• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯

 

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রিসাইক্লিংয়ে পরিকল্পিত ও স্থায়ী উদ্যোগ নিন

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯

ইলেকট্রনিক পণ্যের ব্যবহার বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে ইলেকট্রনিক বা ই-বর্জ্যরে পরিমাণও। এসব ই-বর্জ্যরে দূষণ থেকে প্রাণ ও প্রকৃতিকে রক্ষা করতে প্রয়োজন পড়ে রিসাইক্লিংয়ের বা তা পুনরায় ব্যবহার উপযোগী করে তোলার। দেশে এসব ই-বর্জ্যরে রিসাইক্লিং হচ্ছে স্বল্পমাত্রায়। আবার যেটুকু হচ্ছে সেখানেও ব্যবহার হচ্ছে না কোনো ধরনের সুরক্ষা উপকরণ। ফলে নানা ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়ছেন ই-বর্জ্য রিসাইক্লিংয়ের সঙ্গে যুক্ত কর্মীরা। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা যায়, কোনো ধরনের সুরক্ষা উপকরণ ছাড়াই কাজ করার কারণে ক্যান্সার, যক্ষ্মাসহ কিডনি ও শ্বসনতন্ত্রের বিভিন্ন রোগের ঝুঁকিতে পড়ছেন দেশের অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের ই-বর্জ্য শ্রমিকরা।

ই-বর্জ্যরে ধারণাটি নতুন। ফলে এর ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে মানুষ অবগত নয়। ই-বর্জ্য ধারণ করে বিষাক্ত নানা উপাদান যেমন- সিসা, ফসফরাস, পারদ, ক্যাডমিয়াম, গ্যালিয়াম, আর্সেনাইট ইত্যাদি যা স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। শরীরের স্বাভাবিক যে জৈবিক প্রক্রিয়া, তাতেও পরিবর্তন আনে এগুলো। বিশেষ করে লিভার ও কিডনির কার্যক্রম ব্যাহত করে। একই সঙ্গে কারও শরীরে যদি অনেক বেশি পরিমাণে ভারি ধাতু থাকে, তাহলে তার কিডনি ফেইলিওর হতে পারে। যারা এসব বর্জ্য নিয়ে কাজ করেন তাদের ঝুঁকিটা বেশি। এসব বর্জ্যে যে উপাদানগুলো রয়েছে, সেগুলো তাদের শরীরে প্রবেশ করে। তা থেকে অনেক ধরনের রোগ হওয়ার ঝুঁকি আছে।

বাস্তব কারণেই ই-পণ্যের ব্যবহার কমানো যাবে না। বরং দিনকে দিন বাড়বে। সঙ্গতকারণে বর্জ্যরে উৎপাদনও বাড়বে। যেহেতু ই-বর্জ্য পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্যের জন্য হানিকর, সুতরাং কার্যকর বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কোনো বিকল্প নেই। এ সংক্রান্ত নীতিমালাটি দ্রুত অনুমোদন ও কার্যকর হওয়া আবশ্যক। ই-বর্জ্য নিয়ে সমস্যা শুধু আমাদের দেশেই নয়, অন্যান্য দেশেও আছে। তারা কিভাবে এর সমাধান করছে, সেটা খতিয়ে দেখা যেতে পারে। ই-বর্জ্য সংগ্রহের একটা সুনির্দিষ্ট ও সুনিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থা থাকা খুবই দরকার। বর্জ্য পুনঃচক্রায়ন প্রক্রিয়ায় শ্রমিকরা ভারি ধাতুর সংস্পর্শে যেন না আসেন, সে ব্যাপারে যতœবান হতে হবে। শ্রমিকদের যথাযথ সুরক্ষা উপকরণ নিয়ে কাজ করা উচিত। কারখানার মালিকরা যাতে শ্রমিকের নিরাপত্তা নিশ্চিতে বাধ্য হন, সেজন্য আইন করে হলেও ব্যবস্থা নিতে হবে।

দৈনিক সংবাদ : ১৬ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার, ৬ এর পাতায় প্রকাশিত

সমাজ ও ব্যক্তির জন্য সৃষ্টি হচ্ছে ভয়াবহ সংকট

দেশে সংস্কৃতিচর্চার সুযোগ দিন দিন কমছে। সরকারি সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে পেশাদারি, জবাবদিহি ও আন্তরিকতার অভাব। সংস্কৃতি

দেশের বাঁধগুলোর সক্ষমতা বাড়াতে হবে সংস্কারের লক্ষ্যে মনিটরিং করুন

ঘূর্ণিঝড় ফণী বাংলাদেশ অতিক্রম করে গেছে। ভারতের ওড়িশা উপকূলে আঘাত হানার পর পশ্চিমবঙ্গ হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে ঘূর্ণিঝড়।

পরিবহন সেক্টরকে মাফিয়ামুক্ত করুন

সাত দফা দাবিতে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘটে গত সোমবার দিনভর দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত

sangbad ad

জঙ্গিবাদের হুমকি মোকাবিলায় ঐক্য গড়ে তুলুন

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গে হামলার পরিকল্পনা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত বৃহস্পতিবার

গণধর্ষণ মামলার চার্জশিট প্রশ্নবিদ্ধ পুলিশের ভূমিকা

সুবর্ণচরে গণধর্ষণের শিকার নারীর অভিযোগ ছিল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজের পছন্দের প্রতীকে ভোট দেয়ায় তার ওপর নির্যাতন হয়েছে

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থা ত্রুটিমুক্ত করতে হবে

চাহিদার চেয়ে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা থাকলেও বিদ্যুৎ বিভাগ মানসম্মত বিতরণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে না পারায়

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে চাই কঠোর মনিটরিং

আসন্ন রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে থাকবে বলে আশ্বস্ত করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু

বর্ষার আগেই ঢাকাডুবি কেন নগর কর্তৃপক্ষ কী করছে

চৈত্র মাসেই বৃষ্টির পানি জমে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে রাজধানী ঢাকার বেশিরভাগ এলাকার রাস্তা

পুলিশের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে হবে

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টার মামলায় স্থানীয় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভিকটিমের স্বজনরা।

sangbad ad