• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯

 

পাকিস্তানকে একঘরে করুন উপমহাদেশে যুদ্ধ নয়

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

গত মঙ্গলবার ভোরে পাকিস্তানের বালাকোটে জয়েশ-ই-মহম্মদসহ একাধিক জঙ্গি ঘাঁটিতে বিমান হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারত। বিমান হামলায় তিন শতাধিক জঙ্গি মারা গেছে বলে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে। দেশটির পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোসাল বলেছেন, জয়েশ-ই-মহম্মদ আরও জঙ্গি হামলার ছক করছিল। বিমান হামলাকে তিনি ‘প্রতিরোধমূলক অসামরিক পদক্ষেপ’ হিসেবে অভিহিত করেন। পাকিস্তানে বিমান হামলার ঘটনাকে ভারতের সব রাজনৈতিক দল স্বাগত জানিয়েছে। পাকিস্তান বিমান অনুপ্রবেশের কথা স্বীকার করলেও হামলা বা হতাহতের কথা স্বীকার করেনি। গত মঙ্গলবার কাশ্মীর সীমান্তে দু’দেশের সেনাদের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে পাঁচজন সেনা মারা গেছে। পাকিস্তান বলছে, আকাশসীমা লঙ্ঘন করায় দুটি ভারতীয় বিমান ভূপাতিত করা হয়েছে এবং এক ভারতীয় বৈমানিককে আটক করা হয়েছে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ন্যাশনাল কমান্ড অথরিটির সঙ্গে বৈঠক আহ্বান করেছেন। এ কমিটিই পরমাণু অস্ত্রের নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবহারের সর্বোচ্চ ক্ষমতা সংরক্ষণ করে।

চলতি মাসের মাঝামাঝি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে আত্মঘাতী গাড়িবোমা হামলা চালায় জয়েশ-ই-মহম্মদ। সেই হামলার জবাব দেয়ার জন্য নরেন্দ্র মোদির ওপর অভ্যন্তরীণ চাপ ছিল। পাকিস্তানে বিমান হামলার ঘটনাকে ভারতের সব রাজনৈতিক দল স্বাগত জানিয়েছে। এতে বোঝা যায়, দেশটি জঙ্গি হামলার জবাব দিতে উন্মুখ হয়েছিল। প্রশ্ন হচ্ছে, এ হামলার পরিপ্রেক্ষিতে ভারত-পাকিস্তান সম্পর্ক এবং এ অঞ্চলের শান্তি ও স্থিতিশীলতার ওপর কী প্রভাব ফেলবে। বালাকোটে বিমান হামলায় যুদ্ধের মতো পরিস্থিতির উদ্ভব হবে কিনা সেই প্রশ্ন উঠেছে। চিরবৈরী দুই প্রতিবেশী অতীতে চারবার যুদ্ধে জড়িয়েছে। এর মধ্যে তিনবারই কাশ্মীর ইস্যুতে যুদ্ধ হয়েছে। অন্য আরেকটি যুদ্ধের আশঙ্কাকে অনেকেই উড়িয়ে দিতে পারছেন না। যদিও ভারত বিমান হামলাকে অসামরিক পদক্ষেপ হিসেবে বর্ণনা করেছে। পাকিস্তানকে পাল্টা সামরিক পদক্ষেপ নিতে দেখা যাচ্ছে। এর ফলে এ অঞ্চলে একটি টেনশন তৈরি হয়েছে।

২০১৩ সালে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে সেনা ছাউনিতে জঙ্গি হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত দু’দেশই যুদ্ধে না জড়ানোকেই শ্রেয় মনে করেছে। আমরা প্রথমেই বলতে চাই, কোন দেশেই জঙ্গি হামলা গ্রহণযোগ্য নয়। জঙ্গিবাদের টেকসই প্রতিকার অবশ্যই করতে হবে। তবে যুদ্ধ এর সমাধান নয়। যুদ্ধ বা যুদ্ধাবস্থায় আখেরে জঙ্গিগোষ্ঠীই লাভবান হয়। মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে এর নজির রয়েছে। বাস্তবতা হচ্ছে, একক প্রচেষ্টায় প্রবল শক্তিমান দেশের পক্ষেও জঙ্গিবাদ বা সন্ত্রাসবাদকে পরাস্ত করা সম্ভব নয়। দেশগুলোর বিশেষ করে প্রতিবেশীদের মধ্যে পারস্পরিক বোঝাপড়া থাকলে জঙ্গিবাদকে পরাস্ত করা যেতে পারে। সমস্যা হচ্ছে, পাকিস্তান জঙ্গি পোষণের অলিখিত নীতি গ্রহণ করেছে। একদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে অর্থ নিয়েছে অন্যদিকে ওসামা বিন লাদেনকে আশ্রয় দিয়েছে। পাকিস্তান সামরিক অর্থে জঙ্গি উৎপাদন ও রফতানিকারক দেশে পরিণত হয়েছে। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন স্তর থেকে দেশটিকে সন্ত্রাসবাদের পক্ষ থেকে ফেরানোর চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু দেশটি উক্ত ধর্মীয় গোষ্ঠীর হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে। অভিযোগ রয়েছে, দেশটির রাজনৈতিক দল, প্রতিরক্ষা বিভাগ, গোয়েন্দা সংস্থার সর্বত্র উগ্রবাদীদের বিচরণ রয়েছে। এ অবস্থায় তারা সহসাই শান্তির পক্ষে ফিরবে বলে মনে হয় না। সে ক্ষেত্রে বুদ্ধিমানের কাজ হচ্ছে, পাকিস্তানের ওপর বৈশ্বিকভাবে অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক চাপ প্রয়োগ করা। কাজটি করতে হবে এ অঞ্চলের শান্তিকামী সব শক্তিকে একজোট হয়ে।

দৈনিক সংবাদ : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৬ এর পাতায় প্রকাশিত

স্বাধীনতা দিবস- আটচল্লিশ বছর পর

চল্লিশ বছর আগে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল একটি সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে। এর আগে

গণতান্ত্রিক রাজনীতির নতুন সূচনা হোক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের পর প্রথম সভা হয়েছে গত শনিবার। বৈঠকে নবনির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নূরসহ বাকি

নিরাপদ সড়কের প্রশ্নে গণমুখী ভূমিকা পালন করুন

রাজধানীর প্রগতি সরণিতে গত মঙ্গলবার সকালে বাসচাপায় মারা গেছেন বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী।

sangbad ad

পাহাড়ে হত্যার রাজনীতির অবসান চাই

রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়িতে গত সোমবার সশস্ত্র হামলায় সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার, আনসার-ভিডিপির

উপজেলা নির্বাচনে সহিংসতা রোধে কঠোর হোন

উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে জয়পুরহাটের কালাইয়ে গত শনিবার দু’জন মারা গেছে। নিহতদের

রাজধানীর বায়ুদূষণ রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নিন

ঢাকায় বায়ুদূষণের সময় দীর্ঘ হচ্ছে। গত বছর ১৯৭ দিন রাজধানীবাসী দূষিত বাতাসে

গ্যাসের দাম না বাড়িয়ে চুরি-দুর্নীতি বন্ধ করুন

আবাসিকসহ সব ধরনের গ্যাসের দাম গড়ে প্রায় ১০৩ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে

এগিয়ে যাওয়াই সব সংগঠনের কর্তব্য

অনিয়মের অভিযোগ ও বর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ

আদিবাসী ও দলিত সম্প্রদায়ের সব নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে

দেশের আদিবাসী ও দলিত জনগোষ্ঠীর নাগরিক অধিকার ও সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে বৈষম্যের

sangbad ad