• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৯

 

যুবলীগ নেতাকে ধরে নিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে

আইন সবার জন্য সমান হওয়াই বাঞ্ছনীয়

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

নাটোর সদর উপজেলার যুবলীগ নেতা জামাল হোসেন ওরফে মিলনকে গত বৃহস্পতিবার সাদা পোশাকধারী একদল লোক মাইক্রোবাসে করে ধরে নিয়ে গেছে। দলের নেতাকর্মীরা অভিযোগ করছেন, র‌্যাব পরিচয়ে তাকে অপহরণ করা হয়েছে। তার মুক্তির দাবিতে গত শুক্রবার যুবলীগের শত শত নেতাকর্মী লাঠিসোটা নিয়ে শহরের সব সড়ক বন্ধ করে দেন। এর ফলে নাটোরের সঙ্গে সব জেলার যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। যুবলীগ নেতা মিলন উপজেলা পরিষদের আসন্ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। তাকে কে বা কারা নিয়ে গেছে সেটা পুলিশ জানাতে পারেনি। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মিলনের নামে বিভিন্ন থানায় আস্ত্র, মাদক, সরকারি কর্মকর্তার ওপর হামলা এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের জন্য অন্তত ১৩টি মামলা রয়েছে। মিলনের সন্ধান চেয়ে গত শনিবার নাটোর থেকে সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেন পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা।

সাদা পোশাকে কোন নাগরিককে তুলে নিয়ে যাওয়ার ঘটনা উদ্বেগজনক। অতীতে সাদা পোশাকে নাগরিকদের ধরে নিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। কোন কোন ক্ষেত্রে ধরে নিয়ে যাওয়া ব্যক্তিদের পুলিশ আটক দেখায়, কোন কোন ক্ষেত্রে ধরে নিয়ে যাওয়া ব্যক্তির সন্ধান মেলে না। সাধারণত দেখা যায়, যখন যে দল ক্ষমতার বাইরে থাকে সে দলের নেতাকর্মীদের সাদা পোশাকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়। আওয়ামী লীগ সরকার আমলে বিএনপির অনেক নেতাকর্মীকে এভাবে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে যুবলীগের বা ক্ষমতাসীন দলের কোন নেতাকে সাদা পোশাকে ধরে নিয়ে যাওয়ার ঘটনা নিকট অতীতে ঘটেছে বলে আমাদের অন্তত জানা নেই। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকতে যুবলীগ নেতাকে ধরার কী কারণ থাকতে পারে সেটা সুষ্ঠু তদন্তে হয়তো উঠে আসবে। অভিযোগ উঠেছে, মিলন উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী হওয়ায় নিজ দলেই হয়তো রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন। এ অভিযোগ উড়িয়ে দেয়ার সুযোগ নেই। মূল প্রতিপক্ষ বিএনপিসহ অনেক দলই উপজেলা নির্বাচন বর্জন করতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ নেতারাই একে অন্যের প্রতিপক্ষ হয়ে পড়েছেন। বিষয়টি আমলে নিয়ে পুলিশ দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে সেটা আমাদের আশা।

যুবলীগ নেতা মিলনের বিরুদ্ধে গুরুতর সব অভিযোগে অন্তত ১২টি মামলা রয়েছে। দল ক্ষমতায় থাকা সত্ত্বেও এতগুলো মামলাকে ‘গায়েবি’ বলে উড়িয়ে দেয়ার সুযোগ নেই। অভিযুক্ত ব্যক্তিকে কেউ তুলে নিয়ে যাবে সেটা সঙ্গত নয়। তার আইনি বিচার করা উচিত। আবার অভিযুক্ত ব্যক্তির সন্ধান চেয়ে সড়ক অবরোধ করাও গ্রহণযোগ্য নয়। লাঠিসোটা নিয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় সড়ক আটকে কারও সন্ধান পাওয়া যায় না বরং জনভোগান্তি তৈরি হয়। ক্ষমতায় আছি বলে অভিযুক্ত অপরাধীর সন্ধানের দাবিতে যা খুশি তাই করব সেটা হতে পারে না। যুবলীগের লেঠেল বাহিনী যেন সড়ক অবরুদ্ধ করে জনভোগান্তি সৃষ্টি না করে সেটা সরকারকে কঠোরভাবে নিশ্চিত করতে হবে।

(৪ ফেব্রুয়ারি, পাতা ৬ : সংবাদ)

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে চাই কঠোর মনিটরিং

আসন্ন রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে থাকবে বলে আশ্বস্ত করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু

ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রিসাইক্লিংয়ে পরিকল্পিত ও স্থায়ী উদ্যোগ নিন

ইলেকট্রনিক পণ্যের ব্যবহার বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে ইলেকট্রনিক বা ই-বর্জ্যরে পরিমাণও। এসব ই-বর্জ্যরে দূষণ থেকে প্রাণ ও প্রকৃতিকে রক্ষা

বর্ষার আগেই ঢাকাডুবি কেন নগর কর্তৃপক্ষ কী করছে

চৈত্র মাসেই বৃষ্টির পানি জমে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে রাজধানী ঢাকার বেশিরভাগ এলাকার রাস্তা

sangbad ad

পুলিশের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে হবে

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টার মামলায় স্থানীয় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভিকটিমের স্বজনরা।

স্বাভাবিক পুঁজিবাজার চাই অনৈতিক কারসাজি দমন করুন

দেশের পুঁজিবাজারে এখনও কারসাজি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্বার্থান্বেষী একটি গোষ্ঠী দুই স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক সুকৌশলে নিয়ন্ত্রণ করছে এমন

দ্রুত সম্পন্ন করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব

অর্পিত সম্পত্তি অবমুক্তির লাখো মামলা বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে। মামলা নির্ধারিত সময়ে নিষ্পত্তি হচ্ছে কিনা তা মনিটর করার কেউ

রোজার মাসে ভোগ্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখুন

রমজান সামনে রেখে এরই মধ্যে অস্থির হয়ে উঠতে শুরু করেছে ভোগ্যপণ্যের বাজার। বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম কোন কারণ ছাড়াই

রাজধানী কি এবারও জলাবদ্ধ হয়ে পড়বে

রাজধানীর অনেক এলাকা আগামী বর্ষাতেও জলাবদ্ধ হয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন হতে হবে

অগ্নিকান্ড রোধ এবং এর ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৫টি নির্দেশনা দিয়েছেন। গত সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত

sangbad ad