• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯

 

খালেদ গ্রেফতার

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

ঢাকা মহানগর যুবলীগ দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করা হয়েছে। ১৮ সেপ্টেম্বর বুধবার সন্ধ্যায় গুলশান ২ নম্বরের ৫৯ নম্বর সড়কের ৫ নম্বর বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, অস্ত্রবাজি, মাদক ব্যবসা ও অবৈধভাবে ক্যান্সি পরিচালনা করে অসামাজিক কর্মকাণ্ডের অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী যুবলীগের কর্মকাণ্ড নিয়ে সমালোচনা করেন। সেখানে যুবলীগের দু’এক নেতার বিষয়েও তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন। একই দিন আটক যুবলীগ নেতা খালেদের পরিচালিত ফকিরাপুল ইয়ংম্যানস নামে একটি ক্লাব ও বনানীতে গোল্ডেন ঢাকা বাংলাদেশ নামে দুটি ক্যাসিনোয় (জুয়ার আসর) অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব। এর মধ্যে ফকিরাপুল ইয়ংম্যানসের আস্তানা থেকে ১৪২ নারী-পুরুষকে আটক করা হয়েছে। এ সময় সেখান থেকে প্রচুর অর্থ জব্দ করা হয়। আটকৃতদের মধ্যে ৩১ জনকে এক বছর করে ও বাকিদের ৬ মাস করে কারাদণ্ড দেয়া হযেছে।

র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম জানান, অবৈধভাবে রাজধানীতে ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগের ভিত্তিতে বুধবার দুপুরে যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে ধরতে অভিযানে নামে র‌্যাব। তাদের কাছে খবর ছিল, তিনি গুলশানের বাসায় অবস্থান করছেন। পরে বাসাটি দুপুরের পর ঘেরাও করা হয়। বিকেলের দিকে তাকে গ্রেফতার করে। এ সময় তার বাসায় তল্লাশি চালিয়ে অবৈধ অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করা হয়। অন্য ২টি অস্ত্রের লাইসেন্স তার নামে থাকলেও মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। একই সময় র‌্যাব ৩-এর তত্ত্বাবধানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্ব ফকিরাপুলে খালেদ মাহমুদের নিয়ন্ত্রিত ইয়ংমেন্স ক্লাবে অবৈধভাবে পরিচালিত ক্যাসিনোয় অভিযান চালানো হয়। সেখান থেকে ১৪২ নারী-পুরুষকে আটক করা হয়েছে। প্রচুর অর্থ ক্যাসিনো বোর্ড থেকে জব্দ করেছে র‌্যাব। এসব ঘটনায় পৃথক মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ যুবলীগের সাংগঠনিক পদ পেয়ে অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠেন। ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে চাঁদাবাজি, সরকারি প্রতিষ্ঠানে ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ, অস্ত্র ও মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণসহ নানা অপরাধের নিয়ন্ত্রক হয়ে ওঠেন। যুবলীগে একচ্ছত্র নিয়ন্ত্রণের জন্য নিজস্ব বাহিনীও গড়ে তোলে। এসব নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছেও অভিযোগ যায়। সম্প্রতি ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ছাত্রলীগ সভাপতি ও সেক্রেটারিকে সংগঠন থেকে অব্যহতি দেয়া হয়। ওই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুবলীগের ঢাকা মহানগরের এক নেতা যা ইচ্ছা করে বেড়াচ্ছেন, চাঁদাবাজি করছেন। আরেকজন এখন দিনের বেলায় প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে চলেন। সদলবলে অস্ত্র নিয়ে ঘোরেন। এসব বন্ধ করতে হবে। যারা অস্ত্রবাজি করেন, ক্যাডার পোষেন, তারা সাবধান হয়ে যান- এসব বন্ধ করুন। তা না হলে যেভাবে জঙ্গি দমন করা হয়েছে, একইভাবে তাদেরও দমন করা হবে। এ ঘোষণার পর যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল হোসেন সম্রাট ও সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মহল কথা বলতে শুরু করে। তাদের কর্মকাণ্ড নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদও প্রকাশ হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে খালেদ মাহমুদকে গ্রেফতার করতে অভিযান শুরু করে র‌্যাব। বুধবার গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে গুলশান ২ নম্বরের ৫৯ নম্বর রোডের ৫ নম্বর বাড়িতে খালেদকে গ্রেফতার করতে বাড়িটি ঘেরাও করে র‌্যাব। সন্ধ্যার দিকে তার বাড়িতে তল্লালি চালিয়ে অস্ত্রসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়।

খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ : আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সূত্র জানায়, রাজধানীর মতিঝিল, ফকিরাপুল এলাকায় কমপক্ষে ১৭টি ক্লাব নিয়ন্ত্রণ করেন যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ। এর মধ্যে ১৬টি ক্লাব নিজের লোকজন দিয়ে আর ফকিরাপুল ইয়াংম্যানস ক্লাবটি সরাসরি তিনি পরিচালনা করেন। প্রতিটি ক্লাব থেকে প্রতিদিন কমপক্ষে এক লাখ টাকা চাঁদা নিতেন তিনি। এসব ক্লাব সকাল ১০টা থেকে ভোর পর্যন্ত চলে। কমলাপুর, খিলগাঁও-শাহজাহানপুর হয়ে চলাচলকারী লেগুনা ও গণপরিবহন থেকে নিয়মিত চাঁদা নিতেন তিনি। মতিঝিল অফিসপাড়াতেও চলত তার টেন্ডারবাজি ও চাঁদাবাজি। প্রতি কোরবানির ঈদে শাহজাহানপুর কলোনি মাঠ, মেরাদিয়া ও কমলাপুর পশুরহাট নিয়ন্ত্রণ করত খালেদ। খিলগাঁও রেলক্রসিংয়ে প্রতিদিন রাতে মাছ ও তরকারির অবৈধ হাট বসিয়ে সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা তুলতেন খালেদ। মাসে কমপক্ষে এক কোটি টাকা চাঁদা আদায় করেন তিনি। একইভাবে খিলগাঁও কাঁচাবাজারের সভাপতির পদটিও দীর্ঘদিন তিনি ধরে রেখেছেন। শাহজাহানপুরে রেলওয়ের জমি দখল করে দোকান ও ক্লাব নির্মাণ করেছেন। মতিঝিল, শাহজাহানপুর, রামপুরা, সবুজবাগ, খিলগাঁও, মুগদা এলাকার পুরো নিয়ন্ত্রণ এ নেতার হাতে। এসব এলাকায় থাকা সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক), রেলভবন, ক্রীড়া পরিষদ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, যুব ভবন, কৃষি ভবন, ওয়াসার ফকিরাপুল জোনসহ এমন কোন সরকারি প্রতিষ্ঠান নেই, যেখানকার টেন্ডার সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ নিয়ন্ত্রণ করতেন না তিনি। ‘ভূঁইয়া অ্যান্ড ভূঁইয়া’ নামের প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তিনি তার কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

খালেদ মাহমুদ ফকিরাপুল ইয়ংমেন্স ক্লাব নিয়ন্ত্রণে নিয়ে সেখানে ক্যাসিনো খেলার যাত্রা শুরু করেন। ক্যাসিনো খেলার চাহিদা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে মাদকসহ বিভিন্ন অসামাজিক কর্মকাণ্ড শুরু হয়। আর এর পুরো নিয়ন্ত্রণ ছিল খালেদের হাতে।

ক্যাসিনোয় অভিযান : রাজধানীর ফকিরাপুলের ইয়ংমেন্স ক্লাবে যুবলীগের কিছু নেতার পরিচালিত একটি ‘ক্যাসিনোয়’ অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব। গ্রেফতার হওয়া যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদের নিয়ন্ত্রিত ফকিরাপুলের ইয়ংমেস ক্লাবের ক্যাসিনো থেকে নারী-পুরুষসহ ১৪২ জন আটক করা হয়েছে। এ সময় ক্যাসিনো বোর্ড থেকে ২০ লাখ টাকাসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক জব্দ করা হয়েছে।

র‌্যাব সদর দফতরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারোয়ার আলম বলেন, আমরা ক্লাবটিতে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়েছি। দুপুর থেকে র‌্যাব ৩ ক্লাবটি ঘিরে রাখে । বিকেলের পর থেকে ক্লাবটিতে অবৈধভাবে ক্যাসিনো খেলায় জড়িত থাকার অভিযোগে ১৪২ নারী-পুরুষকে আটক করা হয়েছে। বোর্ড থেকে ক্যাসিনো খেলার ২০ লাখ টাকা জব্দ করা হয়েছে।

যুবলীগের নেতৃত্বে থাকা কয়েকজন শীর্ষ নেতার তত্ত্বাবধানে এই ক্লাবটিতে বানানো ক্যাসিনোতে নিয়মিত জুয়ার আসর বসতো। প্রতিদিন এ ক্যাসিনোতে কোটি কোটি টাকার লেনদেন হতো। ক্যাসিনোকে ঘিরে মাদক সেবনসহ নানা ধরনের অসামাজিক কর্মকাণ্ড হতো।

মতিঝিল থানার পাশেই অবস্থিত ফকিরাপুল ইয়ংমেন্স ক্লাবটি ফুটবলসহ বিভিন্ন খেলার জন্য ক্রীড়াঙ্গনের লোকজনের কাছে পরিচিত থাকলেও মূলতো এখনও নিয়মিত ক্যাসিনো বসতো। যুবলীগ নেতাদের নিয়ন্ত্রিত হওয়ার ক্যাসিনোতে অবৈধ কর্মকাণ্ডের খবর জেনেও পুলিশ কখনও অভিযান চালাতে সাহস পায়নি। বিভিন্ন ব্যবসায়ী, যুবলীগ নেতা, ঠিকাদারসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার লোকজন এখানে নিয়মিত আসর জমাতো।

বর্তমান সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর এই ক্লাবে কমিটিতে যুবলীগের কয়েকজন শীর্ষ নেতা অন্তর্ভুক্ত হন। এরপর ক্লাবে তারা প্রভাব বিস্তার শুরু করে। ক্লাবটি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে সেখানে ক্যাসিনো খেলা, মাদকের আসর, রং-তামাশাসহ নানা অসামাজিক কর্মকাণ্ড শুরু করে।

এদিকে বনানীতে গোল্ডেন ঢাকা বাংলাদেশ নামে আরেকটি ক্যাসিনোতে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব-১। বুধবার সন্ধ্যার পর এ অভিযান চালানো হয়। অবৈধভাবে ক্যাসিনো পরিচালনার দায়ে গোল্ডেন ঢাকা বাংলাদেশ নামের ওই ক্লাবটি বন্ধ করে দেয়া হয়। ক্লাবটি সিলগালা করে র‌্যাব।

র‌্যাব জানায়, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় যেসব ক্লাব বা ভবনে অবৈধভাবে ক্যাসিনো চালানো হচ্ছে তা বন্ধে অভিযানে নামে র‌্যাব। অভিযানের অংশ হিসেবে বনানীর আহম্মেদ টাওয়ারে গোল্ডেন ঢাকা বাংলাদেশ নামে একটি ক্লাবে অবৈধভাবে জুয়ার আসর পরিচালনার খবরে অভিযান চালানো হয়। সেখানে র‌্যাবের অভিযানের খবর পেয়ে ক্যাসিনোটি বন্ধ করে পরিচালনাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে র‌্যাব ক্যাসিনো সিলগালা করে দেয়। এ ক্যাসিনোটি কারা চালাতো, কারা এখানে আসতো এ বিষয়ে র‌্যাব ১ তদন্ত করছে।

নব্য খালেদরা আবার নিয়ন্ত্রণে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা ও ফ্রিডম খালেদ হোসেনের ক্যাডারা আবারও নতুন করে সংগঠিত হচ্ছে। খালেদ গ্রেফতার ও তার টর্চার সেলে র‌্যাবের

‘ফইন্নি গ্রুপ’র ছয় সদস্য গ্রেফতার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর শ্যামপুরের ফরিদাবাদ থেকে অপরাধী গ্যাং-‘ফইন্নি গ্রুপ’র ৬ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ১৫ অক্টোবর মঙ্গলবার রাতে ডাকাতির

শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টাকারী পাগলা মিজান এখন ভালোই আওয়ামী মিজান!

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ক্যাসিনো ব্যবসা, টেন্ডার নিয়ন্ত্রন, চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রনের মাধ্যমে আওয়ামীলীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের যেসব নেতারা এখন কোটিপতি

sangbad ad

যাকে তাকেই ‘তোদের কাছে ইয়াবা আছে’!

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বিয়ের অনুষ্ঠান শেষ করে মধ্যরাতে পুরান ঢাকার আজিমপুরের বাসায় ফেরা এক সাংবাদিকের ভাইকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের

টানা আড়াই ঘণ্টা বৃষ্টির জলাবদ্ধতায় চরম দুর্ভোগে রাজধানীবাসী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

মঙ্গলবার (১ অক্টোবর) টানা আড়াই ঘণ্টার বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতায় অচল হয়ে যায় রাজধানী ঢাকা। জলজট ও যানজটে চরম দুর্ভোগ পোহাতে

কারওয়ান বাজার ও ফার্মগেটে ফুটপাত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট, উত্তরা, খিলক্ষেত ও মিরপুরের ফুটপাত ও সড়ক থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান চালিয়েছে ঢাকা

ডিএনসিসি’র অভিযানে ১৩টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভার উপস্থিতি সনাক্ত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

এডিস মশা নির্মূলে চলমান ‘বিশেষ পরিচ্ছন্নতা ও চিরুনি অভিযানে ২৪ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বিভিন্ন ওয়ার্ডে ১০ হাজার ৮৩৯টি বাড়ি ও স্থাপনা

অবৈধ ক্যাসিনো বন্ধে শুদ্ধি অভিযানকে মেয়র খোকনের সাধুবাদ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

অবৈধ ক্যাসিনো বন্ধে চলমান শুদ্ধি অভিযানকে সাধুবাদ জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।

অনলাইন গেমসের নামে জুয়ার ব্যবসা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর পুরানা পল্টনে ক্রিষ্টাল ১৮৬ ডট কম অনলাইন গেমসের নামে প্রতিষ্ঠান চালু করে সেখানে জুয়ার ব্যবসা করা হত। ওই জুয়ার

sangbad ad