• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বুধবার, ২৭ মে ২০২০

 

জাবি উপাচার্যকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে পদত্যাগের আল্টিমেটাম: ভর্তি পরীক্ষার হল পরিদর্শনে নিষেধাজ্ঞা

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, জাবি
image

দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামকে পদত্যাগের আল্টিমেটাম দিয়েছে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এছাড়া উপাচার্যকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে আসন্ন ভর্তি পরীক্ষার হল পরিদর্শনের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তারা। বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দীর্ঘ তিন ঘণ্টার ‘ব্যার্থ আলোচনা’ শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানবিকী অনুষদের সামনে রাত ৮টায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন করে এ দাবি জানান আন্দোলনকারীরা।

সংবাদ সম্মেলনে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সভাপতি নজির আমিন চৌধুরী জয়ের সঞ্চালনায় ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারের মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, টেন্ডার ছিনতাইয়ের ঘটনার বিচার না করা, নির্দিষ্ট কিছু কোম্পানীকে কাজ পাইয়ে দেওয়া, কমিশন কেলেঙ্কারি, চাঁদা দাবির ঘটনাকে পাঁচ মাস ধরে গোপন রাখা, ৮ ও ৯ আগস্টের বৈঠকের ব্যাপারে মিথ্যাচার করা, টাকা ভাগ-বাটোয়ারার ঘটনায় সরাসরি যুক্তদের স্বীকারোক্তি এসবের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা মনে করি তার (উপাচার্য) নিজের পদে থাকার কোন নৈতিক অধিকার নেই। আমরা তাকে পদত্যাগ করার দাবি জানাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, উপাচার্য সসম্মানে পদত্যাগ করার জন্য আমরা তাকে পহেলা অক্টোবর পর্যন্ত সময় দিচ্ছি। এই সময়ের মধ্যে পদত্যাগ না করলে আমরা কঠোর কর্মসূচিতে যাব। এর মধ্যে আমাদের নিয়মতান্ত্রিক কর্মসূচি থাকবে। আগামীকাল সাড়ে ১২টায় সুষ্ঠু তদন্ত ও পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করবো।

দাবির প্রেক্ষিতে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, তারা আমাকে জিজ্ঞাসা করেছেন আমি নৈতিক অবস্থানে আছি কি নেই! আমার কারণে রাব্বানী এবং শোভনের পতন হয়নি। তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন আগেই জমা হয়ে গিয়েছিলো। আমার ঘটনাটি এখানে সংযোজিত হয়েছিলো। তারা আমাকে বলেছিলো আপনি কেন আগে বলেননি? কোন প্রশাসনই ভিতরের সব কথা সবসময় বলেন না।

বিচার বিভাগীয় তদন্তের ব্যাপারে তিনি বলেন, আমি তো আমার বিরুদ্ধে বিচার বিভাগীয় তদন্তের আবেদন করতে পারি না। আমি ইউজিসিকে জানিয়েছি, শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছি, প্রধানমন্ত্রী তো জানেনই। আমি আইন বিশেষজ্ঞেদের অভিমত নিয়েছি। সেই অভিমত অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্টের ১২ ধারা অনুযায়ী আমি বিভিন্ন তদন্ত কমিটি করতে পারি, চাইলে তদন্ত কমিটিতে হস্তক্ষেপও করতে পারি। কিন্তু আমি আমার নিজের সম্পর্কে কোন বিচার করতে পারি না। এ বিষয়ে কোন সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা নাই। তাহলে আমাকে আচার্য কিংবা ইউজিসির কাছে যেতে হবে।

উপাচার্য আরো বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেকহোল্ডার তো শুধু তারাই নন। এর বাইরেও অনেকেই আছেন। যদি সবাই মনে করেন আমি নৈতিক অবস্থান হারিয়েছি তাহলে সেটা ভিন্ন কথা। উপাচার্য হিসেবে আমার এটুকু সুযোগ আছে নিজেকে পরিচ্ছন্ন করার। সেটা আমি ইউজিসিকে বলবো যেন তারা একটা তদন্ত করেন। তদন্ত চলাকালীন সময়ে আমাকে দায়িত্ব ছেড়ে দিতে হবে কিনা! তা আমি বলতে পারিনা। সেটা বলবেন মহামান্য।

পদত্যাগের বিষয়ে তিনি আরো বলেন, আন্দোলনকারীরা পদত্যাগ দাবি করেছেন। কিন্তু আমি চাইলেই তো আর পদত্যাগ করতে পারিনা। তাদের পদত্যাগের দাবিতেও যদি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আমাকে এখানে থাকার নির্দেশ দেন তাহলে আমাকে গালমন্দ খেয়েও থাকতে হবে। আলোচনার দ্বার আর খোলা নাই। এই অর্থে, যে তারা আর আলোচনা চাইছেন না।

এদিকে প্রকল্পের টাকা উপাচার্য তার নিজ বাসভবনে বন্টনের তথ্য প্রকাশ করায় শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনকে মুঠোফোনে হুমকি দেয়া হয়েছে। ১৭ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার রাত ৯টা থেকে তিনি সহ তিন ছাত্রলীগ নেতার মুঠোফোনের যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া একই সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষকের মুঠোফোন যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন শিক্ষকেরা।

তারা হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক আমির হোসেন, উপাচার্য বিরোধী শিক্ষক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবির, চলমান আন্দোলনকারী ও নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস, পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক জামাল উদ্দিন, দর্শন বিভাগের অধ্যাপক রায়হান রাইন, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক শামীমা সুলতানা, অধ্যাপক তারেক রেজা।

অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস বলেন, একটি স্বাধীন গণতান্ত্রিক দেশে এভাবে মানুষের যোগাযোগকে রুদ্ধ করাটা অন্যায়। এটা রাষ্ট্র তখন করতে পারে যদি রাষ্ট্রবিরোধী কিছু করা হয়। কিন্তু যারা একটা অনিয়মের তদন্ত চাচ্ছে তাদের প্রতি এই ধরনের আচরণ সভ্য দেশে কাম্য হতে পারে না।

উপ-উপাচার্যের মুঠোফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে উপাচার্য বলেন, রাষ্ট্রযন্ত্র কিভাবে চলছে, কি করছে, তা আমি জানিনা। আমি তো কারো মুখ বন্ধ করে রাখিনি। আপনারা প্রশ্ন করছেন। আমি তো উত্তর দিচ্ছি।

ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২০-২১ সেশনের সব ক্লাস অনলাইনে

ক্যাম্পাস ডেস্ক

image

যুক্তরাজ্যের ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের সব ক্লাস অনলাইনে নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ২০২১ সালের গ্রীষ্ম পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি কোনো ক্লাস অনুষ্ঠিত হবে না। ইউকে প্রেস এসোসিয়েশন এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, সব ক্লাস সরাসরি ক্লাসরুমের বদলে অনলাইনেই নেওয়া হবে।

করোনায় সুনসান নীরবতা

ইমরান মাহমুদ, ইবি

image

দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সর্বশেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। এইতো কয়েকদিন আগেও ক্যাম্পাসে প্রতিদিন ১০-১২ হাজার শিক্ষার্থীর পদচারণায় মুখরিত ছিল। বাসগুলো এসে থামলে মনে হতো মানুষের ঢল নেমেছে। ক্যাম্পাসের নাম শুনলে চোখের সামনে ভেসে উঠে গান, বাজনা, উৎসব, আড্ডা, কোলাহলের প্রতিচ্ছবি। সেই ক্যাম্পাসের বর্তমানের চিত্র এখন পুরোই আলাদা। এসবের লেশমাত্রও নেই!

গ্রীষ্মের ফুলে বর্ণিল জাবি

খলিলুর রহমান

image

করোনার আঘাতে পৃথিবী স্থবির হয়ে গেলেও প্রকৃতি সেজেছে নিজের মতই। কোনো আয়োজন ছাড়াই প্রকৃতিতে বৈশাখের আগমন ঘটেছে। ঝিরঝির বৃষ্টি দিয়ে গ্রীষ্মের শুরু। বৃষ্টির ছোয়ায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সবুজ ক্যাম্পাস হয়েছে মনোরম। গ্রীষ্মের রঙিন ফুল দিচ্ছে যৌবনের দোলা। প্রকৃতির এই যৌবন দেখার মত কেউ নেই।

sangbad ad

সিলেট রেঞ্জের নতুন ডিআইজিকে লিডিং ইউনিভার্সিটি উপাচার্যের শুভেচ্ছা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

কুষ্টিয়ার সাবেক পুলিশ সুপার মফিজ উদ্দিন আহমেদ সিলেট রেঞ্জের নতুন ডিআইজি হিসেবে নিয়োগ পাওয়ায়, তাকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন কুষ্টিয়ার সাবেক জেলা প্রশাসক বর্তমান সিলেটের প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) বনমালী ভৌমিক। বৃহস্পতিবার ইউনিভার্সিটির উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) বনমালী ভৌমিক, সিলেট রেঞ্জের নতুন ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহমেদকে এ শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

রমজানের লিডিং ইউনিভার্সিটির খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

প্রতিবছরের মতো এবারও লিডিং ইউনিভার্সিটি সোশ্যাল সার্ভিসেস ক্লাব আয়োজন করে রমজানের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ।

জবি সাংবাদিকের করোনা শনাক্ত

প্রতিনিধি, জবি

image

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) এক সাংবাদিকের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

রাবির শিক্ষকরা ৬০০ কর্মচারীকে সহায়তা দিচ্ছেন

প্রতিনিধি, রাবি

করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্ত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত অসহায়৬০০ কর্মচারীকে ১২ লাখ টাকা সহযোগিতার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি)শিক্ষকরা।

ছাত্র অধিকার পরিষদের কর্মকান্ড রাজনৈতিক শিষ্টাচার বর্হিভূত

প্রতিনিধি, জবি

image

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের প্লাটফর্মের মাধ্যমে করোনা সাহায্য তহবিলে উত্তোলিত অর্থ ‘বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ

বাড়িভাড়া সংকট নিরসনে জবি শিক্ষার্থীদের তিন দফা দাবি

প্রতিনিধি, জবি

image

করোনাভাইরাস পরবর্তী মেস ও বাড়ি ভাড়া সংকট নিরসনে তিন দফা দাবি জানিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ফেসবুক গ্রুপ

sangbad ad