• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০

 

টিসিবির পণ্য কেনাবেচায় অনিয়মের অভিযোগ

তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০

চট্টগ্রাম মহানগরীর দোকানগুলোতে ভরে গেছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) পণ্য। এসব মুদি ব্যবসায়ীদের চালাকিতে প্রয়োজনীয় পণ্য পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ সাধারণ ভোক্তাদের। আজ মঙ্গলবার প্রকাশিত সংবাদের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, চট্টগ্রাম মহানগরীর ১২টি এলাকায় ট্রাকে করে টিসিবি নিত্যপণ্য ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করলেও নিম্ন-মধ্যবিত্তদের জন্য এ পণ্য ঘুরে-ফিরে পাড়া-মহল্লার মুদি দোকানে চলে যাচ্ছে।

টিসিবি পণ্য মুদি দোকানে চলে যাওয়ার বিষয়টি অত্যন্ত উদ্বেগজনক। বিষয়টি যে শুধুই চট্টগ্রামে হচ্ছে তা নয়, গোটা দেশেই এ ধরনের অভিযোগের খবর শোনা যাচ্ছে। এর ফলে সাধারণ ভোক্তারা যেমন ন্যায্যমূল্যে পণ্য ক্রয়ের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তেমনি টিসিবির পণ্য কমদামে কিনে সুযোগসন্ধানী মুনাফাখোররা টাকার পাহাড় গড়ছেন।

অভিযোগ রয়েছে, টিসিবির অভ্যন্তরেই একটি অবৈধ সিন্ডিকেট কাজ করে। এই সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্যের ফলে নিম্ন আয়ের ভোক্তাদের কাছে সরকার নির্ধারিত ন্যায্যমূল্যে পণ্য পৌঁছে দেয়া ও বাজারে সামঞ্জস্যতা বজার রাখতে সরকারের নেয়া উদ্যোগ ব্যাহত হচ্ছে। প্রশ্ন হলো, টিসিবির পণ্য মুদি দোকানে যায় কী করে? অনুসন্ধানে দেখা যায়, দোকানিরা চিরকুট বা সিগন্যালের মাধ্যমে টিসিবির ট্রাকে থাকা বিক্রয়কর্মীকে তাদের হিসেব বুঝিয়ে দেয়। লাইন ধরে থাকা ক্রেতাদের সামনে দোকানি ও টিসিবির বিক্রয়কর্মীর এ বোঝাপড়া হলেও তারা কিছুই বুঝতে পারেন না। ফলে লাইন ধরেও পণ্য না পাওয়ায় কেউ কেউ হতাশা, আবার কেউ কেউ ক্ষোভ নিয়ে গন্তব্যে ফিরেন।

দেশে যখন নিত্যপণ্যের দাম আকাশচুম্বী তখন টিসিবির পণ্যের মাধ্যমেই নিম্ন আয়ের মানুষ তাদের স্বাভাবিক জীবনধারা বজায় রাখতে পারে। সেটিও যদি তারা না পায় বা যদি এক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয় তবে সাধারণ মানুষের জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠবে, যা কোনভাবেই কাক্সিক্ষত নয়। টিসিবির ন্যায্যমূল্যে পণ্য বিক্রয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ বিষয়ে সজাগ ও সতর্ক হতে হবে। বিক্রয় কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে কি না, এক্ষেত্রে কোন ধরনের অনিয়ম-অসঙ্গতি রয়েছে কিনা তা যথার্থভাবে মনিটরিং করতে হবে। অনিয়মের সঙ্গে কেউ জড়িত হলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইন মোতাবেক কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।

ভ্রাতৃঘাতি সংঘাতের অবসান চাই

পার্বত্য শান্তিচুক্তির ২৩ বছর পূর্তি হয়েছে আজ। ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর স্বাক্ষরিত শান্তিচুক্তির মধ্য দিয়ে পার্বত্যাঞ্চলে দুই দশকের বেশি সময় ধরে চলা সশস্ত্র আন্দোলনের অবসান ঘটে।

দখল হওয়া বনভূমি স্থায়ীভাবে পুনরুদ্ধার করুন

সারাদেশে দখল হওয়া ২ লাখ ৮৭ হাজার ৪৫২ একর বনভূমির মধ্যে ১ লাখ ৩৮ হাজার ৬১৩ একর সংরক্ষিত বনভূমি উদ্ধারে অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিবেশ বন ও জনবায়ু বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

যথাসময়ে বিনামূল্যের বই ছাপা ও সরবরাহ নিশ্চিত করুন

২০২১ শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন মাধ্যমের প্রাক-প্রাথমিক থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত পাঠ্যবই ছাপাতে হবে প্রায় ৩৬ কোটি।

sangbad ad

ডেঙ্গু ও নিপাহ ভাইরাস নিয়েও সতর্ক থাকতে হবে

আসন্ন শীতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের পাশাপাশি বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। এ বছরের গত রোববার পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরে সর্বমোট আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ১৩৪ জন।

মহান বিজয়ের মাস

আগামী ১৬ ডিসেম্বর ৫০তম বিজয় দিবস। একাত্তরে লাখো শহীদের আত্মত্যাগ, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের

ধান চাল সংগ্রহ : কৃষক যেন লাভবান হয়

দেশের বিভিন্ন স্থানে কৃষকরা সরকারের কাছে ধান-চাল বিক্রিতে আগ্রহ

কোভিডে ক্ষতিগ্রস্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতিশ্রুত ক্ষতিপূরণ দিন

নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কেউই প্রতিশ্রুত ক্ষতিপূরণ পাননি।

আবাদযোগ্য জলাশয়গুলো কচুরিপানামুক্ত করুন

পানি কমে গেলেও পাবনার সুজানগর উপজেলার গাজনার বিলের কৃষকরা চাষাবাদ শুরু করতে পারছেন না।

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যবিরোধীদের কাছে নতিস্বীকার করা চলবে না

দেশে কোন ভাস্কর্য তৈরি হলে টেনেহিঁচড়ে ফেলে দেয়ার হুমকি দিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের নব্য আমির জুনায়েদ বাবু নগরী।

sangbad ad