• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০

 

মুজিববর্ষের বর্ণাঢ্য উদ্বোধন

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৭ মার্চ ২০২০

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

মুজিববর্ষের বর্ণাঢ্য উদ্বোধনীতে আলোর ঝলক-সোহরাব আলম

সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আতশবাজি, আলোকসজ্জা ও বিনম্র শ্রদ্ধায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে উদযাপিত হলো হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি ও স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী।

ঢাকার ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ১৭ মার্চ মঙ্গলবার রাত আটটায় মুজিববর্ষের বিশেষ আয়োজন ‘মুক্তির মহানায়ক’ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় আতশবাজি উৎসব। ১৯২০ সালের এই ক্ষণেই ধরণীতে এসেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। একশ’ বছর পর এই সময়েই বর্ণিল আতশবাজির মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে মুজিব জন্মশতবর্ষের ‘মুজিববর্ষ’ আয়োজন।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ছাড়াও ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবর, হাতিরঝিলে এ কর্মসূচি পালন হয়। এছাড়া সংসদ ভবন প্রাঙ্গণে সংসদ সচিবালয়ের উদ্যোগে লেজার শো’র আয়োজন করা হয়। ‘মুক্তির মহানায়ক’ অনুষ্ঠানে শত শিশুর কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ভিডিও বার্তায় বিশেষ বাণী দেন; পরে প্রধানমন্ত্রীও ভাষণ দেন।

অনুষ্ঠানে সমবেত একটি গানে অংশ নেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ রেহানা। পরে শেখ রেহানা রচিত একটি কবিতা পাঠ করেন বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানে ভারত, নেপাল, ভুটানসহ কয়েকটি দেশের শীর্ষ নেতা ও জাতিসংঘের মহাসচিব জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানিয়ে বিডিও বার্তা দেন। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচিত গান, দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করেন দেশবরেণ্য শিল্পীরা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন সংস্কৃতিকর্মী রামেন্দু মজুমদার ও শহীদ বুদ্ধিজীব কন্যা সহযোগী অধ্যাপক ডা. নুজহাত চৌধুরী। জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ বাস্তবায়ন জাতীয় কমিটি এ আতশবাজি উৎসবের আয়োজন করে। আতশবাজি উৎসব দেখার জন্য উদ্যানের ভেতরে উৎসুক জনতা ভিড় করে। যদিও নিরাপত্তাবেষ্টনীর কারণে এ সংখ্যা খুব সীমিত ছিল। চারপাশ ঘিরে ছিল বিপুল সংখ্যক মানুষ। আতশবাজি উৎসব কেন্দ্র করে সাজানো হয় পুরো সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকা। আতশবাজি প্রদর্শন হয় স্বাধীনতা স্তম্ভের সামনে থেকে; যেখানে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ। এছাড়াও যথাযোগ্য মর্যাদায় নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে রাজধানীসহ সারাদেশে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মশতবার্ষিকী এবং ‘জাতীয় শিশু দিবস’ উদযাপন করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মঙ্গলবার গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। সকালে রাজধানীর ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতেও শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী।

বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের এই দিনে (১৭ মার্চ) গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাতে নিজ বাসভবনে স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার, আলবদর ঘাতক-দালাল চক্রের ষড়যন্ত্রে একদল বিপথগামী সেনা সদস্যের নির্মম বুলেটের আঘাতে সপরিবারে নৃশংসভাবে নিহত হন তিনি।

বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে মঙ্গলবার ভোর ৬টায় জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্যদিয়ে আওয়ামী লীগ ও এর বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের দিনব্যাপী কর্মসূচি শুরু হয়। অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে ছিল, জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, কেক কাটা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল, মোনাজাত, প্রার্থনা, আলোচনা সভা, শোভাযাত্রা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, স্বেচ্ছায় রক্তদান, বিনামূল্যে চিকিৎসা, পুরস্কার বিতরণ, প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ, করোনাভাইরাসের প্রতিরোধ সামগ্রী বিতরণ ইত্যাদি।

দিবসটি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকালে রাজধানীর ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধু জাদুঘরের সামনে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময়ে বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানা ও প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়েমা ওয়াজেদ হোসেন (পুতুল) সঙ্গে ছিলেন। জাতির পিতার প্রতিকৃতির বেদিতে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণের পর স্বাধীনতার এই মহান স্থপতির প্রতি সম্মান জানাতে প্রধানমন্ত্রী সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। এ সময় মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সংসদ সদস্য এবং আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা উপস্থিত ছিলেন। পরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে দলের সভাপতি শেখ হাসিনা জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে আরেকবার পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ করেন।এ সময় আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন ও মোজাফফর হোসেন পল্টু, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, সভাপতিম-লীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, ড. আবদুর রাজ্জাক, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেলক হক ও মির্জা আজম, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়াসহ দলের অন্য কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এরপর জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এবং প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পৃথকভাবে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক মোহম্মদ রফিকুল ইসলাম এবং প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী ও জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্যসচিব ড. আহমদ কায়কাউসের নেতৃত্বে (পিএমও) কর্মকর্তারা শ্রদ্ধা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু ভবন এলাকা ত্যাগ করার পর যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ, ছাত্রলীগ, কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগ, তাঁতী লীগ, মৎস্যজীবী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন।

জাতির পিতার সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর সমাধীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময় বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর একটি চৌকস দল গার্ড-অব-অনার প্রদান করে। পরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ফাতেহা পাঠ করেন ও জাতির পিতা এবং ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট শহীদদের আত্মার শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাতে শরিক হন। এ সময় জাতির পিতার ছোট মেয়ে শেখ রেহানা, প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ হোসেন এবং শেখ রেহানার ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি উপস্থিত ছিলেন।

মঙ্গলবার ছিল সরকারি ছুটির দিন। দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারসহ বিভিন্ন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার এবং সংবাদপত্রগুলোতে বিশেষ ক্রোড়পত্র ও নিবন্ধ প্রকাশ করা হয়। বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে সারাদেশের সব সরকারি হাসপাতালে রোগীদের উন্নত মানের খাবার পরিবেশন করা হয়।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটি আজিমপুরে এতিমখানায় শিশুদের মাঝে খাদ্য, বস্ত্র ও করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সামগ্রী বিতরণ কর্মসূচির আয়োজন করে। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য একেএম রহমত উল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম। এছাড়াও অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দি প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মসজিদ, মন্দির, প্যাগোডা, গির্জাসহ সব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দেশব্যাপী বিশেষ প্রার্থনা কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাদ জোহর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদসহ দেশের সব মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সকাল ৮টায় তেজগাঁও গির্জায়, সকাল ৯টায় মিরপুর ব্যাপ্টিস্ট চার্চে খ্রিস্টান সম্প্রদায়, সকাল ১০টায় রাজধানীর মেরুল বাড্ডাস্থ আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে বৌদ্ধ সম্প্রদায় এবং বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরে হিন্দু সম্প্রদায় প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও দুপুর ১টায় ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বনানী করাইল বস্তিতে এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এতিম ও দুঃস্থ মানুষের মাঝে খাবার ও মিষ্টি বিতরণ করা হয়। বাদ আসর রাজধানীর প্রতিটি ওয়ার্ডে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ দুস্থদের দুঃস্থ মানুষের মাঝে খাবার ও মিষ্টি বিতরণ করা হয়।

উল্লেখ্য, শিশুদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর অকৃত্রিম ভালবাসার স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৯৬ সালে জাতির পিতার জন্মদিনকে শিশুদের জন্য উৎসর্গ করে জাতীয় শিশু দিবস ঘোষণা করা হয়। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোমবার পৃথক বাণী প্রদান করেন।

বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে জড়িত ক্যাপ্টেন আবদুল মাজেদ গ্রেফতার

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট, নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ডে জড়িত ক্যাপ্টেন (অবসর) আবদুল মাজেদকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পোশাক কারখানা পহেলা বৈশাখ পর্যন্ত বন্ধ, বেতন ১৬ এপ্রিল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

শ্রমিকদের মার্চ মাসের বেতন আগামী (৩রা বৈশাখ) ১৬ এপ্রিলের মধ্যেই দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ।

এপ্রিলেই করোনা ব্যাপক ছড়ানোর আশঙ্কা প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

সারা বিশ্বে এই ভাইরাসটা কিভাবে প্রসারিত হয়। এটা অনেকটা অংকের মতো।

sangbad ad

রমজানে অফিস চলবে ৯টা হতে সাড়ে ৩টা পর্যন্ত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আসন্ন রমজান মাসের জন্য সব সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত এবং আধা-স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে অফিসের সময়সূচি সকাল ৯টা থেকে বিকাল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত নির্ধারণ করেছে সরকার।

ওষুধের দোকান ছাড়া সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে সব দোকানপাট বন্ধ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

কাঁচাবাজারগুলো ভোর ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত চালু রাখা যাবে। পাড়ামহল্লার মুদি দোকানগুলো খোলা থাকবে ভোর ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত।

করোনার রোগী শনাক্ত হলে পুরো এলাকা লকডাউন করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত অতি জরুরি কারণ ছাড়া ঢাকার বাইরে কেউ যাবে না, আসবেও না। পিপিই, মাস্ক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ছাড়া প্রতিটি গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

পোষা পাখি ও প্রাণীর প্রতি নিষ্ঠুর আচরণ করা যাবে না: মন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

পোষা পাখি ও প্রাণিদের ঠিকমতো খাবার দেয়া হচ্ছে কিনা, তাদের প্রতি নির্দয় আচরণ করা হচ্ছে কিনা, তারা পর্যাপ্ত আলো-বাতাসে শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে পারছে কিনা-এ বিষয়গুলো সরেজমিনে দেখার জন্য কাঁটাবন মার্কেট পরিদর্শন করেছি।

দেশের ১৫ জেলায় ছড়িয়ে গেল করোনার জাল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

এখন পর্যন্ত ঢাকায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৪ জন ও নারায়ণগঞ্জে ২৩ জন। ভাইরাসটি ইতোমধ্যে দেশের ১৫টি জেলায় ছড়িয়েছে।

১৮ এপ্রিল একাদশ জাতীয় সংসদের ৭ম অধিবেশন আহ্বান রাষ্ট্রপতির

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

১৮ এপ্রিল একাদশ জাতীয় সংসদের ৭ম অধিবেশন আহ্বান রাষ্ট্রপতির

sangbad ad