• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শনিবার, ০৪ এপ্রিল ২০২০

 

আওয়ামী লীগের নেতা এনামুল ও রুপমের অকল্পনীয় অবৈধ আয়

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২০

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

http://thesangbad.net/images/2020/February/25Feb20/news/money.jpg

রাজধানীর ওয়ারীর লালমোহন সাহা স্ট্রিটের ১১৯/১ মমতাজ ভিলা। যানবাহনযোগে ওই বাসায় ঢুকার কোনো কায়দা নেই। সরু গলি দিয়ে যেতে হয় ভিলায়। ৬ তলা ভবনটির নিচতলায় ছোট্ট একটি কক্ষ। পুরো বাসা ও কক্ষটিই যেন ‘গোপন’ হোম। কক্ষে কয়েকটি ট্র্যাংক, সিন্দুক ও বস্তায় পরিপূর্ণ। আর এসব ট্র্যাংক, সিন্দুক ও বস্তায় স্বর্ণালঙ্কার, এফডিআর বই, বিদেশি মুদ্রা ও বিপুল টাকায় ভরা। আসবাবপত্রের ভেতরে সুন্দর করে থরে থরে সাজানো মূল্যবান জিনিসগুলো। বস্তায় বস্তায় এসব অর্থ অবৈদ পথে আয় করেছেন গেন্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি এনামুল হক এনু ও তার ভাই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রুপম ভুঁইয়া। ২৪ ফেব্রুয়ারি সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টা থেকে মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) সকাল পর্যন্ত ওই গোপন বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব।

ওই বাসায় টাকা,স্বর্ণ ও বিদেশি মুদ্রা ছাড়াও ক্যাসিনো সরঞ্জাম পাওয়া গেছে। এনামুল ও তার ভাই রুপম ক্যাসিনো খেলাসহ বিভিন্ন অবৈধ পথে এসব সম্পদ অর্জন করেছে। ধারণা করা হচ্ছে, এ বাসায় টাকা রেখে কেউ এর পাহারায় থাকতো। তবে এখান থেকে কাউকে আটক করা যায়নি। মঙ্গলবার র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল রকিবুল হাসান জানান, ক্যাসিনোকান্ডে জড়িত দুই ভাই এনামুল হক ও রূপন ভূঁইয়ার ওই বাসার ৫টি সিন্দুক থেকে নগদ ২৬ কোটি ৫৫ লাখ ৬০০ টাকা পেয়েছে র‌্যাব। এছাড়া ওই বাসা থেকে সোয়া পাঁচ কোটি টাকার এফডিআরের বই, এক কেজি স্বর্ণ, ৯ হাজার ২০০ ইউএস ডলার, ১৭৪ মালয়েশিয়ান রিঙ্গিত, ৩৫০ ভারতীয় রুপি, ১ হাজার ৫৯৫ চায়নিজ ইয়েন, ১১ হাজার ৫৬০ থাই বাথ ও ১০০ দিরহাম জব্দ করেছে র‌্যাব।

সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় র‌্যাব ওই বাসায় অভিযান শুরু করে। নেতৃত্বে ছিলেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। তিনি বলেন, সরু গলির ওই বাসায় পাঁচটি সিন্দুক ভর্তি টাকা ও পাঁচ কোটি টাকার এফডিআরের বইয়ের পাশাপাশি ক্যাসিনোর সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। বাসাটি খুব ছোট আকারে। এখানে মাত্র একটি চৌকি আছে। ওই চৌকিতে শুয়ে-বসে কেউ একজন এসব স্বর্ণ ও টাকার পাহারা দিতো। ছয়তলা ভবনের নিচতলার রুমে টাকাগুলো থরে থরে সাজানো ছিল। ওই বাড়িতে বেশ কিছু ক্যাসিনো সরঞ্জামও পাওয়া গেছে, যেগুলোতে ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের সিল লাগানো রয়েছে।

র‌্যাব-৩ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফয়জুল ইসালাম জানিয়েছেন, ক্যাসিনোকান্ডে জড়িত দুই ভাইয়ের ঢাকায় বহু ফ্ল্যাট রয়েছে। এখন পর্যন্ত তারা ২৪টি বাড়ির খোঁজ পেয়েছেন। অনুসন্ধানের একপর্যায়ে তারা পুরান ঢাকার এ বাড়ির খোঁজ পান। এর পরপরই এখানে অভিযান চালিয়ে এসব সম্পদ জব্দ করা হয়। জব্দ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার কীসের বা কোথা থেকে এলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা এটা তদন্ত করে বের করাবো। কোথা থেকে এসেছে, কার কাছে ছিল, গন্তব্য কোথায় ছিল- তা ইনভেস্টিগেশন করে বের করা হবে। র‌্যাব জানায়, গত বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর এনামুল ও রূপনের বাসায় এবং তাদের দুই কর্মচারীর বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। সেখান থেকে পাঁচ কোটি টাকা এবং সাড়ে সাত কেজি স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়। এরপর সূত্রাপুর ও গেন্ডারিয়া থানায় তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা হয়। এনামুল ও রূপন গত ছয় থেকে সাত বছরে পুরান ঢাকায় বাড়ি কিনেছেন কমপক্ষে ১২টি। ফ্ল্যাট কিনেছেন ৬টি। পুরোনো বাড়িসহ কেনা জমিতে গড়ে তুলেছেন নতুন নতুন ইমারত। স্থানীয় লোকজন জানান, এই দুই ভাইয়ের মূল পেশা জুয়া। আর নেশা হলো বাড়ি কেনা।

সূত্রাপুরের বানিয়ানগরের নিজ বাড়িতে তিনি টাকা রাখার জন্য ভল্ট বানিয়েছেন। তবে সেখানেও টাকা রাখার জায়গা হতো না। তাই টাকা দিয়ে স্বর্ণালংকার কিনতেন। এনামুল হক স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা। র‌্যাব তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ১ কোটি ৫ লাখ টাকা ও ৭২০ ভরি স্বর্ণালংকার উদ্ধার করে।

এর আগে গত বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর সূত্রাপুরের বানিয়ানগরে এনামুলের বাসায় অভিযান চালিয়েছিল র‌্যাব। র‌্যাব তখন জানায়, ছয়তলায় বাসার দোতলা ও পাঁচতলা থেকে তিনটি ভল্ট পেয়েছেন। এছাড়া ইংলিশ রোডে আরও পাঁচটি ভল্ট ভাড়া নিয়েছেন টাকা রাখার জন্য। অভিযানের সময় একজন ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে ভল্ট খোলা হয়। সেখান থেকে তারা ১ কোটি ৫ লাখ টাকা ও ৭২০ ভরি স্বর্ণালংকার উদ্ধার করেছেন। টাকা রাখার জায়গা হতো না বলে স্বর্ণ কিনে রাখতো এই দুই ভাই। এ ছাড়া ৫টি আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার করে র‌্যাব।

স্থানীয় লোকজন জানান, এসব অস্ত্র দিয়ে মানুষকে ভয়ভীতি দেখাতো এনামুল ও তার ভাই রূপণ ভূঁইয়া। তারা জানান, ২০১৮ সালে এনামুল পান গেন্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতির পদ। আর রূপন পান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের পদ। তাদের পরিবারের পাঁচ সদস্য, ঘনিষ্ঠজনসহ মোট ১৭ জন আওয়ামী লীগ ও যুবলীগে পদ পান। তারা সরকারি দলের এসব পদ-পদবি জুয়া ও ক্যাসিনো কারবার নির্বিঘ্নে চালানোর ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে আসছিলেন বলে স্থানীয় লোকজন জানান। গত বছর ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরু হওয়ার পর এই দুই ভাই আলোচনায় আসে। শুরু থেকেই তারা পলাতক ছিল। পরে গত জানুয়ারি মাসে দুই ভাইকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। বর্তমানে তারা কারাগারে রয়েছে।

মুখে মাস্ক পরে ডাকাতি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

১ এপ্রিল বুধবার রাত সাড়ে ১২টা থেকে ১টা, করোনাভাইরাসের কারণে চারদিকে সুনসান নীরবতা। সড়কের আশপাশে কেউ নেই। হঠাৎ একটি

করোনার প্রভাবে কর্মহীনদের সহায়তায় ডিএসসিসির হটলাইন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

করোনাভাইরাসের প্রভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের সহায়তা পৌঁছে দিতে হটলাইন চালু করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, ডিএসসিসি।

এবার চকবাজার এলাকায় একটি ভবন লকডাউন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

পুরান ঢাকার বেচারাম দেওড়ি এলাকার রজনী বোস লেনের একটি ভবন লকডাউন করে দেয়া হয়েছে। ভবনটির গেটে লাল কাপড় দিয়ে প্রবেশ

sangbad ad

বিদেশ ফেরতদের হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিতে ডিএনসিসির অভিযান

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর ভাটারা এলাকায় করোনা সচেতনতায় অভিযান পরিচালনা

মার্কেটের উদ্দেশ্যে নির্মিত ডিএনসিসি’র ভবনটি রুপান্তরিত হচ্ছে করোনা হাসপাতালে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

সাত বছর আগে (২০১৩ সালে) নির্মাণকাজ শেষ হলেও ব্যবসায়ীদের বাধার কারণে চালু হয়নি রাজধানীর মহাখালীতে নির্মিত

ঘণবসতিপূর্ণ এলাকা উল্লেখ করে করোনা হাসপাতাল নির্মাণে বাধা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য রাজধানীর তেজগাঁও শিল্প এলাকায় আকিজ গ্রুপের হাসপাতাল নির্মাণ কাজে বাধা

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় জীবাণুনাশক স্প্রে করলো নৌবাহিনী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দেশব্যাপী করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায় রাজধানীর মিরপুর-১৪ নম্বর, ইব্রাহিমপুর, কচুক্ষেত, ভাষানটেক ও তৎসংলগ্ন এলাকার

কর্মহীন ৫০ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেবে ডিএসসিসি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া হতদরিদ্র মানুষের মাঝে মাসব্যাপী খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)।

করোনা আতঙ্কে রোগীশূন্য শেরেবাংলা নগরের ১০ হাসপাতাল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

নভেল করোনাভাইরাস আতঙ্কে রোগীশূন্য হয়ে পড়েছে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের ১০টি হাসপাতাল। হাসপাতালগুলোতে হাঁচি, সর্দি ও কাশির

sangbad ad