• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০

 

সংবাদপত্র বাঁচাতে কমাতে হবে কর-ভ্যাট

নিউজ আপলোড : ঢাকা , শুক্রবার, ১২ জুন ২০২০

সংবাদ :
  • সম্পাদকীয়
image

প্রতীকী ছবি

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বিরূপ পরিস্থিতিতে পড়েছে সংবাদপত্র শিল্প। বিজ্ঞাপন শূন্যের কোঠায় নেমে এসেছে। পত্রিকার গ্রাহকও কমেছে। এ অবস্থায় সংবাদপত্র টিকিয়ে রাখাই কঠিন হয়ে পড়েছে।

তাই সংবাদপত্রের করপোরেট ট্যাক্স ৩৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ এবং নিউজপ্রিন্ট আমদানির ওপর ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) বাদ দেয়ার দাবি জানিয়েছে সংবাদপত্র মালিকদের সংগঠন নিউজপেপার ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (নোয়াব)।

২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেট সামনে রেখে সংবাদপত্র শিল্প রক্ষায় নোয়াবের পক্ষ থেকে এসব প্রস্তাব দেয়া হয়েছে।

সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের কাছে সংগঠনের পক্ষে নোয়াব সভাপতি একে আজাদ পাঁচ দফা দাবি সংবলিত লিখিত প্রস্তাব পাঠান। অন্য প্রস্তাবগুলো হলো- বিজ্ঞাপন আয়ের ওপর উৎস কর (টিডিএস) ৪ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২ শতাংশ করা, উৎসস্থলে কাঁচামালের ওপর ৫ শতাংশের বদলে অগ্রিম কর (এআইটি) শূন্য শতাংশ করা, কর্মীর আয়কর থেকে প্রতিষ্ঠানকে দায়মুক্ত করা এবং তার বাড়ি ভাড়ার পুরোটাই করমুক্ত করা। নোয়াবের উল্লেখিত দাবির প্রতি আমরাও সমর্থন জানাই এবং এ ব্যাপারে অতি শীঘ্রই কার্যকর উদ্যোগ প্রত্যাশা করি।

শ্রম আইন অনুসারে সংবাদপত্র একটি শিল্প। ২০১৪ সালে সংবাদপত্রকে সেবা শিল্প হিসেবে ঘোষণা করা হয়। যদিও সংবাদপত্র সেবা হিসেবে বিশেষ কোনো সুবিধা পাচ্ছে না। সংবাদপত্র কোনোমতে চলছে। এ শিল্পের অবস্থা প্রকৃত অর্থেই ভালো নয়। অথচ তৈরি পোশাক শিল্পের করপোরেট ট্যাক্স ১০ থেকে ১২ শতাংশ। আর সেবা শিল্প হওয়া সত্ত্বেও সংবাদপত্রের করপোরেট ট্যাক্স ৩৫ শতাংশ। বিজ্ঞাপন থেকে বড় অঙ্কের ট্যাক্স কেটে রাখা হয়। আবার নিউজপ্রিন্ট বিদেশ থেকে আমদানি করলে ভ্যাট দিতে হয়। অথচ সংবাদপত্র শিল্পকে এখন আর ব্যবসা বলা চলে না, এর থেকে মুনাফা অর্জনের তেমন কোন সুযোগ নেই। এটা সমাজসেবার মধ্যেই পড়ে। এরপর করোনার মধ্যে সংবাদপত্র আরো রুগ্ন হয়ে পড়ছে। পত্রিকাগুলোর বিজ্ঞাপন শূন্যের কোঠায় নেমেছে, পত্রিকার গ্রাহক ব্যাপকভাবে কমেছে। ফলে প্রচুর আর্থিক লোকসান গুনতে হচ্ছে। পত্রিকাগুলোর মাসিক বেতন ব্যয়, অফিস ভাড়া, ব্যবস্থাপনা ব্যয়, পত্রিকা পরিবহন ব্যয়সহ অন্য সব ব্যয় অপরিবর্তিত রয়েছে। এরই মধ্যে কয়েকটি পত্রিকা প্রিন্ট সংস্করণ বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে। এ অবস্থায় সরকার যদি কর-ভ্যাট না কমায় তাহলে সংবাদপত্র আরো হুমকির মুখে পড়বে।

সংবাদপত্র সেবা শিল্প হওয়া সত্ত্বেও অন্যান্য শিল্পের মতো বিশেষ কোনো সুবিধা পাচ্ছে না। এ অবস্থায় সংবাদপত্রের করপোরেট ট্যাক্স ১০ থেকে ১৫ শতাংশ করা জরুরি। এ সংকটে সব খাতই প্রণোদনা, সহায়তা কিংবা বিশেষ ছাড় পাচ্ছে। সংবাদপত্র তথা গণমাধ্যম এসবের বাইরে আছে। আমরা আগে থেকেই বলে আসছি, এখনো বলছি, সংবাদপত্রের মূল কাঁচামাল নিউজপ্রিন্টে ভ্যাট থাকা উচিত নয়। মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইনে সংবাদপত্র ভ্যাট থেকে অব্যাহতিপ্রাপ্ত সেবার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত। এ শিল্পের প্রধান কাঁচামাল নিউজপ্রিন্ট ভ্যাট থেকে অব্যাহতিপ্রাপ্ত সেবার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত থাকলেও ১৫ শতাংশ ভ্যাট দিতে হচ্ছে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে নিউজপ্রিন্ট আমদানির ওপর ভ্যাটমুক্ত সুবিধা দেয়া উচিত। সংবাদপত্র শিল্পের এমনিতেই যে সংকটাপন্ন অবস্থা, তাতে করপোরেট ট্যাক্স, এআইটি এবং টিডিএস নামে যেসব কর আছে, সেগুলো বাদ না দিলে অথবা ন্যূনতম পর্যায়ে না আনলে এ খাত টিকবে না।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রসঙ্গে

বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া শরণার্থী রোহিঙ্গাদের নিজ দেশ মায়ানমারে প্রত্যাবাসন নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছে না। গত কয়েক বছরেও রাখাইনের...

রাজস্ব আদায়ে কর্মীদের অতিমাত্রায় ক্ষমতা স্বেচ্ছাচারিতা বাড়াবে

২০২০-২১ অর্থবছরের নতুন বাজেট অনুযায়ী রাজস্ব কর্মকর্তারা চাইলে যে কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হানা দিতে পারবেন। ব্যবসায়ীরা আগের

মোবাইলে কথা বলা এবং ইন্টারনেটের খরচ কমাতে হবে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

২০২০-২১ অর্থবছরে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কথা বলা ও ইন্টারনেট ব্যবহারে খরচ বাড়তে যাচ্ছে। বাজেটে মোবাইল সেবার ওপর কর

sangbad ad

অক্সিজেন নিয়ে কারসাজিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের প্রেক্ষিতে দেশে এবার অক্সিজেন সিলিন্ডার, পালস অক্সিমিটার, জীবনরক্ষাকারী বিভিন্ন ওষুধের দাম

অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের বাজেট

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

আগামী ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল গতকাল ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেছেন

রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীনের বক্তব্য ইতিবাচক

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ঢাকা ও বেইজিং সম্মত হয়েছে। গত শুক্রবার চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিন পিংয়ের সঙ্গে

সঞ্চয়পত্রের মুনাফার উৎসে কর বৃদ্ধির প্রস্তাব প্রত্যাহার করুন

প্রস্তাবিত বাজেটে সঞ্চয়পত্রের মুনাফার ওপর উৎসে কর ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মায়ানমারের ওপর কূটনৈতিক চাপ অব্যাহত রাখতে হবে

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে সব দেশ সম্মত হলেও মায়ানমারের সাড়া পাওয়া যাচ্ছে

ইরান-মার্কিন বিরোধেও কি বাংলাদেশ জড়িত থাকবে

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওকে লেখা এক চিঠিতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

sangbad ad