• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , সোমবার, ০১ জুন ২০২০

 

করোনা নিয়ন্ত্রণে যেভাবে সফল দক্ষিণ কোরিয়া

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
image

কল্পিত রহস্যময় একটি প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় জরুরি ভিত্তিতে পরিচালিত এক মহড়ার পরীক্ষা দক্ষিণ কোরিয়ায় ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাস ঠেকানোর হাতিয়ার তৈরিতে সহায়তা করেছিল। দক্ষিণ কোরিয়ার রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের (কেসিডিসি) মহড়া সংশ্লিষ্ট এক বিশেষজ্ঞ ও দেশটির সরকারি এক গোপন নথির ভিত্তিতে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

একটা বড় ধরনে বিপর্যয় সৃষ্টির আগেই নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় দক্ষিণ কোরিয়ার নেয়া কার্যকরী পদক্ষেপ খুবই প্রশংসিত হয়েছে। এ মহামারীতে দেশটিতে ৯ হাজার ৫৮৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন, যাদের মধ্যে ১৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু গত তিন সপ্তাহ ধরে সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ১০০ বা তার নিচে রয়েছে।

এদিকে সরকারি ওই গোপন নথিতে দেখা যায়, এক মাসেরও কম সময়ের মধ্যে পরিচালিত ওই মহড়াই সিউলকে প্রাণঘাতী এ ভাইরাস মোকাবিলায় গাইডলাইন হিসেবে কাজ করেছিল।

এর আগে গত ১৭ ডিসেম্বর দক্ষিণ কোরিয়ার সংক্রামক ব্যাধি বিষয়ে দুই ডজন শীর্ষ বিশেষজ্ঞ একটি উদ্বেগজনক পরিস্থিতি সামাল দেন। চীন ভ্রমণ করে আসা এক দক্ষিণ কোরীয় পরিবারের মধ্যে নিউমোনিয়ার দেখা পান তারা। ততোদিনে চীনে ছড়িয়ে পড়েছে অজ্ঞাত এক রোগ।

নতুন ধরনের করোনাভাইরাস হিসেবে কল্পনা করে নেয়া রোগটি দ্রুতই পরিবারের সদস্য ও তাদের সংস্পর্শে আসা স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় দক্ষিণ কোরিয়ার রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র (কেসিডিসি) রোগটির জীবনশক্তি ও উৎপত্তি খুঁজতে অ্যালগরিদমের পাশাপাশি দ্রুত পরীক্ষার কৌশলও তৈরি করে ফেলেন।

গোপন ওই নথি অনুসারে, ২০ জানুয়ারি দক্ষিণ কোরিয়ায় প্রথম নভেল করোনাভাইরাসের সন্দেহভাজন রোগী দেখা দিলে তখনকার মহড়া থেকে পাওয়া ওই ব্যবস্থা প্রয়োগ করা হয়।

মহড়া পরিচালনাকারী কেসিডিসির অন্যতম বিশেষজ্ঞ লি স্যাং অন বলেন, ‘গত ২০ বছরের দিকে তাকালে দেখা যায়, মানুষের জীবন ইনফ্লুয়েঞ্জা অথবা করোনাভাইরাসের আক্রমণে বিপর্যস্ত ছিল। আমরা তা ভালোভাবেই মোকাবিলায় করেছি। কিন্তু নতুন ধরনের একটি করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার বিষয়ে আমরা উদ্বিগ্ন ছিলাম।

‘এটা (মহড়া কাজে লাগার বিষয়টি) ছিল একটা অন্ধ ভাগ্য... ওই পরিস্থিতিটি বাস্তবে রূপ নিতে দেখে আমরা হতবাক হয়ে পড়েছি। কিন্তু মহড়া থেকে পরীক্ষা পদ্ধতি ও রোগ শনাক্তের পদ্ধতিতে আমাদের অনেক সময় বাঁচিয়ে দিয়েছে।’

আগ্রাসী ও টেকসই পরীক্ষা পদ্ধতি ব্যবহার করে চীনের বাইরে এশিয়ার সবচেয়ে বড় করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের গতি শ্লথ করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল ওই মহড়া।

শুরুতে বড় আকারে ছড়িয়ে পড়ার পর কয়েক দিনের মধ্যেই দক্ষিণ কোরিয়া ব্যাপকভাবে পরীক্ষা শুরু করে। উপসর্গ না থাকলেও অন্যকে সংক্রমিত করতে পারেন এমন ব্যক্তিদের পরীক্ষা করা, নিশ্চিত রোগীদের বিচ্ছিন্ন করে রাখা এবং তাদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের শনাক্ত করার মত বিস্তৃত কর্মসূচি নিয়েছিল দেশটি।

বিশেষজ্ঞ লি বলেন, ২০১৫ সালে মিডল ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (মার্স) ভাইরাস প্রতিরোধে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ার পর ২০১৮ সালে বৃহদাকারে ডিএনএ বিশ্লেষণ সক্ষমতা জোরদারে ‘স্টাডি গ্রুপ’ হিসেবে কেসিডিসির অধীনে বিশেষজ্ঞ দলটি গঠন করে দক্ষিণ কোরিয়া।

‘ওই মহড়ার পরপরই চীনের উহান শহরে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হয়। তখনই বিশেষজ্ঞ দলটি ধারণা করে, এটা বোধহয় নতুন করোনাভাইরাস। এমনকি চীন এটার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়ার আগেই কেসিডিসি পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত হয়ে যায়।’

নথিতে আরও দেখা যায়, চীন ভাইরাসটিকে শনাক্ত করার তিন দিন আগে ৪ জানুয়ারি কেসিডিসির বিশেষজ্ঞ দলটি পরীক্ষা পদ্ধতি আবিষ্কার করে ফেলে। ৯ জানুয়ারি তারা সন্দেহজনক ঘটনাগুলো পরীক্ষা করা শুরু করে। মার্চের প্রথম দিকে দক্ষিণ কোরিয়া দিনে ২০ হাজার নমুণা পরীক্ষা করতে পারত। তখন দেশটির পাঁচটি কোম্পানি একযোগে নিজেদের ব্যবহার ও রপ্তানির জন্য ব্যাপক আকারে টেস্টিং কিট তৈরি করছিল।

লি বলেন, ‘দেশে মাত্র কয়েকটি সংক্রমণের ঘটনা নিয়ে ওই সময় আমাদের প্রতিক্রিয়াটা হয়তো একটু বেশিই দেখানো হয়েছে। কিন্তু এটা যে আসলেই একটা মহামারীতে রূপ নিতে পারে তার যথেষ্ট সম্ভাবনা ছিল।’

‘আমরা কি যথেষ্ট ভালো করেছি? আমি জানি না। কিন্তু ২০০১৫ সালে আমরা যে পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে গিয়েছিলাম, তা ফিরে আসুক আমরা চাই না। এখন আমাদের মূলমন্ত্র- ‘এমন দুর্ভোগ যেন আর না আসে’ (নেভার এগেইন)।

বিক্ষোভের সময় স্ত্রী-পুত্রকে নিয়ে বাঙ্কারে লুকিয়েছিলেন ট্রাম্প!

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র। বিক্ষোভকারীরা শুক্রবার (২৯ মে) রাতে হোয়াইট হাউজের বাইরেও জড়ো হন। এ সময় প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হোয়াইট হাউজের আন্ডারগ্রাউন্ড বাঙ্কারে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ৩ লাখ ৭৩ হাজার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের উহানে শুরু হওয়া করোনার সংক্রমণ বিশ্বের ২১৫টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

কারফিউ ভেঙে যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবাদ বিক্ষোভ

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে জুড়ে কৃষ্ণাঙ্গ খুনের প্রতিবাদ-বিক্ষোভ বিক্ষোভ আরও বেড়েছে। টিভি সংবাদমাধ্যম

sangbad ad

বিক্ষোভে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্রে সেনা মোতায়েন

সংবাদ ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের মিনেপোলিস শহরে পুলিশের হেফাজতে জর্জ ফ্লয়েড নামের এক কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান নাগরিকের মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে টানা চতুর্থ দিনের বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে যুক্তরাষ্ট্র। শনিবার ডেট্রয়েটসহ দেশটির বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের রাস্তায় এ বিক্ষোভ সহিংস আকার ধারণ করে। এসময়

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্নের ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) সঙ্গে তার দেশের সম্পর্কের ইতি টানার ঘোষণা দিয়েছেন। ট্রাম্প ঘোষণা দিলেও ডব্লিউএইচও’র সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কচ্ছেদ কবে থেকে কার্যকর হচ্ছে, তা স্পষ্ট হওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। তবে ট্রাম্পের এ ঘোষণা নিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

করোনা চিকিৎসায় ‘প্লাজমা থেরাপি’ ‘রেমডেসিভির’ ব্যবহারে ডব্লিউএইচওর না

অনলাইন বার্তা পরিবেশক,

image

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপি ব্যবহার না করার পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। পাশাপাশি ‘রেমডেসিভির’সহ অন্যান্য অ্যান্টিভাইরালও ব্যবহার না করার সুপারিশ করেছে সংস্থাটি।

বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ৬০ লাখ ছাড়াল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের উহানে শুরু হওয়া করোনার সংক্রমণ বিশ্বের ২১৫টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

করোনা বস্তু থেকে সহজে ছড়ায় না : সিডিসি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

কোনো বস্তু বা পৃষ্ঠতল থেকে করোনাভাইরাস সহজে ছড়ায় না, বরং মূলত মানুষ থেকে মানুষেই রোগটি ছড়াচ্ছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)।

লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি শ্রমিক হত্যা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ অভিবাসী শ্রমিককে গুলি করে হত্যা করেছে মানবপাচারকারী চক্রের এক সদস্যের পরিবারের লোকজন। নিহত বাকি চারজন আফ্রিকান। এছাড়া আরো ১১ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত লিবিয়ার সরকার (জিএনএ) বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানিয়েছেন।

sangbad ad