• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৯

 

প্রথম কার্যদিবসে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের প্রতিক্রিয়া

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ০৮ জানুয়ারী ২০১৯

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও দুর্নীতি দমনে অধিকতার মনোযোগ দেবে সরকার : ওবায়দুল কাদের
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সুশাসন প্রতিষ্ঠা, দূর্নীতি দমন এবং মাদকমুক্ত সমাজ গঠনের দিকে এবার অধিকতর মনোযোগী হবে সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়েই নতুন মন্ত্রিসভা সাজিয়েছেন। টানা দ্বিতীয় মেয়াদে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়ে মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি) সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে প্রথম কার্যদিবসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, দুর্নীতি ও মাদক দমনে সময় লাগবে। সরকার এ বিষয়ে আন্তরিক। প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতি ও মাদক দমনে সিরিয়াস। সেতুমন্ত্রী বলেন, আমরা বিচারহীনতার সংস্কৃতির মধ্যে নেই। অপরাধ যেই করুক বিচার হবে। দুর্নীতি ও মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান আরও জোরদার হবে। ওবায়দুল কাদের বলেন, দুষ্টের দমন, শিষ্টের লালনের ব্যাপারে সরকার শতভাগ আন্তরিক। এবার সুশাসনের দিকে অধিকতর মনোযোগী হবো। এসব বিবেচনায়ই নতুন মন্ত্রিসভা দেওয়া হয়েছে।

সরকারের উন্নয়ন কাজে গণমাধ্যমকে সহযোগী হওয়ার আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর
তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নত, সমৃদ্ধ দেশ গড়ার কাজে গণমাধ্যমগুলোকে সহযোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। মঙ্গলবার দুপুরে সচিবালয়ে নিজ দফতরে নতুন তথ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়েই এ আহ্বান জানান তিনি। নতুন মন্ত্রী হিসেবে নিজের প্রতিক্রিয়া জানাতে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আগামীতে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ গড়ার জন্য আমরা যে কাজ করে যাচ্ছি। যে ভিশন নিয়েছি। শেখা হাসিনার নেতৃত্বে সেটা আমরা বাস্তবায়ন করবো। আর সেজন্য গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই আমরা গণমাধ্যমের সহযোগিতা চাই। তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়ে গণমাধ্যমের বিকাশ ঘটেছে। তাছাড়া টেলিভিশন এবং অনলাইন গণমাধ্যমের ব্যাপক বিকাশ ঘটেছে শেখ হাসিনা সময়েই। তবে আমরা জানি, অনেক ভুয়া অনলাইন কিছু উল্টা-পাল্টা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করছে। অনেকের চরিত্র হননের চেষ্টা করছে তারা। আমরা আপনাদের (সাংবাদিকদের) সহযোগিতা নিয়ে এগুলো মোকাবিলা করবো। তথ্যমন্ত্রীশেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। দিন বদল হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ হয়েছে। এক সময় বাংলাদেশের নাম লেখা হতো অন্যতম দরিদ্র দেশ হিসেবে। আজ সেই সুযোগ আর নেই। বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশ।

সুবিচার নিশ্চিত করাই চ্যালেঞ্জ : আইনমন্ত্রী
আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, এই মেয়াদে আমাদের চ্যালেঞ্জ হবে সুবিচার ও সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করা। তবে আমাদের কিছু কিছু সমস্যা আছে, সেগুলো নির্ধারণ করে সমাধানের চেষ্টা করবো। টানা দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিন মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় তিনি এসব কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, গত মেয়াদে আমাদের অনেকগুলো পদক্ষেপ ছিল। সেগুলো আরও জোরদার ও সুদৃঢ় করা হবে। তিনি বলেন, গতবারের অভিজ্ঞতার আলোকে বাকি কাজগুলো এগিয়ে নিতে চাই। আইনমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর খুনীদের ফিরিয়ে আনা অসম্ভব নয়, তবে কঠিন। এটা নিয়ে আমরা কাজ করেছি। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনা কঠিন হওয়ার কারণ আছে। আর সেটা হলো ৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে খুনের পর রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় দেশের বাইরে পাঠানো হয়েছে। দেশেও অনেককে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফিরিয়ে আনার চেষ্টা শুরু হয়। আমরা ফিরিয়ে আনতে পারিনি, ব্যর্থ হয়েছি এটা ঠিক নয়। আমরা একটা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে কাজ করেছি। তবে এ প্রক্রিয়া অনেক বেশি দীর্ঘ হবে। আর এসব খুনি কোথায় আছেন তাদের শনাক্ত করাও একটু কঠিন হবে। তবে বঙ্গবন্ধুর খুনের নেপথ্যে কারা দায়ী তাদের শনাক্তে আমরা কমিশন গঠনের চেষ্টা করবো।

জঙ্গিবাদ ও মাদকমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠাই চ্যালেঞ্জ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, এবার আমাদের প্রথম চ্যালেঞ্জ হবে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতির বাস্তবায়ন এবং যেকোন মূল্যে সমাজ থেকে মাদক দূর করা। টানা দিত্বীয় মেয়াদে দায়িত্ব নিয়ে মঙ্গলবার সচিবালয়ে তার নিজ দফতরে প্রথম কার্যদিবসে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা আগেও জঙ্গিবাদকে মাথাচাড়া দিতে দেইনি। আগামী দিনেও সেটা হতে দেব না। আগের যেকোনো সময়ের মতো মাদকেও থাকবে জিরো টলারেন্স নীতি। সন্ত্রাস প্রতিরোধে আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি কাজ করা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, বিএনপি যদি আগামী দিনে কোনো আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নেয়, সেটা নিতে পারে। কারণ এটা যেকোনো রাজনৈতিক দলের গণতান্ত্রিক অধিকার। তবে সেই আন্দোলনের নামে যদি নাশকতা করতে চায়, তাহলে তা যেকোনো মূল্যে প্রতিহত করা হবে।’

মানসম্পন্ন স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করাই চ্যালেঞ্জ : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক বলেছেন, সবার জন্য মানসম্পন্ন স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করাই এই মুহুর্তে তার বড় চ্যালেঞ্জ। মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি) সচিবালয়ে মন্ত্রী হিসেবে প্রথম কার্যদিবসে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ডা. জাহিদ মালেক বলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ যে ইশতেহার ঘোষণা করেছে তা পূরণ করা হবে। স্বাস্থ্যবিভাগের প্রতিশ্রুতিগুলো বাস্তবায়ন করতে সব ধরনের পদক্ষপ নেওয়া হবে। তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি বিভাগীয় শহরে একটি করে ১০০ শয্যার ক্যান্সার হাসপাতাল করা হবে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, যত দ্রুত সম্ভব দেশের স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়েন সব মেডিকেল কলেজের কাজ শেষ করা হবে। শেষ করা হবে ১০ হাজার চিকিৎসক নিয়োগের প্রক্রিয়া। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষা আইন পাস করা হবে। জেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে কিডনি বিভাগ করা হবে। গ্রাম এলাকায় স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করা হবে।

জ্বালানি খাতে বিশেষ গুরুত্ব দেয়ার পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর: বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেছেন, বিদ্যুৎ খাতে সরকারের অভূতপূর্ব অগ্রগতি ও সাফল্য অব্যহত রাখার পাশপাশি এবার জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ খাতের উন্নয়নে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার পরিকল্পনা নেয়া হবে। বিদ্যুৎ ভবনে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিনের প্রতিক্রিয়ায় তিনি এসব কথা বলেন।

এর আগে সকালে বিদ্যুৎ বিভাগ এবং জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ এবং মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বিভিন্ন দপ্তর ও কোম্পানির পক্ষ থেকে প্রতিমন্ত্রীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। এসময় প্রতিমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেন, আমাকে আবার এই মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব দেওয়ায় নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কাজ করতে পারাটা দারুণ সৌভাগ্যের। প্রতিমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, আগামী তিন মাসের মধ্যে পরিকল্পনা করে পরবর্তি সাড়ে ৪ বছর হবে বাস্তবায়নের বছর। তিনি বলেন, শুক্র, শনিবারও কাজ করার মানসিকতা রাখতে হবে। পুরনো ধাচের ধ্যান-ধারণা বদলাতে হবে। এবার সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে জোরালো ভূমিকা রাখবে।

সততা ও জবাবদিহিতার সঙ্গে কাজ করতে হবে : নতুন মন্ত্রীদের প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ, জনবান্ধব প্রশাসন গড়া এবং কোন কাজ ফেলে না রাখতে মন্ত্রিসভার সদস্যদের নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

মন্ত্রিসভায় রাষ্ট্রপতির ভাষণের খসড়া অনুমোদন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

একাদশ জাতীয় সংসদের উদ্বোধনী অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি যে ভাষণ দেবেন, তার খসড়া অনুমোদন

পহেলা মার্চ জাতীয় ভোটার দিবস উদযাপন করবে ইসি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দেশের নাগরিকদের মধ্যে ভোটাধিকার ও জাতীয় পরিচয়পত্র সম্পর্কে সচেতনা বাড়াতে প্রথমবারের

sangbad ad

‘উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে সবার জন্য কাজ করব’ : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ গড়তে দল-মত নির্বিশেষে সবার জন্য কাজ করার অঙ্গীকার

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে নানা চেষ্টা

সাইফ বাবলু

image

সড়কে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে রাজধানীতে পক্ষকালব্যাপী পুলিশের ট্রাফিক শৃঙ্খলা পক্ষের ৩

সরকারের প্রধান লক্ষ্য জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, বর্তমান সরকারের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে সুশাসনের মাধ্যমে

শিক্ষা প্রশাসনে বড় পরিবতর্ন আসছে

রাকিব উদ্দিন

image

শিক্ষা প্রশাসনে বড় ধরনের রদবদল আসছে। রাজধানীর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ‘লোভনীয়’ পদে

ইশতেহার বাস্তবায়নই প্রথম লক্ষ্য

মোস্তাফিজুর রহমান

image

নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নেই মনোযোগ সরকারের। চলতি মেয়াদের শুরু থেকে

নিজের জন্যই ট্রাফিক আইন মানা উচিত : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আমাদের নিজেদের জন্যই ট্রাফিক আইন মানা প্রয়োজন। দ্রুত যাওয়ার চাইতে জীবন

sangbad ad