• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

 

পুঁজিবাজারে চার ডজন কোম্পানির পরিচালকের নেই ন্যূনতম শেয়ার

নিউজ আপলোড : ঢাকা , সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯

সংবাদ :
  • এস এম জাকির হোসাইন
image

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির উদ্যোক্তাদের সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ এবং পরিচালকের ব্যক্তিগতভাবে ২ শতাংশ শেয়ার থাকা বাধ্যতামূলক। কিন্তু পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৩১৭ কোম্পানির মধ্যে ৪৮ কোম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকরা সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার নেয়। নামমাত্র শেয়ার নিয়ে কোম্পানির পরিচালনা নিজেদের দখলে রেখেছেন কিছু উদ্যোক্তা-পরিচালক। এর মধ্যে ৪৮ কোম্পানির ১৭৯ পরিচালকের নেই ন্যূনতম শেয়ার।

এদিকে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি গত ২১ মে এক নির্দেশনায় ২ শতাংশের কম শেয়ারধারী পরিচালকদের পদ শূন্য ঘোষণা এবং এক মাসের মধ্যে শর্ত মেনে তা পূরণের আদেশ দেয়। কিন্তু প্রায় তিন মাসেও শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৪৮টি কোম্পানি এ নির্দেশনা পরিপালন করেনি বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বীমা কোম্পানিসহ ২৩ প্রতিষ্ঠান শেয়ার ধারণের শর্ত অনুসরণ না করে নিজেদের পক্ষে পরিচালক নিয়োগ দিয়েছে। এর মধ্যে ফাইন ফুডস লিমিটেডের উদ্যোক্তা-পরিচালকদের সম্মিলিতভাবে শেয়ার রয়েছে মাত্র ১ দশমিক ০৯ শতাংশ। সেখানে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির ৯৮ দশমিক ৯ শতাংশ শেয়ার। এর পর সবচেয়ে কম শেয়ার রয়েছে ইনটেক অনলাইন কোম্পানির উদ্যোক্তা-পরিচালকদের। কোম্পানিটির পরিচালকদের কাছে রয়েছে মাত্র ৩ দশমিক ৯৭ শতাংশ শেয়ার। আর সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে কোম্পানিটির শেয়ার রয়েছে ৮৫ দশমিক ২৮ শতাংশ। কোম্পানিটিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ারধারণ রয়েছে ১০ দশমিক ৭৫ শতাংশ। আর কম শেয়ারের ভিত্তিতে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ফ্যামিলি টেক্স বিডি কোম্পানি। কোম্পানিটির উদ্যোক্তা পরিচালকদের সম্মিলিতভাবে শেয়ার রয়েছে ৪ দশমিক ০২ শতাংশ। সেখানে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে ৭৭ দশমিক ৫৭ শতাংশ। কোম্পানিটিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার রয়েছে ১৮ দশমিক ৪১ শতাংশ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সম্মিলিতভাবে সবচেয়ে কম শেয়ারধারণের ভিত্তিতে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ কোম্পানি। কোম্পানিটির উদ্যোক্তা পরিচালকদের কাছে শেয়ার রয়েছে ৪ দশমিক ১৬ শতাংশ। সেখানে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে ৭০ দশমিক ১৩ শতাংশ। কোম্পানিটিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ারধারণ রয়েছে দশমিক ১৩ দশমিক ৫৩ শতাংশ। আর বিদেশি বিনিয়োগকারীদের শেয়ার রয়েছে ১২ দশমিক ১৮ শতাংশ। সম্মিলিতভাবে ১০ শতাংশের কম শেয়ার রয়েছে তলিকাভুক্ত ৯টি কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকদের। আর ২০ শতাংশের কম শেয়ার রয়েছে ১৩টি কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকদের।

সূত্র জানায়, ২০০৯-১০ সালে শেয়ার কারসাজির পর ভয়াবহ দরপতনের প্রেক্ষাপটে ২০১১ সালের ২২ নভেম্বর পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি তালিকাভুক্ত কোম্পানির পরিচালকদের এককভাবে ও সম্মিলিতভাবে ন্যূনতম শেয়ারধারণের শর্ত আরোপ করেছিল। কোম্পানি পরিচালনায় জবাবদিহিতা এবং স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে যথাযথ প্রতিনিধিত্বশীল পর্ষদ গঠন করার জন্য এ শর্ত আরোপ করা হয়েছিল। ওই নির্দেশনায় পরিচালক পদে দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে এককভাবে কমপক্ষে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির ২ শতাংশ শেয়ার থাকার বাধ্যবাধকতা আরোপ করেছিল বিএসইসি। এছাড়া কোম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার থাকার শর্ত দেয়। প্রায় আট বছরে অনেক পরিচালক ও কোম্পানি এ শর্ত লঙ্ঘন করেছে।

বিএসইসি সূত্র জানায়, যেসব কোম্পানি নির্দেশনা পরিপালন করেনি, তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে ন্যূনতম শেয়ারধারণের শর্ত না মেনে গত প্রায় আট বছর যারা পরিচালক ছিলেন তাদের কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এ পর্যন্ত একটি কোম্পানির বিরুদ্ধেও কোন শাস্তিমূলক ব্যাবস্থা নিতে পারেনি পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সেচেঞ্জ কমিশন।

দীর্ঘদিন নির্দেশনা লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে না পারার কারণ জানতে চাইলে বিএসইসির মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান সংবাদকে বলেন, যারা নির্দেশনা পরিপালন করেনি তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি, তবে এ বিষয়ে বিএসইসির এনফোর্সমেন্টে প্রক্রিয়াধীন আছে। অনেকেই আবার (কোর্ট) আদালতের আশ্রয় নিয়েছে। গত ২১ মে এর বিএসইসির নির্দেশনা অনুযায়ী স্বতন্ত্র পরিচালক ছাড়া অন্য সব পরিচালকদের ক্ষেত্রে ২ শতাংশ শেয়ার ধারণ করা বাধ্যতামূলক। কোন প্রতিষ্ঠানের পক্ষে কেউ পরিচালক পদে দায়িত্ব পালন করলে তার ২ শতাংশ শেয়ার থাকার বাধ্যবাধকতা নেই। তবে যে প্রতিষ্ঠান ওই ব্যক্তিকে পরিচালক পদে মনোনীত করবে, সেটির ২ শতাংশ শেয়ার থাকতে হবে। এই নির্দেশনা পরিপালন না করলে কোন কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদে থাকার সুযোগ নেই।

এদিকে ন্যূনতম শেয়ারধারণ-সংক্রান্ত নতুন নির্দেশনায় ৩০ শতাংশের কম শেয়ারধারণ করা কোম্পানির উদ্যোক্তা-পরিচালকদের ক্ষেত্রে নতুন বিধিনিষেধ আরোপ করেছে কমিশন। এতে বলা হয়েছে, সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার না থাকলে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কেউ শেয়ার বিক্রি বা অন্য কারও নামে হস্তান্তর বা কারও কাছে বন্ধক রাখতে পারবেন না। পাশাপাশি কোম্পানির ক্ষেত্রে রাইট বা পুনঃআইপিওর মাধ্যমে মূলধন বাড়ানোর সুযোগ থাকবে না। একই সঙ্গে বোনাস শেয়ার ইস্যুর ক্ষেত্রেও বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

উদ্যোক্তা পরিচালকদের ন্যূনতম শেয়ার না থাকা কোম্পানির মধ্যে বারাকা পাওয়ার লিমিটেডের চেয়ারম্যান গোলাম রাব্বানী চৌধুরী এ বিষয়ে সংবাদকে বলেন, আমাদের পরিচালকদের ব্যক্তিগতভাবে ২ শতাংশ শেয়ার থাকলেও সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ নেই। বিএসইসি হঠাৎ করে যা খুশি তাই করতে পারে না। পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ পাবলিক লিস্টেড কোম্পানি অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে বসে আলোচনা না করেই ২১ মে বিএসইসির নির্দেশনা দিয়ে বাজারের জন্য ভালো করেনি। আমাদের আরও সময় দেয়া দরকার। কারণ আমরা ব্যবসা সম্প্রসারণে যাচ্ছি। আমাদের বাজারে যে পতন এর অন্যতম কারণ বিনিয়োগকারীদের আস্থার অভাব। আর এর জন্য দায়ী বিভিন্ন সময় আইনের সংস্কার। উদ্যোক্তা পরিচালকদের শেয়ার কম থাকায় বিনিয়োগকারীদের আস্থার সংকট হয়নি। আমরা দেশে শিল্পায়ন করি, কিন্তু এত প্রতিবন্ধকতা আসলে তো শিল্পায়ন বাধাগ্রস্ত হবে।

এ বিষয়ে পুঁজিবাজার বিশ্লেষক অধ্যাপক আবু আহমেদ সংবাদকে বলেন, নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে না পারার ব্যর্থতা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের। উদ্যোক্তা পরিচালকদের যতই সময় দেয়া হবে, ততই বিলম্ব হবে। বিএসইসি ইচ্ছা করলেই যাদের ন্যূনতম শেয়ার নেই তাদের দুই একটা কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ থেকে সরিয়ে দিলেই অন্যরা ঠিক হয়ে যাবে। এছাড়া কোন উপায় নেই।

এ বিষয়ে ঢাকা স্টক এক্সেচেঞ্জের পরিচালক রকিবুর রহমান সংবাদকে বলেন, যে কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকদের সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার না থাকলে তাদের আলাদা ক্যাটাগরি হলে এর একটা সমাধান হবে। তাই বিএসইসির উচিত খুব তাড়াতাড়ি নতুন ক্যাটাগরির জন্য নির্দেশনা দেয়া।

সম্মিলিতভাবে উদ্যোক্তা পরিচালকদের ন্যূনতম শেয়ার না থাকা কোম্পানিগুলার মধ্যে ফু-ওয়াং সিরামিকের ও ফু- ওয়াং ফুডের উদ্যোক্তা পরিচালকদের কাছে রয়েছে যথাক্রমে ৫ দশমিক ৩৩ এবং ৫ দশমিক ৩৬ শতাংশ শেয়ার। আর সম্মিলিতভাবে অগ্নি সিস্টেমের পরিচালকদের ৯ দশমিক ৩৯ শতাংশ, সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের ৯ দশমিক ৯০ শতাংশ, এক্টিভ ফাইন কেমিক্যালের ১২ দশমিক ০৪ শতাংশ, ফাস ফাইন্যান্সের ১৩ দশমিক ২০ শতাংশ, জেনারেশন নেক্সটের ১৩ দশমিক ৮২ শতাংশ, বাংলাদেশ জেনারেল ইন্সুরেন্সের ১৪ দশমিক ৮৯ শতাংশ, নর্দান জুটের ১৫ দশমিক ২৭ শতাংশ, আলহাজ্ব টেক্সটাইলের ১৬ দশমিক ৮১ শতাংশ, মিথুন নিটিংয়ের ১৭ দশমিক ২০ শতাংশ, ইস্টার্ন ক্যাবলসের ১৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ, পিপলস ইন্সুরন্সের ১৭ দশমিক ৮৯ শতাংশ, ডেল্টা স্পিনার্সের ১৮ শতাংশ, বারাকা পাওয়ারের ১৮ দশমিক ০১ শতাংশ, মেঘনা লাইফের ১৮ দশমিক ০৭ শতাংশ, এপেক্স ট্যানারির ১৯ দশমিক ৪২ শতাংশ, অ্যাপোলো ইস্পাত ২০ দশমিক ২৪ শতাংশ, অলেস্পিক এক্সেসরিজের ২০ দশমিক ৬৮ শতাংশ, উত্তরা ব্যাংকের ২০ দশমিক ৮৮ শতাংশ দুলামিয়া কঠনের ২১ দশমিক ০৪ শতাংশ, ইনফরমেশন সার্ভিসেসের ২১ দশমিক ৬২ শতাংশ, সি অ্যান্ড এ টেক্সটাইলের এবং সেলভো ক্যামিকেলের ২২ দশমিক ১৪ শতাংশ, বিডিকমের ২৩ দশমিক ১০ শতাংশ, পিপলস লিজিংয়ের ২৩ দশমিক ২১ শতাংশ, জাহিন স্পিনিংয়ের ২৩ দশমিক ৯৪ শতাংশ, কে এন্ড কিই লি. এর ২৪ দশমিক ০৬ শতাংশ, ফার্মাএইডসের ২৪ দশমিক ২২ শতাংশ, সেন্ট্রাল ফার্মার ২৫ দশমিক ৮৯ শতাংশ, মেট্টো স্পিনিংয়ের ২৬ দশমিক ২৩ শতাংশ, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজের ২৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ, বিডি থাই অ্যালুমিনিয়ামের ২৮ দশমিক ২৩ শতাংশ, বে লিজিংয়ের ২৮ দশমিক ২৮ শতাংশ, ম্যাকসনস স্পিনিংয়ের ২৮ দশমিক ৩৭ শতাংশ, আফতাব অটোমোবাইলসের ও এমারেল্ড ওয়েলের ২৮ দশমিক ৪২ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের ২৮ দশমিক ৫০ শতাংশ, পপুলার লাইফের ২৮ দশমিক ৯২ শতাংশ, তাল্লু স্পিনিংয়ের ২৯ দশমিক ০৪ শতাংশ, কনফিডেন্স সিমেন্টের ২৯ দশমিক ৮৮ শতাংশ, আইআইএফসি ব্যাংকের ৮ দশমিক ৩৩ শতাংশ, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ১৩ দশমিক ১৯ শতাংশ এবং বাংলাদেশ এক্সপোর্ট ইম্পোর্ট কোম্পানির (বেক্সিমকো) উদ্যোক্তা পরিচালকদের রয়েছে ২০ দশমিক ১৫ শতাংশ শেয়ার।

বাংলাদেশে পাঁচটি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলবে সংযুক্ত আরব আমিরাত

মোহাম্মদ কাওছার উদ্দীন

image

বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য কয়েকটি প্রকল্পসহ পাঁচটি মুক্ত অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের

শেয়ারবাজারের উন্নয়নে কাজ করবে বিশ্বব্যাংক-অর্থমন্ত্রী

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

বন্ড মার্কেট ও শেয়ারবাজারের উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক কাজ করবে বলে জানিয়েছেন

পারদযুক্ত ত্বক ফর্সাকারী ক্রিম ব্যবহারে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ব্যবহারকারীরা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

বাংলাদেশের বাজারে সহজেই যেসব ত্বক ফর্সাকারী পণ্য পাওয়া যাচ্ছে, তার বেশিরভাগই অতি মাত্রায় পারদযুক্ত। ফলে উচ্চ ঝুঁকিতে ব্যবহারকারীরা।

sangbad ad

স্বর্ণের দাম কমল ভরিতে ১ হাজার ১৬৬ টাকা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

দেশের বাজারে কমল স্বর্ণের দাম। গত আগস্ট মাসে টানা চারবার স্বর্ণের দাম বাড়ানোর পর অবশেষে দাম কমানোর ঘোষণা দিয়েছে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের

জার্মান রাষ্ট্রদূতের বেক্সিমকো ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক পরিদর্শন

মোহাম্মদ কাওছার উদ্দীন

image

বাংলাদেশে নিযুক্ত জার্মান রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেনহোল্টজ বিভিন্ন ক্ষেত্রের উচ্চপর্যায়ের

বাংলাদেশে প্রকল্প তৈরিতে অর্থায়নে বিশ্বব্যাংক প্রস্তুত : অর্থমন্ত্রী

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশে প্রকল্প তৈরিতে অর্থায়নে প্রস্তুত বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর)

কার্নিভাল অ্যাসিউর ও অ্যাকিউরা ইন্টারন্যাশনালের মধ্যকার চুক্তি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় বীমা কোম্পানিগুলোর বিকল্প বিতরণ চ্যানেল কার্নিভাল অ্যাসিউর, মালয়েশিয়া ভিত্তিক একটি বীমা অ্যাগ্রিগেটর অ্যাকিউরা

৬৬ প্রতিষ্ঠানকে রপ্তানি ট্রফি দিলেন প্রধানমন্ত্রী

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

রপ্তানি খাতে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ২৮ ক্যাটাগরিতে মোট ৬৬টি প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় রপ্তানি ট্রফি ২০১৬-১৭ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

এবি ব্যাংকে নতুন দুই ডিএমডি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

মাহমুদুল আলম ও আবদুর রহমান সম্প্রতি এবি ব্যাংকের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর (ডিএমডি) হিসেবে যোগ দিয়েছেন। মাহমুদুল আলম হেড

sangbad ad