• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮

 

নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের প্রক্রিয়া শুরু

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বুধবার, ০৭ নভেম্বর ২০১৮

সংবাদ :
  • রাকিব উদ্দিন
image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভা গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। তার নির্দেশের পর মঙ্গলবার (৬ নভেম্বর) মন্ত্রিসভার চার টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। তারা হলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান, প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি এবং টেকনোক্র্যাট ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। তবে মন্ত্রিসভার অন্য মন্ত্রীদের পদত্যাগ করতে হবে না বলেও সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সূত্রে জানা গেছে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে দু’একজন স্থান পাচ্ছেন- গত কিছুদিন ধরে নানা মহলে এ ধরনের কথা বলা হচ্ছিল। কিন্তু টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগের পর ওই গুজবের পরিসমাপ্তি ঘটলো। অর্থাৎ মন্ত্রিসভায় অনির্বাচিত কোন ব্যক্তি স্থান পাচ্ছেন না। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে মন্ত্রিসভার চার টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীকে মঙ্গলার পদত্যাগ করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর্যবেক্ষণের আলোকে নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভা থেকে অনির্বাচিত (টেকনোক্র্যাট) মন্ত্রীদের পদত্যাগ করার নির্দেশ দেয়া হয়। পাশাপাশি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর মন্ত্রিসভার সকল সদস্যকে নির্বাচনের আচরণবিধি কঠোরভাবে অনুসরণেরও নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মঙ্গলবার তার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এসব নির্দেশ দিয়েছেন বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে মন্ত্রিসভার একাধিক সদস্য সংবাদকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

বর্তমান সরকারই নির্বাচনকালীন সরকার
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘মন্ত্রিপরিষদ যেভাবে আছে সেভাবেই থাকবে। তবে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর মন্ত্রিসভা আর নীতিগত কোন সিদ্ধান্ত নেবে না। সংবিধানে নির্বাচনকালীন সরকার বা নতুন করে মন্ত্রিপরিষদ ছোট করতে হবে এমন কিছু বলা নেই। গতবার আমরা করেছিলাম সব দলকে (সংসদে যাদের প্রতিনিধি ছিল) রাখার জন্য।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘বর্তমানে মন্ত্রিসভার টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী যারা আছেন তারা থাকবেন না। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে আপনাদের পদত্যাগ করতে হবে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিল করে দেয়ার সময় হাইকোর্টের রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা আছে, নির্বাচনের সময় তফসিল ঘোষণার পর সরকারের মন্ত্রিপরিষদে অনির্বাচিত কেউ থাকতে পারবেন না। তাই আইনগত বাধ্যবাধকতার কারণে অনির্বাচিতরা থাকতে পারবেন না।’

মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় গণভবনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগের ব্যাপারে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজকে মন্ত্রিসভার বৈঠকের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি শেষে অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী সভার টেকনোক্র্যাট মিনিস্টারদের পদত্যাগ করতে নির্দেশ দিয়েছেন; অন্যরা স্বপদে বহাল থাকবেন। তাদের পদত্যাগ করতে হবে না।’

যেভাবে পদত্যাগপত্র কার্যকর
মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, নিয়ম অনুযায়ী চার মন্ত্রী প্রধানন্ত্রীর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেবেন। এরপর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হবে তাদের পদত্যাগপত্র। সেখান থেকে আবার যাবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে। প্রধানমন্ত্রীর চূড়ান্ত অনুমোদনের পর তার কার্যালয় থেকে টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগপত্র যাবে রাষ্ট্রপতির কাছে বঙ্গভবনে। এরপর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এ ব্যাপারে প্রজ্ঞাপন জারি করবে।

আচরণবিধি কঠোরভাবে অনুসরণের নির্দেশ
মন্ত্রিসভা সূত্র আরও জানিয়েছে, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর মন্ত্রীদের কোনো ধরনের সরকারি সুযোগ-সুবিধা না নেয়া এবং কঠোরভাবে আইন মেনে চলার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেন, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর কোনো মন্ত্রী সরকারি কোনো সুযোগ-সুবিধা নিতে পারবেন না। আপনাদের কঠোরভাবে এ আইন মেনে চলতে হবে।’

মন্ত্রিসভা বৈঠকে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সরকারের চলমান সংলাপের প্রসঙ্গ এলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘সবার সঙ্গেই তো আলোচনা করেছি। আলোচনা তো শেষ পর্যায়ে। ৭ নভেম্বরের পর আর কোনো আলোচনা হবে না; তা সম্ভবও হয়। এখন আমরা কি সারা বছর ধরে আলোচনা করবো।’

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ৮ নভেম্বর ঘোষণা করার কথা রয়েছে বলে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে। যদিও নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা না করার জন্য ৫ নভেম্বর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা নির্বাচন কমিশনের কাছে দাবি জানিয়েছেন।

প্রস্তুত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ
এদিকে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সচিবালয়ে সাংবাদিকদের জানান, নির্বাচন সামনে রেখে মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের প্রক্রিয়ায় সরকার যে সিদ্ধান্ত দেবে, সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রস্তুত আছে।

এক প্রশ্নের জবাবে শফিউল আলম বলেন, ‘মন্ত্রিসভা সঙ্কুচিত করা হবে কিনা- এখন পর্যন্ত আমি সেটা জানি না, আমাকে অবহিত করা হয়নি, জানলে আপনাদের জানাব। টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগের নির্দেশের বিষয়টি আমাকে অফিসিয়ালি জানানো হয়নি।’

অফিসিয়াল নির্দেশনা পেলে এবং টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীরা পদত্যাগ করলে পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে- জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘খুব বেশি সময় লাগে না। আমরা সামারি করে পাঠিয়ে দেব, মহামান্য (রাষ্ট্রপতি) হয়ে চলে আসবে। আমরা রেডি এগুলোর ব্যাপারে।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, ‘মন্ত্রিসভার আকার যাই হোক, বৈঠক নিয়মিতভাবেই হবে। অন্তর্বর্তীকালীন সরকার বলেন বা যাই বলেন, এই সময়ে কিন্তু মন্ত্রিসভার বৈঠক বাধাগ্রস্ত হয় না, এটা চলতে থাকবে, কোনো বাইন্ডিংস নেই।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত জানুয়ারিতে মন্ত্রিসভায় সর্বশেষ রদবদল করেন। এতদিন মন্ত্রিসভায় ৩০ জন মন্ত্রী, ১৭ জন প্রতিমন্ত্রী এবং দুজন উপমন্ত্রী ছিলেন। তাদের মধ্যে মতিউর রহমান, নুরুল ইসলাম বিএসসি, স্থপতি ইয়াফেস ওসমান এবং মোস্তাফা জব্বার সংসদ সদস্য না হয়েও টেকনোক্র্যাট হিসেবে মন্ত্রিসভায় দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

এছাড়াও মন্ত্রীর পদমর্যাদায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূতের দায়িত্বে আছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। আর মন্ত্রীর পদমর্যাদায় প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা হিসেবে আছেন আরও পাঁচজন।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের আগে ২০১৩ সালের ১৮ নভেম্বর ‘নির্বাচনকালীন সময়’র জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার নেতৃত্বে ২৯ সদস্যের সর্বদলীয় মন্ত্রিসভা গঠন করেন। ওই মন্ত্রিসভা জাতীয় পার্টি (জাপা) থেকে পাঁচজন মন্ত্রী ও দুজন প্রতিমন্ত্রী ছিলেন।

পরবর্তীতে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ের পর ১২ জানুয়ারি ‘সর্বদলীয় ঐকমত্যের সরকার’ গঠন করা হয় আওয়ামী লীগ নেতৃত্বে। ১২ জানুয়ারি ৪৯ সদস্যের মন্ত্রিসভার শপথের মধ্য দিয়ে টানা দ্বিতীয় দফায় সরকার গঠন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

ওই সময় প্রধানমন্ত্রী ছাড়া মন্ত্রিসভার ৪৮ জন সদস্যের মধ্যে পূর্ণ মন্ত্রী পদ পান ২৯ জন। এছাড়াও ১৭ জন প্রতিমন্ত্রী ও দুজন উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পান।

ঝুঁকিপূর্ণ হলেও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু জরুরি : বিশেষজ্ঞ অভিমত

ওয়ালিদ খান

ঝুঁকিপূর্ণ হলেও রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু করাটা জরুরি, বর্তমানে

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন স্থগিত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

প্রত্যাবাসন বিষয়ে বাংলাদেশের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন। তবে রোহিঙ্গা এবং জাতিসংঘের

বিএনপি আবার আগুন সন্ত্রাস শুরু করেছে : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপি আবার ‘আগুন সন্ত্রাস’ শুরু করেছে

sangbad ad

শিক্ষকদের উন্নয়নে সরকার সব করছে : শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

শিক্ষকদের কল্যাণে এবং তাদের জীবনমান ও পেশাগত উন্নয়নে সরকার সব ধরনের

ভোটের ৭-১০দিন আগে সেনা মোতায়েন : ইসি সচিব

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাত থেকে দশদিন আগেই সেনাবাহিনী ও বিজিবি

আর বাকী ৪৪ দিন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আর ৪৪ দিন বাকী। ভোট হবে আগামী ৩০ ডিসেম্বর, রোববার

আরও চারটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় জাতীয়করন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

জাতীয়করণ হয়েছে আরও চারটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। এ নিয়ে বর্তমানে দেশে সরকারি মাধ্যমিক

সব প্রার্থীর জন্য সমান সুযোগ নিশ্চিত করার নির্দেশ সিইসির

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিরপেক্ষ

কোন অনুকম্পা নয় রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশের সংবিধান : স্পিকার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, বাংলাদেশের সংবিধান বিশ্বে অনন্য। জাতির

sangbad ad