• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

 

সবার নজর খুলনায়

কাল ভোট : ইসির সক্ষমতা পরীক্ষা

নিউজ আপলোড : ঢাকা , সোমবার, ১৪ মে ২০১৮

সংবাদ :
  • ফয়েজ আহমেদ তুষার
image

জাতীয় নির্বাচনের আগে নৌকা-ধানের শীষের লড়াই দেখতে সারাদেশের মানুষের নজর এখন খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনের দিকে। আগামীকাল এই সিটির ভোট; একটানা চলবে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণার সময় ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। নির্বাচনী বিশ্লেষকদের মতে, জাতীয় নির্বাচনের আগে দলীয় প্রতীকে খুলনা সিটির ভোটের মধ্য দিয়ে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সক্ষমতার পরীক্ষা হবে। একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের মাধ্যমেই কমিশন সবার আস্থা অর্জনে সমর্থ হবে।

১৫ মে ভোটের দিন ধার্য করে গত ৩১ মার্চ প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। ৩১টি সাধারণ ও ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড নিয়ে খুলনা সিটি করপোরেশনের ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৯৩ হাজার ৯৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪৮ হাজার ৯৮৬ জন এবং মহিলা ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন। এই সিটিতে পাঁচজন মেয়র প্রার্থীর পাশাপাশি সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৪৮ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৩৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। দলীয় প্রতীকে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেক ( নৌকা), বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জু (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির এসএম শফিকুর রহমান (লাঙ্গল), সিপিবির মিজানুর রহমান বাবু (কাস্তে) ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর মুজ্জাম্মিল হক (হাত পাখা)। স্থানীয় সূত্রমতে, দলীয় প্রতীকের এই নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকা আর ধানের শীষের মধ্যেই মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। খুলনা সিটির ২৮৯টি ভোটকেন্দ্রের (কক্ষ ১৫৬১টি) মধ্যে ২৩৪টি অর্থাৎ ৮০ শতাংশের বেশি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

ভোটের তফসিল ঘোষণার পর আইন অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ইসির নিয়ন্ত্রণে থাকে। তবে খুলনা সিটির নির্বাচনে ইসির নির্দেশনা পুলিশ পুরোপুরি মানছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। ইসি সচিবালয়ের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, পুলিশের প্রতি সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা হচ্ছে, তফসিল ঘোষণার পর নতুন কোন মামলা দিয়ে কাউকে গ্রেফতার করা যাবে না। এ ছাড়া সুনির্দিষ্ট অভিযোগে মামলার এজাহারভুক্ত বা গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি ছাড়া অন্যদের গ্রেফতার না করারও নির্দেশনা আছে। বিএনপির দাবি, সম্প্রতি যেসব নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হয়েছে এদের অধিকাংশের বিরুদ্ধে কোন গ্রেফতারি পরোয়ানা নেই। অনেক কর্মীর বিরুদ্ধে নতুন মামলা দেয়া হয়েছে।

স্থানীয়দের বক্তব্য, প্রার্থীদের মতামত, ভুক্তভোগী, রাজনৈতিক দল এবং নির্বাচনী পর্যবেক্ষক সংস্থার সূত্রমতে খুলনা সিটিতে ভোটের পরিবেশ ইসি নয় বরং পুলিশ নিয়ন্ত্রণ করছে। পুলিশের বিরুদ্ধে নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতারের অভিযোগ তুলে ভোটের তিন দিন আগেও সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছেন খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু। তার অভিযোগ, গত দুই সপ্তাহে সিটির ১০৮ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রচারণায় অংশ নেয়া মহানগরের বাইরের বিভিন্ন উপজেলা পর্যায়ে অন্তত ৫০ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতারের কথাও জানান তিনি। রাতে বাসা থেকে কিংবা গণসংযোগ থেকে অথবা গণসংযোগ শেষে ফেরার সময় এসব গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে ভোটকেন্দ্রের নিযুক্ত হচ্ছেন যেসব প্রিসাইডিং অফিসার, তালিকা ধরে তাদের খোঁজখবরও নিচ্ছে পুলিশ। সাদা পোশাকে কয়েকজনের বাসায় গিয়েও জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছেতাদের রাজনৈতিক অতীত সম্পর্কে; খোঁজ নেয়া হচ্ছে বিএনপি প্রার্থীর সঙ্গে আত্মীয়তা কিংবা সখ্য বা যোগাযোগ রয়েছে কি-না।

বিএনপি প্রার্থীর বিভিন্ন অভিযোগের বিষয়ে খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ইউনুচ আলী বলেন, আমরা আগেও বলেছি, কারও বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট বা সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না থাকলে যেন তাকে হয়রানি করা না হয়, বিরক্ত করা না হয়। এক্ষেত্রে নির্বাচন পরিচালনার স্বার্থে পুলিশ কমিশনারের সঙ্গেও আমার কথা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমামের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল গত বুধবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সিইসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে খুলনা সিটি ভোটে লেভেল প্লেয়ি ফিল্ড নেই জানিয়ে ইসির নিযুক্ত রিটার্নিং অফিসার ইউনুচ আলীর বিরুদ্ধে অনাস্থা দেয়। তবে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেক বলছেন সব বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের ওপর তার আস্থা আছে।

প্রার্থীদের হলফনামা বিশ্লেষণ করে সম্প্রতি সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) যে তথ্য গণমাধ্যমকে দিয়েছে, তাতে দেখা যায়, খুলনায় মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের বেশিরভাগ ব্যবসায়ী। শতকরা ৩৪ দশমিক ৪৫ শতাংশ প্রার্থীর শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসির নিচে। মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামী লীগের তালুকদার আবদুল খালেক বিএ পাস, বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জু আইনে স্নাতক। অপর একজন স্নাতক এবং দুই জন ‘স্বশিক্ষিত’। প্রার্থীদের মধ্যে তিনজন ব্যবসায়ী, একজন কৃষিজীবী এবং আরেকজনের আয়ের উৎস বাড়িভাড়া। আওয়ামী লীগের প্রার্থী পেশায় ব্যবসায়ী আর বিএনপির প্রার্থীর ব্যবসা এখন বন্ধ, তার আয়ের উৎস বাড়িভাড়া। পাঁচজনের মধ্যে তিনজনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলার সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। জাতীয় পার্টির প্রার্থী শফিকুর রহমানের বিরুদ্ধে দুটি ফৌজদারি মামলা চলমান, যার একটি ৩০২ ধারায়। অতীতে আরও দুটি ফৌজদারি মামলা ছিল তার নামে। বিএনপির প্রার্থী মঞ্জুর বিরুদ্ধে চারটি ফৌজদারি মামলা রয়েছে এবং অতীতে ছিল তিনটি। আওয়ামী লীগের তালকুদার খালেকের বিরুদ্ধে অতীতে নয়টি ফৌজদারি মামলা থাকলেও এখন একটিও নেই। তার বিরুদ্ধে এই নয়টি মামলার চারটিই ছিল ৩০২ ধারায়।

পাঁচ মেয়র প্রার্থীর মধ্যে আওয়ামী লীগ প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেকের সম্পদের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি। তার মোট সম্পদ ১১ কোটি ৮৩ লাখ ৩১ হাজার ৫৫৬ টাকার। বাকি চার প্রার্থীর সম্পদে পরিমাণ ৫ লাখ টাকার নিচে। ২০১৩ সালের সিটি নির্বাচনের হলফনামা অনুযায়ী তালুকদার খালেকের সম্পদের পরিমাণ ১০ কোটি ৮ লাখ ৪১ হাজার ২৯১ টাকা। ২০১৮ সালের হলফনামা অনুযায়ী পাঁচ বছরে বেড়েছে ১ কোটি ৭৪ লাখ ৯০ হাজার ২৬৫ টাকা, শতকরা বৃদ্ধির হার ১৭ দশমিক ৩৪।

কেএম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন নতুন কমিশন গঠিত হওয়ার পর গত বছর কুমিল্লা ও রংপুর ভোট করে সব মহলের প্রশংসা কুড়ায় কমিশন। তার ধারাবাহিকতায় বর্তমান কমিশনের অধীনে আরও ভালো নির্বাচনের আশা রাখেন নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থার প্রতিনিধিরা। দীঘদিন যাবৎ দেশের বিভিন্ন পর্যায়ে নির্বাচনী পর্যবেক্ষণকারী সংগঠন ‘সুজন’ এর কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচন কেবল রাজনৈতিক দলগুলো বা প্রার্থীদের জন্য নয়, নির্বাচন কমিশনের জন্যও একটি পরীক্ষা। কারণ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের নির্বাচনের ছয় মাস আগে এই নির্বাচন হচ্ছে। ইসিকে নিয়ে সরকারের প্রতিপক্ষ দলগুলোর আপত্তি, অনাস্থা রয়েছে। তাই নির্বাচন কমিশনকে যথাযথ দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে খুলনা সিটি ভোট সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করে প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা ও গ্রহণযোগ্যতার প্রমাণ দিতে হবে।

সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, নির্বাচন উপলক্ষে খুলনা সিটি করপোরেশন এলাকায় কাজ করতে গিয়ে দেখেছি, স্থানীয় জনগণের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে ব্যাপক আশঙ্কা রয়েছে। এখানে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করা ইসির জন্য একটি অগ্নিপরীক্ষা। শুধু ইসি নয় সরকার তথা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং সরকারি দলের জন্যও একটি বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি বলেন, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য ইসির ভূমিকা সর্বাধিক। তারা চাইলে খারাপ নির্বাচন ঠেকাতে পারে এবং নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করতে পারে। কিন্তু সরকার এবং সরকারি দল প্রয়োজনীয় সহায়তা না করলে ইসির পক্ষে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন আয়োজন করা সম্ভব নয়।

ইসি সচিবালয় সূত্র মতে, খুলনা সিটির ২৮৯টি ভোটকেন্দ্রের ঝুঁকিপূর্ণ ২৩৪টি- এরমধ্যে সিটির আওতাধীন ৭টি থানার মধ্যে খুলনা মহানগরীর দৌলতপুর থানাধীন ১ থেকে ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ৪১টি ও আড়ংঘাটা থানাভুক্ত ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের ৪টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ। খানজাহান আলী থানাধীন ২নং ওয়ার্ডের ১১ ও ১৩ নম্বর কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ এবং ৯ ও ১২ নম্বর কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ নয়। খালিশপুর থানাধীন ৭ থেকে ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের ৪৮টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ ও ২০টি ঝুঁকিপূর্ণ নয়। সোনাডাঙ্গা থানাধীন ১৬ থেকে ২০ নম্বর ও ২৫, ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের ২০টি কেন্দ্র সাধারণ (ঝুঁকিমুক্ত) ও ৬০টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ। খুলনা সদর থানাধীন ২১ থেকে ২৪ ও ২৭ থেকে ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের ৬৮টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ ও ১৯টি সাধারণ। লবণচরা থানাধীন ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের ১১টি ঝুঁকিপূর্ণ ও চারটি ঝুঁকিমুক্ত।

ইসি সচিবালয় সূত্র জানায়, সিটি নির্বাচনের লক্ষ্যে ২৮৯ জন প্রিসাইডিং অফিসার, ১ হাজার ৫৬১ জন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ও ৩ হাজার ১২২ জন পোলিং অফিসারসহ ভোটগ্রহণে মোট ৫ হাজার ২২১ জন কর্মকর্তা নিযুক্তের বিষয়টি চূড়ান্ত করে তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। ভোটের আগে দুই দিন, ভোটের দিন ও পরের দিন মিলিয়ে ১৩ থেকে ১৬ মে পর্যন্ত পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব, আনসার-ভিডিপি, ব্যাটালিয়ন আনসারসহ নিয়মিত বাহিনীর সদস্যরা আইনশৃঙ্খলায় নিয়োজিত থাকবেন। ভোটের আগের দিন সোমবার সব কেন্দ্রে মালামাল পৌঁছানো ও ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তায় নিয়োজিত সদস্যরা থাকবেন। প্রতিটি কেন্দ্রে সাধারণ (ঝুঁকিমুক্ত) ও গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) বিবেচনায় ২২ থেকে ২৪ জন আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য নিয়োজিত থাকবেন।

সূত্রমতে, তফসিল ঘোষণার পর থেকেই খুলনা সিটিতে তিন ধাপে নির্বাহী হাকিম দায়িত্ব পালন করছেন। ভোটের আগে-পরে চার দিন বিচারিক হাকিম রয়েছেন মাঠে। ভোটের দিন নির্বাহী হাকিম থাকবেন ৪৯ জন ও বিচারিক হাকিম ১০ জন। পুলিশ-এপিবিএন-আনসার ব্যাটালিয়ান নিয়ে মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্সের ১০টি টিম; র‌্যাবের ৩১টি টিম; বিজিবি থাকবে ১৬ প্লাটুন। রিজার্ভ ফোর্স হিসেবে ৩ থেকে ৪ প্লাটুন অতিরিক্ত বিজিবি মোতায়েন রাখা হবে। বর্ডারগার্ড বাংলাদেশের প্রতিটি প্লাটুন গঠন করা হয় ২০ থেকে ৩০ জন সদস্য নিয়ে। ভোটের মাঠে প্রতি প্লাটুনে কতজন থাকবেন তা এলাকা অনুযায়ী ঠিক করা হবে। ইসির নিজস্ব পর্যবেক্ষক হিসেবে থাকবেন ১০ নির্বাচন কর্মকর্তা।

খুলনা সিটি নির্বাচনে ২৭ নম্বর ওয়ার্ডে পিটিআই ভোটকেন্দ্রের ৬টি বুথে এবং ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে সোনাপোতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভোটকেন্দ্রে ৪টি বুথে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের উদ্যোগ নিয়েছে ইসি। ইভিএমে মেয়র পদে প্রার্থীদের নাম ও প্রতীক এবং সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে প্রার্থীদের প্রতীকে বোতাম চেপে ভোট দেবেন ভোটাররা। পিটিআই কেন্দ্রের ৬টি বুথে ইভিএমে ভোট দেবে ১ হাজার ৮৭৯ পুরুষ ভোটার। আর সোনাপোতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৪টি বুথে ভোট দেবে ১ হাজার ৯৯ জন নারী। এছাড়া ৬নং ওয়ার্ডের সরকারি বিএল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের কলাভবন কেন্দ্র, ২২নং ওয়ার্ডের পাইওনিয়ার মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশ কেন্দ্র ও ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের পিটিআই প্রশিক্ষণ ভবন (২য় ও ৩য় তলা) কেন্দ্রে থাকবে সিসি ক্যামেরা।

ইভিএমে ভোট নিয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীরা সন্তুষ্টি জানালেও, বিরোধিতা করছেন বিএনপি সমর্থিতরা। মেশিনের মাধ্যমে সঠিকভাবে ভোট দেয়া দিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন কেউ কেউ। রোববার (১৩ মে) খুলনা মহানগরীতে এক সংবাদ সম্মেলনে ভোটারদের আস্থা ও মতামত ছাড়া ভোটকেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার না করার পরামর্শ দিয়েছে সুজন। পাশাপাশি প্রার্থীদের খরচ নিয়ন্ত্রণে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা রাখা এবং সিলমারার স্থানটুকু বাদ দিয়ে প্রতিটি ভোট কেন্দ্র সিসিটিভির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি। নির্বাচনী আচরণবিধি অনুযায়ি, খুলনা সিটিতে সোমবার প্রথম প্রহর থেকে ভোটের পরে আরও ৪৮ ঘণ্টা সব ধরনের মিছিল, শোডাউন, আনন্দ মিছিল বন্ধ থাকবে। নির্বাচনের সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে জানিয়ে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, আশা করি নির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু হবে।

সংসদের ২২তম অধিবেশন সমাপ্ত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দশম জাতীয় সংসদের ২২তম অধিবেশন বৃহস্পতিবার (২০ সেপ্টেম্বর) শেষ হয়েছে। স্পিকার ড. শিরীন

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করলেন সেনাবাহিনী প্রধান

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বৃহস্পতিবার (২০ সেপ্টেম্বর) কক্সবাজারের

উদ্বেগের মধ্যেই ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল পাস

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ব্যাপক সমালোচিত ৫৭ ধারাসহ কয়েকটি ধারা বাতিল করে বহুল

sangbad ad

সাংবাদিকতা পেশাকে দেশের বৃহত্তর স্বার্থে ব্যবহারে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিকতা পেশাকে দেশের বৃহত্তর স্বার্থে ব্যবহারের আহ্বান জানিয়ে

ছয় কোম্পানির ছয় রঙের বাস চলবে

মাহমুদ আকাশ

image

ছাত্রছাত্রীদের ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের পর রাজধানী ঢাকার গণপরিবহন

মাতৃমৃত্যু রোধে সকলকে আন্তরিকভাবে কাজ করার আহ্বান স্পিকারের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী মাতৃমৃত্যু রোধে সকলকে আন্তরিকভাবে কাজ করার

৮০০০ টাকা নুন্যতম মজুরি শ্রমিক অসন্তোষের সুযোগ দেখছেন না প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

তৈরি পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের জন্য আট হাজার টাকা ন্যূনতম মজুরি ঘোষণা নিয়ে অসন্তোষের

কঙ্গোয় শান্তি মিশনে মেডেল প্যারেড পরিদর্শন বিমানবাহিনী প্রধানের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন এলাকা ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অফ কঙ্গোতে বিমানবাহিনী

শান্তি-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা একটি দেশের উন্নয়নের পূর্বশর্ত : প্রধানমন্ত্রী

image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় থাকা এবং আইন-শৃঙ্খলা

sangbad ad