• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০

 

সড়ক কবে নিরাপদ হবে

নিউজ আপলোড : ঢাকা , শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০

নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার দেশে চতুর্থবারের মতো পালিত হলো জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস। যদিও দেশে নিরাপদ সড়কের বিষয়টি শুধু কথার কথাই রয়ে গেছে। সড়ক-মহাসড়কে আজ পর্যন্ত বিন্দুমাত্র শৃঙ্খলা ফেরেনি। সম্প্রতি বিভিন্ন পত্রিকার রিপোর্ট বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রায় প্রতিদিনই দুর্ঘটনায় মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে এবং আহত হয়ে পঙ্গুত্ববরণ করছে। সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশে রোজ যত লোক প্রাণ হারাচ্ছেন বা জখম হচ্ছেন, সেই পরিসংখ্যান শিউড়ে ওঠার মতো।

দেশের সড়ক-মহাসড়কে অনিয়ম-নৈরাজ্য ও দুর্ঘটনার খবরগুলো অত্যন্ত হতাশাজনক। দুঃখজনক হলো, এই অনিয়ম দীর্ঘদিন ধরেই চলছে। অনিয়ম বন্ধে উচ্চ আদালত এবং প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকেও বহু নির্দেশনা এসেছে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে কোন নির্দেশনা বাস্তবায়িত হয়নি। ২০১৮ সালের ২৯ জুলাই রাজধানীর কুর্মিটোলায় বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় রাজধানীসহ সারা দেশে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই বছর ১৯ সেপ্টেম্বর ‘সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮’ জাতীয় সংসদে পাস হয়। গত বছর সে আইন কার্যকর হলেও কোন ধরনের সুফল মেলেনি। আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করা হয়নি। সড়ক পরিবহন আইন মানছে না পথচারী কিংবা পরিবহন চালকরা। সেটা দেখারও যেন কোন লোক নেই।

দেশে সড়ক দুর্ঘটনার কারণগুলো সবার জানা। ট্রাফিক অব্যবস্থাপনা, ফিটনেসহীন যানবাহন চলাচল, বিধি লঙ্ঘন করে ওভারলোডিং ও ওভারটেকিং, সড়ক-মহাসড়কে মোটরসাইকেলসহ তিন চাকার যানবাহন চলাচল বৃদ্ধি, স্থানীয়ভাবে তৈরি দেশীয় ইঞ্জিনচালিত ক্ষুদ্র যানে যাত্রী ও পণ্য পরিবহন, জনবহুল এলাকাসহ দূরপাল্লার সড়কে ট্রাফিক আইন যথাযথভাবে অনুসরণ না করা, দীর্ঘক্ষণ বিরামহীনভাবে গাড়ি চালানো, ঝুঁকিপূর্ণ বাঁক ও বেহাল সড়ক, ত্রুটিপূর্ণ গাড়ি চলাচল বন্ধে আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাব এবং অদক্ষ ও লাইসেন্সবিহীন চালক নিয়োগের কারণে দুর্ঘটনা ঘটছে। এসব কারণের সারমর্ম একটাই তা হচ্ছে, সর্বক্ষেত্রেই নিয়ম না মানা। গাড়ি চালানো এবং সড়ক ব্যবস্থাপনার নিয়মনীতিগুলো না মানলে দুর্ঘটনা হওয়াই স্বাভাবিক। সড়ক নৈরাজ্যের আরেকটি প্রধান কারণ রাজধানীর গণপরিবহন ব্যবস্থা। এই ব্যবস্থা পুরোটাই বহুদিন ধরে এলোমেলো। এখানে সরকারের সঠিক কোন পরিকল্পনা নেই। কখনোই রাজধানীর গণপরিবহন ব্যবস্থা ঢেলে সাজানোর কথা চিন্তা করা হয়নি। এছাড়া সড়ক পরিবহন সেক্টরে বেপরোয়া ইউনিয়নবাজি ও মাফিয়া পরিবহন নেতাদের কারণে দানবে পরিণত হয়েছে সড়ক পরিবহন খাত। এতে রাষ্ট্রযন্ত্রের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই।

এটা সত্য যে, পরিবহন খাতে জবাবদিহিতার অভাব এবং দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে। জনগণ কেন সেবা পাচ্ছে না, এটা সরকারের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।

গণপরিবহন সমস্যার সমাধানের জন্য এখন যে বাসগুলো চলে তার সবই তুলে দিতে হবে। কোম্পানির অধীনে পরিকল্পিতভাবে বাস চালাতে হবে। দুর্ঘটনায় দায়ীদের সাজা দিতে প্রচলিত আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। অপরাধীদের কোনরকম ছাড় দেয়া যাবে না।

পরিবহণ খাতের মাফিয়ারা পুরো সিস্টেমকে জিম্মি করে রেখেছে। তাদের কারণে কোন ধরনের আইন সঠিকভাবে প্রয়োগ করা যাচ্ছে না। এটা অবশ্যই মনে রাখা উচিত যে, রাষ্ট্র এবং সরকারের চেয়ে মাফিয়াচক্র বড় হতে পারে না। কাজেই পরিবহন খাতে সুশাসন ফিরিয়ে আনতে হলে সড়ক মাফিয়াদের সবার আগে নির্মূল করতে হবে। দুষ্টের দমন এবং শিষ্টের পালন করতে হবে।

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যবিরোধীদের কাছে নতিস্বীকার করা চলবে না

দেশে কোন ভাস্কর্য তৈরি হলে টেনেহিঁচড়ে ফেলে দেয়ার হুমকি দিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের নব্য আমির জুনায়েদ বাবু নগরী।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় চাই সমন্বিত পদক্ষেপ

বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণের উদ্যোগ নিতে সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, করোনা মোকাবিলায় গোটা সরকারব্যবস্থাকে যুক্ত করা দরকার।

সুনির্দিষ্ট নীতিমালা ও কর্মপরিকল্পনা থাকা জরুরি

প্রায় ১০ কোটি করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন পাওয়ার আশ্বাস মিলেছে। গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিন অ্যান্ড ইমিউনাইজেশনস (গ্যাভি) ৬ কোটি ৮০ লাখ ও ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট তিন কোটি টিকা দেয়ার আশ্বাস দিয়েছে।

sangbad ad

তদন্ত করে রহস্য উদ্ঘাটন করুন

আবার আগুন লাগল রাজধানীর কালশীর বাউনিয়াবাদের বস্তিতে। এ নিয়ে গত ১১ মাসে সেখানে দুবার অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটল। কিন্তু এসব অগ্নিকান্ড কেন ঘটছে, তার তদন্ত হচ্ছে না।

গণঅভ্যুত্থান, জাতীয় স্বাস্থ্যনীতি এবং বিএমএ

image

আজ যে সময়ে আমরা শহীদ ডা. মিলনকে স্মরণ করছি তখন গোটা বিশ্ব করোনাভাইরাসের ভয়াল থাবায় অনেকটা পর্যুদস্ত, বিপর্যস্ত অর্থনীতি, অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ।

আদিয়স ‘দিয়োস ভিভো’ ম্যারাডোনা

বিশ্ব ফুটবলের অবিসংবাদিত তারকা আর্জেন্টিনার ফুটবলার দিয়েগো ম্যারাডোনা (৬০) গতকাল বুধবার নিজ বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

এসএমই খাতে ঋণপ্রবাহ বাড়ান নারী উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করুন

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো (এসএমই) দেশের কর্মসংস্থানের বড় ক্ষেত্রে পরিণত হচ্ছে।

করোনা বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় গুরুত্ব দিন

আত্মঘাতী হয়ে উঠছে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ রোধে ব্যবহৃত স্বাস্থ্য সুরক্ষাসামগ্রী।

কাগজের দাম নিয়ে কারসাজি কাম্য নয়

হঠাৎ করেই বই ছাপার কাগজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে দেশীয় কাগজ কলগুলো।

sangbad ad