• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০

 

এমপিপুত্রের সাজা

সর্বত্র আইনের অবাধ প্রয়োগ চাই

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০

বিদেশি মদ ও অবৈধ ওয়াকিটকি রাখার দায়ে সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের ছেলে ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইরফান সেলিমকে ১ বছরের কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইরফান ও তার সহযোগীদের হাতে নৌ বাহিনীর এক কর্মকর্তা মারধরের শিকার হন। সেই ঘটনায় ইরফানসহ একাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে একটি মামলা করা হয়েছে। এরপর র‌্যাব অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। অভিযান চলাকালে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত উক্ত সাজা দেন। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে আরও দুটি মামলা করা হবে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

অপরাধী যেই হোক না কেন তাকে তার অপরাধের ধরন অনুযায়ী সাজা দেয়া হবে- এটাই আইনের শাসন। রাজনৈতিক প্রভাবশালী একজন ব্যক্তিকে সুনির্দিষ্ট অভিযোগে গ্রেফতার করা বা সাজা দেয়ার ঘটনা আইনের শাসনের একটি নজির হতে পারে। আমরা আশা করব, গ্রেফতারকৃত কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে ওঠা অন্য অভিযোগেরও দ্রুত নিষ্পত্তি হবে। সেটা করা গেলে ক্ষমতার অপব্যবহারকারীদের একটি কঠোর বার্তা দেয়া যাবে। সমাজের নানা স্তরে বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রভাবশালী হয়ে ওঠা এক শ্রেণীর ব্যক্তির অন্যায়-অত্যাচার সব মাত্রা অতিক্রম করেছে। শুধু রাজনৈতিক ক্ষেত্রেই নয় রাষ্ট্রের প্রতিটি ক্ষেত্রেই ক্ষমতার অপব্যবহারকারীদের দেখা মেলে। সাধারণ মানুষ প্রতিনিয়ত তাদের অত্যাচার-নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। সমাজের বিশিষ্টজনরাও তাদের অত্যাচার-নির্যাতন থেকে রেহাই পাচ্ছেন না। ক্ষমতার অপব্যবহারকারীরা প্রকাশ্যেই নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে পেটাচ্ছে, প্রকাশ্যেই সেনাবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তাকে গুলি করছে।

ক্ষমতার অপব্যবহারকারীরা যে হুট করে কোন একদিন নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর করেছে তা নয়। বহুদিন ধরেই তারা সাধারণ মানুষের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়ে আসছে। র‌্যাব ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইরফানের টর্চার সেলের সন্ধানও পেয়েছে। টর্চার সেলের অস্তিত্বই প্রমাণ করে যে সেখানে অতীতে আরও অনেককে নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। প্রশ্ন হচ্ছে, সেসব ঘটনার সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কী করেছে। সমাজের বিশিষ্টজনের বিরুদ্ধে হওয়া কোন অন্যায়-অপরাধের ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে যতটা তৎপর হয়ে কাজ করতে দেখা যায়, সাধারণ মানুষের ক্ষেত্রে ততটা দেখা যায় না। সাধারণ মানুষ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে প্রভাবশালীদের অন্যায়-অত্যাচার মুখ বুজে সহ্য করেন। সীমাহীন অন্যায়-অত্যাচার সইতে না পেরে কেউ কেউ থানা-পুলিশের দ্বারস্ত হলেও কাঙ্ক্ষিত সহায়তা পান না। থানা-পুলিশ অনেক ক্ষেত্রে মামলাই নিতে চায় না, মামলা নিলেও তদন্ত হয় না, তদন্ত হলেও ঠিকঠাক চার্জশিট হয় না, আসামি গ্রেফতার হয় না। এটা আইনের শাসনের ধারণার পরিপন্থী। আইন যেমন কোন বাছ-বিচার না করে সব অপরাধের সাজা দেবে, তেমনি বাছ-বিচার না করে সব ভুক্তভোগীকে ন্যায়বিচার দেবে। আইনের সিলেক্টিভ প্রয়োগ ঘটিয়ে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা যাবে না। আইনকে সব ক্ষেত্রে সমানভাবে প্রয়োগ করতে হবে।

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যবিরোধীদের কাছে নতিস্বীকার করা চলবে না

দেশে কোন ভাস্কর্য তৈরি হলে টেনেহিঁচড়ে ফেলে দেয়ার হুমকি দিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের নব্য আমির জুনায়েদ বাবু নগরী।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় চাই সমন্বিত পদক্ষেপ

বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণের উদ্যোগ নিতে সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, করোনা মোকাবিলায় গোটা সরকারব্যবস্থাকে যুক্ত করা দরকার।

সুনির্দিষ্ট নীতিমালা ও কর্মপরিকল্পনা থাকা জরুরি

প্রায় ১০ কোটি করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন পাওয়ার আশ্বাস মিলেছে। গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিন অ্যান্ড ইমিউনাইজেশনস (গ্যাভি) ৬ কোটি ৮০ লাখ ও ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট তিন কোটি টিকা দেয়ার আশ্বাস দিয়েছে।

sangbad ad

তদন্ত করে রহস্য উদ্ঘাটন করুন

আবার আগুন লাগল রাজধানীর কালশীর বাউনিয়াবাদের বস্তিতে। এ নিয়ে গত ১১ মাসে সেখানে দুবার অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটল। কিন্তু এসব অগ্নিকান্ড কেন ঘটছে, তার তদন্ত হচ্ছে না।

গণঅভ্যুত্থান, জাতীয় স্বাস্থ্যনীতি এবং বিএমএ

image

আজ যে সময়ে আমরা শহীদ ডা. মিলনকে স্মরণ করছি তখন গোটা বিশ্ব করোনাভাইরাসের ভয়াল থাবায় অনেকটা পর্যুদস্ত, বিপর্যস্ত অর্থনীতি, অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ।

আদিয়স ‘দিয়োস ভিভো’ ম্যারাডোনা

বিশ্ব ফুটবলের অবিসংবাদিত তারকা আর্জেন্টিনার ফুটবলার দিয়েগো ম্যারাডোনা (৬০) গতকাল বুধবার নিজ বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

এসএমই খাতে ঋণপ্রবাহ বাড়ান নারী উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করুন

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো (এসএমই) দেশের কর্মসংস্থানের বড় ক্ষেত্রে পরিণত হচ্ছে।

করোনা বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় গুরুত্ব দিন

আত্মঘাতী হয়ে উঠছে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ রোধে ব্যবহৃত স্বাস্থ্য সুরক্ষাসামগ্রী।

কাগজের দাম নিয়ে কারসাজি কাম্য নয়

হঠাৎ করেই বই ছাপার কাগজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে দেশীয় কাগজ কলগুলো।

sangbad ad