• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বুধবার, ২৭ মে ২০২০

 

দেশের ৭৫ শতাংশ মানুষ ঘুষ দেওয়াকে জীবনের অংশ মনে করেন

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

দেশের ৮৯ শতাংশ মানুষ তাদের জীবনযাপনে দুর্নীতির শিকার হয়ে থাকে। এছাড়া ঘুষ দেওয়াটা জীবনের অংশ মনে করেন দেশের ৭৫ শতাংশ মানুষ। এরা কোনো অভিযোগ ছাড়াই ঘুষ দেন। আর ঘুষ না দিলে সেবা পাবেন না, এমনটি মেনে-ই নিয়েছেন দেশের ৮৯ শতাংশ মানুষ। তাদের সবচেয়ে বেশি ঘুষ দিতে হয় সরকারি সনদ (জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট, জন্ম নিবন্ধন) নিতে। দেশের ৬৫ শতাংশ মনে করেন, তথ্যের ফলে দুর্নীতি কমবে। তবে ৭৫ শতাংশ মানুষেরই তথ্য অধিকার আইন সম্পর্কে একেবারেই ধারনা নেই। যে ২৫ শতাংশ মানুষ তথ্য অধিকার আইন সম্পর্কে জানেন তাদের মধ্যে ২০ শতাংশের পরিষ্কার ধারণা আছে।

দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) এক গবেষণা প্রতিবেদনে এ চিত্র ফুটে উঠেছে। ২৬ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাজধানীর মাইডাস সেন্টারে টিআইবি কার্যালয়ে ‘তথ্য অধিকার আইন ও দুর্নীতি প্রতিরোধ: আইনের প্রথম দশকের অভিজ্ঞতা ও ভবিষ্যৎ করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনাসভায় গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। আন্তর্জাতিক তথ্য জানার অধিকার দিবস ২০১৯ এবং তথ্য অধিকার আইন, ২০০৯ এর ১০ বছর পূর্তি উদ্যাপন উপলক্ষে এ আলোচনার আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ১৬ হাজার মানুষকে নিয়ে গবেষণাটি চালানো হয়। পরে গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রস্তুত করা হয়। গবেষণায় দেখা যায়, দেশের ৭৫ শতাংশ মানুষই ঘুষ দেওয়াকে তাদের জীবনের একটা অংশ হিসেবে মনে করেন। বাকি ২৫ শতাংশ মানুষ অভিযোগ করলেও ইতিবাচক কোনো কিছু দেখেননি। তারা মনে করেন, অভিযোগ করলে লাভের চেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি। অন্যদিকে, রাজনৈতিক আন্দোলন তেমন কার্যকরি নয়। কেননা মানুষ বিশ্বাস করেন বেশিরভাগ রাজনীতিবিদরা দুর্নীতিবাজ। বরং তারা সামাজিক আন্দোলনের প্রতি তাদের আস্থা বেশি। তাছাড়া, তথ্য অধিকার আইনকে পাঠ্যপুস্তকের অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শও দেয়া হয় জরিপে। তিনি বলেন, সরকারি ও বেসরকারি কর্মকান্ডে জনগণের অধিকার সচেতনতা ও অংশগ্রহণ করার পদ্ধতি হচ্ছে তথ্য অধিকার আইন। একে কার্যকর করার মাধ্যমে জনগণ সরকারকে জবাবদিহিতার মধ্যে আনতে পারে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান, ড. অনন্য রায়হানসহ আরো অনেকে। এতে মূল প্রবন্ধ অধ্যাপক আফসান চৌধুরী।

গবেষণা মতে, লোকজনের কাছ থেকে ৫০ শতাংশ কর্মকর্তা সরাসরি ঘুষ চেয়েছেন। ৪০ শতাংশ কর্মকর্তা একটু গোপনে অর্থ দাবি করেছেন। আর বাকি ১০ শতাংশ কর্মকর্তা সেবা পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে অফিসের বাইরে গিয়ে অর্থ দাবি করেছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দুর্নীতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের শাস্তির বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে যারা সেবা পেতে ঘুষ দেন তাদের ৬০ শতাংশ জানান, শাস্তি দিয়ে দুর্নীতি কমানো যাবে না। আইন করলে হবে না, এর প্রয়োগ যথাযথ থাকা দরকার। আর ২০ শতাংশ মানুষ মনে করেন, যারা শাস্তি দেবে তারাই দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। ১৫ শতাংশ মনে করেন, শাস্তির দেখা মিলবে না দুর্নীতির কারণে। আর ৫ শতাংশ মনে করেন, দুর্নীতি বিষয়ে শাস্তি দিতে গেলে ঝামেলা তৈরি হবে আরও বেশি।

সরকারি, বেসরকারি ও সংশ্লিষ্ট অংশীজনের সমন্বিত উদ্যোগ ও তথ্য অধিকার আইনের দশ বছরের অভিজ্ঞতার আলোকে এর বাস্তবায়নের কৌশল নির্ধারনের ওপর গুরুত্বারোপ করে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘তথ্য অধিকার আইনের প্রথম দশকে বেশ ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে তবে তা এখনও প্রত্যাশিত পর্যায়ে পৌছাতে পারে নি। যদিও অগ্রগতি মূল্যায়নের জন্য ১০ বছর খুব বড় একটা সময় নয়।’ সরকারি কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের একাংশের মধ্যে গোপনীয়তার সংস্কৃতি প্রসঙ্গ উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘তথ্য যে জনস্বার্থে জনগণের জ্ঞাতার্থে প্রকাশযোগ্য একটি বিষয়, এবং তা জবাবদিহিমূলক গণতন্ত্রের পূর্বশর্ত, এ উপলব্ধি ও চর্চা অপরিহার্য। তথ্য কমিশনকে অধিকতর শক্তিশালী ও কার্যকর করার পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট অংশীজনের সম্পৃক্ততায় স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদী কর্মকৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। তথ্য অধিকার আইনের সাথে সাংঘার্ষিক আইন বিশেষকরে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট যা বাক্স্বাধিনতা ও তথ্য প্রকাশের সম্ভাবনাকে খর্ব করার ঝুঁকি সৃষ্টি করেছে তাকে ঢেলে সাজাতে হবে।’

অনুষ্ঠানে প্যানেল আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. অনন্য রায়হান, প্রতিষ্ঠাতা ও সদস্য, পরিচালনা পর্ষদ, ডি’নেট এবং টিআইবি উপদেষ্টা-নির্বাহী ব্যবস্থাপনা অধ্যাপক ড. সুমাইয়া খায়ের।

মূল প্রবন্ধের সমর্থন করে ড. অনন্য রায়হান বলেন, ভিন্নমত প্রকাশের যে স্বাধীনতা তা ভীষণভাবে সংকুচিত হয়েছে। আর সেই অবস্থার উন্নতি সম্ভব যদি তথ্য অধিকার আইনের কার্যকর প্রয়োগ করা যায়। গণমাধ্যমকে বিশেষ ধন্যবাদ দিয়ে তিনি আরো বলেন, ‘তথ্য অধিকার আইন প্রয়োগের মাধ্যমে বড় বড় যে দুর্নীতির খবর গণমাধ্যমকর্মীদের জন্যই জনগণ জানতে পেরেছে।’ এছাড়া তিনি তথ্য সংরক্ষণ ও এর নিরাপত্তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

আমন্ত্রিত অতিথিরা ও গণমাধ্যমকর্মীদের বাস্তব অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন ও বিভিন্ন পরামর্শ দেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- গোপনীয়তার সংস্কৃতি পরিবর্তন; তথ্য কমিশনের কার্যক্রমের গতিশীলতা ও কার্যকরতা বৃদ্ধির লক্ষে সংশ্লিষ্ট অংশীজনের সম্পৃক্ততায় কমিশনের স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদী কর্মকৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন এবং বার্ষিক জাতীয় বাজেটে অর্থ বরাদ্দ নিশ্চিতের উদ্যোগ; তথ্য অধিকার আইনে তথ্য প্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় আইনি সুরক্ষা নিশ্চিত করার বিধান; তথ্য অধিকার আইনের পরিপন্থি’ বিদ্যমান আইনসমূহ সংস্কার ও প্রযোজ্য ক্ষেত্রে বাতিল, যেমন- জাতীয় সংসদে পাশ হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮ এর ৩২ ধারাসহ বাক্স্বাধীনতার পরিপন্থি অন্যান্য ধারা; সংশ্লিষ্ট অংশীজনকে সম্পৃক্ত করে পরবর্তী দশকের জন্য বাস্তবায়ন কৌশল এবং আইনের প্রয়োজনীয় সংস্কারের উদ্যোগ; দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে জ্ঞান ও তথ্য প্রদানে প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা অর্জনে বিভিন্ন কারিগরি ও অনলাইন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা জোরদার; তথ্য অধিকার আইনের অধিকতর বাস্তবায়ন ও পর্যবেক্ষণমূলক কার্যক্রমে সুশীল সমাজ, জনগণ ও গণমাধ্যমের কার্যকর অংশগ্রহণের সুযোগ নিশ্চিত করার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে ৫০০০ কিট উপহার দিল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বিজ্ঞান ও প্রযু্ক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমানের নির্দেশে করোনা শনাক্তের ৫ হাজার কিট স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে হস্তান্তর করা হয়েছে। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) টেস্টের নমুনা সংগ্রহের জন্য অল্প খরচে দেশেই আন্তর্জাতিক মানের ডিটিএম কিট তৈরি করেছে বিজ্ঞান ও প্রযু্ক্তি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিসিএসআইআর এর অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ডিআরআইসিএম।

পবিত্র ঈদের দিনেও বিএনপির বিষোদগারের রাজনীতি : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, পবিত্র ঈদের দিনেও বিষোদগারের রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি বিএনপি।

সামনে কঠিন সময়, প্রয়োজন সম্মিলিত প্রতিরোধ : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সামনে বাংলাদেশের জন্য আরও কঠিন সময় আসছে।

sangbad ad

পুলিশে করোনার সংক্রমণ ৪ হাজার ছাড়াল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দেশে করোনায় আক্রান্ত ৩৬ হাজার ৭৫১: মৃত্যু ৫২২

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণে ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে; নতুন শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ১৬৬ জন। এ নিয়ে দেশে করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ৫২২ জনের, মোট শনাক্ত হয়েছেন ৩৬ হাজার ৭৫১ জন।

করোনায় মৃত্যু প্রায় সাড়ে ৩ লাখ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের উহানে শুরু হওয়া করোনার সংক্রমণ বিশ্বের ২১৫টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

অসহায়দের পাশে থাকাতে সামর্থ্যবানদের প্রতি আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ পবিত্র ঈদে দরিদ্র অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে সামর্থ্যবানদের আহ্বান জানিয়েছেন।

জাতীয় কবি নজরুলের জন্মবার্ষিকী উদযাপিত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২১তম জন্মবার্ষিকী আজ উদ্যাপিত হয়েছে।

করোনা সংকটে দরিদ্রদের পাশে দাঁড়াতে সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহবান রাষ্ট্রপতির

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ করোনাভাইরাস জনিত সংকট এবং বাংলাদেশের উপকুল এলাকার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া সাম্প্রতিক ঘূর্ণীঝড় আম্পানের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্থ দরিদ্র জনগণের পাশে দাঁড়াতে সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

sangbad ad