• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৯

 

মন্ত্রিসভায় নতুনের জয়গান

নিউজ আপলোড : ঢাকা , রবিবার, ০৬ জানুয়ারী ২০১৯

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

নতুনদের প্রাধান্য দিয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীসহ নতুন মন্ত্রিসভার সদস্য ৪৭ জন, যাদের অর্ধেকের বেশিই নতুন। ৪৭ সদস্যের মন্ত্রিসভার মধ্যে ২৪ জন মন্ত্রী, ১৯ জন প্রতিমন্ত্রী ও তিন জনকে উপমন্ত্রী করা হয়েছে। নতুন মন্ত্রিসভা গঠনের পাশাপাশি তাদের দফতরও বণ্টন করা হয়েছে। বিদায়ী মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়েছেন ৩৬ জন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী।

সোমবার (৭ জানুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৩টায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের শপথ পাঠ করাবেন। এরপর নতুন মন্ত্রিসভার বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করবে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম রোববার (৬ জানুয়ারি) বিকেলে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের নাম ঘোষণা করেন। দেশে অতীতে কখনো এভাবে সংবাদ সম্মেলনে নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের নাম ঘোষণা হয়নি। তবে মন্ত্রিসভায় আওয়ামী লীগের শরিকদের স্থান হচ্ছে কী না এবং মন্ত্রিসভার আকার আরও বাড়ছে কী না জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আপাতত এটাই চূড়ান্ত।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ের পর রোববার নতুন মন্ত্রিসভার তালিকা প্রকাশ করে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার।

নতুন মন্ত্রিসভার ২৪ জন মন্ত্রীর মধ্যে ৯ জনই নতুন, তারা প্রথমবারের মতো মন্ত্রিসভায় স্থান পেয়েছেন। আর বিদায়ী সরকারে ছিলেন না, কিন্তু আগে মন্ত্রিসভায় দায়িত্ব পালন করেছেন এমন তিনজনকে পূর্ণমন্ত্রী হিসেবে এবার মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

আর পুরনোদের মধ্যে যে সাতজন মন্ত্রী নতুন মন্ত্রিসভায় স্থান পেয়েছেন, তাদের ছয়জনকে আগের দপ্তরেই রাখা হয়েছে। গত সরকারের পাঁচজন প্রতিমন্ত্রীর এবার মন্ত্রী হিসেবে পদোন্নতি হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গত মন্ত্রিসভায় অনির্বাচিত (টেকনোক্র্যাট) মন্ত্রী ছিলেন চারজন, তাদের মধ্যে দুজনকে এবারও মন্ত্রিসভায় স্থান দেয়া হয়েছে। নতুন করে টেকনোক্র্যাট হিসেবে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন একজন।

প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া ১৯ জনের মধ্যে ১৫ জনই প্রথমবারের মতো মন্ত্রিসভায় স্থান পেয়েছেন। বাকি তিনজন গত সরকারেও প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। অপরজন আগের মন্ত্রিসভায় থাকলেও গত মন্ত্রিসভায় ছিলেন না। এবার উপমন্ত্রী করা হয়েছে তিনজনকে, যারা প্রথমবারের মতো মন্ত্রিসভায় স্থান পেয়েছেন।

নতুন মন্ত্রী হলেন যারা

নতুন মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জনপ্রশাসন, প্রতিরক্ষা, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ, বিদ্যুৎ, জ¦ালানি ও খনিজ সম্পদ, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় রাখা হয়েছে।

মন্ত্রীদের মধ্যে গাজীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম মোজাম্মেল হককে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়, নোয়াখালী-৫ আসনের সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয়, টাঙ্গাইল-১ আসনের সংসদ সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাককে কৃষি, ঢাকা-১২ আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান খান কামালকে স্বরাষ্ট্র, চট্টগ্রাম-৭ আসনের সংসদ সদস্য ড. হাছান মাহমুদকে তথ্য, ব্রাহ্মণবাড়িযা-৪ সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আনিসুল হককে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়, কুমিল্লা-১০ আসনের সংসদ সদস্য আ হ ম মুস্তফা কামালকে অর্থ, কুমিল্লা-৯ আসনের সংসদ সদস্য তাজুল ইসলামকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়, চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ডা. দীপু মনিকে শিক্ষা, সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য একেএম আবদুল মোমেনকে পররাষ্ট্র, সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এমএ মান্নানকে পরিকল্পনা, নরসিংদী-৪ আসনের সংসদ সদস্য নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুনকে শিল্প, নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজীকে বস্ত্র ও পাট, মানিকগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য জাহেদ মালেক স্বপনকে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ, নওগাঁ-১ আসনের সংসদ সদস্য সাধনচন্দ্র মজুমদারকে খাদ্য, রংপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য টিপু মুনশিকে বাণিজ্য, লালমনিরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য নুরুজ্জামান আহমেদকে সমাজকল্যাণ, পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিমকে গৃহায়ন ও গণপূর্ত, মৌলভীবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য শাহাব উদ্দিনকে পরিবেশ, বন ও জলবায় পরিবর্তন, বান্দরবানের সংসদ সদস্য বীর বাহাদুর উশৈসিংকে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, চট্টগ্রাম-১৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান চৌধুরীকে ভূমি, পঞ্চগড়-২ আসনের সংসদ সদস্য নূরুল ইসলাম সুজনকে রেলপথ, টেকনোক্র্যাট কোটায় স্থপতি ইয়াফেস ওসমানকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এবং মোস্তাফা জব্বারকে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী হলেন যারা

প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে ১৯ জনকে। তাদের মধ্যে ঢাকা-১৫ আসনের সংসদ সদস্য কামাল আহমেদ মজুমদারকে শিল্প, সিলেট-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইমরান আহমদকে প্রবাসী কল্যাণ, গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল যুব ও ক্রীড়া, ঢাকা-৩ আসনের সংসদ সদস্য নসরুল হামিদ বিপু বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ, নেত্রকোনা-২ আসনের সংসদ সদস্য আশরাফ আলী খান খসরু মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, খুলনা-৩ আসনের সংসদ সদস্য বেগম মন্নুজান সুফিয়ান শ্রম ও কর্মসংস্থান, দিনাজপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য খালিদ মাহমুদ চৌধুরী নৌ-পরিবহন, কুড়িগ্রাম-৪ আসনের সংসদ সদস্য জাকির হোসেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা, রাজশাহী-৬ আসনের সংসদ সদস্য শাহরিয়ার আলম পররাষ্ট্র, নাটোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য জুনায়েদ আহমেদ পলক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন জনপ্রশাসন, যশোর-৫ আসনের সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়, বরিশাল-৫ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদ ফারুক পানিসম্পদ, জামালপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মুরাদ হাসান স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ, ময়মনসিং-২ আসনের সংসদ সদস্য শরীফ আহমেদ সমাজকল্যাণ, ময়মনসিংহ-৫ আসনের সংসদ সদস্য কেএম খালিদ সংস্কৃতি বিষয়ক, ঢাকা-১৯ আসনের সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ, হবিগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য মাহবুব আলী বেসামরিক বিমান ও পর্যটন এবং টেকনোক্র্যাট কোটায় শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহকে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

উপমন্ত্রী হলেন যারা

নবনিযুক্ত তিন উপমন্ত্রীর মধ্যে বাগেরহাট-৩ আসনের সংসদ সদস্য বেগম হাবিবুন নাহারকে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়, শরীয়তপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য এনামুল হক শামীমকে পানি সম্পদ এবং চট্টগ্রাম-৯ আসনের সংসদ সদস্য মহিবুল হাসান চৌধুরীকে (নওফেল) শিক্ষা উপমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে আওয়ামী লীগ। নির্বাচনে ২৯৮ আসনের মধ্যে ২৫৭টিতে জয় পেয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। জোটগতভাবে তারা পেয়েছে ২৮৮ আসন। অন্যদিকে বিএনপি ও তাদের জোট ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট’ পেয়েছে মাত্র সাতটি আসন।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটে বিজয় অর্জনের পর ১২ জানুয়ারি গঠিত হয় মন্ত্রিসভা। ওই সময় শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী করে ৪৮ সদস্যবিশিষ্ট নতুন মন্ত্রিসভা গঠন করা হয়। ওই সরকারে প্রধানমন্ত্রী ছাড়া ২৯ জন মন্ত্রী, ১৭ প্রতিমন্ত্রী এবং দুজন উপমন্ত্রী ছিলেন। কয়েক দফা রদবদলের পর মন্ত্রিসভার আকার দাঁড়ায় ৫২ তে।

মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়লেন যারা
বিগত মন্ত্রিসভার ২৫ জন মন্ত্রী, ৯ জন প্রতিমন্ত্রী ও ২ জন উপমন্ত্রী এবারের মন্ত্রিসভায় স্থান পাননি। বাদ পড়াদের তালিকায় রয়েছেন, সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি আগেই জানিয়েছিলেন তিনি অবসর নিতে চান। এবারের সংসদ নির্বাচনে তিনি প্রার্থীও হননি। বাদ পড়াদের তালিকায় আরও রয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন, প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম, সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী মুহা. ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিক, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, বন ও পরিবেশমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, পানিসম্পদমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, মৎস্যমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, বিমানমন্ত্রী এ. কে. এম শাহজাহান কামাল ও ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী নির্বাচনে মনোনয়ন পাননি। বিগত মন্ত্রিসভার জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম গত ৩ জানুয়ারি মারা যান। মন্ত্রীদের মধ্যে টেকনোক্র্যাট দুই মন্ত্রী নুরুল ইসলাম ও মতিউর রহমান ভোটের আগেই পদত্যাগ করেন।

প্রতিমন্ত্রীদের মধ্যে বাদ পড়েছেন শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক (চুন্নু), বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক, মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী।

বাদ পড়েছেন দুই উপমন্ত্রীও। এরা হলেন পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের আরিফ খান জয়। এবার আরিফ খান জয় নির্বাচনে মনোনয়ন পাননি। উল্লেখ্য, নতুন মন্ত্রিসভায় জাতীয় পার্টির কেউ নেই। আগের মন্ত্রিসভায় দলটির তিনজন মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। বিরোধী দলের ভূমিকায় থাকার কারণে এবার তারা মন্ত্রিসভায় যোগ দেবেন না বলে শপথের পরদিনই দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ জানিয়েছেন। মহাজোটের শরিক জাসদ, ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় পার্টি (জেপির) কেউই মন্ত্রিসভায় স্থান পাননি। আগের মন্ত্রিসভায় জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু, ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন ও জেপির আনোয়ার হোসেন মঞ্জু ছিলেন।

সততা ও জবাবদিহিতার সঙ্গে কাজ করতে হবে : নতুন মন্ত্রীদের প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ, জনবান্ধব প্রশাসন গড়া এবং কোন কাজ ফেলে না রাখতে মন্ত্রিসভার সদস্যদের নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

মন্ত্রিসভায় রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া অনুমোদন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

একাদশ জাতীয় সংসদের উদ্বোধনী অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি যে ভাষণ দেবেন, তার খসড়া অনুমোদন

পহেলা মার্চ জাতীয় ভোটার দিবস উদযাপন করবে ইসি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দেশের নাগরিকদের মধ্যে ভোটাধিকার ও জাতীয় পরিচয়পত্র সম্পর্কে সচেতনা বাড়াতে প্রথমবারের

sangbad ad

‘উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে সবার জন্য কাজ করব’ : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ গড়তে দল-মত নির্বিশেষে সবার জন্য কাজ করার অঙ্গীকার

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে নানা চেষ্টা

সাইফ বাবলু

image

সড়কে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে রাজধানীতে পক্ষকালব্যাপী পুলিশের ট্রাফিক শৃঙ্খলা পক্ষের ৩

সরকারের প্রধান লক্ষ্য জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, বর্তমান সরকারের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে সুশাসনের মাধ্যমে

শিক্ষা প্রশাসনে বড় পরিবতর্ন আসছে

রাকিব উদ্দিন

image

শিক্ষা প্রশাসনে বড় ধরনের রদবদল আসছে। রাজধানীর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ‘লোভনীয়’ পদে

ইশতেহার বাস্তবায়নই প্রথম লক্ষ্য

মোস্তাফিজুর রহমান

image

নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নেই মনোযোগ সরকারের। চলতি মেয়াদের শুরু থেকে

নিজের জন্যই ট্রাফিক আইন মানা উচিত : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আমাদের নিজেদের জন্যই ট্রাফিক আইন মানা প্রয়োজন। দ্রুত যাওয়ার চাইতে জীবন

sangbad ad