• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০

 

করোনা সংকটে সুইডেনে ব্যতিক্রমী পদক্ষেপ

নিউজ আপলোড : ঢাকা , সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
image

ইউরোপে বহু দেশে যখন করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউন অবস্থা চলছে তখন একটি দেশ অন্য সবাইকে অনুসরণ না করে এমন এক পন্থা বেছে নিয়েছে যা স্বাভাবিক জীবনের অনেক কাছাকাছি। এক্ষেত্রে সুইডেনের সরকারি কৌশল হলো- ‘নিজের দায়িত্ববোধ থেকে পরিস্থিতির মোকাবিলা করা।’ আর স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের নির্দেশ হচ্ছে- কঠোর নিয়ম-কানুন আরোপ না করে সেখানে অসুস্থ বা বয়স্ক ব্যক্তি হলে ঘরে থাকা, হাত ধোয়া, অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণ না করা, বাড়িতে বসে কাজ করা। বিবিসি।

এক প্রতিবেদনে সংবাদ মাধ্যমটি জানিয়েছে, যদিও সুইডেনে এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৩ হাজার মানুষের করোনার সংক্রমণ হয়েছে এবং মারা গেছেন ১০৫ জন। তা সত্ত্বেও দীর্ঘ শীতের পর দেশটির রাজধানীতে যখন বাইরে বসে থাকার মতো গরম পড়েছে - তখন স্থানীয়রা তার সর্বোত্তম ব্যবহার করতে দ্বিধা করছেন না। মারিয়াটরেট স্কয়ারে দেখা যাচ্ছে ভাইকিং দেবতা থরের বিশাল মূর্তির সামনে পুরো পরিবার বসে আইসক্রিম খাচ্ছে। ফুটপাতের কিনারায় বসে আছে তরুণ যুগলরা।

চলতি সপ্তাহে শহরের নাইটক্লাবগুলোও খোলা ছিল। তবে ২৯ মার্চ রোববার থেকে ৫০ জনের বেশি মানুষ সমবেত হওয়া নিষিদ্ধ হয়েছে। তবে দেশটির শহরগুলো কেমন যেন একটু ঠা-া এবং হৈচৈ ও ব্যস্ততা কম। শহরের গণপরিবহন কোম্পানি এসএল বলছে, ট্রেন আর সাবওয়েতে লোকজন কমে গেছে প্রায় ৫০ শতাংশ। শহরের প্রায় অর্ধেক মানুষ ঘরে বসে কাজ করছে। সুইডেনের কর্মক্ষম জনশক্তি প্রযুক্তির ব্যবহার এবং বাড়িতে বসে রিমোট-ওয়ার্কিং করতে অভ্যস্ত। ব্যবসা-সংক্রান্ত একটি রাষ্ট্রীয় কোম্পানি এসবিআর-এর প্রধান নির্বাহী স্টাফান ইংভারসন বলছেন, ‘যে কোম্পানিরই এটা করার ক্ষমতা আছে, তারা এটা করছে। এবং এতে কাজও হচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে এটাই হচ্ছে সুইডেনের সরকারি কৌশলের মূল কথা- নিজের দায়িত্ববোধ।’

এদিকে দেশটির স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের প্রত্যাশা- কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ না করেও এভাবেই ভাইরাসের বিস্তার রোধ করা যাবে। কঠোর নিয়ম-কানুন না করে এখানে অসুস্থ বা বয়স্ক হলে ঘরে থাকা, হাত ধোয়া, অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণ না করা, বাড়িতে বসে কাজ করার নির্দেশ দেয়া হচ্ছে। দেশের এমন পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী স্টেফানলফভেন এক ভাষণে বলেছেন, ‘বড়দের বড়র মতো আচরণ করতে হবে, আতঙ্ক সৃষ্টি করবেন না, গুজব ছড়াবেন না। এ সংকটে কেউ একা নয়, সবারই বড় দায়িত্ব আছে।’ সুইডেনে সরকারি কর্তৃপক্ষের ওপর মানুষের আস্থা অনেক বেশি। ফলে তারা নিজে থেকেই কর্তৃপক্ষের নির্দেশাবলী মেনে চলে। জনসংখ্যার একটি বৈশিষ্ট্যও এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। ভূমধ্যসাগর তীরবর্তী দেশগুলোয় একটি বাড়িতে কয়েক প্রজন্মের মানুষ বাস করেন। কিন্তু সুইডেনে বেশির ভাগ বাড়িতেই মানুষ থাকেন মাত্র একজন।

এর ফলে পুরো পরিবারে ভাইরাস ছড়ানোর সম্ভাবনা অনেক কম। এছাড়াও সুইডিশরা বাড়ির বাইরের জীবন ভালোবাসেন। তারা ব্যক্তিগত শারীরিক-মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখাটাকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেন। স্টকহোম চেম্বারের প্রধান নির্বাহী আন্দ্রেয়াস হাটজিগিওর্গিও’র মতে, সুইডিশ এই পন্থা অন্য দেশের চাইতে যুক্তিসম্মত।

তবে সুইডেনের এমন পদক্ষেপের (সুইডিশ এপ্রোচের) সমালোচনাও করছেন অনেকে । সুইডেনের মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যারোলিনস্কা ইনস্টিটিউটের একজন এপিডেমোলজিস্ট এমা ফ্রানজ বলছেন, সরকারের এসব নির্দেশনা যথেষ্ট নয়। তিনি চান, দোকানপাট বা জিমে লোকজন কীভাবে পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ করবে, সে বিষয়ে আরও স্পষ্ট নীতি নেয়া দরকার।

করোনাভাইরাসের বিস্তারের কারণে দেশটির বিভিন্ন ব্যবসা সংকটে পড়েছে। ফলে অনেকের অভিমত, এক্ষেত্রে সুইডেনকেও কৌশল পরিবর্তন করতে হবে। অন্য ইউরোপীয় দেশের মতোই লকডাউন আরোপ করতে হবে।

এমা ফ্রানজ বলছেন, ‘ইউরোপের রাজনীতিবিদ ও বিজ্ঞানীরা সঠিক পদক্ষেপ নিয়েছেন কিনা তা ইতিহাসই বিচার করবে। কোন পদক্ষেপ যে সবচেয়ে বেশি কার্যকর হবে তা কেউই জানে না।’

বিক্ষোভের সময় স্ত্রী-পুত্রকে নিয়ে বাঙ্কারে লুকিয়েছিলেন ট্রাম্প!

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র। বিক্ষোভকারীরা শুক্রবার (২৯ মে) রাতে হোয়াইট হাউজের বাইরেও জড়ো হন। এ সময় প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হোয়াইট হাউজের আন্ডারগ্রাউন্ড বাঙ্কারে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ৩ লাখ ৭৩ হাজার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের উহানে শুরু হওয়া করোনার সংক্রমণ বিশ্বের ২১৫টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

কারফিউ ভেঙে যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবাদ বিক্ষোভ

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে জুড়ে কৃষ্ণাঙ্গ খুনের প্রতিবাদ-বিক্ষোভ বিক্ষোভ আরও বেড়েছে। টিভি সংবাদমাধ্যম

sangbad ad

বিক্ষোভে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্রে সেনা মোতায়েন

সংবাদ ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের মিনেপোলিস শহরে পুলিশের হেফাজতে জর্জ ফ্লয়েড নামের এক কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান নাগরিকের মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে টানা চতুর্থ দিনের বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে যুক্তরাষ্ট্র। শনিবার ডেট্রয়েটসহ দেশটির বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের রাস্তায় এ বিক্ষোভ সহিংস আকার ধারণ করে। এসময়

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্নের ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) সঙ্গে তার দেশের সম্পর্কের ইতি টানার ঘোষণা দিয়েছেন। ট্রাম্প ঘোষণা দিলেও ডব্লিউএইচও’র সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কচ্ছেদ কবে থেকে কার্যকর হচ্ছে, তা স্পষ্ট হওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। তবে ট্রাম্পের এ ঘোষণা নিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

করোনা চিকিৎসায় ‘প্লাজমা থেরাপি’ ‘রেমডেসিভির’ ব্যবহারে ডব্লিউএইচওর না

অনলাইন বার্তা পরিবেশক,

image

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপি ব্যবহার না করার পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। পাশাপাশি ‘রেমডেসিভির’সহ অন্যান্য অ্যান্টিভাইরালও ব্যবহার না করার সুপারিশ করেছে সংস্থাটি।

বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ৬০ লাখ ছাড়াল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের উহানে শুরু হওয়া করোনার সংক্রমণ বিশ্বের ২১৫টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

করোনা বস্তু থেকে সহজে ছড়ায় না : সিডিসি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

কোনো বস্তু বা পৃষ্ঠতল থেকে করোনাভাইরাস সহজে ছড়ায় না, বরং মূলত মানুষ থেকে মানুষেই রোগটি ছড়াচ্ছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)।

লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি শ্রমিক হত্যা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ অভিবাসী শ্রমিককে গুলি করে হত্যা করেছে মানবপাচারকারী চক্রের এক সদস্যের পরিবারের লোকজন। নিহত বাকি চারজন আফ্রিকান। এছাড়া আরো ১১ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত লিবিয়ার সরকার (জিএনএ) বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানিয়েছেন।

sangbad ad