• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২০

 

বাজেটে অগ্রাধিকার পাচ্ছে শেখ হাসিনা নকশী পল্লী প্রকল্প

নিউজ আপলোড : ঢাকা , সোমবার, ১৩ মে ২০১৯

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

আসছে ২০১৯-২০ অর্থবছরে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের বাজেটে অগ্রাধিকার পাচ্ছে ‘শেখ হাসিনা নকশী পল্লী প্রকল্প’। প্রকল্প বাস্তবায়নে জমি অধিগ্রহণে ৭০০ কোটি টাকাসহ মোট ১ হাজার ২৮১ কোটি টাকা বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। সম্প্রতি বরাদ্দ চেয়ে অর্থ সচিবকে আধা সরকারি (ডিও) পত্রও দিয়েছেন বস্ত্র ও পাট সচিব। শেখ হাসিনা নকশী প্রকল্প, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এসব তথ্য জানিয়েছেন।

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টরা জানান, নকশী, কারু ও তাঁত শিল্পীদের জীবনমান উন্নয়নে এই প্রকল্প নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি পাটের গৌরব ফিরিয়ে আনাসহ পাটখাত সংস্কারের প্রস্তাবনা থাকছে মন্ত্রণালয়ের নিজস্ব বাজেটে। এই সংস্কার কাজের মধ্যে থাকছে পাটকল করপোরেশনের অধীনে থাকা ৩টি মিল সুষমকরণ, আধুনিকায়ন, পুনর্বাসন ও বর্ধিতকরণ।

বস্ত্র ও পাট সচিব মো. মিজানুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী বস্ত্র ও পাটখাতকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করছেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা পাটখাতের হারানো গৌরব পুনরুদ্ধারে নানা উদ্যোগ নিয়েছি। আমাদের মন্ত্রণালয়ের বাজেটে আমরা কারু ও তাঁত শিল্পীদের জন্য ‘শেখ হাসিনা নকশী প্রকল্প’ এর ওপর জোর দিচ্ছি বেশি। এজন্য আগামী বাজেটে উন্নয়ন খাতের সিলিং (অর্থ মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত বরাদ্দ সীমা) ৭০০ কোটি টাকা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

অর্থ বিভাগের সচিবের কাছে পাঠানো ডিও লেটারে বলা হয়, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের প্রকল্পগুলো সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়ন ও শেখ হাসিনা নকশী পল্লী জামালপুর প্রকল্পের জমি অধিগ্রহণ ও ভূমি উন্নয়ন কাজ শেষ করতে হবে। এজন্য আগামী অর্থবছরের বাজেটে উন্নয়ন ব্যয় সীমা ৭০০ কোটি টাকাসহ মোট ১ হাজার ২৮১ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়ার সুপারিশ করা হচ্ছে।

জানা গেছে, শেখ হাসিনা নকশী পল্লী প্রকল্পকে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছে। এ প্রকল্পটি নেয়া হয়েছে মূলত নকশী ও তাঁত শিল্পীদের দারিদ্র্য বিমোচন, জীবনযাত্রা ও উৎপাদিত পণ্যের গুণগত মান উন্নয়নের জন্য। এজন্য সার্ভিস সেন্টার ও ডিজাইন ডেভেলপমেন্ট সেন্টার স্থাপন করা হবে। গত ১২ মার্চ একনেকে এ প্রকল্পটি অনুমোদন পায়।

৭২২ কোটি টাকা ব্যয়ের এ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে ২০২১ সালের ১ মার্চ। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে জামালপুর সদর উপজেলায় ৩০০ একর জমি অধিগ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সরকারি খাসজমি প্রায় ৮৯ একর এবং বাকিটা ব্যক্তি মালিকানাধীন। যা পর্যায়ক্রমে অধিগ্রহণ করা হবে। প্রকল্পের জমির মূল্য ধরা হয়েছে ৫৮১ কোটি টাকা এবং ভূমি উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ১০৬ কোটি টাকা।

ডিও লেটারে আরও উল্লেখ করা হয়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের অধীনে ৩০টি প্রকল্পের বাস্তবায়ন চলছে। এর মধ্যে চলতি বছরের জুন মাসে ২টি প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। অসমাপ্ত বাকি ২৮টি প্রকল্প আগামী অর্থবছরের নতুন এডিপিতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। এসব প্রকল্প ছাড়াও চলতি অর্থবছরের (২০১৮-১৯) আরও চারটি নতুন প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ফলে আগামী অর্থবছরে এডিপিতে নতুন প্রকল্পের সংখ্যা দাঁড়াবে ৩২টি।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা জানান, পাটকলে লোকসানের পরিমাণ কমিয়ে আনতেও বিভিন্ন পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি ১৪টি পাটকল সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের (পিপিপি) মাধ্যমে পরিচালনার একটি পরিকল্পনা নেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি পাটশিল্পের উন্নয়নে প্রয়োজনে ভর্তুকি এবং ব্যাংক ঋণের সুদের হার কমানোর চিন্তা-ভাবনা চলছে।

পাট মন্ত্রণালয়ের প্রকল্প সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, নকশী প্রকল্প ছাড়া আগামী বাজেটে পাটখাতের উন্নয়নে মধ্যমেয়াদী সংস্কারের কথা বলা হয়েছে। মধ্যমেয়াদী সংস্কারের মধ্যে থাকছে- পাটকল করপোরেশনের আওতাধীন ৩টি মিল সুষমকরণ, আধুনিকায়ন, পুনর্বাসন ও বর্ধিতকরণ। এর ব্যয় ধরা হয়েছে ১৭৪ কোটি টাকা। এছাড়া একহাজার ২৯৮ কোটি টাকা ব্যয়ে পাট খাত থেকে ‘ভিসকোস’ উৎপাদন প্ল্যান্ট প্রকল্প নেয়া হবে। সংস্কারের আওতায় ৩৩ কোটি টাকা ব্যয়ে উন্নয়ন ও সংস্কার কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। এগুলো হচ্ছে করিম জুট মিলস ও দৌলতপুর জুট মিলসে ফেল্ট কারখানা স্থাপন এবং কেএফডি মিলসের বহুমুখী ইউনিটের উন্নয়ন ও আধুনিকায়ন কার্যক্রম।

এদিকে অর্থ বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা জানান, আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের জন্য প্রাথমিক সিলিং নির্ধারণ করা হয়েছিলো ৭৮২ কোটি ৩০ লাখ টাকা। এর মধ্যে উন্নয়ন ব্যয় হচ্ছে ৫৮১ কোটি ৪০ লাখ টাকা। তবে নির্ধারিত সময়ে প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করতে হলে আগামী অর্থবছরে উন্নয়ন খাতে ৯৮১ কোটি টাকা প্রয়োজন।

উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর জন্য এর আগেও অর্থ বিভাগকে একটি চিঠি দেয়া হয়েছে বলেও জানান ওই কর্মকর্তা। এরপর অর্থ বিভাগ ১৮ কোটি ৬০ লাখ টাকা বরাদ্দ বাড়িয়ে উন্নয়ন ব্যয় ৬০০ কোটি টাকা নির্ধারণ করে। কিন্তু তারপরও উন্নয়ন কাজ শেষ হবে না। এজন্য উন্নয়ন ব্যয়ের সিলিং ৭০০ কোটি টাকা নির্ধারণের জন্য বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় থেকে সুপারিশ করা হয়েছে।

স্বপ্ন প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ালো ম্যারিকো ও ইউএনডিপি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ম্যারিকো বাংলাদেশ ও জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) তাদের “স্ট্রেংথেনিং উইম্যানস অ্যাবিলিটি ফর প্রোডাক্টিভ নিউ অপরচ্যুনিটিস”

ডিপ্লোমেটিক কর্পসের সদস্য ও উন্নয়ন সহযোগীদের সম্মানে এমসিসিআই এর নেটওয়ার্কিং লাঞ্চ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (এমসিসিআই) ১৭ ফেব্রুয়ারি

উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের জন্য কেনা হচ্ছে কোটি টাকার গাড়ি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের (ইউএনও) জন্য প্রায় কোটি টাকা মূল্যের পাজেরো স্পোর্টস কিউ এক্স জিপ গাড়ি কিনছে সরকার। সরাসরি

sangbad ad

নারী উদ্যোক্তা বৃদ্ধিতে কাজ করছে সরকার : টিপু মুনশি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, নারী উদ্যোক্তা বৃদ্ধি এবং ব্যবসা-বাণিজ্যে নারীদের সম্পৃক্ততা বাড়াতে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করছে।

জনপ্রিয় হচ্ছে এজেন্ট ব্যাংকিং

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

প্রত্যন্ত গ্রামে ব্যাংকিং সেবা পৌঁছে দিতে সহজ মাধ্যম হয়ে উঠেছে এজেন্ট ব্যাংকিং। ব্যাংকের শাখা খুলতে যে পরিমান খরচ হয় তার চেয়ে

বিদেশি কর্মীদের বেতন-ভাতার নামে বছরে ২৬ হাজার কোটি টাকা পাচার

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

বিদেশি কর্মীদের বেতন-ভাতার নামে বাংলাদেশ থেকে প্রতিবছর ২৬ হাজার কোটি টাকা পাচার হয়। কম করে ধরলেও বাংলাদেশে আড়াই

জনমনে বীমার আস্থা অর্জনে সরকারের নেওয়া পদক্ষেপগুলো বেগবান করতে ‘জাতীয় বীমা দিবস’ এর দিন ঘোষনা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বীমা একটি সম্ভাবনাময় গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক খাত। তবে দেশের প্রেক্ষাপটে বীমার প্রতি জনগণের আস্থা তেমন নেই। তাই বীমার ব্যাপ্তি

ব্যাংক আমানতের সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

ঋণের সুদহারে সিঙ্গেল ডিজিট বাস্তবায়নে আমানতে ৬ শতাংশ সুদহার কার্যকর করেছে ব্যাংকগুলো। রোববার (২ ফেব্রুয়ারি) থেকে

২০১৯ সালে ১৪,৩৭০ কোটি টাকা রাজস্ব আয় করেছে গ্রামীণফোন

মোহাম্মদ কাওছার উদ্দীন

image

২০১৯ সালে ১৪,৩৭০ কোটি টাকা রাজস্ব আয় করেছে গ্রামীণফোন যা আগের বছরের তুলনায় ৮.১% বেশি। ইন্টারনেট সেবা খাত থেকে

sangbad ad