• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯

 

আইনের শাসন সূচকে বাংলাদেশের অবনতি হতাশাজনক

উন্নয়ন নিশ্চিত করার জন্য আইনের শাসন অপরিহার্য

নিউজ আপলোড : ঢাকা , রোববার, ০৩ মার্চ ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা দ্য ওয়ার্ল্ড জাস্টিস প্রজেক্টের (ডব্লিউজেপি) বৈশ্বিক আইনের শাসন সূচকে ১২৬টি দেশের মধ্যে ১১২তম অবস্থান পেয়েছে বাংলাদেশ। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান গত বছরের মতোই চতুর্থ। এক্ষেত্রে নেপাল, শ্রীলংকা ও ভারত বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে আছে। পেছনে রয়েছে পাকিস্তান ও আফগানিস্তান। ডব্লিউজেপি গত বৃহস্পতিবার ‘আইনের শাসন সূচক-২০১৯’ শীর্ষক প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে।

আইনের শাসন সূচকে বাংলাদেশের এ অবস্থান হতাশাজনক। জনসাধারণের চোখে আমাদের দেশে আইনের শাসনের অবস্থা যে শোচনীয়, তারই প্রতিফলন ঘটেছে এতে। এ অবস্থান আমাদের সার্বিক অগ্রগতির সঙ্গে মোটেই সঙ্গতিপূর্ণ বলা যাবে না। সরকারের পক্ষ থেকে মনে করা হয়, বড় বড় সড়ক-সেতু ও অবকাঠামো নির্মাণ করলেই দেশের উন্নতি হয়ে যায়। এসব উন্নতি আমরাও চাই, কিন্তু তার সুবিধা দেশের সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে হলে দেশে আইনের শাসন নিশ্চিত করতে হবে। কেননা কার্যকর আইনের শাসন জনগণের মধ্যে ন্যায্যতা, সবার জন্য সমান সুযোগ ও শান্তি নিশ্চিত করে।

সংবিধান অনুযায়ী, প্রত্যেক নাগরিকের রয়েছে ন্যায়বিচার পাওয়ার অধিকার। অর্থাৎ আইনের চোখে সবাই সমান। কিন্তু আমাদের দেশে এ কথাটি মুখে সত্য হলেও বাস্তবে তা নেই। সাধারণ জনগণ প্রতিটি ক্ষেত্রেই হচ্ছে অবহেলিত। সবাই তাদের ব্যবহার করে। প্রতিটি এলাকায়ই রয়েছে কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি, যাদের হাতে বন্দী ওই এলাকার সাধারণ জনগণ। যারা প্রতিনিয়ত এই প্রভাবশালী লোকদের দ্বারা শোষিত ও অত্যাচারিত হচ্ছে। প্রভাবশালীরা সহজেই বিচার পেলেও সাধারণ মানুষ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সুবিচার পায় না। আবার অনেক সময় প্রভাবশালীরা নিজের স্বার্থে আইনকে ব্যবহার করে, অন্যায়-অপরাধ করে রক্ষা পেয়ে যায়, সুবিচার বঞ্চিত হন সাধারণ মানুষ। আইনের আশ্রয় নিতে গিয়ে অনেক মানুষ প্রতারকের খপ্পরে পড়ে, নানা ধরনের নির্যাতনের শিকার হন। মামলার খরচ জোগাতে নিঃস্ব হলেও বিচার শেষ হয় না। দুর্নীতির ব্যাপকতাও এখনও বিস্তর। প্রশাসনিক ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার বালাই নেই। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, আইন মান্যতার তদারকি যাদের আইনি কর্তব্য, তারা নিজেরাই আইন অমান্যতার পুরোভাগে। সুতরাং আন্তর্জাতিক সংস্থাটির এ প্রতিবেদনে বিস্মিত হওয়ার সুযোগ নেই। এ থেকে পরিত্রাণের পথ খুঁজতে হবে।

আইনের নিজের কোন শক্তি নেই। আইন নিজে থেকে কোন কাজই করতে পারে না। একটি কলম যেমন নিজ শক্তিতে কাগজে লিখতে পারে না যতক্ষণ পর্যন্ত পেছনের কোন মানুষ কলমটি পরিচালনা না করে। অর্থাৎ পেছনের কোন মানুষটি ওই কলমটির মূল চালিকাশক্তি। একই ভাবে বলা যায়, আইনের শাসনের ক্ষেত্রেও চালিকাশক্তি হলো সরকার। ভুক্তভোগীদের জন্য আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা সরকারের দায়িত্ব। সরকার যদি এসব বিষয়ে যথাযথ গুরুত্ব না দেয়, তাহলে গণতন্ত্র ব্যাহত হয়, আইনের শাসন ব্যর্থ হয়।

দেশে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটছে, অভ্যন্তরীণ সম্পদ সঞ্চালন বাড়ছে বটে, কিন্তু তার সুফলে বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর হিস্যা নিশ্চিত হচ্ছে না, ক্ষুদ্র এক গোষ্ঠীর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকছে। কাজেই আইনের শাসনের বিষয়টিকে শুধু আইনশৃঙ্খলা বা অর্থনৈতিক উন্নতির নিরিখে না দেখে সর্বক্ষেত্রে জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণ, অর্থনীতি ও উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় জনসাধারণের অন্তর্ভুক্তিসহ প্রাসঙ্গিক বিষয়াদির পরিপ্রেক্ষিতেই বিবেচনা করা উচিত। তা না হলে দেশের চলমান অর্থনৈতিক রূপান্তর টেকসই হবে না।

দৈনিক সংবাদ : ৩ মার্চ ২০১৯, রোববার, ৬ এর পাতায় প্রকাশিত

রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীনের বক্তব্য ইতিবাচক

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ঢাকা ও বেইজিং সম্মত হয়েছে। গত শুক্রবার চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিন পিংয়ের সঙ্গে

সঞ্চয়পত্রের মুনাফার উৎসে কর বৃদ্ধির প্রস্তাব প্রত্যাহার করুন

প্রস্তাবিত বাজেটে সঞ্চয়পত্রের মুনাফার ওপর উৎসে কর ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মায়ানমারের ওপর কূটনৈতিক চাপ অব্যাহত রাখতে হবে

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে সব দেশ সম্মত হলেও মায়ানমারের সাড়া পাওয়া যাচ্ছে

sangbad ad

ইরান-মার্কিন বিরোধেও কি বাংলাদেশ জড়িত থাকবে

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওকে লেখা এক চিঠিতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বহুতল ভবনের ঝুঁকি দায় নিতে হবে রাজউককে

রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) আওতাধীন অঞ্চলগুলোতে ১০ তলার বেশি এক হাজার ৮১৮টি বহুতল ভবনের বেশিরভাগেই ত্রুটি

সমাজ ও ব্যক্তির জন্য সৃষ্টি হচ্ছে ভয়াবহ সংকট

দেশে সংস্কৃতিচর্চার সুযোগ দিন দিন কমছে। সরকারি সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে পেশাদারি, জবাবদিহি ও আন্তরিকতার অভাব। সংস্কৃতি

দেশের বাঁধগুলোর সক্ষমতা বাড়াতে হবে সংস্কারের লক্ষ্যে মনিটরিং করুন

ঘূর্ণিঝড় ফণী বাংলাদেশ অতিক্রম করে গেছে। ভারতের ওড়িশা উপকূলে আঘাত হানার পর পশ্চিমবঙ্গ হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে ঘূর্ণিঝড়।

পরিবহন সেক্টরকে মাফিয়ামুক্ত করুন

সাত দফা দাবিতে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘটে গত সোমবার দিনভর দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত

জঙ্গিবাদের হুমকি মোকাবিলায় ঐক্য গড়ে তুলুন

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গে হামলার পরিকল্পনা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত বৃহস্পতিবার

sangbad ad