• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

 

কোরবানির পশুর চামড়া নিয়ে এবারও সিন্ডিকেটের কারসাজি

দায়ীদের চিহ্নিত করে আইনি ব্যবস্থা কি নেবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ০৬ আগস্ট ২০২০

এবারও কোরবানির চামড়া নিয়ে কারসাজি হয়েছে বলে দাবি করছেন মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ীরা। কোরবানির পশুর চামড়ার দামে আবারও বিপর্যয় ঘটানো হয়েছে বলে তাদের দাবি। এর জন্য তারা মূলত আগের মতোই চামড়া-সিন্ডিকেটকে দায়ী করেছেন। একই সঙ্গে সরকারি অর্থাৎ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কাজে এবং দায়িত্ব পালনে শিথিলতা ও দায়িত্বহীনতাকেও দায়ী করেন ব্যবসায়ীরা। তাদের অভিযোগ হচ্ছে সিন্ডিকেটের কারসাজি রোধে পূর্বের বছরগুলোর মতো এবারও সরকারের পক্ষ থেকে কোন কার্যকর উদ্যোগ ছিল না। কোরবানির মৌসুমে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় যে উদ্যোগ অর্থাৎ সিন্ডিকেটের কারসাজি বা চামড়ার দাম নিয়ে কোন রকম কারসাজির বিরুদ্ধে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যে কঠোর মনিটরিং থার দরকার ছিল তার কিছুই দেখা যায়নি। কিছু ঘোষণা এবং ফাকা বুলি আউড়িয়েই বাণিজ্য মন্ত্রণালয় তাদের দায়িত্ব কর্তব্য শেষ করেছে। চামড়া সিন্ডিকেট যখন যখন কোরবানির পশুর দাম অস্বাভাবিকভাবে কমিয়ে অনৈতিকভাবে কয়েক হাজার কোটি টাকার বাণিজ্য নিশ্চিত করে ফেলেছে তখন বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে ঘোষিত মূল্য না মানলে ট্যানারি মালিকদের বিরুদ্ধে ভোক্তা আইনে মামলা করা হবে। এ যেন যার যার কাজ ভাগ করার ব্যাপার অর্থাৎ ডিভিশন অফ লেবার। চামড়া সিন্ডিকেট তাদের কাজ করে যাবে, কৌশল করে অনৈতিকভাবে চামড়ার দাম কমিয়ে মৌসুমি ব্যবসায়ীদের বছরের পর বছর ঠকিয়ে যাবে। অন্যদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় হুঁশিয়ারি দিয়ে যেতে থাকবে কিন্তু এর বিরুদ্ধে কোন বছরই কিছু করবে না। এবারও ঠিক তাই ঘটেছে বা ঘটানো হয়েছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন সিন্ডিকেটের পাশাপাশি ঘোষিত মূল্য বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়ের যেমন মনিটরিং ছিল না, তেমনি ছিল সমন্বয়হীনতা, এছাড়াও শেষ মুহূর্তে রফতানির অনুমতি প্রদান এই বিপর্যয় সৃষ্টির অন্যতম কারণ।

হতাশ হয়ে ব্যবসায়ীরা চামড়া ফেলে দিয়েছেন এমন ঘটনা চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দেখা গেছে। ব্যবসায়ীদের হতাশার কারণ অনুসন্ধান করে সুরাহা করার পরিবর্তে বাণিজ্য সচিবকে বলতে শোনা গেছে, চট্টগ্রামে ১২শ’ চামড়া ফেলার ঘটনাটি এক ধরনের সাবোটাজও হতে পারে। আমাদের দেশে প্রশাসনের ব্যর্থতাকে ষড়যন্ত্র বা সাবোটাজ হিসেবে অভিহিত করবার একটা অসুস্থ সংস্কৃতি দাঁড়িয়ে গেছে। এটা হচ্ছে দায়িত্ব এড়ানো এবং ব্যর্থতাকে আড়াল করবার একটি অগ্রহণযোগ্য এবং দায়িত্বহীন প্রচেষ্টা। তবে কী না দেশের মানুষকে বোকা এবং অসচেতন ভাববার ভুল বারবার করা সমীচীন নয়। মানুষ সবই দেখছে এবং সবই বুঝতে পারছে। তারা ঠিকই বোঝেন কোনটা ষড়যন্ত্র-সাবোটাজ আর কোনটা কর্তৃপক্ষের দায়িত্বহীনতা।

সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে এ বিপর্যয়ের দায় নিচ্ছে না কেউ। যেন এত বড় বিপর্যয় এমনি এমনি ঘটে গেল; কেউ পরিকল্পিতভাবে ঘটায়নি, যেন এখানে নেই কোন অনৈতিক ব্যবসায়ী পক্ষ বা সিন্ডিকেট। যেন সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্তৃপক্ষের কোন দায়-দায়িত্বই নেই, নেই তাদের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতা। এরকম একটি অবাস্তব পরিস্থিতি এই দেশকে আর কতদিন দেখতে হবে সেটাই আমাদের জিজ্ঞাসা।

বিপর্যয় রোধ করবার কোন উদ্যোগ গ্রহণে ব্যর্থ বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবার অন্তত সিন্ডিকেটকে চিহ্নিত করতে তো পারে যদি তারা তাদের দায়িত্ব পালনে সৎ প্রচেষ্টা গ্রহণ করে। আমরা মনে করি এবার বিপর্যয় রোধ করা না গেলেও, ব্যবসায়ীদের পথে বসার মতো ক্ষতি থেকে রক্ষা করা না গেলেও এবং সিন্ডিকেটের রাঘববোয়ালদের চিহ্নিত করা এখনও সম্ভব। যদি বাণিজ্য মন্ত্রণালয় তাদের দায়িত্ব এখনও পালন করার চেষ্টা করে, তবে এবারের না হলেও ভবিষ্যতের সিন্ডিকেট-ষড়যন্ত্র রোধ করার লক্ষ্যে হোতাদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে এবারই কঠোর আইনি ব্যবস্থা নিতে উদ্যোগী হতে পারে। তাহলে অন্তন্ত চামড়া ব্যবসায়ীরা আগামীতে সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্য থেকে রক্ষা পেতে পারে। এটা সম্ভব, আমাদের প্রত্যাশা বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কাজটি করবে। তবে, লাখ টাকার প্রশ্ন হলো সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় কাজটি করবে কী না।

কারাবন্দী প্রবাসী শ্রমিকদের অবিলম্বে মুক্তি দিন

ভিয়েতনাম ও কাতার ফেরত ৮৩ প্রবাসী শ্রমিককে বন্দীদশা থেকে মুক্তি দিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না সেটা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

দুর্নীতির রাঘববোয়ালদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে

দেশে দুর্নীতি এবং অনিয়মের মাত্রা কোন পর্যায়ে পৌঁছেছে তার একটি স্বচ্ছ ধারণা পাওয়া যায় সাম্প্রতিক সময়ের দুটি আলোচিত খবরে

ধান-চাল সংগ্রহ প্রক্রিয়ার ব্যর্থতা দায় নেবে কে?

সময় বাড়িয়েও নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার ধান-চাল সংগ্রহ করতে পারেনি খাদ্য মন্ত্রণালয়। এবার মোট ১৯ লাখ ৫০ হাজার টন ধান-চাল সংগ্রহের

sangbad ad

বন্ধ করুন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গত দুই বছরে দেশে মামলা হয়েছে এক হাজারেরও বেশি।

মিঠাপুকুরে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলাকারী আওয়ামী লীগ নেতা ও সহযোগীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিন

সম্প্রতি রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীরহাট ঈদুলপুর এলাকায় শত বছর ধরে বসবাস করা

সড়ক দুর্ঘটনা একটি গুরুতর জাতীয় সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ কোথায়

সংবাদমাধ্যমে প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির খবর প্রকাশিত হয়।

সরকারি কেনাকাটায় এখন ‘মহাসাগর চুরি’ এই মহাদুর্নীতি বন্ধ করতে ব্যর্থ হলে মহাবিপর্যয়ে পড়তে হবে

দেশে যে পুকুরচুরি এখন অপ্রতিহত গতিতে মহাসাগর চুরির দিকে ধাবিত হচ্ছে, সম্প্রতি

যথাসময়ে প্রকল্প বাস্তবায়নে সক্ষমতা বাড়াতে হবে, দুর্নীতি দূর করতে হবে

মেগা প্রকল্পগুলোর সময় ও ব্যয় দফায় দফায় বেড়েই চলেছে। সময় ও ব্যয় বাড়িয়েও প্রকল্পের কাজে কাক্সিক্ষত গতি আনা যাচ্ছে না। সরকারের

অপব্যবহারকারী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করুন

সরকারের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে গাড়ি কেনার জন্য বিনা সুদে ৩০ লাখ টাকা ঋণ নিয়েছেন, চালকের বেতন এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রতি

sangbad ad