• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০

 

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায়

পাসের হার ও জিপিএ-৫, ছাত্রীরা এগিয়ে

নিউজ আপলোড : ঢাকা , রোববার, ৩১ মে ২০২০

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

ফাইল ছবি

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় এবারও জিপিএ-৫ ও

পাসের হারের দিক থেকে ছাত্রদের পেছনে ফেলেছে ছাত্রীরা এগিয়ে রয়েছে। ফলাফল বিশ্লেষণে এমনই তথ্য জানা যায়। এবার পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পাওয়া এক লাখ ৩৫ হাজার ৮৯৮ শিক্ষার্থীর মধ্যে ৬৫ হাজার ৭৫৪ জন ছাত্র এবং ৭০ হাজার ১৪৪ জন ছাত্রী রয়েছে।পাসের হার ৮২ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

নয়টি সাধারণ বোর্ডের অধীনে এসএসসিতে এবার ১৬ লাখ ৩১ হাজার ৩০৮ শিক্ষার্থী অংশ নেন। এদের মধ্যে ১৩ লাখ ৬৬ হাজার ২১৮ জন পাস করেছেন। নয় বোর্ডের অধীনে এসএসসিতে এবার পাসের হার ৮৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

নয় বোর্ড থেকে এবার ৭ লাখ ৯০ হাজার ৩৩৫ জন ছাত্র মাধ্যমিকের চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। তাদের মধ্যে পাস করেছে ৬ লাখ ৫৫ হাজার ৬২১ জন। পাসের হার ৮২ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

অন্যদিকে ৮ লাখ ৪০ হাজার ৯৭৪ জন ছাত্রী এবার এসএসসি দিয়েছিল। তাদের মধ্যে ৭ লাখ ১০ হাজার ৫৯৭ জন উত্তীর্ণ হয়েছে। পাসের হার ৮৪ দশমিক ৫০ শতাংশ।

সেই হিসেবে এবার ছাত্রদের থেকে ছাত্রীদের পাসের হার বেশি। গত তিন বছর ধরেই মাধ্যমিকে পাসের হারের দিক থেকে ছাত্রীরা এগিয়ে রয়েছে।

আর এবার পূর্ণাঙ্গ জিপিএ, অর্থাৎ পাঁচে পাঁচ পাওয়া এক লাখ ৩৫ হাজার ৮৯৮ শিক্ষার্থীর মধ্যে ৬৫ হাজার ৭৫৪ জন ছাত্র এবং ৭০ হাজার ১৪৪ জন ছাত্রী।

এবার বিজ্ঞান বিভাগের ৯৪ দশমিক ৫৪ শতাংশ, মানবিকের ৭৬ দশমিক ৩৯ শতাংশ এবং ব্যবসায় শিক্ষার ৮৪ দশমিক ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে।

শিক্ষার্থীদের প্রতি সহানুভূতিশীল হতে মেস মালিকদের প্রতি এনইউ উপাচার্যের আহ্বান

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের (এনইউ) অধিভুক্ত কলেজগুলোতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ভাড়া আদায়ে মেস মালিকদের সহানুভূতিশীল হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ।

চাঁদাবাজদের কাছে জিন্মি ঢাকা কলেজ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

সাবেক ও বর্তমান ছাত্র নেতাদের চাঁদাবাজির কাছে জিন্মি হয়ে পরেছে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা কলেজ। প্রতিষ্ঠানে নির্মাণাধীন সব ধরণের অবকাঠামো কাজ থেকেই চাঁদা গুণতে হয়।

লিডিং ইউনিভার্সিটিতে অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম চলছে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সময়কে যথাযথভাবে কাজে লাগানোর জন্য সিলেটের প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটি অনলাইনে গত ২৩ মার্চ ২০২০ থেকে শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) নির্দেশ অনুযায়ী লিডিং ইউনিনভার্সিটিতে ১ জুন ২০২০ থেকে সামার সেমিস্টারে ভর্তি চলছে।

sangbad ad

৭ জুলাইয়ের মধ্যে অনলাইন ক্লাস শুরু করবে ঢাবি

প্রতিনিধি, ঢাবি

image

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে সাড়ে তিন মাস বন্ধ আছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ক্লাস-পরীক্ষা।

ঢাবি ক্লাবের সভাপতি ওবায়দুল, সম্পাদক রহিম

প্রতিনিধি, ঢাবি

image

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্লাবের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। এতে পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম সভাপতি এবং ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. আবদুর রহিম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মনোনীত হয়েছেন।

এম এ কাসেম নর্থসাউথ ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান নির্বাচিত

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

বিশিষ্ট শিল্পপতি, বাংলাদেশে বেসরকারি পর্যায়ে উচ্চ শিক্ষার পথ প্রদর্শক, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির

প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) নতুন উপাচার্য হলেন অধ্যাপক সত্য প্রসাদ মজুমদার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক সত্য প্রসাদ

অবসরের বন্ধু বই

ওয়ালিয়ার রহমান

image

করোনায় অনেকেই অবসর সময় পার করছেন। এই সময়ে শুধু শিক্ষার্থীদেরই নয়, আমাদের সকলেরই বইপড়া দরকার। কেননা বই শুধু মনের অন্ধকারই দূর করে না, সমৃদ্ধ করে জ্ঞানের ভাণ্ডার। আমাদের বই পড়তেই হবে। কেননা বইপড়া ছাড়া যেমন সাহিত্যচর্চার উপায়ন্তর নেই, তেমনি জ্ঞানের ভাণ্ডার সমৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন বইপড়া। বইপড়া থেকে আনন্দ, বুদ্ধি ও সক্ষমতা অর্জিত হয়। বই পড়তে হয় একাকী এবং তাতে অবসর ভরে ওঠে নির্মল আনন্দে, বুদ্ধি আসে বইয়ের কথামালা থেকে, আর সক্ষমতা আসে গ্রন্থগত বিদ্যার সঙ্গে বিষয়বুদ্ধির সংশ্লেষে।

করোনায় বিপর্যস্ত শিক্ষাব্যবস্থা ও উত্তরণে করণীয়

অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু

image

বিশ্ব মহামারি কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের ভয়াবহ থাবায় দীর্ঘ তিন মাস যাবৎ বাংলাদেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। ফলে দেশের শিক্ষাব্যবস্থা এক চরম সংকটের মধ্যে পড়েছে। চরম বিপর্যস্ত শিক্ষা ব্যবস্থাকে সচল রাখার জন্য সরকার প্রাণপন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সরকার সংসদ টিভির মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনলাইন ব্যবস্থায় ক্লাস নেওয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পড়ার টেবিলে রাখার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে । এতে করে শহর কেন্দ্রিক শিক্ষার্থীদের একটি অংশ হয়ত উপকৃত হচ্ছে, বাস্তবতা হলো দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের বৃহদাংশের শিক্ষার্থীরা এই সুযোগ থেকে বঞ্চিত রয়েছে।

sangbad ad