• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯

 

কৃষককে ধান-চালের উৎপাদন মূল্যের বেশি নিশ্চিত করতে হবে

নিউজ আপলোড : ঢাকা , শনিবার, ০২ মার্চ ২০১৯

মোটা চালের ধানের বাজার মূল্য দুই মাসে ১৩০ থেকে ১৭০ টাকা হ্রাস পেয়েছে। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে এক মণ মোটা ধান স্বর্ণা, গুটিস্বর্ণা বা বিআর-১১ বাজার দর ছিল গড়ে ৭৫০ টাকা, বর্তমানে এর দর দাঁড়িয়েছে বাজার ভেদে ৫৮০ থেকে ৬২০ টাকা। জানুয়ারি মাসেও এই দর ছিল ৬৫০ টাকা মণ। উল্লেখ্য, মোটা ধান বাংলাদেশের মোট আমন উৎপাদনের (১ কোটি চল্লিশ লাখ টন) ৩৫ শতাংশ। একটি ইংরেজি দৈনিকের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

বাজারের অবস্থা দেখে কৃষকরা মনে করছেন দ্রুতই বাজারে ধানের দরবৃদ্ধি, এমনকি উৎপাদন ব্যয়ের কাছাকাছি উঠবে না। এমতাবস্থায় আগামী ফসলে চাষের পরিমাণ কমবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক বলেছেন, ধানের বাজার দর না বাড়লে কৃষকরা আগামী আউশ মৌসুমে ধান চাষে আগ্রহ হারাবে। কৃষি শ্রমের মজুরির কথা বাদ দিলেও পরবর্তী ফসলের জন্য কৃষি ইনপুট অর্থাৎ সার, বীজ, কীটনাশক এবং পানির ব্যয় মেটানোই অসম্ভব হয়ে পড়বে বলে মনে করছেন চাষিরা। কারণ এ অবস্থায় কৃষকরা আবার ঋণের দুষ্টচক্রে আবদ্ধ হয়ে পড়তে পারেন। নিঃস্ব প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হলে গ্রামীণ অর্থনীতিতে বৈষম্য বৃদ্ধির আশঙ্কাও তৈরি হতে পারে।

এ অবস্থার জন্য ক্রমবর্ধমান কৃষি উৎপাদন এবং ধারাবাহিক উদ্বৃত্তকে দায়ী করেছেন চালকল মালিকদের সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক। বস্তুত উদ্বৃত্ত কৃষি উৎপাদন এবং নিম্নগামী ধানের দরের সঙ্গে যে সম্পর্ক রয়েছে সে বিষয়ে কোন দ্বিমত নেই। এ সম্পর্কটি যদি বাড়তি উৎপাদন ও নিম্নগামী বাজার দরের দুষ্টচক্রে পরিণত হয় তবে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে কৃষক। বাস্তব হলো এ চক্রটি বারবারই ফিরে আসবে।

এ চক্র থেকে কৃষককে বের করে নিয়ে আসতে হবে। এজন্য সরকারকেই কৃষি উৎপাদন ও বাজারে ইতিবাচকভাবে হস্তক্ষেপ করতে হবে। প্রথমত বাজার থেকে ধান এবং চাল ক্রয় বৃদ্ধি করতে হবে। এ প্রসঙ্গে উল্লিখিত প্রতিবেদনে কৃষি সচিবের উদ্ধৃতি দিয়ে উল্লেখ করা হয়েছে, আমন মৌসুমে অতিরিক্ত হারে চাল কেনার জন্য কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে খাদ্য মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হবে। যেন বাজারে এর প্রভাব পড়ে অর্থাৎ বাজারদর বৃদ্ধি পায়। তবে সরকারি ক্রয় সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে করা হলে অর্থাৎ ক্রয় প্রক্রিয়ায় দালাল বা ফড়িয়া না থাকলে ধান-চালের মূল্য কৃষক অধিকতর হারে পেতে পারে। খাদ্য মন্ত্রণালয়কে সরাসরি ক্রয়ের ওপর জোর দিতে হবে। কৃষি উৎপাদন এবং চাষের ইনপুটে সরকারি ব্যয় বৃদ্ধির কথাও জানিয়েছেন কৃষি সচিব। উদ্যোগটি ভালো নিঃসন্দেহে, তবে যেন যথাযথভাবে বাস্তবায়িত হয় সে ব্যাপারে মনিটরিং প্রয়োজন হবে।

কৃষিতে সরকারি ব্যয়ের পাশাপাশি কৃষকের জন্য মূল্যের ওপর বাজার-ইনসেনটিভ প্রদানের ব্যবস্থাও করা যেতে পারে, যেমন অনেক দেশে করা হয়ে থাকে। কৃষি খাতের যে কোন বিপর্যয় গোটা অর্থনীতি এবং জনজীবনে বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে। সরকারকে ধানচালের মূল্যের ব্যাপারে সব মিলিয়ে প্রয়োজনীয় কিন্তু বাস্তবসম্মত নীতি গ্রহণ করতে হবে এবং এ নীতির আলোকে সিদ্ধান্ত নিয়ে দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে।

দৈনিক সংবাদ : ২ মার্চ ২০১৯, শনিবার, ৬ এর পাতায় প্রকাশিত

সমাজ ও ব্যক্তির জন্য সৃষ্টি হচ্ছে ভয়াবহ সংকট

দেশে সংস্কৃতিচর্চার সুযোগ দিন দিন কমছে। সরকারি সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে পেশাদারি, জবাবদিহি ও আন্তরিকতার অভাব। সংস্কৃতি

দেশের বাঁধগুলোর সক্ষমতা বাড়াতে হবে সংস্কারের লক্ষ্যে মনিটরিং করুন

ঘূর্ণিঝড় ফণী বাংলাদেশ অতিক্রম করে গেছে। ভারতের ওড়িশা উপকূলে আঘাত হানার পর পশ্চিমবঙ্গ হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে ঘূর্ণিঝড়।

পরিবহন সেক্টরকে মাফিয়ামুক্ত করুন

সাত দফা দাবিতে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘটে গত সোমবার দিনভর দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত

sangbad ad

জঙ্গিবাদের হুমকি মোকাবিলায় ঐক্য গড়ে তুলুন

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গে হামলার পরিকল্পনা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত বৃহস্পতিবার

গণধর্ষণ মামলার চার্জশিট প্রশ্নবিদ্ধ পুলিশের ভূমিকা

সুবর্ণচরে গণধর্ষণের শিকার নারীর অভিযোগ ছিল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজের পছন্দের প্রতীকে ভোট দেয়ায় তার ওপর নির্যাতন হয়েছে

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থা ত্রুটিমুক্ত করতে হবে

চাহিদার চেয়ে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা থাকলেও বিদ্যুৎ বিভাগ মানসম্মত বিতরণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে না পারায়

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে চাই কঠোর মনিটরিং

আসন্ন রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে থাকবে বলে আশ্বস্ত করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রিসাইক্লিংয়ে পরিকল্পিত ও স্থায়ী উদ্যোগ নিন

ইলেকট্রনিক পণ্যের ব্যবহার বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে ইলেকট্রনিক বা ই-বর্জ্যরে পরিমাণও। এসব ই-বর্জ্যরে দূষণ থেকে প্রাণ ও প্রকৃতিকে রক্ষা

বর্ষার আগেই ঢাকাডুবি কেন নগর কর্তৃপক্ষ কী করছে

চৈত্র মাসেই বৃষ্টির পানি জমে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে রাজধানী ঢাকার বেশিরভাগ এলাকার রাস্তা

sangbad ad