অবস্থায় পিসি সরকার জাদু দেখানো শুরু করেন। সেকালের বিখ্যাত জাদুকর গণপতি চক্রবর্তী ছিলেন তার জাদুবিদ্যার গুরু। টাঙ্গাইলের করটিয়া সা’দত কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় সহপাঠীদের জাদু দেখিয়ে তাক লাগিয়ে দিতেন। ১৯২৯ সালে প্রবেশিকা এবং ১৯৩৩ সালে গণিত শাস্ত্রে অনার্সসহ বিএ পাস করে তিনি জাদুকেই পেশা হিসেবে গ্রহণ করেন।

কোলকাতা ইম্পেরিয়াল রেস্টুরেন্টে শেরে বাংলা একে ফজলুল হককে যে জাদু দেখিয়ে তিনি মুগ্ধ করেন, তার শিরোনাম ছিল ‘বাংলার মন্ত্রিম-লীর পদত্যাগ’। একটি সাদা কাগজে প্রথমে তিনি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী শেরে বাংলা ফজলুল হককে কিছু লিখতে বলেন এবং তার নিচে মন্ত্রীরা স্বাক্ষর করেন। কিছুক্ষণ পর শেরে বাংলা ফজলুল হক তার নিজের লেখার পরিবর্তে দেখেন ‘আমরা সর্বসম্মতিক্রমে সবাই এই মুহূর্তে পদত্যাগ করলাম এবং আজ হতে জাদুকর পিসি সরকারই বাংলার মুখ্যমন্ত্রী’। এটা ছিল Force writing-এর জাদু।

‘এক্সরে-আই’ করাত দিয়ে মানুষ দ্বিখন্ডিত করা তার একটি বিখ্যাত খেলা। এই খেলাটি দেখে দর্শকরা অভিভূত হয়ে পড়েন। দ্বিখন্ডিত তরুণটির কুশলবার্তা জিজ্ঞাসা নিয়ে বিবিসি অফিসে এত টেলিফোন আসতে থাকে যে, দুই ঘণ্টা পর্যন্ত অফিসের সব টেলিফোন লাইন জ্যাম হয়ে যায়। নিউইয়র্কের টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ এই খেলাটি দেখাবার জন্য তাকে বিশেষ বিমানে আমেরিকায় নিয়ে যায়।

মহানায়ক উত্তম কুমারকে দিয়ে তিনি তার বিশ্ববিখ্যাত জাদু ‘কায়া যায়, ছায়া থাকে’ খেলাটি দেখিয়ে ছিলেন। পিসি সরকার উত্তর কুমারকে স্টেজে আমন্ত্রণ জানান এবং পেছনে একটি সাদা স্ক্রিনে তাকে দাঁড় করিয়ে রাখেন। পর্দায় সার্চলাইটের আলো ফেলার সঙ্গে সঙ্গে উত্তম কুমারের ছায়া পর্দায় ভেসে ওঠে। স্টেজে তিনি উত্তম কুমারকে আসন গ্রহণ করতে বলেন। কিন্তু কী আশ্চয! উত্তর কুমার পর্দা থেকে সরে গেলেও তার ছায়া পর্দায় রয়ে যায়।

জাদু দেখিয়ে পিসি সরকার দেশে-বিদেশে অনেক পুরস্কার পেয়েছেন। জাদু বিদ্যার নোবেল প্রাইজ বলে খ্যাত ‘দি ফিনিক্স অ্যাওয়ার্ড’ তিনি দু’বার লাভ করেন। এছাড়া তিনি ‘গোল্ডবার’ পুরস্কার, ‘সূবর্ণ লরেন মালা’ নামে জাদুর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় জার্মান পুরস্কার, হল্যান্ডের ‘ট্রিকস পুরস্কার’ এবং ১৯৬৪ সালে ভারত সরকার প্রদত্ত ‘পদ্মশ্রী’ উপাধী লাভ করেন। জাদু খেলার কৃতিত্বের জন্য তৎকালীন মায়ানমারের (বার্মার) প্রধানমন্ত্রী তার নাম দিয়েছিলেন ‘এশিয়ার গর্ব’।

পিসি সরকার ১৯৭০ সালের ১৩ জানুয়ারি জাপানের আশাহিকাওয়ায় জাদু প্রদর্শন করতে গিয়ে অকস্মাৎ মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল মাত্র ৫৭ বছর।

[লেখক : অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা]

ক্যাপিটল হিলে হামলা : মার্কিন গণতন্ত্রের সংকট

image

যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট ভবন ক্যাপিটাল হিলে ট্রাম্প সমর্থকদের হামলার সময় এক পুলিশ সদস্যসহ পাঁচজন নিহত এবং অনেকে আহত হয়েছেন।

সমস্যার উৎসমূলে যাওয়া দরকার

ক’দিন আগে রাজধানীর একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ও-লেভেলের এক ছাত্রী তার এক বন্ধুর বাসায় ধর্ষণের শিকার হয়ে মৃত্যুবরণ করে।

পৃথিবীর সুরক্ষায় নবায়নযোগ্য জ্বালানি

সভ্যতার অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে যন্ত্রসভ্যতা বিকশিত হতে থাকে। যা ক্রমবিকাশে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে এসে উপস্থিত হয়েছে।

sangbad ad

তারপরও বাংলাদেশের অর্থনীতি অনেকটা ভালোই চলছে

image

করোনাভাইরাসে গোটা বিশ্বের অর্থনীতি টালমাটাল অবস্থায় চলছে।

রেলওয়ের অব্যবস্থাপনায় ঝুঁকিপূর্ণ রেলপথ

image

শুধু যাত্রী পরিবহনই নয়, মালামাল পরিবহনের জন্যও বিশ্বব্যাপী রেলপথকেই প্রাধান্য দেয়া হয়।

মমতা কি বিজেপিবিরোধী? কোন যু্ক্তিতে?

image

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার আসন্ন নির্বাচনী সংগ্রামে কে সব থেকে বড় শত্রু, এ নিয়ে একটা বিতর্কের পরিবেশ একাংশের মানুষ তৈরি করেছেন।

বিলাসবহুল হোটেল নয়, চিম্বুক পাহাড়ে স্কুল ও হাসপাতাল চাই

image

১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়সমূহের যে তালিকা তৈরি করে তাতে দেখা যায় পার্বত্য চট্টগ্রামের ১১টি রেঞ্জের ২৯টি পাহাড়ের ভেতর ৫টি রেঞ্জের ৯টি পাহাড়ের নামই পাংখোয়া ভাষার।

প্রথম পূর্ণ ডিজিটালাইজড শিক্ষা বোর্ড যশোর

image

দেশের অনেক কিছুতে যশোর প্রথম হওয়ার গৌরবের অধিকারী। যুক্ত বাংলার প্রথম জেলা যশোর। এই জেলা প্রথম শত্রুমুক্ত হয়।

একটা আন্দোলনের নাম

image

সংবাদটি শোনার পর থেকে প্রচন্ড মানসিক অস্বস্তির মধ্যে সময় পার হচ্ছে। কোনো স্বস্তি নেই।

sangbad ad