• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০

 

এইচএসসি পরীক্ষা না হওয়ায় দুশ্চিন্তায় শিক্ষার্থীরা

নিউজ আপলোড : ঢাকা , শনিবার, ১০ অক্টোবর ২০২০

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষা না নেওয়ার সিদ্ধান্তকে অধিকাংশ অভিভাবক-শিক্ষক স্বাগত জানালেও দুশ্চিন্তা বাড়ছে শিক্ষার্থীদের বড় একটি অংশের।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, এর আগের পরীক্ষা খারাপ হওয়ায় তারা নতুন করে প্রস্তুতি নিয়েছেন। কেউ কেউ বলছেন, তারা বিষয় পরিবর্তন করেছেন। এখন গড়ে মূল্যায়ন করলে ভালো ফল আসবে না। সেক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ক্ষেত্রে নানা প্রতিবন্ধকতা আসতে পারে। এসব কারণে তারা একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন পরীক্ষার ভিত্তিতে মূল্যায়নের দাবি জানান।

তবে, মন্ত্রণালয় বলছে, মূল্যায়ন-প্রক্রিয়া নিয়ে এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাননি পরামর্শকরা। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। জেএসসি-এসএসসি থেকে কত পার্সেন্ট করে নেওয়া হবে, সে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বিশেষজ্ঞদের অভিমতের ভিত্তিতে।

শিক্ষাবিদরা বলছেন, মূল্যায়নের ক্ষেত্রে শুধু বিশেষজ্ঞরা নন, সব স্টেক হোল্ডারের অভিমতও নেওয়া যেতে পারে। প্রয়োজনে শিক্ষার্থী-অভিভাবকেরও পরামর্শ নেওয়ার দাবি জানান তারা। টেলিফোন কিংবা ই-মেইলে সব স্টেক হোল্ডার থেকে অভিমত নেওয়া যেতে পারে। যেন এই মূল্যায়নপদ্ধতি নিয়ে কোনো প্রশ্ন না ওঠে।

শিক্ষা বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, একজন এইচএসসি পরীক্ষার্থীর জেএসসি-এসএসসি পরীক্ষার প্রাপ্তফল গড়ের মাধ্যমে এইচএসসির গ্রেড দেওয়ার কথা। তবে, এই গড় প্রকাশের ক্ষেত্রে আরো কয়েকটি বিষয় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

একজন পরীক্ষার্থী যদি জেএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পায় ও এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৪ পায়, তাহলে তার গড় জিপিএ আসে ৪.৫। অর্থাৎ ওই পরীক্ষার্থীদের এইচএসসি পরীক্ষার গ্রেড হওয়ার কথা জিপিএ-৪.৫। তবে, এভাবে গড় করে এইচএসসির ফল প্রকাশ করা হবে না।

উদ্বেগ প্রকাশ করে সাদিয়া আফরিন নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমি এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৪ পয়েন্ট পেয়েছি। জেএসসিতে জিপিএ-৫ ছিল। এইচএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি ভালো ছিল। তবে, পরীক্ষা না হওয়ায় এখন ভালো ফল আসবে না। বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি নিয়েও দুশ্চিন্তা বেড়ে গেলো।’

এক শিক্ষার্থীর বাবা নূরুল আহমেদ বলেন, ‘সার্বিক মূল্যায়নের জন্য পরীক্ষার দরকার ছিল। প্রয়োজনে সংক্ষিপ্ত আকারে হতে পারতো। এই সিদ্ধান্তের কারণে অনেকের ভালো ফলের আশা থাকলেও তার আর সুযোগ থাকছে না।’

জানা গেছে, জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার মান সমান নয়। আর এ কারণেই পরীক্ষার ফল প্রকাশের ক্ষেত্রে জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষায় প্রাপ্ত গ্রেডের মান সমান ধরা হবে না। গ্রেড তৈরির ক্ষেত্রে জেএসসি থেকে কতটুকু ধরা হবে এবং এসএসসি পরীক্ষার গ্রেড থেকে কতটুকু নেওয়া হবে, তা আন্তর্জাতিক মানদ- মেনেই করা হবে।

উদয়ন কলেজের অধ্যক্ষ জহুরা বেগম বলেন, ‘কারিগরিতে অনেকেই জেএসসি ছাড়াই ভর্তি হয়েছেন। এখানে সমস্যা তৈরি হবে। তবে, ফল নির্ধারণের সময় কলেজ কর্তৃপক্ষের সহায়তা নিলে কিছুটা জটিলতা কমতে পারে।’

নটর ডেম কলেজের অধ্যক্ষ ড. হেমন্ত পিয়ুস রোজারিও বলেন, ‘বিভাগ পরিবর্তন করা শিক্ষার্থীদের মার্কশিট তৈরি করা নিয়ে জটিলতা তৈরি হবে। এছাড়া, আমাদের এখানে মানবিক বিভাগে অনেকেই ৩.৫০ নিয়ে ভর্তি হয়। কিন্তু পরবর্তী সময়ে তারা এ প্লাস পায়। এক্ষেত্রে ফল মূল্যায়নে শিক্ষার্থীরা সঠিক রেজাল্ট পাবে না।’

মূল্যায়ন বিষয়ে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, ‘আমরা পরীক্ষার্থীদের জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলের গড়ের বের করেই এইচএসসির গ্রেড দেবো। তবে এটি স্বাভাবিক যে গড়ের হিসাব করা হয়, সেভাবে করা হবে না। এরমধ্যে আরো কিছু বিষয় অন্তর্ভুক্ত আছে। আমরা বিষয়টি নিয়ে পরবর্তী সময়ে আলোচনা করবো।’ সিদ্ধান্ত হলে সবাইকে জানিয়ে দেওয়া হবে।

চার বছরে প্রাক-প্রাথমিকে ভর্তি

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

সারাদেশে দুই বছর মেয়াদি প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার অন্তবর্তীকালীন প্যাকেজ অনুমোদন করে তা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে দিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্য পুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। আগামী বছর পাইলটিং হিসেবে দেশের একটি করে উপজেলাভিত্তিক ২ হাজার ৬৩৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ স্তর চালু করা হবে। দুই বছর মেয়াদী প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণি চালু করা হবে, যেখানে চার বছর বা তার অধিক বয়সের শিশুরা পড়ার সুযোগ পাবে।

প্রাথমিক ও মাধ্যমিকে এবছর বার্ষিক পরীক্ষা হচ্ছে না

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

মহামারি করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা এবছর হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের ( ডিপিই) অধীন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে

sangbad ad

নর্থ সাউথের শিক্ষার্থীরা আজও আন্দোলনে

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

ছয় দফা দাবি আদায়ে দ্বিতীয় দিনের মতো আজও আন্দোলন করছেন নর্থ সাউথ

মাইলস্টোন কলেজে অনলাইনে পাঠদানের কৌশলাদি নিয়ে বিশেষ কর্মশালা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

এমতাবস্থায় শ্রেণিকক্ষের সিলেবাসটি অনলাইনে ছাত্রছাত্রীদের মাঝে সহজবোধ্য করার নানা কৌশল নিয়ে বিশেষ কর্মশালার আয়োজন করেছে রাজধানীর উত্তরায় অবস্থিত মাইলস্টোন স্কুল অ্যান্ড কলেজ। স্বাস্থ্যবিধি মেনে গত ১০ অক্টোবর শনিবার, মাইলস্টোন স্কুল অ্যান্ড কলেজের দিয়াবাড়ী স্থায়ী ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত এই বিশেষ কর্মশালায় প্রধান বক্তা হিসেবে দিকনির্দেশনামূলক কথা বলেন মাইলস্টোন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সম্মানিত উপদেষ্টা কর্নেল নুরন্ নবী (অব.)।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারে শিক্ষকদের প্রতি কঠোর নির্দেশনা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাষ্ট্র, ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয় এমন শৃঙ্খলা পরিপন্থী কোনো বিষয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করা, ছবি, অডিও, ভিডিও আপলোড করা, পোস্টে কমেন্ট ও লাইক দেয়া এবং শেয়ার না করতে ছয়টি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে সরকারি সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা চেয়ে আইনি নোটিশ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

জেএসসি ও এসএসসির ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফল প্রস্তুতের সিদ্ধান্ত

অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিলের উদ্যোগে ওয়ার্কশপ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিলের উদ্যোগে গতকাল ৪ অক্টোবর ২০২০ ‘Accreditation Standards and Criteria’ শীর্ষক তিন ঘন্টা ব্যাপী অনলাইন ভার্চুয়াল (Zoom) ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিলের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মেসবাহউদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে আয়োজিত ওয়ার্কশপে কাউন্সিলের পূর্ণকালীন সদস্য জনাব ইসতিয়াক আহমদ, প্রফেসর ড. মো. গোলাম শাহি আলম, প্রফেসর ড. সঞ্জয় কুমার অধিকারী, প্রফেসর ড. এস. এম কবীর অংশগ্রহণ করেন।

ডিগ্রি পাস ও সার্টিফিকেট কোর্স পুরাতন সিলেবাসের ফল প্রকাশ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনুষ্ঠিত ২০১৭ সালের ডিগ্রী পাস ও সার্টিফিকেট কোর্স (পুরাতন সিলেবাস) পরীক্ষার ফল গতকাল (৪ অক্টোবর) সন্ধ্যা ৭:০০ টায় প্রকাশ করা হয়েছে। সারাদেশের ১১৯৪ টি কলেজের মোট ৬৩৫ টি কেন্দ্রে সর্বমোট ৮৪২৬ জন (নিয়মিত, অনিয়মিত ও মানোন্নয়নসহ) পরীক্ষার্থী এ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। গড় পাশের হার ৬৫.৭৮%।