• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৯

 

উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ও মানবাধিকার অপরিহার্য

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখার জন্য মতপ্রকাশের ও নাগরিক স্বাধীনতা জরুরি। মানবাধিকার, নিরাপত্তা ও উন্নয়ন- এগুলো একসূত্রে গাঁথা। এর একটা ছাড়া অন্যটা অর্জন সম্ভব নয়। গত রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘বাংলাদেশ ও মানবাধিকার’ শীর্ষক এক সেমিনারে দেশি-বিদেশি মানবাধিকার বিশেষজ্ঞদের আলোচনায় একথা উঠে এসেছে। একই সঙ্গে তারা গণতন্ত্র, সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও সরকারি প্রতিষ্ঠানের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার ওপরও জোর দিয়েছেন।

আমরাও মনে করি, মানবাধিকার, গণতন্ত্র, সুশাসন এবং উন্নয়ন একে অন্যের পরিপূরক। এর কোন একটির অনুপস্থিতিতে উন্নয়ন কখনোই টেকসই হয় না। দায়িত্বশীলতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হলেই প্রতিষ্ঠিত হয় সুশাসন। অন্যভাবে বলা যায়, যে শাসন প্রক্রিয়ায় জনগণের অংশগ্রহণ, আইনের শাসন, অবাধ তথ্য প্রবাহ, জনগণের উন্নত সেবা প্রাপ্তি, কর্তৃপক্ষের দায়বদ্ধতা ও সাম্য বিরাজ করে সেটাই সুশাসন। সুশাসনের মাধ্যমে জনগণ তাদের আশা-আকাক্সক্ষাকে প্রকাশ করতে পারে, অধিকার ভোগ করে এবং তাদের চাহিদা মেটাতে পারে। সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হলে সামাজিক সাম্য, নাগরিক অধিকার, গণতান্ত্রিক সমাজ এবং স্থিতিশীল রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা পায়। সুশাসন ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় এবং সামাজিক অধিকার রক্ষায় কাজ করে। আর এভাবেই ত্বরান্বিত হয়ে থাকে জাতীয় উন্নয়ন।

আবার মানবাধিকার ছাড়াও উন্নয়ন পরিপূর্ণতা পায় না। নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার সুরক্ষায় ঘাটতি এবং নাগরিক সমাজের মতপ্রকাশের সুযোগ সংকুচিত হলে মানবাধিকার সুরক্ষা করা যায় না। বাংলাদেশের জন্মই হয়েছে মানবাধিকার সমুন্নত রাখার তাগিদ থেকে। মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিলই মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। সুতরাং বাংলাদেশে মানবাধিকারের ওপরে আর কোন কিছুর অবস্থান হতে পারে না। বাংলাদেশে কোন বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড হতে পারে না। জাহালমের ঘটনার মতো কোন ঘটনা এ দেশে ঘটা উচিত নয়, যে বহু বছর জেল খাটার পর নির্দোষ হিসেবে ছাড়া পায়।

একই কথা গণতন্ত্রের ক্ষেত্রেও। অর্থাৎ গণতন্ত্র ছাড়াও উন্নয়ন টেকসই হয় না। পঞ্চাশের দশকে যখন সামরিক শাসক আইয়ুব খান এসেছিল, একটা কথা তখন প্রায়ই বলা হতো যে, উন্নয়নের জন্য গণতন্ত্র একটি বাধা। কিন্তু আমরা মনে করি, কথাটা ভুল। টেকসই উন্নয়ন করতে চাইলে সেটার জন্য একটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অপরিহার্য এবং জরুরি।

আমরা এমন বাংলাদেশ দেখতে চাই, যে বাংলাদেশ হবে মানবাধিকারের প্রতি সম্পূর্ণ শ্রদ্ধাশীল, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধসম্পন্ন একটি সভ্য রাষ্ট্র। আর সেটা শুধু নাগরিক-রাজনৈতিক অধিকারে নয়, অর্থনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক অধিকারে সমৃদ্ধ। এসব অধিকার সমান গুরুত্ব যেন বহন করে আর রাষ্ট্র সেগুলো নিশ্চিত করা তার দায়িত্ব ও কর্তব্য মনে করে, সেজন্য যা যা পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন তা অবশ্যই গুরুত্ব সহকারে বিবেচনায় নিতে হবে। রাষ্ট্রের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে এমন একটা পরিবেশ যেন দৃশ্যমান হয়, যাতে করে আমরা বুঝতে পারি, মানবাধিকার পরিস্থিতির যে অগ্রগতি হচ্ছে তা এক সময় সব নাগরিকের সব মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে পারবে।

(মঙ্গলবার, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, দৈনিক সংবাদের ৬ এর পাতায় প্রকাশিত)

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে চাই কঠোর মনিটরিং

আসন্ন রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে থাকবে বলে আশ্বস্ত করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রিসাইক্লিংয়ে পরিকল্পিত ও স্থায়ী উদ্যোগ নিন

ইলেকট্রনিক পণ্যের ব্যবহার বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে ইলেকট্রনিক বা ই-বর্জ্যরে পরিমাণও। এসব ই-বর্জ্যরে দূষণ থেকে প্রাণ ও প্রকৃতিকে রক্ষা

বর্ষার আগেই ঢাকাডুবি কেন নগর কর্তৃপক্ষ কী করছে

চৈত্র মাসেই বৃষ্টির পানি জমে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে রাজধানী ঢাকার বেশিরভাগ এলাকার রাস্তা

sangbad ad

পুলিশের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে হবে

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টার মামলায় স্থানীয় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভিকটিমের স্বজনরা।

স্বাভাবিক পুঁজিবাজার চাই অনৈতিক কারসাজি দমন করুন

দেশের পুঁজিবাজারে এখনও কারসাজি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্বার্থান্বেষী একটি গোষ্ঠী দুই স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক সুকৌশলে নিয়ন্ত্রণ করছে এমন

দ্রুত সম্পন্ন করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব

অর্পিত সম্পত্তি অবমুক্তির লাখো মামলা বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে। মামলা নির্ধারিত সময়ে নিষ্পত্তি হচ্ছে কিনা তা মনিটর করার কেউ

রোজার মাসে ভোগ্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখুন

রমজান সামনে রেখে এরই মধ্যে অস্থির হয়ে উঠতে শুরু করেছে ভোগ্যপণ্যের বাজার। বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম কোন কারণ ছাড়াই

রাজধানী কি এবারও জলাবদ্ধ হয়ে পড়বে

রাজধানীর অনেক এলাকা আগামী বর্ষাতেও জলাবদ্ধ হয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন হতে হবে

অগ্নিকান্ড রোধ এবং এর ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৫টি নির্দেশনা দিয়েছেন। গত সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত

sangbad ad