• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯

 

পাহাড়ে হত্যার রাজনীতির অবসান চাই

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯

রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়িতে গত সোমবার সশস্ত্র হামলায় সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার, আনসার-ভিডিপির সদস্যসহ ৭ জন মারা গেছেন। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন ১৭ জন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সূত্রে জানা গেছে, হামলার শিকার ব্যক্তিরা উপজেলা নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করে ফেরার পথে নয়কিলো নামক স্থানে পৌঁছালে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা ব্রাশফায়ার করে। কে বা কারা হামলা চালিয়েছে সেটা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে জনসংহতি সমিতি(জেএসএস-এমএন লারমা) সন্ত্রাসী হামলার জন্য দায়ী করেছে জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমার (সন্তু লারমা) নেতৃত্বাধীন জনসংহতি সমিতিকে (জেএসএস)। এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে জেএসএস। পাহাড়ের আরেকটি সংগঠন ইউপিডিএফও এ হামলায় জড়িত থাকতে পারে বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে সংগঠনটি এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে। এদিকে গতকাল বিলাইছড়ি উপজেলায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে মারা গেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুরেশ কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা।

পাহাড়ে একাধিক আঞ্চলিক সংগঠনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই বিভিন্ন বিষয়ে বিবাদ চলছে। বিবদমান সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে প্রায়ই সশস্ত্র হামলা চালানোর অভিযোগ পাওয়া যায়। উপজেলা নির্বাচন নিয়েও সংগঠনগুলো বিভক্ত হয়ে পড়েছিল। উপজেলা নির্বাচনের দিন জেএসএস সমর্থিত প্রার্থী ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। বাগাইছড়িতে নির্বাচনে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা আঞ্চলিক সংগঠনগুলোর মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। সঙ্গত কারণেই গত সোম ও মঙ্গলবারের সশস্ত্র হামলার জন্য পাহাড়ি সংগঠনগুলোর দিকেই অভিযোগের আঙুল উঠেছে।

স্বাধীনতার পর থেকেই পাহাড়ের রাজনৈতিক পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। ১৯৯৭ সালে পার্বত্য শান্তিচুক্তি হওয়ার পর আশা করা গিয়েছিল পাহাড়ে শান্তি ফিরবে। বাস্তবে সেখানে দ্বন্দ্ব-বিবাদ আরও বেড়েছে। বিশেষ করে পাহাড়িদের অন্তর্কলহ নতুন মাত্রা পেয়েছে। ভ্রাতৃঘাতী সংঘাত সংঘর্ষে শুধু পাহাড়ি সংগঠনের নেতাকর্মীরাই প্রাণ হারাননি, সাধারণ মানুষও ভুক্তভোগী হয়েছেন। সমঝোতার ভিত্তিতে ২০১৫ সালে পাহাড়ি সংঘঠনগুলো সন্ত্রাসের পথ ত্যাগ করলেও তা স্থায়ী হয়নি। ২০১৭ সালের শেষ দিকে আবার সশস্ত্র সংঘাত শুরু হয়। যা অব্যাহত আছে।

আমরা মনে করি, যতদিন ভূমি সংকটের কার্যকর সমাধান না হবে ততদিন পাহাড়ে এসব চলতেই থাকবে। সরকারের উচিত হবে দ্রুত এ সংকটের সমাধান করা। শান্তিচুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করার বিকল্প নেই। সেখানে সন্ত্রাস বন্ধ করতে প্রশাসনকে কঠোর হতে হবে। সশস্ত্র সংগঠনগুলোর অস্ত্র আর অর্থের উৎস কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। পাহাড়ি সংগঠনগুলোকেও ভ্রাতৃঘাতী সংঘাতের পথ ছেড়ে দিয়ে শান্তির পথ গ্রহণ করতে হবে।

দৈনিক সংবাদ : ২০ মার্চ ২০১৯, বুধবার, ৬ এর পাতায় প্রকাশিত

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে চাই কঠোর মনিটরিং

আসন্ন রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে থাকবে বলে আশ্বস্ত করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রিসাইক্লিংয়ে পরিকল্পিত ও স্থায়ী উদ্যোগ নিন

ইলেকট্রনিক পণ্যের ব্যবহার বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে ইলেকট্রনিক বা ই-বর্জ্যরে পরিমাণও। এসব ই-বর্জ্যরে দূষণ থেকে প্রাণ ও প্রকৃতিকে রক্ষা

বর্ষার আগেই ঢাকাডুবি কেন নগর কর্তৃপক্ষ কী করছে

চৈত্র মাসেই বৃষ্টির পানি জমে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে রাজধানী ঢাকার বেশিরভাগ এলাকার রাস্তা

sangbad ad

পুলিশের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে হবে

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টার মামলায় স্থানীয় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভিকটিমের স্বজনরা।

স্বাভাবিক পুঁজিবাজার চাই অনৈতিক কারসাজি দমন করুন

দেশের পুঁজিবাজারে এখনও কারসাজি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্বার্থান্বেষী একটি গোষ্ঠী দুই স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক সুকৌশলে নিয়ন্ত্রণ করছে এমন

দ্রুত সম্পন্ন করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব

অর্পিত সম্পত্তি অবমুক্তির লাখো মামলা বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে। মামলা নির্ধারিত সময়ে নিষ্পত্তি হচ্ছে কিনা তা মনিটর করার কেউ

রোজার মাসে ভোগ্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখুন

রমজান সামনে রেখে এরই মধ্যে অস্থির হয়ে উঠতে শুরু করেছে ভোগ্যপণ্যের বাজার। বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম কোন কারণ ছাড়াই

রাজধানী কি এবারও জলাবদ্ধ হয়ে পড়বে

রাজধানীর অনেক এলাকা আগামী বর্ষাতেও জলাবদ্ধ হয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন হতে হবে

অগ্নিকান্ড রোধ এবং এর ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৫টি নির্দেশনা দিয়েছেন। গত সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত

sangbad ad