• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বুধবার, ২৭ মে ২০২০

 

শুদ্ধি অভিযান চলবে : দল পরিবার সবার প্রতিই কঠোর শেখ হাসিনা

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বুধবার, ০২ অক্টোবর ২০১৯

সংবাদ :
  • ফয়েজ আহমেদ তুষার
image

দুর্নীতিবিরোধী শুদ্ধি অভিযান চলমান রাখার ঘোষণা দিয়ে এবার ‘দল এবং পরিবারের সদস্য’দের প্রতিও কঠোর অবস্থানে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ প্রতিষ্ঠা তথা দ্রুততম সময়ে উন্নত দেশ গড়ার যে লক্ষ্য নিয়ে তিনি কাজ করছেন, তা বাস্তবায়নে দুর্নীতিকে প্রধান অন্তরায় হিসেবে দেখছেন তিনি। তাই দেশ ও জনগণের আর্থসামাজিক উন্নয়নের স্বার্থে দলমত-নির্বিশেষে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ টানা তৃতীয় মেয়াদে দাপটের সঙ্গে সরকার পরিচালনা করছে। বিরোধী রাজনৈতিক শক্তিও কোন ‘চ্যালেঞ্জ’ তৈরি করার মতো অবস্থানে নেই। দেশে চলমান বহুমুখী উন্নয়ন কর্মসূচি বিশ্বব্যাপী প্রসংশিত হচ্ছে। তবে সম্প্রতি আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ ক্ষমতাসীনদের সহযোগী বিভিন্ন সংগঠনের কতিপয় নেতা নানা দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, অপরাধে জড়িয়ে পড়ায় দলের ভেতর-বাইরে সমালোচনা শুরু হয়। জনগণের মধ্যেও চাপা ক্ষোভ তৈরি হয়। দলীয় এসব নেতাকর্মীর অযাচিত কর্মকাণ্ডে সরকারের ‘উন্নয়নযজ্ঞ’ প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ার পাশপাশি দলে ভাবমূর্তিও সংকটে পড়ে।

দুর্নীতিবাজদের ‘উইপোকা’র সঙ্গে তুলনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দুর্নীতিবাজ উইপোকারা উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নকালে অর্থ লুটে নিচ্ছে। দেশের উন্নয়নের জন্য জনগণের কষ্টার্জিত অর্থের প্রতিটি পয়সার যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতের জন্য আমাদের ওইসব উইপোকাকে আটক করতে হবে। আমরা জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ, মাদক ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রাখব। এসব অপকর্মের সঙ্গে জড়িত থাকলে দল-পরিবার নির্বিশেষে কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। দেশের দরিদ্র মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন পূরণ করতে চাই।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্পাদকমণ্ডলীর এক সদস্য সংবাদকে বলেন, নেত্রীর কাছে দুর্নীতিবাজদের তালিকা আছে। নিজ দলের নেতাদের তিনি আকার-ইঙ্গিতে সতর্কবার্তা দিয়েছেন। তবে অনেকেই শুধরাননি। এবার যেহেতু ঘোষণা দিয়েছেন, ‘দল-পরিবার কাউকে ছাড় নয়’, সেহেতু কেউ এবার ছাড় পাবে না। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেকে বিসর্জন দিতে প্রস্তুত। তিনি দেশে যে বহুমুখী উন্নয়ন শুরু করেছেন, ‘দুর্নীতি, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, মাদক কারবার’কে এর প্রধান প্রতিবন্ধকতা মনে করছেন।

চলমান ‘শুদ্ধি অভিযান’ আলোচনায় আসে গত মাসে গণভবনে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে পদচ্যুত করার মধ্য দিয়ে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় একাধিক নেতার বলেন, ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের পদচ্যুত করার ‘নজিরবিহীন’ এ ঘটনা ওইসব নেতার জন্য ‘কড়া বার্তা’- যারা এতদিন নিজেদের ‘আইনের ঊর্ধ্বে’ মনে করে নানা অপর্কর্মে জড়িত ছিলেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের পদচ্যুত করার এ ঘটনাকে ‘নজিরবিহীন’ বলে মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, দুর্নীতি, অপকর্ম করে কেউ ছাড় পাবে না। শুদ্ধি অভিযানের মধ্য দিয়ে দলমত নির্বিশেষ সবাইকে শাস্তির আওতায় আনা হবে। এর কয়েকদিন পর থেকে ‘ক্যাসিনো’ ও জুয়া ব্যবসা, মাদক, দুর্নীতি, টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজিসহ নানা অভিযোগে ‘একের পর এক’ ঢাকা মহানগর যুবলীগ নেতাদের গ্রেফতার শুরু হয়। একসঙ্গে সারাদেশেও শুরু হয় এই ‘শুদ্ধি অভিযান’। গ্রেফতার হন যুবলীগ নেতা ও প্রভাবশালী ঠিকাদার গোলাম কিবরিয়া শামীম, নগর যুবলীগ নেতা খালেদ, ফিরোজ, মমিনুল হক প্রমুখ।

একই অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে সমালোচনায় থাকা আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী বিভিন্ন সংগঠনের কয়েক নেতা সম্প্রতি তাদের জনসংযোগ কমিয়ে দেন। গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপনে চলে যান ঢাকা মহানগর যুবলীগ সভাপতি ও ক্ষমতাসীনদের এ সময়ের অত্যন্ত প্রভাবশালী নগর নেতা ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। ব্যাপক সমালোচনায় থেকেও গ্রেফতার না হওয়ায় ‘সম্্রাট’কে নিয়ে ‘একের পর এক’ সাংবাদিকদের প্রশ্নের সম্মুখীন হন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অস্পষ্ট উত্তর এবং ওবায়দুল কাদেরের ‘সারপ্রাইজ’ বা ‘গরম খবর’-এর জন্য অপেক্ষা করার অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে চলমান শুদ্ধি অভিযানের সাফল্য নিয়ে জনমনেও প্রশ্ন জাগে।

শুদ্ধি অভিযান নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২ অক্টোবর বুধবারের বক্তব্য আবারও জনমনে আশা জাগিয়েছে। দেশের প্রথম কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু ১-এর মাধ্যমে দেশীয় সব টেলিভিশন চ্যানেলের বাণিজ্যিক ট্রান্সমিশনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি স্পষ্ট বলেছেন, দলেরই হোক আর পরিবারের কেউ হোক- দুর্নীতি, অনিয়ম, অপরাধ করে থাকলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে নিউইয়র্কে এক গণসংবর্ধনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দুর্নীতিবিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে। দুর্নীতির বিচার করতে আর ‘ওয়ান ইলেভেন’-এর প্রয়োজন হবে না। এ জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। দুর্নীতির কারণে সমাজে বৈষম্যের সৃষ্টি হচ্ছে, অরাজকতা সৃষ্টি হচ্ছে। একশ্রেণীর লোক ‘আঙুল ফুলে কলাগাছ’ হয়ে যাচ্ছে আর সৎ ব্যক্তিত্ব, তাদের পরিবার, সন্তানরা বৈষম্যের স্বীকার হচ্ছে। সমাজে এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে অভিযান সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘স্পোর্টসকে প্রমোট’ করার জন্য আমরা নানা সুবিধা দিয়েছি। কিন্তু এসব সুবিধা ব্যবহার করে তারা যে ‘ক্যাসিনো’ নিয়ে আসবে, ভাবতেও পারিনি। এসব অবৈধ কর্মকাণ্ড গ্রহণযোগ্য নয়। তাই পদক্ষেপ নিয়েছি। এখন ‘কেঁচো খুঁড়তে সাপ’ বের হয়ে আসছে। আরও কী বের হয় দেখুন। অপেক্ষা করুন। একবার যখন ধরেছি, তখন অভিযান অব্যাহত থাকবে। দুর্নীতিবাজ ও অসৎ ব্যক্তি আমার দলের হলেও ছাড় নেই। কার আয় কত, কীভাবে জীবনযাপন করে- সেটি খুঁজে বের করতে হবে। দেশের উন্নয়নে যে পরিমাণ অর্থ খরচ হচ্ছে, তা সঠিকভাবে ব্যয় হলে দেশ অনেক দূর এগিয়ে যেত। দেশের এই অবস্থায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে এমন একটি আঘাত প্রয়োজন ছিল মন্তব্য করে তিনি বলেন, এই অভিযানে কোন কোন ব্যক্তি অখুশি, অসন্তুষ্ট। তবে বিচার করতে গেলে প্রথমে নিজের ঘর থেকেই বিচার শুরু করতে হয়।

গত মাসে গণভবনে এক বৈঠকেও দল এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতাদের বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ডে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, আমার একার ইমেজ দিয়ে কি দেশ চলবে? সবার সম্মিলিত ভাবমূর্তি দিয়ে দল ও দেশ চালাতে হবে। কাজেই আমি কাউকে ছাড় দেব না। আমি সবার খবরই রাখি। ছাত্রলীগই হোক আর আওয়ামী লীগই হোক, কঠোরহস্তে এসব মোকাবিলা করা হবে। তিনি বলেন, অনেক এলাকায় স্থানীয় নেতাদের মত উপেক্ষা করে একচেটিয়া কমিটি গঠনের অভিযোগ রয়েছে। কমিটিতে ভিন্ন আদর্শের লোকজন পদ পাচ্ছে। আওয়ামী লীগ ‘ক্যাডার পলিটিক্স’-এ বিশ্বাস করে না। অথচ আওয়ামী লীগের ব্যানারে ক্যাডাররা প্রকাশ্যে অস্ত্র মহড়া করে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। এসব বন্ধ করার নির্দেশ দিয়ে তিনি বলেন, তা না হলে যেভাবে জঙ্গি দমন, সন্ত্রাস দমন, মাদক দমন করা হয়েছে- সেভাবেই ক্যাডার দমন করা হবে। কে কোন দলের ক্যাডার, সেটি দেখা হবে না।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় একাধিক নেতা সংবাদকে জানান, তাদের নেত্রী শেখ হাসিনা দলের স্বার্থে, দেশের স্বার্থে ওই নেতাদের ‘লাগাম টেনে ধরবেন’- যারা চাঁদাবাজি ও কমিশন বাণিজ্যে নিজেদের ‘আদ্যপান্ত’ জড়িয়ে ফেলেছেন। দ্রুতই এসব ‘রাঘববোয়াল’কে আইনের আওতায় আনা হবে। রাঘববোয়ালদের কোন তালিকা করা হয়েছে কিনা প্রশ্নের জবাবে কেন্দ্রীয় এক নেতা বলেন, তালিকা আছে কিনা, তা জানি না। তবে এতটুকু বুঝি, কোন নেতাই নিশ্চিত বলতে পারবেন না যে, তিনি ‘নজরদারি’তে নেই।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে ৫০০০ কিট উপহার দিল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বিজ্ঞান ও প্রযু্ক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমানের নির্দেশে করোনা শনাক্তের ৫ হাজার কিট স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে হস্তান্তর করা হয়েছে। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) টেস্টের নমুনা সংগ্রহের জন্য অল্প খরচে দেশেই আন্তর্জাতিক মানের ডিটিএম কিট তৈরি করেছে বিজ্ঞান ও প্রযু্ক্তি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিসিএসআইআর এর অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ডিআরআইসিএম।

পবিত্র ঈদের দিনেও বিএনপির বিষোদগারের রাজনীতি : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, পবিত্র ঈদের দিনেও বিষোদগারের রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি বিএনপি।

সামনে কঠিন সময়, প্রয়োজন সম্মিলিত প্রতিরোধ : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সামনে বাংলাদেশের জন্য আরও কঠিন সময় আসছে।

sangbad ad

পুলিশে করোনার সংক্রমণ ৪ হাজার ছাড়াল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দেশে করোনায় আক্রান্ত ৩৬ হাজার ৭৫১: মৃত্যু ৫২২

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণে ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে; নতুন শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ১৬৬ জন। এ নিয়ে দেশে করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ৫২২ জনের, মোট শনাক্ত হয়েছেন ৩৬ হাজার ৭৫১ জন।

করোনায় মৃত্যু প্রায় সাড়ে ৩ লাখ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের উহানে শুরু হওয়া করোনার সংক্রমণ বিশ্বের ২১৫টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

অসহায়দের পাশে থাকাতে সামর্থ্যবানদের প্রতি আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ পবিত্র ঈদে দরিদ্র অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে সামর্থ্যবানদের আহ্বান জানিয়েছেন।

জাতীয় কবি নজরুলের জন্মবার্ষিকী উদযাপিত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২১তম জন্মবার্ষিকী আজ উদ্যাপিত হয়েছে।

করোনা সংকটে দরিদ্রদের পাশে দাঁড়াতে সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহবান রাষ্ট্রপতির

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ করোনাভাইরাস জনিত সংকট এবং বাংলাদেশের উপকুল এলাকার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া সাম্প্রতিক ঘূর্ণীঝড় আম্পানের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্থ দরিদ্র জনগণের পাশে দাঁড়াতে সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

sangbad ad