• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারী ২০১৯

 

রপ্তানিতে সম্ভাবনাময় আগর-আতর শিল্প

নিউজ আপলোড : ঢাকা , সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮

সংবাদ :
  • ওয়ালিদ খান
image

মৌলভীবাজারের একটি আতর কারখানায় কর্মরত শ্রমিকরা

আগর-আতর শিল্প সম্প্রসারণের মাধ্যমে সরকার গার্মেন্টস শিল্পের মতোই বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের পাশাপাশি দেশের বেকার সমস্যাও সমাধান করতে পারে। ইতোমধ্যে ভারত, সিঙ্গাপুর, মধ্যপ্রাচ্য এবং ইউরোপসহ বিশ্বের অনেক দেশে বাংলাদেশ সংগৃহীত শত কোটি টাকার আতর প্রতি বছর রপ্তানি করে। এসব আতর ব্যবহার করা হচ্ছে বিশ্ববিখ্যাত ব্র্যান্ডের সুগন্ধী প্রসাধনী তৈরিতে। বিশ্ববাজারে এর চাহিদার ফলে আতরের অপর নাম হয়েছে তরল সোনা। আতর শিল্পের সম্ভাবনা এবং সীমাবদ্ধতা নিয়ে কথা বলার সময় সংবাদকে এই তথ্য দেন বাংলাদেশ আগর অ্যান্ড আতর ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট আনসারুল হক। তিনি বলেন, অপার সম্ভাবনাময় এই সীমাবদ্ধতা দূর করতে বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। এর পাশাপাশি অধুনিক পদ্ধতিতে আতর সংগ্রহ করতে পরীক্ষাগার স্থাপন, বিদেশে রপ্তানির জন্য সাইটিস সার্টিফিকেট সংগ্রহ সহজীকরণ, স্বল্পমূল্যে গ্যাস সংযোগ এবং এইচএস কোডসহ বিমানবন্দরে সমাধানের জন্য সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়কে কাজ করতে হবে। অন্যথায় বৈধপথের পাশাপাশি অন্যপথে রপ্তানি হয়ে যাবে দেশের তরল সোনা। সরকার হারাবে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব।

আনসারুল হক সংবাদকে বলেন, ৫০০ বছরের পুরনো এই শিল্পকে সরকার পৃষ্ঠপোষকতা করলে আমরা গার্মেন্ট শিল্পের সমপরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে পারবো। কারণ পৃথিবীর বিভিন্ন সুগন্ধী তৈরিতে এই আতর ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া প্রায় সব ধর্মীয় অনুষ্ঠানে আমাদের দেশের আতর জনপ্রিয়। বৈশ্বয়িক চাহিদা মেটাতে এই আগর-আতর ভারত, সৌদি আরব, কুয়েত, ইরাক, ইরান, সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ মধ্যপ্রোচ্যের প্রতিটি দেশ ছাড়াও ইউরোপে রপ্তানি হচ্ছে। তিনি বলেন, বিদেশে আতরের ব্যাপক চাহিদা থাকলেও সে অনুযায়ী উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে না। আবার যতটুকু উৎপাদন করছেন, তাও সরবরাহ করতে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। আতর রপ্তানিতে সাইটিস সনদ (বন ও পরিবেশ বিভাগের ছাড়পত্র) সংগ্রহ করতে সবচাইতে বেশি সমস্যায় পড়তে হয়। সময়মতো এ সনদ না পাওয়ায় বিদেশে পণ্য পাঠাতেও দেরি হচ্ছে। তাছাড়া আগর পণ্য রপ্তানির জন্য সাইটিস সার্টিফিকেট ঢাকা বন অফিস থেকে ইস্যু করার স্থলে বড়লেখা বা মৌলভীবাজার বন অফিস থেকে সংগ্রহ করতে হয়। সেখান থেকে সার্টিফিকেট পেতে কয়েক মাস সময় লাগে যেখানে অন্যান্য দেশে ৩ দিনের মধ্যেই সার্টিফিকেট পাওয়া যায়। সিলেট জেলা কৃষি অফিসের উপপরিচালক মো. আবুল হাসেম বলেন, আগর আতর নিয়ে আমাদের পক্ষ থেকে প্রকল্প আকারে কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। তবে এই শিল্পটিকে সম্প্রসারিত করতে আমরা মৌখিকভাবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি।

দেশের একমাত্র শতভাগ রপ্তানিমুখী শিল্প হলেও আগর থেকে আতর উৎপাদনে আধুনিক কোনো পদ্ধতি এখনো ব্যবহার হচ্ছে না। এখানে কোনো আধুনিক পরীক্ষাগার নেই। আগর থেকে উৎপাদিত প্রতি তোলা ভালোমানের আতরের দাম ৬ হাজার টাকার বেশি। আর নিম্নমানের আতর আড়াই থেকে ৩ হাজার টাকা তোলা। সে হিসেবে এক লিটার ভালোমানের আতরের বাজারমূল্য ৬ লাখ টাকার বেশি। কিন্তু বন বিভাগের পক্ষ থেকে এ পণ্য রপ্তানিতে সাইটিস সার্টিফিকেট ইস্যুর ক্ষেত্রে জটিলতায় অনেক সময় ক্রেতারা অন্য দেশে চলে যায়। এছাড়া বিমানবন্দরে নানা জটিলতায় অনেকে আন্তর্জাতিক কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে এ পণ্য রপ্তানি করছেন। এসব জটিলতা সমাধান করা গেলে এটি দেশের রপ্তানি পণ্যের অন্যতম বৃহৎ খাত হয়ে উঠতে পারে বলে মনে করছেন আতর ব্যবসায়ীরা।

সরেজমিন গিয়ে জানা যায়, সুজানগরে ৩৫০টির বেশি ছোট-বড় আতর তৈরির কারখানা রয়েছে। এসব কারখানায় এখনও সনাতন পদ্ধতিতে আতর সংগ্রহ করা হয়। এ শিল্পে জড়িত ৫০-৬০ হাজার নারী-পুরুষ। বড়লেখা উপজেলার সুজানগরে এ শিল্পনির্ভর প্রায় সাড়ে তিনশ ছোট-বড় কারখানা রয়েছে। এ শিল্পে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন প্রায় ৫০ থেকে ৬০ হাজার নারী-পুরুষ। প্রতিটি শ্রমিক দৈনিক ২৫০-৫০০ টাকা পর্যন্ত মজুরি পেয়ে থাকেন। সুজানগর, রফিনগর, বড়থল ও হালিজপুর গ্রামে আগর চাষ হচ্ছে। প্রতি বছর এখানে উৎপাদন হচ্ছে এক থেকে দেড় হাজার লিটার আতর। এদিকে ২০১০ সাল থেকে এসএমই ফাউন্ডেশন এ শিল্পের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। বিশেষ করে আতর উৎপাদনকারীদের দক্ষতা উন্নয়ন, পণ্যের গুণগত মানোন্নয়ন, তাদের প্রাতিষ্ঠানিক বৈধতায় সহযোগিতা ও এ শিল্পে নিয়োজিতদের ১০ শতাংশের নিচে ঋণ প্রদান করে আসছে। ২০১৩ সালে আগরকে শিল্প হিসেবে ঘোষণা করে সরকার। এরপর এসএমই ফাউন্ডেশন এ শিল্পের অধীনে ৩ কোটি টাকার সহজ শর্তেও ঋণ অনুমোদন করেছে। যা ব্যাংকের মাধ্যমে বিতরণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। কিন্তু নানা সমস্যায় এ শিল্পটির মাধ্যমে অর্জিত অর্থ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার।

উল্লেখ্য, বড়লেখা উপজেলার সুজানগরের আগর-আতর ক্লাস্টারের বিশ্বব্যাপী সমাদর রয়েছে। আরব বণিক থেকে ভারতীয় ব্যবসায়ী সবাই ছুটে এসেছেন এর সুবাস নিতে। এজন্য ২০১৩ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সুজানগরে আগর ক্লাস্টার পরিদর্শনে এসে এটিকে ক্ষুদ্র শিল্প হিসেবে ঘোষণা দেন। ২০১৪ সালে শিল্প মন্ত্রণালয় আগরকে শিল্প হিসেবে আনুষ্ঠানিক অনুমোদন দেয়। ২০১৫ সালে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) উদ্যোগ গ্রহণে সরকার এ পণ্যের জন্য একটি এইচএস কোড নির্ধারণ করে দেয়।

আগরের সুগন্ধ প্রশান্তিদায়ক, অনেকেই শরীরের শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়ক হিসেবে কাজে লাগে। নানাবিধ ওষুধ, পারফিউম, পারফিউম জাতীয় দ্রব্যাদি-সাবান, শ্যাম্পু এসব প্রস্তুতে আগর তেল ব্যবহার করা হয়। সাধারণত গৃহে, বিভিন্ন ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠানে সুগন্ধি ছড়ানোর জন্য আগর-আতর ব্যবহার করা হয়। আগর আতরের পাশাপাশি আগর কাঠের গুঁড়া বা পাউডার ধূপের মতো প্রজ্বলনের মাধ্যমে সুগন্ধি হিসেবে ব্যবহার করা হয়। জাতি বর্ণ নির্বিশেষে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান এবং মুসলিম ধর্মালম্বী সবাই আগর আতর ও আগর কাঠের গুঁড়া ব্যবহার করে।

ব্যবসা পরিচালনার সূচক উন্নয়নে কোর-কমিটি গঠনের প্রস্তাব

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

ব্যবসা পরিচালনার সূচকে বাংলাদেশের অবস্থানের উন্নয়নের জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্বে

অনিয়ম-অবহেলা দূর করতে বিজিএমইএর নির্বাচন জরুরি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

ইউডি নেয়ার ক্ষেত্রে অনিয়ম ও সাধারণ সদস্যদের প্রতি অবহেলা দূর করা একই সঙ্গে পোশাক

ক্রেতা আকৃষ্ট করতে বাণিজ্য মেলায় ছাড়ের ছড়াছড়ি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় ক্রেতা আকৃষ্ট করতে বিভিন্ন পরিমানের ছাড় দিচ্ছে

sangbad ad

ঋণের ঝুঁকি মূল্যায়নে নতুন নীতিমালা চালু

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

খেলাপি ঋণ নিয়ন্ত্রণ করতে ঋণের ঝুঁকি পরিমাপের নতুন পদ্ধতি চালু করেছে বাংলাদেশ

হজ প্রাক-নিবন্ধনের মনোনয়ন পেল ৩২ ব্যাংকের শাখা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

২০১৯ সালের হজ কার্যক্রমে সরকারি ও বেসরকারি হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন ও নিবন্ধন

সর্বনিম্ন নেট প্যাকেজ হবে সাত দিনের

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

মোবাইল ফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর দেয়া ৭ দিনের নিচের ইন্টারনেট প্যাকেজগুলো

রিজার্ভ চুরি : ফিলিপাইনের ব্যাংক কর্মকর্তা দেগুই তো দোষী সাব্যস্ত

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

বাংলাদেশের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ফিলিপাইনের রিজল কমার্শিয়াল ব্যাংক করপোরেশনের

ছয় মাসে ফার্নিচার রপ্তানি বেড়েছে ৪০ শতাংশ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

দেশের বাইরে ক্রমান্বয়ে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে বাংলাদেশে তৈরি আসবাবপত্র বা গৃহস্থালি

লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে রপ্তানি আয়

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

রপ্তানি আয় খুব ভালো সময় পার করছে। চলতি (২০১৮-১৯) অর্থবছরের প্রথম ছয়

sangbad ad