• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , রোববার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০

 

রুম্পা হত্যাকাণ্ডে রহস্যের কূল-কিনারা করতে পারছেনা তদন্ত সংশ্লিষ্টরা

নিউজ আপলোড : ঢাকা , শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

রাজধানীর সিদ্ধেশ্বরীতে স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রুবাইয়াত শারমিন রুম্পার মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় তিনদিন পেরিয়ে গেলেও হত্যা । হত্যায় জড়িতদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় আনার দাবিতে শনিবার (৭ ডিসেম্বর) দ্বিতীয় দিনের মতো বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ঘটনার রহস্য উন্মোচনে থানা পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি), র‌্যাব, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনও (পিবিআই) ছায়া তদন্ত করছে। এদিকে সহপাঠী সৈকতের সঙ্গে রুম্পার প্রেমের সম্পর্কের বিষয়টি উঠে আসলেও তার সন্ধান পায়নি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

পুলিশের রমনা জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) এসএম শামীম বলেন, সৈকত নামে এক সহপাঠীর সঙ্গে রুম্পার সম্পর্ক ছিল বলে জানা গেছে। বিষয়টি জানার পর সৈকতের সন্ধান চেয়েও পাওয়া যায়নি। সে গা ঢাকা দিয়েছে। তাকে আটক করতে পুলিশ কাজ করছে। সৈকতের কাছ থেকে রুম্পা হত্যার কোন ক্লু পাওয়া যেতে পারে বলে তার ধারণা। এক প্রশ্নে এসি বলেন, আমরা ঘটনাস্থলের আশপাশের অনেকের বাসায় গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। অনেককে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তবে নতুন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

গত ৪ ডিসেম্বর বুধবার রাত পৌনে ১১টার দিকে সিদ্ধেশ্বরীর ৬৪/৪ নম্বর বাসার নিচে ওই ছাত্রীর মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। পরের দিন তার পরিবার এসে রুম্পার মরদেহ শনাক্ত করেন। পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর নিহতের সহপাঠীরা ক্লাস বর্জন করে মানববন্ধন করে। শনিবারও সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ধানমন্ডি ও সিদ্ধেশ্বরী ক্যাম্পাসে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেন তারা। শিক্ষার্থীদের দাবি, রুম্পা হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। এ হত্যার সঙ্গে জড়িত যারা তাদের যেন দ্রুত আইনের আওতায় আনা হয়।

মানববন্ধনে রুম্পার সহপাঠীরা বলেন, আর যেন কোন রুম্পাকে এভাবে মরতে দেখতে না হয়। এ হত্যাকাণ্ডের একমাত্র বিচার মৃত্যুদণ্ড। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হলেই পরে আমরা রক্ষা পাব, নাহলে এরকম নির্মম হত্যাকাণ্ড চলতেই থাকবে। স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলাম মাছুম বলেন, অন্য কোন ইস্যুতে যেন রুম্পা হত্যাকাণ্ড ধামাচাপা না পড়ে সেদিকে নজর দিতে হবে। তিনি বলেন, চারদিকে এত হত্যা, খুন-ধর্ষণের ভিড়ে আমরা শুধু স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি চাই, আর কিছু নয়। মানববন্ধন শেষে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ধানমন্ডি ১৯ থেকে ১৫ নম্বর পর্যন্ত প্রদক্ষিণ করেন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাতটি বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা কর্মসূচিতে অংশ নেন।

গতকাল মুঠোফোনে কথা হয় রুম্পার বাবা রুক্কন উদ্দিনের সঙ্গে। জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার মেয়ে আত্মহত্যা করতেই পারে না। আমি আমার মেয়েকে ভালো করেই চিনতাম। সে আত্মহত্যাকে ঘৃণা করত। সবসময় হাসিখুশি থাকতে পছন্দ করত। মানুষের সঙ্গে খুব মিশত। তিনি বলেন, কিছুদিন আগে রাজধানীর বেইলী রোড থেকে শারমিনের একটি মুঠোফোন ছিনতাই হয়। এরপর তিনি মেয়েকে বলেছিলেন, রাতে কোন কাজে বাড়ির বাইরে গেলে মুঠোফোন যেন সঙ্গে না নেন। বুধবার বাড়িতে মুঠোফোন রেখে যাওয়ার এটাই ছিল কারণ। তিনি আফসোস করে বলেন, সারাজীবন ঢাকাতেই চাকরি করেছি। মেয়েকে আমিই দেখে রাখতাম। দুই বছর আগে পদোন্নতি হওয়ার পর প্রথমবার ঢাকার বাইরে যাই। ঢাকায় থাকলে হয়ত মেয়েকে রক্ষা করতে পারতাম। যদি সো আত্মহত্যা করত, তাহলে নিজের বাসায় থেকেই করতে পারত। বাড়ি থেকে দূরে গিয়ে করতে হতো না। শুনেছি যে বাড়ির ছাদের নিচে রুম্পার লাশ পাওয়া গেছে, সেই বাড়িতে স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু ছাত্র থাকেন। তারাও এখন নাকি পলাতক।

এ বিষয়ে এসি এসএম শামীম বলেন, ওখানে ছেলে-মেয়েদের বেশ কয়েকটি হোস্টেল রয়েছে। তবে দ্বিতীয় তলায় স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের একটি ফ্ল্যাটে তালা মারা অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে অবশ্য তারা এসে কথা বলে গেছে। নিহতের পরিবার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধারণা, রুম্পাকে হত্যা করা হয়েছে। আর কে বা কারা কেন রুম্পাকে হত্যা করল তা নিশ্চিত হতে শুধু থানা পুলিশ নয়; আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সংস্থা মাঠে রয়েছে। তবে গতকাল পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি নেই।

গতকাল দুপুরে মরদেহ উদ্ধারের ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, সিদ্ধেশ্বরীর সার্কুলার রোডের ছোট চিকন গলিতে পাশাপাশি অনেকগুলো বহুতল ভবন। শেষ মাথায় আরেকটি সুউচ্চ ভবনের পেছন অংশে শেষ হয়েছে গলিপথ। গলির শেষ মাথায় হাতের ডানে ৬৪/৪ ভবনের নিচেই মুখ পার্শ্বে পড়ে ছিল নিথর রুম্পা। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ৬৪/৪ নং বাসার নিচতলায় ব্যাচেলররা থাকেন। ওই রাতে নিচতলায় থাকা সাতজনের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ছয়জন। রুম্পা উপর থেকে নিচে পড়ার শব্দ শুনে ছুটে এসেছিলেন সবাই। তাদেরই একজন পলাশ দেবনাথ। তিনি বলেন,ঘটনার দিন রাত আনুমানিক ১১টা ৪২ মিনিট। হঠাৎ সজোরে ধুপ করে কিছু পড়ার শব্দ পাই। ময়লার বস্তা মাঝেমধ্যে উপর থেকে ফেলা হয়। তাই হাতেনাতে ধরার জন্য দৌড়ে যাই। কিন্তু এসে দেখি অজ্ঞাত তরুণী পড়ে আছে। কোনো শব্দ নেই। ভেবে পাচ্ছিলাম না, বারান্দার লোহার গ্রিল পেরিয়ে বাইরে যাব নাকি দাঁড়িয়ে থাকব। এরই মধ্যে ২/১ একজন করে আসতে থাকেন। স্থানীয় এক ডাক্তার আসেন। পালস চেক করে জানান, মারা গেছেন। পুলিশ আসে, মরদেহ নিয়ে চলে যায়। তিনি বলেন, অবাক করা বিষয়, কোনো চিৎকার শুনিনি। পড়ার পরও কোনো কান্নার আওয়াজ, আহাজারি কিছুই শোনা যায়নি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জহিরুল ইসলাম বলেন, অনেকগুলো বিষয় সামনে রেখে রুম্পা হত্যা মামলার তদন্ত চলছে। প্রযুক্তির মাধ্যমেও জানার চেষ্টা চলছে, ওই দিন কার কল পেয়ে রুম্পা সবকিছু বাসায় রেখে বের হয়ে গেলো। এবং সিদ্ধেশরীতে কেন আসলো। তিনি বলেন, রুম্পার প্রেমিক সৈকতের নাম উঠে আসলেও তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। বিষয়টি বিভিন্ন সংস্থা তদন্ত করছে। সৈকত কোনো সংস্থার কাছে আছে কিনা- তাও জানা যায়নি। তবে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য খোঁজা হচ্ছে।

ঢাকার চারপাশে চলছে নদীর প্রশস্ততা ও গভীরতা বৃদ্ধির কার্যক্রম

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ঢাকার চারপাশের বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, শীতলক্ষ্যা, বালু ও ধলেশ্বরী নদী দূষণ ও দখলমুক্ত করতে দায়ী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কঠোর

বাঁধভাঙা উচ্ছাসে মেতেছিলেন ঢাকাস্থ আলফাডাঙ্গাবাসী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

কেউ পুরনো বন্ধু। কেউ স্কুলের সহপাঠী। দীর্ঘদিন পর প্রিয় মুখগুলো কাছে পেয়ে বাঁধভাঙা উচ্ছাসে মেতে ওঠেন সবাই। স্মৃতি রোমান্থ, গল্প,

শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেফতার এক

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী কুতুবখালী এলাকার একটি বাড়িতে মালা (১০) নামে এক শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগ ওঠেছে। এ ঘটনায়

sangbad ad

ঢাকা সিটি নির্বাচনে ইভিএম নিয়ে শঙ্কায় বিএনপি

ফয়েজ আহমেদ তুষার ও ইমদাদুল হাসান রাতুল

image

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সব কেন্দ্রে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণের বিষয়টি এখনও নেতিবাচক

সিটি নির্বাচন পেছানোর দাবিতে এবার আমরণ অনশনে আন্দোলনকারীরা

প্রতিনিধি, ঢাবি

image

সরস্বতী পূজার দিনে রাজধানী ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে এবার আমরণ অনশন শুরু করেছেন

ইসিকে আরও কঠোর হওয়ার আহ্বান ওবায়দুল কাদেরের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কেউ আচরণবিধি

সরকারি রাস্তা দখল ঠেকাতে প্রশাসনের সহায়তা চায় এলাকাবাসী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

সরকারি রাস্তা দখল করে স্থাপনা নির্মানকে কেন্দ্র করে চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে নারায়নগঞ্জের বন্দর উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের

শীতাচ্ছন্ন নগরীতে নির্বাচনী উত্তাপ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

শীতাচ্ছন্ন নগরীতে উত্তাপ ছড়াচ্ছে নির্বাচনী প্রচারণা। শীতের দাপট উপেক্ষা করেই ভোটারের দ্বারে দ্বারে ছুটছেন প্রার্থীরা। এদিকে, প্রচারণায়

জমে উঠেছে সিটি নির্বাচন

ফয়েজ আহমেদ তুষার

image

জমে উঠেছে ঢাকা সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির লড়াই। দলীয় প্রতীকে মেয়র পদে দুই (উত্তর ও দক্ষিণ) সিটিতে নৌকা

sangbad ad