• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯

 

নিরাপদ সড়কের প্রশ্নে গণমুখী ভূমিকা পালন করুন

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০১৯

রাজধানীর প্রগতি সরণিতে গত মঙ্গলবার সকালে বাসচাপায় মারা গেছেন বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী। পথচারী পারাপারের জন্য নির্ধারিত জেব্রা ক্রসিং দিয়ে পার হওয়ার সময় তিনি এ দুর্ঘটনার শিকার হন। তার মৃত্যুর ঘটনায় শিক্ষার্থীরা গত দুই দিন ধরে সড়কে বিক্ষোভ করছে। দুর্ঘটনার জন্য দায়ী চালককে গ্রেফতার করা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট পরিবহনের নিবন্ধন বাতিল করা হয়েছে। জানা গেছে, অভিযুক্ত চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স ছিল না। বিআরটিও বলছে, বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানোর কারণেই উক্ত দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনার পর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম সড়কে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দেন। ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, যেভাবেই হোক সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা হবে।

শিক্ষার্থীদের ওপর বাস উঠিয়ে দিয়ে হত্যার ঘটনা নতুন নয়। গত বছর জুলাইয়ে রাজধানীতে ফুটপাতে দাঁড়িয়ে থাকা দুই শিক্ষার্থীর ওপর বাস উঠিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটে। সেই ঘটনায় দেশজুড়ে কয়েক দিন শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন গড়ে তোলে। আন্দোলনের পক্ষে সরকার দ্রুত সড়ক পরিবহন আইন পাস করে। যদিও আইনটির দুর্বলতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। সে সময় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের হেলমেট বাহিনী দিয়ে পেটানো হয়। সবই পরিবহন মালিক- শ্রমিকদের পক্ষে গেছে। সরকার তখন প্রকারান্তরে নিরাপদ সড়কের দাবির বিপরীতে অবস্থান নিয়েছে।

সরকারের বিপরীতমুখী এ অবস্থান এখনও অব্যাহত আছে। পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের গডফাদারদের সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। যেই ব্যক্তির বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে দেশে ছাত্রবিক্ষোভ হয়েছিল সেই ব্যক্তিকে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণ কমিটির প্রধান করা হয়েছে। আর এ কারণেই ড্রাইভাররা এখনও লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালাচ্ছে, জেব্রা ক্রসিংয়ে মানুষ হত্যা করছে। পরিবহন খাতের গডফাদাররা পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের পিঠ রক্ষা করতে চাইবে সেটাই স্বাভাবিক। প্রশ্ন হচ্ছে, সরকার কেন সব ক্ষেত্রে তাদের স্বার্থকেই প্রাধান্য দিচ্ছে। পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা বিআরটিসির বাস চলতে দেয় না। রেল যোগাযোগও তাদের জন্য বিঘ্নিত হয়। সরকার নির্বিকার থাকে। তারা লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালাতে চায় সরকার তাদের লাইসেন্স ছাড়াই রাস্তায় নামতে দেয়। তারা ফিটনেসবিহীন গাড়ি চালাতে চায়, সরকার সেটা মেনে নেয়। পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা নাগরিকদের হত্যা করলে প্রকারান্তরে সেটাও মেনে নিচ্ছে সরকার। এর বিপরীতে নিরাপদ সড়কের জন্য গণমানুষের কোন দাবি মানা হয় না। অবস্থাদৃষ্ট মনে হয়, এ সরকার গরু-ছাগল চেনা ড্রাইভার-হেলপার এবং তাদের গডফাদারদের সরকার। নিরাপদ সড়কের প্রশ্নে সরকার যতদিন গণমুখী না হবে ততদিন সড়কে তো বটেই ফুটপাতে, সড়কসংলগ্ন ঘর বা দোকানেও পরিবহনগুলো মানুষ হত্যা করতে থাকবে। নিরাপদ সড়কের দাবিতে আমরা শুধু একটি কথাই বলতে চাই, সরকারকে গণমুখী হতে হবে। সেটা হলে যৌক্তিক সব দাবিই বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

দৈনিক সংবাদ : ২১ মার্চ ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৬ এর পাতায় প্রকাশিত

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে চাই কঠোর মনিটরিং

আসন্ন রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে থাকবে বলে আশ্বস্ত করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রিসাইক্লিংয়ে পরিকল্পিত ও স্থায়ী উদ্যোগ নিন

ইলেকট্রনিক পণ্যের ব্যবহার বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে ইলেকট্রনিক বা ই-বর্জ্যরে পরিমাণও। এসব ই-বর্জ্যরে দূষণ থেকে প্রাণ ও প্রকৃতিকে রক্ষা

বর্ষার আগেই ঢাকাডুবি কেন নগর কর্তৃপক্ষ কী করছে

চৈত্র মাসেই বৃষ্টির পানি জমে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে রাজধানী ঢাকার বেশিরভাগ এলাকার রাস্তা

sangbad ad

পুলিশের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে হবে

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টার মামলায় স্থানীয় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভিকটিমের স্বজনরা।

স্বাভাবিক পুঁজিবাজার চাই অনৈতিক কারসাজি দমন করুন

দেশের পুঁজিবাজারে এখনও কারসাজি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্বার্থান্বেষী একটি গোষ্ঠী দুই স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক সুকৌশলে নিয়ন্ত্রণ করছে এমন

দ্রুত সম্পন্ন করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব

অর্পিত সম্পত্তি অবমুক্তির লাখো মামলা বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে। মামলা নির্ধারিত সময়ে নিষ্পত্তি হচ্ছে কিনা তা মনিটর করার কেউ

রোজার মাসে ভোগ্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখুন

রমজান সামনে রেখে এরই মধ্যে অস্থির হয়ে উঠতে শুরু করেছে ভোগ্যপণ্যের বাজার। বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম কোন কারণ ছাড়াই

রাজধানী কি এবারও জলাবদ্ধ হয়ে পড়বে

রাজধানীর অনেক এলাকা আগামী বর্ষাতেও জলাবদ্ধ হয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন হতে হবে

অগ্নিকান্ড রোধ এবং এর ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৫টি নির্দেশনা দিয়েছেন। গত সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত

sangbad ad