• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮

 

মহাজোটের চূড়ান্ত প্রার্থী নির্বাচনে কৌশলী আওয়ামী লীগ

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৭ নভেম্বর ২০১৮

সংবাদ :
  • ফয়েজ আহমেদ তুষার ও মোস্তাফিজুর রহমান
image

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনে মহাজোটের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশে সময় নিচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। কালক্ষেপণের এই বিষয়টি রাজনৈতিক কৌশল হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, জোটের শরিকরা নিজেদের মতো করে দলীয় প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করবে।

আমাদের কৌশলগত কিছু বিষয় বিবেচনায় আছে। আমরা সব বিবেচনা ও যাচাই-বাছাই করব। কয়েকটি জায়গায় ডাবল প্রার্থীকে মনোনয়নের চিঠি দেয়া হয়েছে। এখন তারা মনোনয়নপত্র জমা দেবেন। তারপর আমরা মাঠপর্যায়ে সার্ভে করে দেখব, কে জনপ্রিয়। আবার কেউ কেউ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের পর ঋণখেলাপি হতে পারেন। তাই সবকিছু যাচাই-বাছাই করে তালিকা প্রকাশ করব, যেন শরিকদের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি না হয়। জোটের শরিকদের ৬৫ থেকে ৭০টি আসন দেয়া হবে। জাতীয় পার্টি (জাপা) যেহেতু বড় শরিক তাদের বেশি সিট দেয়া হবে।

বিএনপি এবং তার শরিক জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এবং ২০ দলীয় জোট একাদশ জাতীয় সংসদ নিবাচনে আসায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় ১৪ দল মহাজোট গঠন করে ভোটে অংশ নিচ্ছে। নবম সংসদ নির্বাচনের মতোই আওয়ামী লীগের মহাজোটে যুক্ত হয়েছে হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের জাতীয় পার্টি (জাপা)। এদিকে বিকল্পধারার সভাপতি একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্টও এসেছে মহাজোটে। এর সঙ্গে এসেছে বেশ কিছু ইসলামী দল ও জোট ভোটের লড়াইয়ে আগে থেকেই কৌশলী ছিল আওয়ামী লীগ। বিএনপি ভোটে এলে জাপাকে নিয়ে, বিএনপি না এলে ১৪ দলকে নিয়ে ভোট করার কথা বলেছে আওয়ামী লীগ। সর্বশেষ মহাজোটে ভোটের সিদ্ধান্ত নিলেও শরিকদের সঙ্গে আসন বণ্টন নিয়ে চূড়ান্ত সমঝোতায় জটিলতা তৈরি হয়। রোববার ২৩০ আসনে নিজ দলের প্রার্থীদের মনোনয়নের চিঠি দেয় আওয়ামী লীগ। আজ ৩০০ আসনে মহাজোটের প্রার্থী ঘোষণার কথা থাকলে, তালিকা প্রকাশ করেনি ক্ষমতাসীনরা। এদিকে জাপা নিজ দলের কিছু প্রার্থীদের মনোনয়ন দিয়েছে। বিকল্পধারার নির্ভরযোগ্য একটি সূত্রমতে, যুক্তফ্রন্ট আটটি আসন চাইলেও ক্ষমতাসীনরা পাঁটটি আসন দিতে চাইছে। তবে যুক্তফ্রন্ট আটটি আসনই পাবে বলে জানায় ওই সূত্র।

মহাজোটের শরিক দলগুলোর সঙ্গে কথা বলে তাদের নিজ নিজ আসন প্রাপ্তির তথ্য জানা গেছে। তবে যেহেতু আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হয়নি, তাই শরিক দলগুলোর অনানুষ্ঠানিকভাবে তাদের মনোনয়ন প্রাপ্তির কথা সংবাদকে জানায়। জাতীয় পার্টির নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্রমতে, মহাজোট থেকে জাতীয় পার্টিকে ৪৫টি আসনের নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে দিয়েছে। ইতোমধ্যে আসনগুলো বণ্টনও করেছে জাতীয় পার্টি। কিন্তু নিজেদের প্রত্যাশা অনুযায়ী আসন না পাওয়ায় সোমবার (১৬ নভেম্বর) আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করতে পারেনি দলটি। সোমবার প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করতে এসে পার্টির বনানী অফিসে উপস্থিত নেতাকর্মীরা ৩০০ আসনে প্রার্থী দাবি করায় তোপের মুখে পড়েন জাপা মহাসসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার। মনোনয়নপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করতে পারেননি তিনি। জাপার একটি শীর্ষস্থানীয় সূত্র সংবাদকে জানিয়েছে, রোববার রাতেই আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের সঙ্গে জাতীয় পার্টির আসন সমঝোতা হয়েছে। সমঝোতার ভিত্তিতেই জাপাকে ৪৫টি আসন দেয়া হয়েছে। এসব আসনে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবেন জাপার প্রার্থীরা। এর মধ্যে জাপা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ ঢাকা-১৭ এবং রংপুর-৩ আসন থেকে নির্বাচন করবেন। আর জাপার কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ ময়মনসিংহ-৪ ও ৭ আসন থেকে সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন।

ওয়ার্কার্স পার্টির নির্বাচন পরিচালনা বোর্ডের সদস্য সচিব আনিসুর রহমান মল্লিক সংবাদকে বলেন, মহাজোট থেকে ৫ জনের মনোনয়ন নিশ্চিত হয়েছে। মনোনয়ন প্রাপ্তরা হলেন- পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন (ঢাকা-৮), ফজলে হোসেন বাদশা (রাজশাহী-২), মস্তফা লুৎফুল্লাহ (সাতক্ষীরা-১), ইয়াসিন আলী (ঠাকুরগাঁও-২), অ্যাড. টিপু সুলতান (বরিশাল-৩)। পার্টি থেকে ৩৪ জনের মনোনয়ন পত্র দাখিল করা হবে বলে জানা গেছে।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ-ইনু) এর সভাপতি হাসানুল হক ইনু সোমাবর সন্ধ্যায় সংবাদকে জানান, মহাজোট থেকে জাসদের তিনজনের মনোনয়ন নিশ্চিত করা হয়েছে। মনোনয়ন পেয়েছেন-জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু (কুষ্টিয়া-২), শিরিন আক্তার (ফেনী-১) ও একেএম রেজাউল করিম (বগুড়া-৪)। অন্যদিকে, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ-বাদল) এর একজনকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। দলের সাধারণ সম্পাদক শরীফ নূরুল আম্বিয়া সংবাদকে বলেন, জাসদের (একাংশ) সভাপতি মইন উদ্দিন খান বাদলের (চট্টগ্রাম-৮) মনোনয়ন নিশ্চিত করেছে মহাজোট।

বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান এবং চট্টগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী সোমবার রাতে সংবাদকে বলেন, মহাজোট থেকে আমরা দুটি আসনের নিশ্চয়তা পেয়েছি। একটি আমার বর্তমান (চট্টগ্রাম-২) আসন, অপরটি লক্ষ্মীপুর-১। লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে আমার দল থেকে নির্বাচন করবেন আনোয়ার হোসেন খান।

সাম্যবাদী দল থেকে ৬ জন চাওয়া হলেও কোন প্রার্থীই মনোনয়ন পাননি বলে জানিয়েছেন দলটি নেতা লুৎফর রহমান। গণতন্ত্রী পার্টির সূত্রমতে তাদেরও কাউকে মনোনয়ন দেয়া হয়নি। এদিকে জাতীয় নির্বাচন সমানে রেখে দেশের বিভিন্ন ইসলামী দল ও জোটকে মোট কতটি আসন ছেড়ে দেবে আওয়ামী লীগ তা এখনো স্পষ্ট হয়নি। একাধিক সূত্রমতে, এসব দলগুলোকে সব মিলিয়ে ৬ থেকে ৯টি আসন ছেড়ে দেয়া হতে পারে।

বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মিছবাহুর রহমান চৌধুরী ও তরিকত ফেডারেশনের সাবেক মহাসচিব এমএ আউয়ালের নেতৃত্বে ১৫টি রাজনৈতিক দল ও সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত জোট ‘ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স’ এখনও আওয়ামী লীগের কাছ থেকে কোন আসনেই মনোনয়নের নিশ্চয়তা পায়নি। জোটটির মুখপাত্র এবং লক্ষ্মীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য এমএ আউয়াল সোমবার রাতে সংবাদকে বলেন, আমরা সর্বশেষ ৫টি আসনের দাবি জানিয়েছিলাম। তবে এখনও মহাজোটের পক্ষ থেকে কোন সিদ্ধান্ত পাইনি।

সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সোমবার বিকেলে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে ‘মহাজোটের ৩০০ আসনে মনোনয়নপ্রাপ্তদের তালিকা প্রকাশ’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আজ জোট ও মহাজোটের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করার কথা ছিল। কিন্তু আমি দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি, আমরা কৌশলগত ও টেকনিক্যাল কিছু কারণে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছি। সার্বিক অবস্থা বিবেচনায় এনে স্ক্রুটিনি (যাচাই-বাছাই) শেষে জোট ও মহাজোটগতভাবে তালিকা প্রকাশ করব।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জি. আবদুস সবুর, উপ-দফতর সম্পাদক ব্যরিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কার্যনির্বাহী সদস্য রেমন্ড আরেং, মারুফা আকতার পপি প্রমুখ।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সার্বিক অবস্থা বিবেচনায় এনে যাচাই-বাছাই শেষে জোট ও মহাজোটের তালিকা প্রকাশ করব। জোটের শরিক দলগুলো নিজেদের প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করবে জানিয়ে কাদের বলেন, আমাদের কৌশলগত কিছু বিষয় বিবেচনায় আছে। আমরা সব বিবেচনা ও যাচাই-বাছাই করব। কয়েকটি জায়গায় ডাবল প্রার্থীকে মনোনয়নের চিঠি দেয়া হয়েছে। এখন তারা মনোনয়নপত্র জমা দেবেন। তারপর আমরা মাঠপর্যায়ে সার্ভে করে দেখব, কে জনপ্রিয়। আবার কেউ কেউ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের পর ঋণখেলাপি হতে পারেন। তাই সবকিছু যাচাই-বাছাই করে তালিকা প্রকাশ করব, যেন শরিকদের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি না হয়। তিনি বলেন, মহাজোটে ৭০ আসনের বেশি আসন ছাড় দেয়া হবে না। জাতীয় পার্টি বড় শরিক বলে তারা একটু বড় ছাড় পাবে বলেও উল্লেখ করেন কাদের।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা দলীয়ভাবে কিছু প্রার্থীর তালিকা করে মনোনয়নের চিঠি দিয়েছি। এটা কিন্তু প্রেসের জন্য করিনি। মিডিয়া এমন অনেক প্রার্থীরর নাম প্রকাশ করেছে, যাদের আমরা চিঠি দেইনি বা যাদের নাম তালিকায় নেই। এটি আমাদের জন্য একটি বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতি তৈরি করেছে। এটি আপনাদের জন্যও লজ্জার কারণ। যে প্রার্থী মনোনয়ন পাননি, তার নামও টেলিভিশনের স্ক্রলে দেয়া হয়েছে। আপনারাই বলেন, কারও নাম না থাকলেও যদি তা টিভি স্ক্রলে যায়, তাহলে কেমন দেখায়? সাংবাদিকদের কাছে প্রশ্ন রাখেন কাদের। শরিক ও মহাজোটের কারণে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে প্রার্থী তালিকা পরিবর্তন হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, আমরা যাদের চিঠি দিয়েছি, তাদের বাইরে তো কাউকে মনোনয়ন দেবো না। তাদের কোন প্রার্থী যদি বেশি যোগ্য হয়, তাহলে আমরা আমাদের প্রার্থীর সঙ্গে সেটা সেটেল করব। এবার ৪৫ জন নতুন মুখকে দল থেকে মনোনয়ন দেয়াকে চমক বলেও অভিহিত করেন তিনি। কক্সবাজারে আবদুর রহমান বদির বদলে তার স্ত্রী শাহীনা আক্তার চৌধুরী ও টাঙ্গাইলে আমানুর রহমান খান রানার বদলে তার বাবা আতাউর রহমানকে মনোনয়ন দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, বদির বউয়ের অপরাধটা কী? বদির কারণে তার বউ কি অপরাধী হবে? তার ছেলেমেয়েদের দোষ কী? বিতর্ক আছে, তাই আমরা বদিকে মনোনয়ন দেইনি। টাঙ্গাইলেও রানার বাবা আতাউর রহমান খানকে মনোনয়ন দিয়েছি। তিনি সারাজীবন আওয়ামী লীগ করেছেন। এখন তার ছেলে কারাগারে। তিনি খুনি কিনা এটা এখনও আদালতে প্রমাণ হয়নি। এই অবস্থায় আমরা তাকে মনোনয়ন দিতে পারি না। আমরা তাকে না দিয়ে বিতর্ক এড়িয়েছি। এত বিতর্কের পরও সাতটি জনমত জরিপে বদি ও রানা এগিয়ে আছে। তারপরও আমরা তাদের মনোনয়ন দেইনি। শরিকদের সঙ্গে বোঝাপড়ার মাধ্যমে ৬৫ থেকে ৭০ আসন ছেড়ে দেয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, মনোনয়নের নামে বানরের পিঠা ভাগ করতে চাই না। জাতীয় পার্টি, ১৪ দল, যুক্তফ্রন্ট সব মিলিয়ে জয় পাওয়া যোগ্য প্রার্থীই দেয়া হবে। জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য ও জনপ্রিয় নির্বাচনে বিজয় অর্জন করবে এমন প্রার্থীই মনোনয়ন পাবে।

প্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা ঘোষণার জন্য বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ঘোষণার দিকে তাকিয়ে আছেন কিনা এ প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, এমনটি আমরা ভাবছি না। আমি তো আমার প্রতিপক্ষের কৌশলের কাছে পিছিয়ে থাকতে চাই না। নির্বাচনী কৌশলকে কোনভাবেই অগ্রাহ্য করা যায় না। নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হবে।

মহাজোটে দেড় শতাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী প্রচারণায়

ফয়েজ আহমেদ তুষার

image

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেড় শতাধিক আসনে মহাজোটের প্রার্থীদের বিপরীতে

সাংবাদিককে হুমকি দেয়ার ঘটনায় আ’লীগের নিন্দা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, জাতীয়

আর একবার জনগণের সেবা করার সুযোগ চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক ও প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ

image

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশবাসীকে নৌকা মার্কায় ভোট দেয়ার

sangbad ad

বিএনপি-জামায়াত সহিংসতা শুরু করেছে : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচনকে

প্রচার উৎসবে দেশ

অমিত হালদার ও ফয়েজ আহমেদ তুষার

image

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করেছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট এবং বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট ও জাতীয়

পাল্টাপাল্টি অভিযোগ কাদের-ফখরুলের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই’র সঙ্গে বিএনপি নেতারা বৈঠক করে নির্বাচন বানচালের

জামায়াতের ওপরই আস্থা বিএনপির

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটের চেয়ে জামায়াতে ইসলামীর

জাতীয় পার্টিকে নিয়ে অস্বস্তিতে আ’লীগ

ফয়েজ আহমেদ তুষার

image

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দ্বারপ্রান্তে এসে মহাজোটের বড় শরিক জাতীয় পার্টিকে (জাপা)

মহাজোটে আসন ২৯ উন্মুক্ত ১৩২

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির (জাপা) ২৯ জন মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে

sangbad ad