• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , সোমবার, ২৫ মে ২০২০

 

শেয়ারবাজারের উন্নয়নে কাজ করবে বিশ্বব্যাংক-অর্থমন্ত্রী

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
image

বন্ড মার্কেট ও শেয়ারবাজারের উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক কাজ করবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ব্যাংক খাতের উন্নয়নেও বিভিন্ন পরামর্শ দেবে বিশ্বব্যাংক। বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে নিজ কার্যালয়ে বিশ্বব্যাংকের আঞ্চলিক পরিচালক জুবিদা খেরুস অ্যালাউয়্যার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের একথা জানান অর্থমন্ত্রী।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বন্ড মার্কেট ও শেয়ারবাজারের উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক কাজ করবে। যেসব ক্ষেত্রে আমরা পিছিয়ে রয়েছি, সেসব ক্ষেত্রে উন্নয়নে বাংলাদেশকে বিশ্বব্যাংক সহায়তা করবে। বিশ্বব্যাংক আরও বেশি সাহায্য করতে প্রস্তুত। এজন্য আমাদের ক্যাপাসিটি বাড়াতে হবে। আমরা অর্থনৈতিকভাবে যেখানে আছি সেখান থেকে আরও উন্নতি করতে অনেক শক্তি ব্যয় করতে হবে। এসব ক্ষেত্রেও বিশ্বব্যাংক আমাদের সহযোগিতা করবে। আমাদের বন্ড মার্কেট সম্পূর্ণ ডেভেলপ করা হয়নি মন্তব্য করে আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, এ মার্কেটের উন্নয়ন করতে হবে। এ মার্কেটের উন্নয়নে সরকারি-বেসরকারি উভয় সেক্টরকেই এগিয়ে আসেত হবে। বন্ড মার্কেটের উন্নয়ন হলে শেয়ারবাজারেরও উন্নয়ন হবে।

বন্ড মার্কেটের উন্নয়নে বিভিন্ন ফি কমানো হয়েছে। বন্ড মার্কেটকে প্রাণবন্ত করতে কাজ করা হবে। বন্ড মার্কেটকে আমরা ডেভেলপ করবই।

শেয়ারবাজারের উন্নয়নে কীভাবে বিশ্বব্যাংক কাজ করবে এবং কখন থেকে এটা বাস্তবায়ন হবে জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাংকের কাজ বাংলাদেশে চলমান। তাদের ৪৫টি প্রজেক্ট বর্তমানে কাজ করছে।

বিশ্বব্যাংকের এক প্রতিনিধি বলেন, আমরা কিছু টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্স, রেগুলেটরি রিফর্ম এবং পলিসির উন্নয়নে কাজ করব। শেয়ারের উন্নয়নের পুরো কাজ সমন্বিতভাবে করা হবে। সরকার, বিশ্বব্যাংক এবং যারা এ বিষয়ে আগ্রহী- সবাই মিলে এ কাজগুলো করব বলে জানান অর্থমন্ত্রী।।

বন্ড মার্কেট প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, বন্ড মার্কেটের উন্নয়নে করপোরেট সেক্টরের প্রভিডেন্ড ফান্ডগুলোও নিয়ে আসা হবে। এসব বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীও একমত প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, বর্তমানে আমাদের অর্থনীতিতে আর্থিক খাতের উপাদান কম। উপাদান কম থাকলে ছোট হয়ে যায়। অর্থনীতিকে বেগবান করতে হলে আমাদের অনেক টুলস দরকার। এগুলোই করা হচ্ছে। সরকার সবসময় পুঁজিবাজারের সঙ্গে রয়েছে। পুঁজিবাজারে সবধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে। আমাদের কাজ হচ্ছে তাদের সাপোর্ট দেয়া, সেটা আমরা দিয়েছি। আগামীতে ভালো ভালো সরকারি কোম্পানিকে পুঁজিবাজারে দেয়া হবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, সরকারের টাকার কোন অভাব নেই। আমি আপনাদের বলছি টাকা থাকার একটা বেঞ্চমার্ক আছে। সেই বেঞ্চমার্কের ওপরে আমাদের এখন ৯২ হাজার কোটি টাকা বেশি রয়েছে। এটা তো লুকোচুরি করার কোন ব্যাপার নয়। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি সাংবাদিকদের একথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, সরকারের অর্থের সংকট নেই। এটা একটা নিউজ পেপারে বলছে, এর বিপরীতে এরা কিছু বলবে না। আজ আবার দেখলাম এরা এডিবির পজেটিভ রিপোর্ট দিয়ে দিয়েছে, এটা দেখে আবার অবাক হয়ে গেলাম। তারা পজেটিভলি লিখেছে। আমি বলছি, আমাদের কোনরকম টাকার অভাব নেই।

সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, যদি আপনারা কোথাও কোন ব্যাংকে গিয়ে টাকা না পান, যদি এলসি সেটেলমেন্ট করতে না পারেন, যদি পেমেন্ট না করতে পারেন তবে আমাকে এসে বলবেন। তাহলে এগুলো আমরা কীভাবে বিশ্বাস করব। সরকার কোথায় টাকা খুঁজছে? সরকার টাকা খুঁজলে কোথা থেকে পাবে? সরকারের টাকা না থাকলে দেয়ার কোন ব্যবস্থা আছে। আপনারা কেউ সরকারকে টাকা দেবেন? টাকা তোলার রাস্তাটা কি? সেভিংস ইন্সট্রুমেন্ট বিক্রি করতে হবে, না হলে আমেরিকা যা করে কোয়ান্টিটি বেইজিংয়ের নাম করে টাকা ছাপাতে হবে।

উল্লেখ্য, ‘টাকার খোঁজে সরকার’ শিরোনামে একটি পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হয়েছে। এ খবরে বলা হয়, খরচ সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে সরকার। ব্যয়ের খাত কেবল বড়ই হচ্ছে, অথচ আয়ে আছে বড় ঘাটতি। ব্যয়ের জন্য পর্যাপ্ত অর্থ নেই সরকারের কাছে। বরং টাকার সংকটে আছে সরকার। সরকার পরিচালনার খরচ বেড়েছে। বাড়ানো হয়েছে সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা। বাজেট ঘাটতি মেটাতে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে বিপুল পরিমাণ ঋণ নেয়ায় সুদ পরিশোধ ব্যয়সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। আকার বাড়ছে উন্নয়ন ব্যয়ের। আরও আছে বড় প্রকল্প বাস্তবায়নে সরকারের বিপুল আগ্রহ।

প্রকাশিত খবরে আরও বলা হয়, সবমিলিয়ে সরকারের ব্যয়ের তালিকা দীর্ঘ। কিন্তু রাজস্ব আয়ের বাইরে সরকারের জন্য অর্থের উৎস হচ্ছে ঋণ নেয়া। এ ঋণ এখন অত্যন্ত ব্যয়বহুল। ফলে সরকার অর্থ সংস্থানের নানা উপায় খুঁজছে। যেমন- স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার অলস অর্থ নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন, মহাসড়ক থেকে টোল আদায়, টেলিকম কোম্পানির কাছ থেকে চাপ দিয়ে অর্থ আদায় ইত্যাদি। সরকার এখন যেকোনভাবে অর্থ পেতে যে মরিয়া, এটি তারই প্রমাণ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

৩১ মে লেনদেন চালুর প্রস্তুতি নিচ্ছে ডিএসই

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ঈদের পর ৩১ মে লেনদেন চালুর প্রস্তুতি নিচ্ছে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। এজন্য ডিএসইর সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে ৩১ মে অফিসে যোগদান করার জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে। রবিবার (২৪ মে) ডিএসইর চেয়ারম্যানের নির্দেশনার আলোকে মানব সম্পদ বিভাগ থেকে ডিএসইর সকল বিভাগের প্রধানের কাছে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে।

কোটি মানুষের কর্মসংস্থানের দাবিতে ১৬ লাখ ৩৯৯৪৮ কোটি টাকার জাতীয় স্বপ্নবাজেট প্রস্তাবনা পেশ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ২০ নং অনুচ্ছেদে অধিকার ও কর্তব্যরুপে কর্ম শীর্ষক (ক) অধ্যায়ে বলা হয়েছে: “কর্ম হইতেছে কর্মক্ষম প্রত্যেক নাগরিকের পক্ষে অধিকার, কর্তব্য ও সম্মানের বিষয়, এবং “প্রত্যেকের নিকট হইতে যোগ্যতানুসারে ও প্রত্যেককে কর্মানুযায়ী”-এই নীতির ভিত্তিতে প্রত্যেকে স্বীয় কর্মে জন্য পারিশ্রমিক লাভ করিবেন।

বহুজাতিক কোম্পানি পুঁজিবাজারে নিয়ে আসবো

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নব নিযুক্ত চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল

sangbad ad

এসএমই ব্যবসায়ীদের বিশেষ ঋণ পেতে সহায়তা করবে এফবিসিসিআই

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

করোনাভাইরাস চলাকালে লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং খাতের ব্যবসায়ীদের সাথে

পরিবর্তিত বিশ্ববাণিজ্যের সুযোগ গ্রহণের সুযোগ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, কোভিড-১৯ পরবর্তী পরিবর্তিত বিশ্ববাণিজ্যের সুযোগ গ্রহণের সুযোগ এসেছে।

বিএসইসি চেয়ারম্যানকে বিএমবিএ-স্টেকহোল্ডার সোসাইটির অভিনন্দন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে

ভ্যাট রিটার্ন অর্ধেকে নেমেছে

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

করোনার প্রভাবে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট রিটার্ন জমা অর্ধেকে নেমে এসেছে। করোনার সংক্রমন ঠেকাতে প্রায় দুই মাস ধরে সাধারণ ছুটি চলছে। এই ছুটির মধ্যে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানগুলোর যেমন বেচাকেনা নেই, তেমনি মাসিক ভ্যাট রিটার্ন জমায় আগ্রহও নেই। নতুন ভ্যাট আইন অনুযায়ী, প্রতি মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে আগের মাসের ভ্যাট রিটার্ন জমা দিতে হয়। গত শুক্রবার চলতি মাসের সময়সীমা শেষ হয়েছে। ওই দিন সারা দেশের ২৫২ টি সার্কেল অফিস বিশেষ ব্যবস্থায় খোলা রাখা হয়

বাজেট অধিবেশন শুরু ১০ জুন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

নিয়ম অনুযায়ী অধিবেশন শুরুর আগে কার্যউপদেষ্টা কমিটি বৈঠক করে অধিবেশনের মেয়াদ নির্ধারণ করবে

বিএসইসির নতুন চেয়ারম্যানকে ডিবিএ সিএসইর অভিনন্দন

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এর নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামকে অভিনন্দন জানিয়েছে বাংলাদেশ পুঁজিবাজারের শীর্ষ সংগঠন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ডিবিএ)।

sangbad ad