• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০

 

স্বাস্থ্যবিধির কঠোর প্রয়োগ চাই

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বুধবার, ১৮ নভেম্বর ২০২০

দেশে করোনা শনাক্তের আট মাস পেরোলেও এখনও সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসেনি। গণমাধ্যমের খবরে জানা যায়, তিন সপ্তাহ ধরে রোগী শনাক্তের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা লক্ষ করা যাচ্ছে। ৭১ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ ২ হাজার ২০২ জন কোভিড-১৯ (করোনাভাইরাস) রোগী শনাক্ত হয়েছে গত সোমবার। ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুসারে, করোনার সংক্রমণে এশিয়ার মধ্যে শীর্ষে রয়েছে ভারত এবং পঞ্চম স্থানে বাংলাদেশ। দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলার জন্য প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বান আসছে বিভিন্ন মহল থেকে। আসন্ন শীতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়ে দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ায় আশঙ্কা আছে। খুব শিগগির সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসবে এমন লক্ষণও দেখা যাচ্ছে না।

করোনার সংক্রমণ দিন দিন বাড়ছে। দেশে দীর্ঘদিন ধরে রোগী শনাক্তের হার উচ্চপর্যায়ে রয়েছে। এ কারণে যেসব এলাকায় এখনও সংক্রমণ নিচু পর্যায়ে আছে, সেখানে সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকি তৈরি হতে পারে। মহামারীর শুরু থেকে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ঠিক করেনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সে কারণে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনাও দেখা যায়নি। পরিণতিতে দেশ দীর্ঘমেয়াদি সংক্রমণ চক্রে ঢুকে পড়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা শুরু থেকে রোগ শনাক্তকরণ পরীক্ষা, রোগী শনাক্ত করা, শনাক্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা অন্য ব্যক্তিদের চিহ্নিত করা (কন্ট্রাক্ট ট্রেসিং), চিহ্নিত ব্যক্তিদের সঙ্গনিরোধের ব্যবস্থা (কোয়ারেন্টিন) করা, রোগীর চিকিৎসা দেয়া, সংক্রমিত ব্যক্তিকে বিচ্ছিন্ন রাখার (আইসোলেশন) ওপর গুরুত্ব দিয়ে এসেছে। এই মৌলিক কাজগুলো বাংলাদেশে সুচারুভাবে সম্পন্ন হতে দেখা যায়নি। বিষয়টি দুর্ভাগ্যজনক।

এ মুহূর্তে সবার মাস্ক পরা, স্বাস্থ্যবিধি মানা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। কোন কার্যকর ও নিরাপদ টিকা আসার আগ পর্যন্ত এগুলোই করে যেতে হবে। জনস্বাস্থ্যবিদ, সিভিল সার্জন, সাংবাদিকদের নিয়ে এ পর্যন্ত সংক্রমণ পরিস্থিতি-সংক্রান্ত যে কাজ হয়েছে, তার পর্যালোচনা ও মূল্যায়ন হওয়া দরকার। সেখানে কোন ধরনের ঘাটতি থাকলে তা সমন্বিত প্রচেষ্টায় দূর করতে হবে।

অনেকেই মাস্ক পরছে না, মানছে না স্বাস্থ্যবিধি এমন অবস্থার মধ্যে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হলে পরিস্থিতি মোকাবিলা করা সম্ভব হবে না। এক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি সামাজিক সংগঠনগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। জনগণকে সচেতন করে তুলতে হবে। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে বাধ্য করতে হবে। প্রয়োজনে জনসাধারণের মধ্যে বিনা মূল্যে মাস্ক সরবরাহ করা যেতে পারে। কারণ শুধু মাস্ক পরলেই নিরাপদ থাকা যাবে। এক্ষেত্রে আইনের কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করতে সারা দেশে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা অব্যাহত হবে।

গণঅভ্যুত্থান, জাতীয় স্বাস্থ্যনীতি এবং বিএমএ

image

আজ যে সময়ে আমরা শহীদ ডা. মিলনকে স্মরণ করছি তখন গোটা বিশ্ব করোনাভাইরাসের ভয়াল থাবায় অনেকটা পর্যুদস্ত, বিপর্যস্ত অর্থনীতি, অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ।

আদিয়স ‘দিয়োস ভিভো’ ম্যারাডোনা

বিশ্ব ফুটবলের অবিসংবাদিত তারকা আর্জেন্টিনার ফুটবলার দিয়েগো ম্যারাডোনা (৬০) গতকাল বুধবার নিজ বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

এসএমই খাতে ঋণপ্রবাহ বাড়ান নারী উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করুন

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো (এসএমই) দেশের কর্মসংস্থানের বড় ক্ষেত্রে পরিণত হচ্ছে।

sangbad ad

করোনা বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় গুরুত্ব দিন

আত্মঘাতী হয়ে উঠছে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ রোধে ব্যবহৃত স্বাস্থ্য সুরক্ষাসামগ্রী।

কাগজের দাম নিয়ে কারসাজি কাম্য নয়

হঠাৎ করেই বই ছাপার কাগজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে দেশীয় কাগজ কলগুলো।

সড়ক স্থায়ীভাবে দখলমুক্ত করুন

গত কয়েক বছরে চট্টগ্রামের বিভিন্ন সড়ক সম্প্রসারণ করা হয়েছে। কোনো কোনো সড়ক ছয় লেন, কোনো কোনোটি চার লেন হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসে জনবল ও আধুনিক সরঞ্জামাদি সংকট দূর করুন

‘প্রশিক্ষণ পরিকল্পনা প্রস্তুতি; দুর্যোগ মোকাবিলায় আনবে গতি’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে এ বছর ১৯-২১ নভেম্বর সারাদেশে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ ২০২০ উদযাপিত হয়েছে।

জঙ্গিবাদ দমনে আদর্শিক লড়াই চালাতে হবে

গত শুক্রবার ভোরে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে একটি বাড়িতে র‌্যাব অভিযান চালিয়ে জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ততার অভিযোগে চারজনকে আটক করেছে।

বন্যহাতি নিধন বন্ধ করুন

কক্সবাজারে মানুষের নির্মমতায় একের পর এক মারা যাচ্ছে বন্যহাতি।

sangbad ad