• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯

 

ভূয়া কাগজপত্রে সরকারকে জড়িত করে ২৫ কোটি টাকা ঋণ আত্মসাৎ

নিউজ আপলোড : ঢাকা , সোমবার, ১০ জুন ২০১৯

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

ভূয়া কাগজপত্র দিয়ে বাংলাদেশ ডেভেলোপমেন্ট ব্যাংক(বিডিবিএল) থেকে ২৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে টিপু সুলতান নামে এক ব্যবসায়ী। বড় ধরনের এ জালিয়াতীতে বিডিবিএলের কয়েকজন কর্মকর্তাও জড়িত। মূলত খোলা বাজার থেকে গম কেনার জন্য সরকারের সঙ্গে চুক্তির ভূয়া চুক্তিপত্র দেখিয়ে এ টাকা উত্তোলন করে ঢাকা ট্রেড হাউজের সত্বাধিকারী টিপু সুলতান। ব্যাংক থেকে হাতিয়ে নেওয়া ২৫ কোটি টাকা দেশের বাইরে পাচার হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে। সম্প্রতি এ জালিয়াতীর অভিযোগ অনুসন্ধান করে সত্যতা পেয়ে অভিযোগ সংশ্লিস্টদের বিরুদ্ধে মামলা করার সুপারিশ করেছে অনুসন্ধান কর্মকর্তা দুদকের সহকারী পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান। অনুসন্ধান কর্মকর্তার আবেদনের পেক্ষিতে কমিশন ব্যবসায়ী টিপু সুলতান ও ব্যাংকের ৩ কর্মকর্তাসহ ৪ জনের নামে মামলা দায়েরের অনুমোদন দিয়েছেন। যেকোন দিন রাজধানীর মতিঝিল থানায় মামলা দায়ের হতে পারে। মামলায় প্রধান আসামী করা হচ্ছে ব্যবসায়ী টিপু সুলতানকে। অন্য আসামীরা হচ্ছেন বিডিবিএলের প্রিন্সিপাল শাখার এসপিও দীনেশ চন্দ্র সাহা, এজিএম দেওয়ান মোহাম্মদ ইসহাক এবং জেনারেল ম্যানেজার (বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত) সৈয়দ রহমান কাদরী ।

দুদক সূত্র জানায়, খোলা বাজারে গম বা ধান কেনার জন্য কোন বেসরকারী ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সরকারের কোন ধরনের চুক্তি হয়না। গম বা ধান কেনার জন্য সরকারের কর্মকর্তারা সরাসরি কাজ করেন। ঢাকা ট্রেড হাউজ একটি ব্রোকারি প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানের মালিক টিপু সুলতান নামে এক ব্যবসায়ী। ১৫ হাজার মেট্রিকটন গম কৃষকের কাছ থেকে কেনার জন্য সরকার ঢাকা ট্রেড হাউজের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে এমন একটি ভুয়া চুক্তিপত্র তৈরী করে তার অনুকূলে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ৩০ কোটি টাকার ঋন আবেদন করেন ব্যবসায়ী টিপু সুলতান। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কাগজপত্র যাচাই বাচাই না করেই ২৫ কোটি টাকা ঋন অনুমোদন করে। ওই টাকা উত্তোলন করে তা আত্মসাত করে ব্যবসায়ী টিপু সুলতান। এ ঘটনায় অভিযোগ আমলে নিয়ে দুদক অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয়। অনুসন্ধান কর্মকর্তা হিসেবে দুদকের সহকারী পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধানকে নিযুক্ত করা হয়। অনুসন্ধান করে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে মামলার সুপারিশ করে অনুসন্ধান কর্মকর্তা গুলশান আনোয়ার প্রধান। কমিশন ১০ জুন সোমবার মামলার অনুমোদন দেয়।

অনুন্ধান প্রতিবেদনে বলা হয় ঢাকা ট্রেডিং হাউজ একটি ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান, যার সত্ত্বাধিকারী জনাব মো: টিপু সুলতান। গ্রাহকের অনুকুলে ২০১২ সালের ৩ মার্চ মঞ্জুরী পত্র ইস্যু করা হয়। খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রনালয়ের ডাইরেক্টর জেনারেল অব ফুডস ও ব্যবসায়ী টিপু সুলতানের মধ্যে সাক্ষরিত এমইইউ অণুযায়ী ঢাকা ট্রেড হাউজ স্থানীয় বাজার থেকে ১৫ হাজার মে.টন গম সংগ্রহের জন্য ২০১২ সালের ২১ মার্চ ব্যাংকের পরিচালনা পর্যষের ৬৭ তম সভায় প্রস্তাবিত এলটি আর ফ্যাসিটিলির উপর অতিরিক্ত ৫% জামানত হিসেবে সম পরিমান অর্থের এফডিআর লিয়েন রাখার শর্তে ১৫% মার্জিনে ৩০ কোটি টাকার লোকাল এলসি লিমিট অনুমোন করা হয়। এর বিপরীতে ৮৫% মার্জিনে অতিরিক্ত ৩০ কোটি ২৫ কোটি ৫০ লাখ টাকার এলটিআর ঋন মঞ্জুর করা হয়। একই বছরের(২০১২) ৪ জুন মঞ্জুরী পত্র ইস্যু করা হলে তার পরদিনই ৫ জুন বিডিবিএল এ এলসি স্থাপন করা হয়। গ্রাহক এলসি নেগোসিয়েশন ব্যাংক হিসেবে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক লি: বিজয়নগর শাখায় ৬ জুন ফরওয়াডির্ং সিডিউলসহ শিপিং ডকুমেন্টস দাখিল করা হয় এবং শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক লি: ওই দিনই তা বিডিবিএল এ প্রেরণ করেন। বিডিবিএল এর নোটিং এর ৩২তম পৃষ্ঠায় উল্লেখ করা হয়েছে যে, ঢাকা ট্রেডিং হাউস ৬ জুন পত্রের মাধ্যমে এলসিতে উল্লেখিত মালামাল বুঝিয়া পাওয়ার প্রেক্ষিতে ডকুমেন্ট ছাড় করার অনুরোধ করা হয়েছে।

আগের দিন এলসি স্থাপন করার পরের দিনই ১৫ হাজার মে: টন গম বুঝে পাওয়ার বিষয়টি ব্যাংলদেশ ব্যাংকের পরিদর্শক দলের কাছে সন্দেহের উদ্রেক করে। পরবর্তী, বিডিবিএল কর্তৃক নিয়োগকৃত অডিট ফার্ম জি. কিবরিয়া এন্ড কোং কর্তৃক প্রিন্সিপাল ব্রাঞ্চের গ্রাহক মের্সাস ঢাকা ট্রেডিং এর ঋণ বিতরণের ক্ষেত্রে যথাযথ ব্যাংকিং পদক্ষেপ গ্রহণ, সরবরাহ ডকুমেন্টের সত্যতা যাচাই-বাছাইকরণ ঋণের শ্রেণীকরণ সঠিক হচ্ছে কিনা তা নীরিক্ষার লক্ষ্যে ২০১৫ সালের ২০ নভেম্বর পর্যন্ত নিরীক্ষা কার্যক্রম সম্পুর্ন্ন করে খসড়া প্রতিবেদন দাখিল করে। রেকর্ডপত্রাদি বিশ্লেষণ করে দেখা যায় যে, আপ টু ডেট ইনকাম টেক্স সার্টিফিকেট সংগ্রহ কর হয়নি। কেওয়াইসিতে টিন নম্বর সংযোজন করা হয় নি। কেওয়াসি’র পরিচয়দানকারী তথ্য সঠিক নয়। কেওয়াইসি’র গ্রাহক টিপু সুলতান এর পিতার নাম এবং জাতীয় পরিচয়পত্রে টিপু সুলতান এর পিতার নাম এক নয়। ২০১২ সালের ৩ এপ্রিল, ঢাকা ট্রেডিং হাউজের এলটিআর একাউন্ট নং: ৮৪১০০০০০৮৪ টি খোলেন এবং ৯ এপ্রিল ঋণ সংক্রান্তে ২৫ কোটি টাকা অনুমোদিত হয় এবং ২২.৫ কোটি টাকা ডিসবার্চ হয়। ২৫ কোটি টাকার ঋণটি খুবই দ্রুতই অনুমোদিত যখন গ্রাহকের পরিশোধ প্রক্রিয়া, দক্ষতা এবং সক্ষমতা যাচাই করা হয় নি। যে এমওইউ এর জন্য উক্ত ঋণটি দেয়া হয়, তা পরবর্তীতে জাল হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে অর্থাৎ জাল রেকর্ডপত্রাদিকে খাটি হিসেবে ব্যবহার করে উক্ত ঋণটিকে সুকৌশলে অনুমোদন করে নেয়া হয়েছে। ৫০০০ মে. টন পণ্য একদিনে একটি ট্রাকে পরিবহন দেখানো হয়েছে, যা কোনভাবেই সম্ভব নয়। এলটিআরের বিপরীতে কোন টাকা পরিশোধ হয় নি এবং ঋণটি বর্তমানে শ্রেণীকৃত অবস্থায় আছে যার বিপরীতে মর্টগেজ একেবারেই অপ্রতুল এবং এটা পরিশোধ হওয়ার সম্ভবনা ক্ষীণ।

খাদ্য অধিদপ্তরের বন্টন ও বিরতর বিভাগের পরিচালক মোঃ বদরুল হাসানের সাক্ষরিত ইউও নোট নং ৩ এর কপি ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারী অনুযায়ী তিনি(বদরুল হাসান) টিপু সুলতান এর সাথে কোন এমওইউ এর চুক্তি সম্পাদন করেন নি। এছাড়া একই বছর( ২০১৫) ২৬ জানুয়ারী জি. কিবরিয়া এন্ড কোম্পানীর চাটার্ড একাউন্ট্যান্টস এর বিশেষ অডিট রিপোর্ট পর্যালোচনায় দেখা যায় যে, ঋণটি প্রতারনা এবং জালিয়াতির মাধ্যমে সর্ম্পুন্ন করা হয়েছে এবং এর সাথে উক্ত ব্যাংকের কর্মকর্তারা সরাসরি জড়িত।

গ্রাহক এবং ব্যাংকের কর্মকর্তারা পরস্পর যোগসাজসে খাদ্য ও দুর্যোগ মন্ত্রনালয়ের ডাইরেক্টর জেনারেল অব ফুড এর “গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার” লিখিত ছাপানো মনোগ্রাম যুক্ত প্যাডের পাতা গোপনে ও সুকৌশলে সংগ্রহ করে বিগত২০১২ সালেল ২৪ মার্চ ইস্যু করা দেখিয়ে পরিচালক বদরুল হাসান খাদ্য বিভাগেগর মহাপরিচালকের লিখিত ভূয়া সীল ও তার স্বাক্ষর জাল করে নিজ নামে টেন্ডার গৃহীত এবং এমও ইউ সম্পাদিত মর্মে একখানা ইংরেজী পত্র ইস্যু দেখিয়ে তা নিজেই অত্র ব্যাংকে বিগত ২০১২ সালের ৭ মার্চ দাখিল করে ডকুমেন্টটি সরকারী অফিসে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় প্রস্তুত ও স্বাক্ষরিত মর্মে মঞ্জুরার্থে সুকৌশলে ব্যাংকের বিশ^াস জন্মান এবং নিজেরা লাভবান হয়ে অপরাধজনক বিশ^াসভঙ্গ করে ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে ব্যাংকের আর্থিক ক্ষতি সাধন করে গ্রাহককে উক্ত টাকা আতœসাতে সরাসরি সহায়তা করে দন্ডবিধির সম্পৃক্ত ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।ভুয়া চুক্তিপত্র দাখিল করে নিজেরা লাভবান হয়ে অসৎ উদ্দেশ্যে ক্ষমতার অপব্যবহার পূর্বক প্রতারণার মাধ্যমে অপরাধমুলক বিশ্বাসভঙ্গ করে উক্ত ভূয়া ডকুমেন্ট কোনরুপ যাচাই-বাছাই ছাড়া এর বিপরীতে বিডিবিএল হতে গ্রাহক টিপু সুলতানকে ২৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা উত্তোলনের সুযোগ করে দিয়েছেন । গ্রাহক টিপু সুলতান ২৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা আত্মসাত করে ফৌজদারী অপরাধ করেছেন মর্মে প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আসামীদের বিরুদ্ধে দন্ডবিধি, ১৮৬০ এর ৪০৯, ৪২০, ৪৬৭, ৪৭১, ১০৯ ও ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় কমিশন কতৃক একটি মামলা রুজুর অনুমোদন দেয়া হয়। শীঘ্রই পল্টন থানায় মামলা দায়ের করা হবে।

নকশা জালিয়াতির অভিযোগে এফআর টাওয়ারের মালিক গ্রেফতার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর বনানীতে আগুনে ক্ষতিগ্রস্থ এফ আর টাওয়ারের নকশা জালিয়াতির অভিযোগে দুদকের করা মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে টাওয়ার মালিক

রাজধানীতে কোটি টাকা মূল্যের জাল স্ট্যাম্পসহ গ্রেফতার ২

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

অবৈধভাবে সরকারি রেভিনিউ স্ট্যাম্প জাল করে ক্রয়-বিক্রয়ের অভিযোগে দুই

ঘুষের মামলায় নামজুল হুদা দম্পতির বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশীট

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ঘুষের মামলায় সাবেক মন্ত্রী নাজমুল হুদা ও তার স্ত্রী সিগমা হুদার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিচ্ছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সোমবার (৫ আগস্ট)

sangbad ad

মাহী বি চৌধুরী ও তার স্ত্রীকে তলব করে দুদকের চিঠি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আওয়ামী লীগের প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও বিকল্প ধারা বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি চৌধুরী ও তার স্ত্রী আশফাহ্ হক লোপাকে

গোয়েন্দা তবে টাকা উত্তোলন করে বেরিয়ে আসা ব্যক্তিদের : আটক ৬

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে কালো গ্লাসের মাইক্রোবাস নিয়ে অপেক্ষা করতো তারা। টার্গেট থাকতো ব্যাংক বা এটিএম বুথ থেকে টাকা উত্তোলন করে

ডেঙ্গু পরীক্ষায় অতিরিক্ত ফি : ৪ লাখ টাকা জরিমানা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ডেঙ্গু পরীক্ষায় অতিরিক্ত ফি নেয়ার অপরাধে রাজধানীর ইসলামী ব্যাংক স্পেশালাইজড হাসপাতাল, সেন্ট্রাল হাসপাতাল, ল্যাব সাইন্স, ধানমন্ডি ক্লিনিক

বিমানের সাবেক এমডি মুসাদ্দিকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বিমানের পাইলট নিয়োগ, কেনাকাটাসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগে বিমান বাংলাদেশ এয়ার লাইন্সের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী

সন্তানের আঘাতে বাবার মৃত্যু

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে এক ব্যক্তিকে হত্যার অভিযোগে তার দুই সন্তনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। যাত্রাবাড়ী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শাহিনুর

৮০ লাখ টাকার উৎস সম্পর্কে জানেন না ডিআইজি প্রিজন্স

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে সিলেটের কারা উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি প্রিজনস) পার্থ গোপাল বণিককে গ্রেফতার করা হয় এবং তার বাসা

sangbad ad