• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯

 

চকবাজারে আগুনে নিহত ৭৯

নিউজ আপলোড : ঢাকা , শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

পুরান ঢাকার বাণিজ্যিক এলাকা চকবাজারে ভয়াবহ আগুনে ৭৯ জন নিহত হয়েছে। গুরুতর আহত হয়েছেন ৪১ জন। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাত ৯টা পর্যন্ত ৩৮ জনের লাশ শনাক্ত ও হস্তান্তর করা হয়েছে। অগ্নিকাণ্ডের পর থেকে এখনও ৫০ জনের মতো নিখোঁজ রয়েছে। নিহতদের অনেকেরই শরীর পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। ভয়াবহ এ আগুনে চকবাজারের চুড়িহাট্টা লেনে ৪টি ভবন পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়েছে। নিমতলী ট্র্যাজেডির পর একই এলাকায় আগুনে এটি প্রাণহানির বড় ঘটনা।

২০ ফেব্রুয়ারি বুধবার রাত সোয়া ১০টায় গাড়ির সিলিন্ডার বিস্ফোরণ থেকে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয় বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। আগুনের কারণ, ক্ষয়ক্ষতি এবং আহত-নিহতদের তালিকা নির্ধারণ করতে ফায়ার সার্ভিস ও শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি স্টেশনের ৩৭টি ইউনিট ১১ ঘণ্টারও বেশি সময় চেষ্টায় আগুণ নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় বিমানবাহিনীর ৩টি হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হয়। আগুনের ভয়াবহতায় চকবাজারের চুড়িহাট্টা লেন এখন যুদ্ধ বিধ্বস্ত ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা যায়, সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর মরহুম মো. ওয়াহেদ মিয়ার ওয়াহেদ ম্যানশনসহ আগুনে পুড়ে যাওয়া ৪টি ভবন ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। রাস্তায় পড়ে আছে পুড়ে ভস্মীভূত হওয়া যানবাহন, বিধ্বস্ত বাড়িগুলোর কংক্রিটের ভেঙে পড়া দেয়ালের ধ্বংসাবশেষ, পারফিউম বোতল প্লাস্টিকের গুটিসহ পুড়ে যাওয়া মালামাল। ধ্বংসস্তূপের মধ্যে ফায়ার সার্ভিস, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি, বিস্ফোরক অধিদফতরসহ বিভিন্ন দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা আলামত সংগ্রহ করছেন। হাজার হাজার মানুষ দাঁড়িয়ে বর্ণনা দিচ্ছে দুঃসহ স্মৃতির মুহূর্তগুলো। আগুনের পর স্বজনরা খুঁজে বের করার চেষ্টা করছেন নিখোঁজ থাকা ব্যক্তিদের। কয়েকজন নারী-পুরুষ নিখোঁজ স্বজনের ছবি নিয়েও আগুনে পুড়ে যাওয়া স্থানে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমের পাশাপাশি তল্লাশি অভিযানও চালাচ্ছে। ধ্বংসস্তূপে কারও দেহাবশেষ আছে কিনা তা খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

সরেজমিনে ওয়াহেদ ম্যানশনের ৪ তলা ভবনে ঘুরে দেখা গেছে, এ পুরনো ভবনটি দুটি ভাগে বিভক্ত। একভাবে বাসাবাড়ির জন্য ফ্ল্যাটে একাধিক রুম। অন্য একটি ইউনিটের নিচে একাধিক ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান। ৪ তলা ভবনটির আবাসিকের মতো করা ইউনিটের দোতলায় পারফিউমের গোডাউন চোখে পড়ে। তৃতীয় ও ৪র্থ তলার এক পাশে বাসাবাড়ি এবং অন্য পাশে পারফিউমের গোডাউন। আগুনে নিচতলা থেকে শুরু করে ৪ তলা পর্যন্ত পুরো ভবনটিতে ২টি ফ্যামিলি বাসা ছাড়া বাকি রুমগুলোই পারফিউম ও কেমিক্যালের গোডাউন হিসেবে ব্যবহৃত হতো। আগুনে প্রত্যেকটি গোডাউন ও বাসার মালামাল পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে। পুড়ে যাওয়া পারফিউমের বোতলগুলো স্তূপ হয়ে পড়ে আছে। নিচতলার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান সবই ভস্মীভূত হয়ে গেছে। ওয়াহেদ ম্যানশনে ৩০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। ওয়াহেদ ম্যানশনের নিচতলায় ফারুক ডেকোরেশনের মালিক ফারুক মিয়াসহ কমপক্ষে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। অন্যপাশে ফ্লেক্সিলোডের দোকানদার নাহিদ ও এক কাস্টমারসহ ২ জন দোকানেই পুড়ে মারা যায়। আগুন লাগার পর ওয়াহেদ ম্যানশনের নিচতলার গলিতে ২৬ জন পুড়ে মারা গেছে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ওই ১২ জনের পুড়ে যাওয়া দেহ এক জায়গা থেকেই উদ্ধার করেছে।

ওয়াদেহ ম্যানশনের প্লাস্টিকের গুটি, ডেকোরেশনের দোকান ছাড়াও দোতলায় একাধিক কেমিক্যাল ও পারফিউমের গোডাউন ছিল। এসব ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশ মালিক, বাসা বাড়িতে থাকা নারী ও শিশুরাও মারা গেছে। ওয়াহেদ ম্যাশনের ঠিক উল্টো পাশে চুড়িহাট্টা জামে মসজিদ সংলগ্ন ৬৩ নম্বর বাড়ি। ওই বাড়ির নিচ তলায় মদিনা ডেন্টাল ক্লিনিক। এ ক্লিনিকে এক সঙ্গে পুড়ে মারা গেছে ক্লিনিকের মালিক একেএম কাউসার, ডেন্টাল চিকিৎসক ইমতিয়াজ, কর্মচারী মাওলানা ফারুকসহ ৪ জন। এ বাড়ির দোতলার একাংশ আগুনে পুড়ে বিস্ফোরিত হয়ে টিনের চালার একাংশ উড়ে গিয়ে দেয়াল ভেঙে নিচে পড়ে গেছে। ওই বাড়িটির নিচতলায় মদিনা ডেন্টাল ক্লিনিকে ডেন্টাল চিকিৎসক হিসেবে প্রশিক্ষণ নিতেন হাফেজ তানভীর। হাফেজ তানভীর জানান, আগুনের খবর পেয়ে ৫ মিনিটের মধ্যে তিনি চুড়িহাট্টা গলির মুখে আসেন। তখন দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছিল। প্রথমে ঢুকতে পারেননি তিনি। ফায়ার সার্ভিসের অগ্নিনির্বাপণ কর্মী হিসেবে প্রশিক্ষণ থাকায় পোশাক পড়ে ১৫ মিনিট পর তিনি মদিনা ক্লিনিকের কাছে এসে দেখেন সব পুড়ে যাচ্ছে। ওই সময় ক্লিনিকের মধ্যেই পুড়ে মারা গেছেন ক্লিনিকের মালিক একেএম কাউসার, ডেন্টাল চিকিৎসক ডা. ইমতিয়াজ, কর্মচারী মাওলানা ফারুক এবং একজন রোগীসহ ৪ জন। ওয়াহেদ ম্যানশনের আরেক পাশে চুড়িহাট্টা জামে মসজিদের অন্যপ্রান্তে দুটি বাড়ি। একটি বাড়ির মালিকের নাম বাচ্চু মিয়া। ওই বাড়ির নিচতলায় একটি কেমিক্যালের গোডাউন, ফার্মেসি এবং পানসিগারেটের দোকান ছিল। বাচ্চু মিয়ার বাড়ি সংলগ্ন পাশের ভবনটি চুড়িহাট্টা জামে মসজিদের মালিকানাধীন বাড়ি। বাড়িটির নিচতলায় আমানত রেস্টুরেন্ট ও পাশে মুদি দোকান। বিকট বিস্ফোরণে আগুন লাগার পর আতঙ্কিত হয়ে আমানত রেস্টুরেন্ট ফার্মেসিসহ আশপাশের দোকান মালিকরা আগুন থেকে বাঁচতে সাটার আটকে দেন। কিন্তু এরপর তারা আর বের হতে পারেননি। পরে হোটেল ও ফার্মেসিতে থাকা সবাই আগুনে পুড়ে মারা যান। আমানত হোটেল থেকে ১৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এছাড়া আমানত হোটেলের উল্টোপাশে রাজমহল নামে আরেকটি হোটেল আছে। ওই হোটেলে কাস্টমার ছিল। আগুন লাগার পর আগুন থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য হোটেল কর্মচারীরা সাটার ফেলে দেন। কিন্তু কেউ রক্ষা পায়নি। ওই হোটেলে ১২ জনেরও বেশি পুড়ে মারা গেছে। এর মধ্যে হোটেল মালিক-কর্মচারী ও স্থানীয় লোকজনও রয়েছে। একই অবস্থা হয়েছে আশপাশের দোকানগুলোতে। নিচতলায় থাকায় অধিকাংশ দোকানদার সাটার বন্ধ করে দিয়ে পরে আর বের হতে পারেননি। ওয়াহেদ ম্যানশনের তৃতীয় তলায় গর্ভবতী স্ত্রীসহ পুড়ে মারা যান স্বামী রিফাত মারা। ২ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। ওই ভবনেই দ্বিতীয় তলা ও তৃতীয় তলায় সবচেয়ে বেশি দগ্ধ লাশ পাওয়া গেছে।

১১ ঘণ্টার প্রাণপণ চেষ্টা : আগুন লাগার পর ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি স্টেশনের ৩৭টি ইউনিটের প্রায় ২ শতাধিক কর্মকর্তা ও ফায়ার কর্মী আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করেন। ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আলী ও পরিচালক (অপারেশন অ্যান্ড মেইনটেন্যান্স) মেজর একেএম শাকিল নেওয়াজের তত্ত্বাবধানে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু হয়। রাত ১০টা ৩৮ মিনিটে খবর পেয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে আসে ফায়ার সার্ভিসের ইউনিট। আগুনের ভয়াবহতা দেখে একে একে ৩৭টি ইউনিট যুক্ত হয়। রাত ৩টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসলেও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনতে সকাল ৯ পর্যন্ত সময় লাগে। সকাল ১০টার দিকেও পুড়ে যাওয়া ভবনগুলোতে ধোয়া উড়তে দেখা গেছে। থেমে থেমে কেবল পানি ছিটিয়ে আগুন নিভাতে দেখা গেছে ফায়ার কর্মীদের। ফায়ার সার্ভিসের ২ শতাধিক কর্মীরা ছাড়াও বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আগুন নিয়ন্ত্রণে যোগ দেয়।

ফায়ার সার্ভিসের একাধিক কর্মী বলেন, দাহ্য পদার্থের কারণে আগুনের তাপমাত্রা অনেক বেশি ছিল। শুরুতে আগুনের কাছাকাছিই আসতে পারেননি তারা। দূর থেকে পানি ছিটিয়েছেন। এছাড়া সাধারণ মানুষের ভিড়, পানি সংকট, সরু রাস্তার কারণে বড় গাড়ি প্রবেশ করতে না পারার কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণে শুরুতে বিপাকে পড়তে হয়েছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের। এছাড়া এলাকাবাসী উটকো ঝামেলা সৃষ্টি করায় চলাফেরা ও পানি সিটাতে নানা অসুবিধায় পড়তে হয়েছে। শেষ পর্যন্ত রাত ৩টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হলেও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আসে সকাল ৯টার দিকে।

নিহত ৭৯ জনের মধ্যে ৩৮ জনকে শনাক্ত : আগুনে ৭৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশ আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে। অল্প পুড়ে যাওয়া ৩৮ জনকে শনাক্ত করা সম্ভব হলেও বাকিদের শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। শনাক্ত না হওয়া ব্যক্তিদের শনাক্তকরণে ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করা হবে। এরপর নিখোঁজ তালিকা ধরে স্বজনদের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে শনাক্ত করার চেষ্টা করা হবে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়কারী সামন্ত লাল সেন বলেন, লাশগুলো এমনভাবে পুড়ে গেছে যে কঙ্কালের মতো অবস্থা হয়েছে। সেক্ষেত্রে লাশগুলোর ডিএনএ পরীক্ষা করাতে হবে। পুড়ে যাওয়া লাশের চেহারাও চেনা যায় না। কেমিক্যালের মতো দাহ্য পদার্থে পুড়ে গেলে বিষয়টি আরও কঠিন হয়ে যায়।

৫১ জনের মতো নিখোঁজ তালিকা : এদিকে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ৬৪ জনের নিখোঁজ তালিকা তৈরি করেছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি। তবে এর মধ্যে ১১ জনের লাশ পাওয়া গেছে। নিখোঁজদের মধ্যে ৩ শিশু এবং বাকিরা পুরুষ ও নারী রয়েছে।

রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ফিল্ড অফিসার মাহবুবুল হক সংবাদকে জানান, তারা সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত নিখোঁজ তালিকা করেছেন। ৬৪ জনের তালিকা করলেও তালিকায় নাম থাকা ১১ জনের লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরে স্বজনরা শনাক্ত করে এবং নিয়ে যায়। এখনও ৫১ জন নিখোঁজ রয়েছে। আজ পুনরায় তালিকা করা হবে। যেহেতু অনেক লাশের পরিচয় শনাক্ত হয়নি তাই সব লাশ শনাক্ত হওয়ার পর বুঝা যাবে আর কেউ নিখোঁজ রয়েছে কিনা। যদি লাশ সব শনাক্তের পরও নিখোঁজ থাকে তাহলে বুঝতে হবে মৃত্যু সংখ্যা আর বেশি ছিল।

৩০ জনের লাশ হস্তান্তর : পুরান ঢাকার চকবাজারে চুড়িহাট্টা এলাকায় অগ্নিকাণ্ডে শনাক্ত হওয়া লাশগুলো স্বজনদের কাছে হস্তান্তর শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা ২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গ থেকে লাশগুলো হস্তান্তর শুরু হয়। যাদের লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে তারা হলেনÑ সিয়াম, আরাফাত, শাহাদৎ হোসেন, হেলাল উদ্দিন, এনামুল হক কাজী, মোশারফ হোসেন, কামাল হোসেন, সিদ্দিকউল্লাহ, ওয়াসীউদ্দিন, খবির উদ্দিন, জুম্মন, আলী হোসেন, ইয়াসিন খান, মোরশেদ আলম, মিঠু, সজিব, মো. কাওসার, আ. রহিম ওরফে দুলাল, সাহির, সোনিয়া, আবু বকর সিদ্দিক, ইমতিয়াজ ইমরোজ রাজু, মাসুদ রানা, মাহাবুবুর রহমান, আশরাফুল হক রাজন, মো. ওমর ফারুক, মোহাম্মদ আলী, অপু রায়হান, ৩ বছরের আরাফাত, জসিমউদ্দিন, মো. রাজু, মো. নয়ন খান আয়েশা খাতুন ও আনোয়ার হোসেন।

উল্লেখ্য, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাতালে ৬৭ জনের লাশ এবং বিচ্ছিন্নভাবে ৩ জনের লাশসহ ৭১ জনের মরদেহ রয়েছে। এছাড়া মিডফোর্ড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রয়েছে ১১ জনের লাশ।

৯০ লাখ টাকার বিনিময়ে দুই পক্ষের বিবাদ মীমাংসার প্রস্তাব অভিযোগ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীতে ৯০ লাখ টাকার বিনিময়ে দুই পক্ষের বিবাদ মীমাংসার প্রস্তাব দেয়ার অভিযোগ উঠেছে এক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। প্রস্তাব অনুযায়ী

ঝিলপাড় বস্তির জায়গা দখল নিয়ে বাড়ছে দ্বন্দ্ব

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর রূপনগরে আগুনে পুড়ে যাওয়া বস্তির জায়গা নিয়ে আগের দখলদার ও নতুন করে দখল করতে চাওয়া স্থানীয় ক্ষমতাসীনদের

উত্তর-দক্ষিণে মশকবিরোধী অভিযান

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ভবন মালিকরা সংশোধন না হলে আইনি অভিযান : আতিকুল ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন

sangbad ad

পাঁচ হাজার পরিবার নিঃস্ব!

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর রূপনগর থানার পেছনে চলন্তিকা বস্তির আগুনে সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছে প্রায় পাচঁ হাজার পরিবার। আগুনে কোন মালামালই রক্ষা

পুরান ঢাকা থেকে প্লাস্টিক ও কেমিক্যাল গোডাউন সরানোর দাবি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

পুরান ঢাকার লালবাগে আবারও ভয়াবহ আগুনের ঘটনা ঘটেছে। এবার পোস্তাঢাল এলাকায় চিকিৎসায় ব্যবহৃত প্লাস্টিকের সরঞ্জাম তৈরির

পুরান ঢাকায় আবারও ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড!

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

পুরান ঢাকার লালবাগে আবারও ভয়াবহ আগুনের ঘটনা ঘটেছে। এবার পোস্তাঢাল এলাকায় চিকিৎসায় ব্যবহৃত প্লাস্টিকের সরঞ্জাম তৈরির

অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে এক অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) চন্দ্রিমা মডেল টাউনের ৫ নম্বর রোডের ৭ নম্বর ভবনের

রাজধানী ঢাকার আকাশে অনুমতি ছাড়া ড্রোন ওড়ানো নিষিদ্ধ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া রাজধানী ঢাকার আকাশে ড্রোন ওড়ানো নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) ঢাকা মহানগর

শেষ সময়ে বেচা-বিক্রি জমে উঠেছে রাজধানীর পশুর হাটগুলোতে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দাম নিয়ে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের মধ্যেই শেষ সময়ে বেচা-বিক্রি জমে উঠেছে রাজধানীর পশুর হাটগুলোতে। ঈদুল আজহার আর একদিন। হাতে

sangbad ad