• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০

 

চিঠিপত্র : হাত ধুলে নিয়মিত থাকব সবাই করোনামুক্ত

নিউজ আপলোড : ঢাকা , রোববার, ১৮ অক্টোবর ২০২০

সংবাদ :
  • সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়

হাত ধুলে নিয়মিত থাকব সবাই করোনামুক্ত

করোনা মহামারীর প্রাক্কালে এবারের বিশ্ব হাত ধোয়া দিবসের গুরুত্ব অন্যবারের তুলনায় অনেক বেশী। বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস বিশ্বব্যাপী জনসচেতনতা তৈরি ও উদ্বুদ্ধকরণের জন্য চালানো একটি প্রচারমূলক দিবস। ২০০৮ সাল থেকে প্রতি বছর ১৫ অক্টোবর বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস পালন করা হয়। জনসাধারণের মধ্যে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার মাধ্যমে রোগের বিস্তার রোধ করার বিষয়ে সচেতনতা তৈরি করার উদ্দেশ্যে এই দিবসটি পালিত হয়ে থাকে। কয়েক বছর আগে অক্টোবরকে জাতীয় স্যানিটেশন মাস হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। প্রতি বছর ২০ কোটিরও বেশি মানুষ গ্লোবাল হ্যান্ডওয়াশিং ডে উদযাপন করে। বিশ্ব হাত ধোয়া দিবসের এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘উন্নত স্যানিটেশন নিশ্চিত করি, করোনা মুক্ত জীবন গড়ি’।

গবেষণায় দেখা গেছে, পাঁচ বছরের কমবয়সী শিশুদের ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া উভয় প্রবণতা কমাতে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কিছু নির্দিষ্ট সময় বিশেষ করে খাবার গ্রহণের পূর্বে, খাবার তৈরির পূর্বে, টয়লেট ব্যবহারের পরে সাবান দিয়ে দুই হাত ধোয়া হলে ডায়রিয়ার হার প্রায় ৪০ শতাংশের বেশি ও তীব্র শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ প্রায় ২৩ শতাংশ কমানো সম্ভব।

হাত পরিষ্কার রাখা একটি খুব ভালো অভ্যাস। এর মাধ্যমে সহজেই অসুস্থতা থেকে বাঁচা যায়। আমাদের অনেক রোগই নিরাপদ পানি এবং সাবান দিয়ে হাত না ধোয়ার জন্য হয়ে থাকে। মানুষ প্রায় সময়ই অন্যমনস্ক হয়ে নাক, মুখ, চোখে হাত দেয়। নিয়মিত হাত না ধোয়ার দরুন হাতে জীবাণু থাকে এবং সেই জীবাণু চোখ, নাক, মুখের মধ্যে দিয়ে শরীরে প্রবেশ করে এবং আমরা অসুস্থ হই। আমাদের শ্রমজীবী মানুষেরা এই হাত ধোয়ার নিয়ম একেবারেই মানে না। এদের প্রায়শই দেখা যায় কাজ করে এসে কিংবা কাজ করার মাঝে হাত না ধুয়েই বিভিন্ন খাবার গ্রহণ করে। এতে করে তাদের অসুস্থ হয়ে যাওয়ার সুযোগ বেশি থাকে। অনেকে ভাত খাওয়ার আগে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া তো দূরে থাক ঠিকমতো শুধু পানি দিয়েও হাত ধোয় না, টয়লেট ব্যবহারের পর সাবান দিয়েও হাত ধোয় না অনেকে। সকলের এ ব্যাপারে সচেতন হওয়া উচিত। সকল পরিবারের শিশু সন্তানদের শৈশব থেকেই টয়লেট ব্যবহারের পর, খাওয়ার আগে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। খাবার তৈরির আগে, পরে, খাবার আগে, অসুস্থ কারো সেবা করার আগে-পরে, টয়লেট ব্যবহারের পর, পোষা জীবজন্তু ধরার পর সাবান দিয়ে হাত ধোয়া উচিত।

সমগ্র বিশ্ব আজ পর্যুদস্ত করোনাভাইরাসের কারণে। করোনা চোখ, কান, নাক এবং মুখের মধ্যে দিয়ে শরীরে প্রবেশ করে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে তা হাতের মাধ্যমেই হয়ে থাকে। ভাইরাসটি একজন থেকে আরেকজনে সংক্রমণের প্রধান মাধ্যমও হাত। বৈশ্বিক এই মহামারীর বিস্তার রোধের সবচেয়ে সহজ সাশ্রয়ী ও কার্যকরী উপায়গুলোর একটি হলো ঘনঘন সাবান দিয়ে হাত ধোয়া।

করোনা সংক্রমণ এড়াতে খাবার আগে সহ দিনে ২ ঘন্টা পর পর সাবান দিয়ে হাত ধোয়া উচিত। অন্তত ২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে হাত ধুতে হবে। করোনার কোনো ভ্যাক্সিন এখনো আবিষ্কার হয়নি। মরণঘাতী এই ভাইরাসের সংক্রমণের হাত থেকে রেহাই পেতে হলে স্বাস্থ্যবিধি সঠিকভাবে মানতে হবে। আর করোনা মোকাবিলায় সবচেয়ে বেশি কার্যকর স্বাস্থবিধি হলো সাবান দিয়ে হাত ধোয়া। সবার উচিত নিজের সুরক্ষার স্বার্থে এই নিয়ম মেনে চলা। এবারের বিশ্ব হাত ধোয়া দিবসে একটাই চাওয়া সকলে যেন নিয়মিত বারবার সাবান দিয়ে হাত ধোয় এবং করোনা সংক্রমণ রোধ করে।

সুকান্ত দাস

চিঠিপত্র : গাইবান্ধায় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চাই

গাইবান্ধা একটি অবহেলিত জেলা। এই জেলার বেশিরভাগ লোকজন কৃষির উপর নির্ভরশীল।

চিঠিপত্র : পারিবারিক সহিংসতা রোধে চাই সচেতনতা

পারিবারিক সহিংসতা রোধে চাই সচেতনতা পরিবার হলো পৃথিবীর প্রাচীনতম প্রতিষ্ঠান। যেখানে প্রাচীনকাল থেকে

চিঠিপত্র : আর্সেনিক এক নীরব ঘাতক

আর্সেনিক এক নীরব ঘাতক পানির অপর নাম জীবন। গ্রামাঞ্চলে বাড়ির পাশের নলকূপের পানি

sangbad ad

চিঠিপত্র :শীতে কী হবে ছিন্নমূল মানুষের?

শীতকাল কারো জন্য সুখকর ও আশীর্বাদ হলেও অনেকের জন্য অভিশাপ। বিশেষ করে ছিন্নমূল ও বস্তিতে বসবাসরত মানুষের জন্য শীত ভয়াবহ অভিশাপ।

চিঠিপত্র :অ্যাসাইনমেন্ট পেপারের দাম বৃদ্ধি রোধ করতে হবে

কোভিড১৯ এর প্রার্দুভাবে মার্চের ১৬ তারিখ থেকে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়।

চিঠিপত্র : ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নজর দিন

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নজর দিন বর্তমান যুগ তথ্য ও প্রযুক্তির যুগ। এই যুগে এসে মানুষ

চিঠিপত্র : ইঁদুর নিধনে কার্যকর ব্যবস্থা নিন

ইঁদুর একটি অত্যন্ত ক্ষতিকর প্রাণী। ছোট এ প্রাণীটির ক্ষতির ব্যাপকতা হিসাব করা খুবই কঠিন।

চিঠিপত্র : কেমন বাংলাদেশ চাই

কেমন বাংলাদেশ চাই সময়ের বদলের সঙ্গে সঙ্গে দেশের অবকাঠামোর পরিবর্তন হয়েছে। উন্নতির পথে

চিঠিপত্র : রাস্তাটির সংস্কার হচ্ছে না কেন?

১৯৮৮ সালের বন্যাতেও যে রংপুর মহানগরী পানিতে ডুবে যায়নি, সেই রংপুর নগরী এবারের বন্যায় পানিতে তালিয়ে ছিল বেশ কয়েকদিন।

sangbad ad