• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

 

স্টেট অব দি ইউনিয়ন : জাতিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান ট্রাম্পের

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বুধবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
image

দল-মতের ঊর্ধ্বে উঠে সব রাজনৈতিক দলকে একতাবদ্ধ হয়ে আমেরিকা ও আমেরিকানদের অগ্রগতির জন্য কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মার্কিন কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে পূর্বনিধারিত ‘স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন’ নামের বার্ষিক ভাষণে মঙ্গলবার (৫ ফেব্রুয়ারি স্থানীয় সময় রাতে) এ আহ্বান জানান তিনি। একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে অবৈধ অভিবাসন থামানোর আহ্বান জানিয়ে মাদক, চোরাচালান, নারী ও শিশু পাচার ঠেকাতে মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের ওপরও গুরুত্বারোপ করেন ট্রাম্প। এ সময় তিনি দেশে রাজনৈতিক ঐক্য প্রতিষ্ঠার ওপরও জোর দেন। সংবাদ মাধ্যম ভয়েস অব আমেরিকা ও আল জাজিরার প্রতিবেদনের বরাতে এ তথ্য জানা গেছে।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের অর্থ বরাদ্দকে কেন্দ্র করে বিরোধী ডেমোক্র্যাটিক দলের সঙ্গে তীব্র দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ভাষণের শুরুতেই ট্রাম্প বলেন, ‘তার এ ভাষণ রিপাবলিকান বা ডেমোক্র্যাটিক পার্টির জন্য নয়। এ ভাষণ মার্কিন নাগরিকদের উদ্দেশে। কেননা, যুক্তরাষ্ট্র দুই দলের নয়, বরং এক জাতি হিসেবে পরিচালিত হবে। তার ভাষায়, ‘কোন দলের জন্য জেতাটা বিজয় নয়, দেশের জন্য বিজয় হচ্ছে প্রকৃত বিজয়।’ এদিন নিজেদের সেই দূরত্ব দূর করে দশকের পর দশক ধরে চলা রাজনৈতিক জট ভেঙে ফেলতে এবং আমেরিকার প্রতি প্রতিশ্রুতি পূরণে সহযোগিতায় নতুন যুগের আহ্বান জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এ সময় স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি, মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স, ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পসহ আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ভাষণে ছয়টি বিষয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেন ট্রাম্প। এর মধ্যে প্রথমেই নিজের মেয়াদে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিকে সফল বলে উল্লেখ করেন তিনি। গুরুত্বারোপ করেন সীমান্ত প্রাচীর নির্মাণের ওপর। অবকাঠামো উন্নয়নে ১ দশমিক ৫ ট্রিলিয়ন বা ১ লাখ ৫০ কোটি ডলার খরচের কথাও উল্লেখ করেন তিনি। স্বাস্থ্যসেবা সংস্কার এবং ২০৩০ সাল নাগাদ এইডস দূরীকরণের উদ্যোগ নেয়ার কথাও বলেন ট্রাম্প। উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ না করেই দেশটিকে পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত করাকে নিজ প্রশাসনের সাফল্য হিসেবে উল্লেখ করেন ট্রাম্প।

ভাষণে আবারো মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের গুরুত্ব তুলে ধরেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এটি নির্মাণ না হলে তা আমেরিকার জন্য বড় ক্ষতি বয়ে আনবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এ সময় সম্প্রতি শেষ হওয়া দীর্ঘদিনের অচলাবস্থার কথাও তুলে ধরেন ট্রাম্প। ভাষণে বর্তমান আমেরিকার অর্থনৈতিক উন্নতি, বেকারত্ব দূরীকরণে অবদান, বিশ্বে আমেরিকার অবস্থানসহ বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এ সময় দেশটিতে মাদকের বিস্তার ঘটছে উল্লেখ করে এটি বন্ধ করতে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বানও জানান তিনি। বরাবরের মতো এ ভাষণেও নিজের সময়ে আমেরিকায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নতি ঘটেছে বলে দাবি করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এ সময় অবৈধ অভিবাসন থামানোর কথা বললেও বৈধ অভিবাসীদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের কোন বাধা নেই বলে জানান ট্রাম্প। তবে বিদ্যমান অভিবাসন পদ্ধতি সংস্কার করে অবৈধ অভিবাসন বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। ট্রাম্প আরও বলেন, ‘অভিবাসন পদ্ধতির সংস্কার যুক্তরাষ্ট্রের নৈতিক দায়িত্ব। এর মাধ্যমে আমেরিকানদের জীবন ও চাকরির নিশ্চয়তা নিশ্চিত হবে। যুক্তরাষ্ট্রের কর্মী বাহিনী ও রাজনীতিকদের মধ্যে বিভক্তির অন্যতম প্রধান একটি কারণ হচ্ছে অবৈধ অভিবাসীরা। মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণ করে সে সমস্যার সমাধান করা সম্ভব।’ তিনি আরও বলেন, ‘উন্নয়নশীল দেশের নারীদের অর্থনৈতিকভাবে ক্ষমতায়ন করার লক্ষ্যে ট্রাম্প প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিশেষ প্রয়াস নেয়া হচ্ছে।’

এদিকে বাণিজ্য নীতি শক্তিশালী করার কথাও উল্লেখ করেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ‘চীন বহু বছর ধরে আমাদের বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পদ চুরি করেছে। তারা আমেরিকান চাকরির বাজার দখল করেছে। এসব বন্ধের সময় এসেছে। চীনের কাছে ২৫০ বিলিয়ন ডলারের ওপর শুল্ক আরোপের ফলে যুক্তরাষ্ট্রের কোটি কোটি ডলার আয় হচ্ছে, যা আগে কখনো হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ঈর্ষণীয়। মার্কিন বাহিনী পুরো দুনিয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী সেনাবাহিনী। প্রতিদিনই বিজয় লাভ করছে যুক্তরাষ্ট্র।’ ভাষণ চলাকালে কংগ্রেসে উপস্থিত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের তিন যোদ্ধাকে পরিচয় করিয়ে দেন ট্রাম্প। ৫০ বছর আগে চাঁদে অবতরণকারী নভোচারী বাজ অলড্রিনকেও পরিচয় করিয়ে দেন তিনি। ট্রাম্প বলেন, ‘বিংশ শতাব্দীর আমেরিকা মানুষের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছে। বিজ্ঞানের প্রসার ঘটিয়েছে এবং মধ্যবিত্ত শ্রেণীর জীবনমান উন্নত করেছে। অপরদিকে এদিন কংগ্রেসে উপস্থিত হলে সদস্যরা মার্কিন প্রেসিডেন্টকে স্বাগত জানান। বিরোধী দলের সদস্যদের কাছ থেকেও উষ্ণ অভ্যর্থনা পান ট্রাম্প। এছাড়া ট্রাম্পের কঠোর সমালোচনাকারী স্পিকার ন্যান্সি পেলোসিকেও দেড় ঘণ্টাব্যাপী ভাষণের পুরোটা সময় বেশ প্রাণবন্ত দেখা গেছে।

ভাষণে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, আমরা ভিন্ন দল হতে পারি তবে এক জাতি। আর সেই জাতির উন্নয়নের জন্য একসঙ্গে কাজও করতে পারি। আমরা আমাদের দেশের জনসাধারণকে নিরাপদ রাখতে পারি যেমন, তেমনি আমাদের পরিবারকেও শক্তিশালী করতে পারি। আমাদের সংস্কৃতি সমৃদ্ধ, দৃঢ় আমাদের বিশ্বাস এবং আগের যেকোন সময়ের তুলনায় আমাদের মধ্যবিত্ত শ্রেণীর আকার বিশাল ও আরো সমৃদ্ধশালী। তিনি আরও বলেন, ‘তবে এর জন্য আমাদেরকে অবশ্যই রাজনৈতিক শত্রুতা ও বিরোধিতা প্রত্যাখ্যান করে সম্ভাব্য আন্তরিক সহযোগিতার হাত বাড়াতে হবে।’

প্রসঙ্গত, ট্রাম্পের স্টেট অব ইউনিয়ন ভাষণ আরও আগে দেয়ার কথা থাকলেও কেন্দ্রীয় সরকারে আংশিক অচলাবস্থার কারণে ভাষণ পিছিয়ে দেন ট্রাম্প। মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের অর্থ বরাদ্দকে কেন্দ্র করে ডিসেম্বরের ২২ তারিখ থেকে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত অচলাবস্থা চলে। যা মার্কিন ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ অচলাবস্থা।

ভারতে নিযুক্ত হাইকমিশনারকে ডেকে পাঠাল পাকিস্তান

সংবাদ ডেস্ক

image

কাশ্মীরের পুলওয়ামাতে আত্মঘাতী হামলার ঘটনায় কূটনৈতিক উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। এর ধারাবাহিকতায়

আরব বিশ্বের প্রথম নারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রায়া হাফার আল হাসান

সংবাদ ডেস্ক

image

লেবাননে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নাম ঘোষণা করা হয়েছে রায়া হাফার আল হাসানের। এর মাধ্যমে

শান্তির পথে সংকট নিরসনের আকুতি মিতার

সংবাদ ডেস্ক

image

দেশরক্ষার স্বার্থে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কাশ্মীরে নৃসংশ হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন

sangbad ad

পাকিস্তানকে জবাব দিতে যে বিকল্পগুলো রয়েছে ভারতের

সংবাদ ডেস্ক

image

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলায় ৪০ জনেরও বেশি কেন্দ্রীয় নিরাপত্তাবাহিনীর

ভারতীয় উপ-হাইকমিশনারকে ডেকে পাল্টা প্রতিবাদ পাকিস্তানের

সংবাদ ডেস্ক

image

কাশ্মীরে বিশেষায়িত বাহিনী সিআরপিএফের গাড়িবহরে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনায় পাকিস্তানকে

প্রতিশোধের অঙ্গীকারে কাশ্মীর হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা

সংবাদ ডেস্ক

image

ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের দক্ষিণাঞ্চলীয় পুলওয়ামা জেলায় দেশটির কেন্দ্রীয় আধাসামরিক

ইইউয়ের কালো তালিকায় সৌদি

সংবাদ ডেস্ক

image

মুদ্রা পাচার ও সন্ত্রাসবাদে অর্থায়নরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণে ব্যর্থ হওয়ায় সৌদি আরব, পানামা,

ইয়েমেনে সৌদি আগ্রাসন : মার্কিন সমর্থনের বিরুদ্ধে রায় আইনপ্রণেতাদের

সংবাদ ডেস্ক

image

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বৈদেশিক নীতির সমালোচনা করে ইয়েমেনে চালানো সৌদি

নেতাকর্মীদের সঙ্গে রাতভর বৈঠক প্রিয়াঙ্কার

সংবাদ ডেস্ক

image

প্রধান বিরোধী দল ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের দায়িত্ব নিয়েই রাজনীতিতে হইচই ফেলে

sangbad ad