• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮

 

জি-৭ জোটে মস্কোকে অন্তর্ভূক্তির আহ্বান

সদস্য দেশগুলোর বিরোধিতার মুখে ট্রাম্প

নিউজ আপলোড : ঢাকা , রবিবার, ১০ জুন ২০১৮

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
image

কানাডার কুইবেকে শুক্রবার (৮ জুন) থেকে শুরু হওয়া জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনের প্রথম দিনেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও ইউরোপীয় নেতাদের অবস্থানগত পার্থক্য বেশ স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। এদিন শিল্পোন্নত সাত দেশের অর্থনৈতিক এ জোটের সদস্য হিসেবে রাশিয়াকে ফিরিয়ে নিয়ে আসার প্রস্তাব তোলেন ট্রাম্প। জবাবে ইউরোপীয় দেশগুলোর পাশাপাশি কানাডাও এ প্রস্তাবের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। এদিকে ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়ামের ওপর ট্রাম্পের আরোপিত শুল্কের বিষয়ে হওয়া আলোচনায়ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ভিন্ন মত পোষণ করে বাকি সদস্যরা। ট্রাম্পের এ বাণিজ্য নীতিকে ‘নতুন কর্তৃত্ববাদী হুমকি’ বলে উল্লেখ করে অন্য সদস্য দেশগুলোকে এর বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। জোটের এ শীর্ষ সম্মেলনকে সামনে রেখে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে এক বৈঠকে তিনি এ আহ্বান জানান। তবে ইউরোপীয় মিত্রদের এমন বিরূপ আচরণে চাপের মুখে শেষ পর্যন্ত শুল্কের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করার কথা জানান ট্রাম্প। সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান এ তথ্য জানিয়েছে।

২০১৪ সালে ক্রিমিয়া দখল করার পর জি-৭ থেকে রাশিয়াকে বহিষ্কার করা হয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অর্থনৈতিক এ জোটে এখন মস্কোকে ফিরিয়ে আনতে চাইছেন। এ প্রসঙ্গে কানাডায় সম্মেলনের প্রথম দিন ট্রাম্প বলেন, ‘আপনাদের ভালো লাগুক আর নাই লাগুক, এমন কি বিষয়টি যদি রাজনৈতিক দিক থেকে ভুল হয়েও থাকে তারপরও বিশ্ব পরিচালনার স্বার্থে এখন যেটা জি-৭ রাশিয়াকে ফিরিয়ে আনার মধ্য দিয়ে এ জোটকে আবার জি-৮ হিসেবে গড়ে তোলা উচিত।’ তবে সভায় এর জবাবে জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল জানান, ইউক্রেনের বিষয়ে কোন অগ্রগতি না হলে জি-৭ জোটে রাশিয়াকে ফিরিয়ে আনার পক্ষপাতি নন তারা। এ সময় কানাডাসহ অন্য দেশগুলোও জার্মানির পক্ষে সমর্থন জানায়। এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প হঠাৎ কেন রাশিয়াকে ফিরিয়ে আনার প্রস্তাব দিয়েছেন, সে বিষয়ে গার্ডিয়ান জানিয়েছে, ট্রাম্প ভালো করেই জানতেন ইউরোপীয় নেতারা রাশিয়াকে ফেরত আনার বিষয়ে সম্মতি দেবেন না। আর রাশিয়াও জানিয়েছে তারা জি-৭ ধরনের কোন সংগঠনে যেতে ইচ্ছুক নয় তারা, অন্য কোন গড়নের সংগঠনে যেতে আগ্রহ রয়েছে তাদের। এমন পরিস্থিতিতে ট্রাম্পের এই রাশিয়াপ্রীতিকে নিছকই দৃষ্টি অন্যদিকে ঘোরাবার চাল হিসেবে দেখছে গার্ডিয়ান।

এদিনের সম্মেলনে ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়ামের ওপর আরোপিত শুল্কের বিষয়েও বাকী সদস্যরা ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেন। কানাডার প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো ট্রাম্পের শুল্ক আরোপের সিদ্ধান্তকে ‘অবৈধ’ বলে উল্লেখ করেন। অপরদিকে ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ক সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, শুল্ক, জলবায়ু পরিবর্তন ও ইরান বিষয়ে ট্রাম্পের অবস্থান বিপদজনক। তার মতে, ‘যা আমাকে সবচেয়ে বেশি ভাবিয়ে তুলেছে তা হলো ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সম্পর্ক হুমকির মুখে পড়েছে। আর তা সাধারণত যাদের সন্দেহ করা হয় তাদের মাধ্যমে নয় বরং এই ব্যবস্থার মূল কারিগড় (আর্কিটেক্ট অ্যান্ড গ্যারান্টার) নিশ্চয়তাদাতা যুক্তরাষ্ট্রের কারণেই ।’ তবে ফরাসি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাতের পর ট্রাম্প তাকে শুল্কের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র্র একটু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছিল তবে এখন তারা বিষয়টি পুনর্বিবেচনার কথা ভাবছে বলে জানিয়েছেন। জবাবে ফরাসি প্রেসিডেন্ট মন্তব্য করেন, তারা সবাই একটি সমঝোতাই চাইছেন। সম্মেলন শেষে দেয়া যৌথ ঘোষণাকে দুর্বল না করতে জোট নেতাদের আহ্বান জানান ম্যাক্রোঁ। তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে জানান, প্রয়োজন পড়লে ‘জি-৬ প্লাস ওয়ান’ বিবৃতি দেয়া হবে। এদিকে ট্রাম্পের বাণিজ্য নীতি সংক্রান্ত ম্যাক্রোঁর হুঁশিয়ারির কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মার্কিন। সম্প্রতি বাণিজ্য নীতি, জলবায়ু পরিবর্তন ও ইরানের সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু চুক্তি নিয়ে ট্র্রাম্পের সঙ্গে এ শীর্ষ জোটের অন্য ছয় দেশের নেতাদের মতবিরোধ বেড়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে এক টুইটার বার্তায় ট্রাম্প দাবি করেন, ম্যাক্রোঁ ও ট্রুডোর সরকার মার্কিন উৎপাদানকারীদের খরচ বাড়িয়ে ন্যায়হীন বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন। বৃহস্পতিবার খানিকটা অবজ্ঞার সুরেই তিনি টুইটারে লিখেছেন, ‘আগামীকাল তাদের সঙ্গে দেখা হওয়ার অপেক্ষায় আছি।’

ইয়েমেন যুদ্ধ : সৌদি জোটকে সমর্থন বন্ধে মার্কিন সিনেটে প্রস্তাব পাস

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

গত প্রায় সাড়ে তিন বছর ধরে চলা ইয়েমেন যুদ্ধে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের ওপর

‘খাশোগি হত্যায় পার পেতে পারে না সৌদি আরব’

সংবাদ ডেস্ক

image

ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে গত ২ অক্টোবর নির্বাসিত সাংবাদিক জামাল খাশোগির

প্রধানমন্ত্রিত্বের চ্যালেঞ্জে টিকে গেলেন মে

সংবাদ ডেস্ক

image

ব্রেক্সিট চুক্তি বাস্তবায়ন নিয়ে নিজ দল ও পার্লামেন্টে ব্যাপক চাপের মুখে থাকা প্রধানমন্ত্রী

sangbad ad

মেং ওয়ানঝৌ গ্রেফতার : বিচার বিভাগের ওপর হস্তক্ষেপের ঘোষণা ট্রাম্পের !

সংবাদ ডেস্ক

image

কানাডার ভ্যাঙ্কুভারে ১ ডিসেম্বর চীনের টেলিকম জায়ান্ট হুয়াওয়ের প্রধান অর্থবিষয়ক কর্মকর্তা

ভারতের পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে তিন রাজ্যে কংগ্রেসের জয়

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ভারতের পাঁচ রাজ্যে অনুষ্ঠিত বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশিত হয়েছে ১১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার

খাশোগি হত্যাকাণ্ড : সন্দেহভাজন খুনিদের হস্তান্তরের তুর্কি দাবি প্রত্যাখ্যান সৌদির

সংবাদ ডেস্ক

image

ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যার

সহিংস বিক্ষোভ : ‘জাতীয় ঐক্য’র আহ্বান ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রীর

সংবাদ ডেস্ক

image

তুমুল বিক্ষোভ-সহিংসতার মুখে ‘জাতীয় ঐক্য পুনঃপ্রতিষ্ঠা’র আহ্বান জানিয়েছেন ফরাসি

খাশোগি হত্যাকাণ্ড : মার্কিন সিনেটরদের ব্রিফ করলেন তুরস্কের গোয়েন্দা প্রধান

সংবাদ ডেস্ক

image

সৌদির স্বেচ্ছানির্বাসিত সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ড নিয়ে মার্কিন সিনেটরদের ব্রিফ

বিদেশি শ্রমিক নিতে জাপানের পার্লামেন্টে আইন পাস

সংবাদ ডেস্ক

image

শ্রমিকের ঘাটতি নিরসনে কয়েকে হাজার বিদেশি শ্রমিক নেবে জাপান। বিদেশি শ্রমিকদের

sangbad ad