• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০

 

সাক্ষাৎকার : জয়ী হলে কি করবেন তাপস-ইশরাক

নিউজ আপলোড : ঢাকা , শনিবার, ১১ জানুয়ারী ২০২০

সংবাদ :
  • ইমদাদুল হাসান রাতুল
image

দু’ভাগে বিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের দক্ষিণ অংশ উত্তরের তুলনায় একটু বেশি দূষিত। দক্ষিণের সড়কের মতোই নাগরিক বিভিন্ন সুবিধা পেতে বাসিন্দাদের যথেষ্ঠ ভোগান্তি পোহাতে। যানজট, জলাবদ্ধতা ও মশায় নাকাল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)’র বাসিন্দারা। দীর্ঘ ৫ বছর পর আগামী ৩০ জানুয়ারি ডিএসসিসিতে নির্বাচন হবে। ৭৫টি ওয়ার্ডের ২৩ লাখের ভোটার ওইদিন তাদের নগরপিতা নির্বাচন করবেন। নির্বাচনে ৭ জন মেয়র প্রার্থী হলেও সবার আগ্রহ আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীকে ঘিরে। নির্বাচনে জয়ী হলে কি করবেন এবং তাদের ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি, তা নিয়ে নৌকার প্রার্থী ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস ও ধানের শীষের ইশরাক হোসেনের সঙ্গে কথা হয় সংবাদের প্রতিবেদক ইমদাদুল হাসান রাতুল

পাঁচ বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে নিবেন পরিকল্পনা : তাপস

আধুনিক ঢাকা গড়তে দায়িত্ব গ্রহণের ৩ মাসের মধ্যে মহাপরিকল্পনা করার চেষ্টা করবেন ব্যারিস্টার তাপস। পরিকল্পনায় প্রাধান্য পাবে পাচটি বিষয়। সেবা সংস্থাগুলোর মধ্যে থাকা সমন্বয়হীনতার মতোই সিটি করপোরেশনে থাকা সব অব্যবস্থাপনাই দূর করবেন তিনি। ’ঐতিহ্যের সঙ্গে, সমৃদ্ধির পথে, আমাদের ঢাকা’ স্লোগানকে সামনে রেখে নির্বাচনী মাঠে লড়বেন তিনি।

মেয়র নির্বাচিত হলে আপনি সর্বপ্রথম কি করবেন?

আমি উন্নত ঢাকা গড়তে মহাপরিকল্পনা নিব। দায়িত্ব গ্রহনের তিন মাসের মধ্যেই এই পরিকল্পনা সম্পন্ন করার চেষ্টা করব। এই তিন মাসের মধ্যে যেভাবেই হোক আমি মৌলিক নাগরিক সেবা নিশ্চিত করব।

আপনার মহাপরিকল্পনায় কোন বিষয়গুলো প্রাধান্য পাবে?

‘ঐতিহ্যের ঢাকা, সুন্দর ঢাকা, সচল ঢাকা, সুশাসিত ঢাকা, উন্নত ঢাকা’ এই বিষয়গুলোকে প্রাধান্য দিয়েই আমি পরিকল্পনা করব। পুরান ঢাকার ঐতিহ্য সংরক্ষণ করার পাশাপাশি এর স্বকীয় রূপকে প্রস্ফুটিত করতে ব্যাপকভাবে সবুজায়ন করব। সবক’টি ওয়ার্ডে খেলার মাঠ, উন্মুক্ত স্থান ও পার্কের ব্যবস্থা থাকবে।

নগরবাসীর বড় ভোগান্তির বিষয় একই রাস্তা বারবার কাটা।

এ বিষয়ে আপনি কি পদক্ষেপ নিবেন?

আমি একটি রাস্তা এমনভাবে করব যেন অন্তত পরের ১০ বছর ঐ সড়কে কোন কাজ করতে না হয়। ড্রেন ও অন্যান্য ইউটিলিটি সেবা নিশ্চিত করেই এসব রাস্তা একবারেই তৈরি হবে।

যে কোন সাধারণ সুবিধা নিতে নগরবাসীকে বেশ ভোগান্তি পোহাতে হয়।

আপনি মেয়র নির্বাচিত হলে কি করতে চান?

সিটি করপোরেশনে সবার জন্য কাজ নির্ধারণ করা থাকবে। কঠোরভাবে আইন প্রয়োগের মাধ্যমে প্রতিদিনের কাজ প্রতিদিন সম্পন্ন করা হবে। আইন ও রীতিনীতির বাস্তবায়ন হতেই হবে। ২৪ ঘণ্টা সেবা নিশ্চিত করতে প্রতিটি কাজে জবাবদিহি নিশ্চিত করবো। নগরবাসীর সামান্য সমস্যাকেও আমরা গুরুত্ব সহকারে দেখবো। তিনি বলেন, সিটি করপোরেশন একটা অব্যবস্থাপনার মধ্যে রয়েছে। গাফিলতি, অবহেলা, অনিয়ম-দুর্নীতিও আছে। কেউ অভিভাবকত্ব নিয়ে কাজ করেনি। কিন্তু অভিভাবকত্ব নিতে হবে। তাহলে নগরবাসী নিঃসন্দেহে একটি বসবাস উপযোগী সুন্দর ও নান্দনিক রাজধানী পাবে।

যানজট রাজধানীবাসির দীর্ঘদিনে সমস্যা। এটি নিরসনে আপনি কি করতে চান?

আমার মহাপরিকল্পনার একটি সচল ঢাকা। ঢাকাবাসী গণপরিবহনের তেমন কোনো সুযোগ পান না। নিম্নবিত্ত ও নিম্ন-মধ্যবিত্তরা অনেক সময় কষ্ট করে হেঁটে পথ চলেন। আর যানজটের সংকট তো আছেই। তাই সুষ্ঠু ও সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে পুরো যাতায়াত ব্যবস্থা ঢেলে সাজাবো।

উদাহরণ দিয়ে তাপস বলেন, লন্ডনের টেমস নদীর দুই তীরের মতোই হতে পারে বুড়িগঙ্গা নদীর দুই পাড়। সেখানে নদীর তীর ঘেঁষে আট লেনের রাস্তা থাকবে। একটি রাস্তায় মানুষ হাঁটবে। তিনটি রাস্তায় রিকশা, সাইকেল ও ঘোড়ার গাড়িসহ ধীরগতির যানবাহন চলবে। চারটি রাস্তায় চলবে দ্রুতগতির যানবাহন। আবার দৃষ্টিনন্দন পার্কও থাকবে। জনগণ যেটা পছন্দ করবে, সেটা ব্যবহার করবে। ঢাকায় ঘোড়ার গাড়িও চলবে। আবার সাইকেল চালানোর আলাদা জায়গাও থাকবে। মানুষ যেখানে হেঁটে যেতে চায়, সেখানে সে হেঁটে যেতে পারবে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের স্বপ্ন একটি সুন্দর ঢাকা গড়া। নির্বাচিত হলে সততা, নিষ্ঠা ও একাগ্রচিত্তে কাজ করতে চান তিনি। তিনি বলেন, আমার কাজ, আমার কর্তব্য, আমার দায়িত্ব আমাকেই পালন করতে হবে। আমি জয়ী হলে পরিকল্পনা মত কাজ করে যাবো। মৌলিক নাগরিক সুযোগ-সুবিধা ও সেবাগুলো জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে ডিএসসিসিকে সম্পূর্ণ দুর্নীতিমুক্ত সংস্থা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করবো। মাদক ও দুষনমুক্ত এক নগরী গড়ব।

‘আমাদের ঢাকা, ঐতিহ্যের ঢাকা/ আমাদের ঢাকা, উন্নত ঢাকা আমরাই গড়ব’ সেøাগনে সামনে রেখে দ্রুতই নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করবেন পেশায় আইনজীবি তাপস। ব্যারিস্টার তাপসের ফুফু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার বাবা শেখ ফজলুল হক মনি আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এবং অধুনালুপ্ত বাংলার বাণীর প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক। তার বড় ভাই শেখ ফজলে শামস পরশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান। চাচা শেখ ফজলুল করিম সেলিম আওয়ামী লীগ সভাপতিমন্ডলীর অন্যতম সদস্য। ১৯৯৬ সালে যুক্তরাজ্যের ওলভারহ্যাম্পটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনবিদ্যায় স্নাতক ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস ১৯৯৭ সালে ‘বার অব ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস’-এর জেনারেল কাউন্সিলের অধীনে বার ফাইনাল কোর্স সম্পন্ন করেছেন। তিনি লিঙ্কনস ইন ও বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের একজন সদস্য।

ওয়ার্ডভিত্তিক সমস্যা চিহ্নিত করে নেয়া হবে পরিকল্পনা : ইশরাক

একটি বাসযোগ্য ও দূষণমুক্ত নগরী উপহার দিতে চান ইশরাক হোসেন। দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিন থেকেই মশা নিধনের কাজ শুরু করবেন তিনি। পেশায় ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক যানজট ও জলাবদ্ধতা নিরসনে নিবেন দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা। বাবার (সাদেক হোসেন খোকা) করে যাওয়া কার্যক্রমগুলো আর জোরাল করার মাধ্যমে ঢাকাকে তিলোত্তমার রূপ দিতে চান ইশরাক।

মেয়র নির্বাচিত হলে আপনি সর্বপ্রথম কি করবেন?

দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিন থেকেই আমি মশা নিধনের কাজ শুরু করবো। গেল বছর মশা কারনে ডেঙ্গু মহামারি রুপ ধারন করেছিল। এবার যেন নগরবাসিকে অ্যাডিসের কারনে ঝামেলা না পড়তে হয় সেজন্য মশা নিধনে প্রতিদিনই কাজ করব।

আপনি কি পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করবেন?

জলাবদ্ধতা, যানজট ও মাদক সমস্যাকে প্রাধান্য দিয়ে আমি পরিকল্পনা নিবো। জয়ী হলে ১০০ দিনের মধ্যে আমি পরিকল্পনা নিবো। কাউন্সিলরদের নিয়ে সমস্যা চিহ্নিত করবো। এরপর নগর পরিকল্পনাবিদদের নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহন করবো। ঢাকার সংকট নিরসনে বুদ্ধিজীবী, বিশেষজ্ঞ আর অভিজ্ঞদের মতামত নিয়ে সমন্বিত প্রচেষ্টায় কাজ করব।

নাগরিক সমস্যা সমাধানে আপনি কি করতে চান?

আমি প্রতিটি ওয়ার্ডে গেয়ে নাগরিকদের সমস্যা চিহ্নিত করবো। দক্ষিণের ওয়ার্ডগুলোতে জলাবদ্ধতা ও যানজট বড় সমস্যা। আমার পরিকল্পনায় এগুলোর সমাধান থাকবে। নগরকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্যসম্মত করতে যা যা করনীয় আমি তাই করবো। নির্বাচিত হলে নাগরিক সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি তাদের কাছে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করবো আমি।

ঢাকা নিয়ে আপনার স্বপ্ন কি?

আমি পেশায় ইঞ্জিনিয়ার। শহর ব্যবস্থাপনার ওপর আমি পড়াশোনা করেছি। এক সময় ঢাকা বেশ সুন্দর নগরী ছিলো। কিন্তু বর্তমানে এটি দূষীত নগরীর নাম পেয়েছে। বসবাসের অযোগ্য হয়ে যাচ্ছে ঢাকা। আমি নির্বাতি হলে ঢাকার রুপ পরিবর্তন করব। তিলোত্তমা রূপে গড়ে তুলবো ঢাকাকে।

আপনার কর্মপরিকল্পনায় কি অভিবক্ত অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র সাদেক হোসেন খোকার কার্যক্রম প্রাধান্য পাবে?

আমার বাবা রাস্তাঘাট, ড্রেনেজ ব্যবস্থা উন্নয়ন, মশক নিধনে কাজ করেছেন। তার সময়ে মশার কামড়ে ভয়াবহ ডেঙ্গুর কোনো প্রকোপ ছিল না। দুর্নীতিমুক্ত সিটি করপোরেশন তিনি নগরবাসীকে উপহার দিয়েছিলেন। মেয়র পদ থেকে তিনি চলে যাওয়ার পর ওই কার্যক্রমের ধারাবাহিকতা থাকলে আজ ঢাকা দূষীত নগরীর নাম পেতো না। আমি বাবার কার্যক্রমগুলো আর জোরালোভাবে করব।

‘গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করা, জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেয়া’ স্লোগানকে সামনে রেখে নির্বাচনী মাঠে নামবেন ইশরাক হোসেন। তিনি বলেন, গণতন্ত্রের অনুপস্থিতির কারণে জাতি আজ সঙ্কটের মধ্যে রয়েছে। এটি আমাদের মূল লক্ষ্য থাকবে। আমি জনগণের কথা তুলে ধরতে চাই। আমি পুরান ঢাকার ছেলে। এ শহরের সমস্যাগুলো আমি বেশ ভালোভাবে বুঝতে পারবো। যদি সুষ্ঠ নির্বাচন হয় তবে আমি নির্বাচিত হবো।

স্কলাস্টিকা স্কুল থেকে ও-লেভেল এবং এ-লেভেল শেষে উচ্চশিক্ষার জন্য ইউনিভার্সিটি অব হার্টফোর্ডশায়ারে (যুক্তরাজ্য) মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে আন্ডারগ্রাজুয়েশন ও মাস্টার্স শেষ করেছেন ইশরাক। ২০১৮ সালের নির্বাচনে ইশরাক হোসেন তার বাবা সাদেক হোসেন খোকার আসন ঢাকা-৬-এর জন্য বিএনপির মনোনয়ন চান। কিন্তু জোট রাজনীতির কারণে মনোনয়নবঞ্চিত হন তিনি। উন্নত বিশ্বের মতো একটি বাসযোগ্য ও দূষণমুক্ত নগর গড়তে চাওয়া ইশরাক বলেন, আমার কোনো উচ্চাভিলাষ নেই। বিজয়ী হলে বিশ্বের অন্যান্য উন্নত দেশের মতো আধুনিক নগর গড়ে তোলার জন্য সব রকমের উদ্যোগ নেবেন।

কথা প্রসঙ্গে নির্বাচনী পরিবেশ নিয়ে বেশ কয়েকবার অভিযোগ করেন ইশরাক হোসেন। তিনি বলেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের উপরে আমাদের কোনো আস্থা নেই। আর কোন দলীয় সরকারের অধিনে সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনাও নাই। তারপরও নাগরিকদের ভোটাধিকার ও অধিকার আদায়ের সংগ্রাম যাতে আমরা ত্বরান্বিত করতে পারি, সেজন্য নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। তবে ভয়-ভীতি উপেক্ষা করে শেষ পর্যন্ত নির্বাচনের মাঠে থাকবো। এছাড়া এবার ভোট হবে ইভিএমই’এ। ইভিএমে কারচুপিটা হবে সূক্ষ্ণ। তবে জনগণ যদি ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে তবে আমি জয়ী হবো। আসন্ন নির্বাচনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) ৭৫টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ২৫টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড রয়েছে। এ নির্বাচনে ১ হাজার ১২৪টি ভোটকেন্দ্রের ৫ হাজার ৯৯৮টি কক্ষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। মোট ২৩ লাখ ৬৭ হাজার ৪৮৮ জন এ নির্বাচনে ভোটাধিকার গ্রয়োগের সুযোগ পাবেন।

সংক্রমণ কম দেখাতে পরীক্ষা কম করাচ্ছে সরকার : রিজভী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, এখন করোনার নমুনা পরীক্ষাও নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। কয়েকদিন আগে ১৫/১৬ হাজার মানুষের নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছিল। এখন তা ১১/১২ হাজারে নেমে এসেছে। অর্থাৎ নমুনা পরীক্ষা প্রায় ৪/৫ হাজারে কমে গেছে।

করোনা সংকট নিয়ে আওয়ামী লীগের বিশেষ ওয়েবিনার আজ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

করোনাকালীন সংকট ও পরবর্তী বাংলাদেশ নিয়ে আজ মঙ্গলবার (৭ জুলাই) রাত সাড়ে ৮টায় আওয়ামী লীগের বিশেষ ওয়েবিনার ‘বিয়ন্ড দ্যা প্যানডেমিক’ এর দশম পর্ব অনুষ্ঠিত হবে।

বিএনপির মুখে দুর্নীতি বিরোধী কথা হাস্যকর : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘বিএনপির মুখে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলা হাস্যকর।

sangbad ad

দুর্নীতির মাধ্যমে সরকার স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে ভঙ্গুর করেছে : ফখরুল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বাংলাদেশের দুর্ভাগ্য এই সরকার দুর্নীতি করে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে একেবারে ভেঙে দিয়েছে, ভঙ্গুর করে দিয়েছে।

সীমান্ত হত্যা বন্ধে নতজানু সরকারের কোন পদক্ষেপ নেই : রিজভী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রহুল কবির রিজভী বলেছেন, সীমান্তে বাংলাদেশিরা দীর্ঘদিন ধরে একপেশে হত্যাকান্ডের শিকার হচ্ছে। সরকার টু শব্দটি পর্যন্ত করে না। সীমান্ত হত্যা বন্ধে তাদের কোনো পদক্ষেপ নেই।

করোনা পরীক্ষার ফি বাতিলের দাবি বিএনপির

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, করোনা টেস্টের ফি ২০০ টাকা ধার্য করে সরকার এখন ভ্যাম্পায়ারের ন্যায় রক্তচোষার ভুমিকায়।

করোনা সংকট নিয়ে আওয়ামী লীগের বিশেষ ওয়েবিনার আজ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

করোনাকালীন সংকট ও পরবর্তী বাংলাদেশ নিয়ে আজ শনিবার (৪ জুলাই) রাত সাড়ে ৮টায় আওয়ামী লীগের বিশেষ ওয়েবিনার ‘বিয়ন্ড দ্যা প্যানডেমিক’ এর নবম পর্ব অনুষ্ঠিত হবে।

করোনা সংকট নিয়ে আওয়ামী লীগের বিশেষ ওয়েবিনার আগামীকাল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

করোনাকালীন সংকট ও পরবর্তী বাংলাদেশ নিয়ে আগামীকাল শনিবার (৪ জুলাই) রাত সাড়ে ৮টায় আওয়ামী লীগের বিশেষ ওয়েবিনার ‘বিয়ন্ড দ্যা প্যানডেমিক’ এর নবম পর্ব অনুষ্ঠিত হবে।

সংসদের সামনে বাজেটের কপি ছেঁড়া বিএনপির ঔদ্ধত্যের নতুন বহি:প্রকাশ : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি এমন একটি রাজনৈতিক দল, যারা পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে মানুষকে হত্যা করেছিল।

sangbad ad