• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯

 

খেলাপি ঋণের অর্ধেকের বেশি রাষ্ট্রায়ত্ত আট ব্যাংকের : আদায় করা যাচ্ছে না ঋণের ৩২ শতাংশই

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০১৯

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
image

মার্চ শেষে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ছয় ব্যাংকের মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫৩ হাজার ৮৭৯ কোটি ৪৫ লাখ টাকা, যা তাদের বিতরণ করা ঋণের ৩২ দশমিক ২০ শতাংশ। এর আগের প্রান্তিকে (ডিসেম্বর শেষে) সোনালী, রূপালী, জনতা, অগ্রণী, বেসিক ও বিডিবিএল এই ছয় ব্যাংকের মোট খেলাপি ঋণ ছিল ৪৮ হাজার ৬৯৫ কোটি ৮৭ লাখ টাকা, যা ওই সময়ের বিতরণ করা ঋণের ২৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ। সে হিসেবে তিন মাসে ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৫ হাজার ১৮৩ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। অথচ অর্থমন্ত্রী দায়িত্ব নিয়ে ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ আর বাড়তে দেয়া হবে না বলে জানিয়েছিলেন। তারপর ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ কম দেখাতে বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নেয়া হলেও থেমে থাকেনি খেলাপি ঋণ বৃদ্ধি। আগামী প্রান্তিক (জুন) শেষে এ হার আরও বাড়বে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকের মতো বিশেষায়িত (বাংলাদেশ কৃষি ও রাজশাহী কৃষি) দুই ব্যাংকের মার্চ শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণও বেড়েছে। এ সময় ব্যাংক দুটির খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে চার হাজার ৭৮৮ কোটি টাকা, যা মোট ঋণের ১৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ। এই সময় তাদের মোট ঋণ দাঁড়িয়েছে ২৪ হাজার ৬০২ কোটি টাকা।

উল্লেখ, ঋণখেলাপিদের নানা সুবিধার ঘোষণার মধ্যেই ব্যাংক খাতের মোট খেলাপি ঋণ বেড়েছে। তিন মাসের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা। মোট খেলাপি ঋণ এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে, যা এ যাবৎকালের রেকর্ড। পরিমাণের পাশাপাশি খেলাপি ঋণের হারও বেড়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিক শেষে (জানুয়ারি-মার্চ) মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক লাখ ১০ হাজার ৮৭৩ কোটি ৫৪ লাখ টাকা, যা ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা ঋণের ১১ দশমিক ৮৭ শতাংশ। এর আগের প্রান্তিক অর্থাৎ গত বছরের ডিসেম্বর শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ৯৩ হাজার ৯১১ কোটি ৪০ লাখ টাকা, যা ওই সময়ের বিতরণ করা ঋণের ১০ দশমিক ৩০ শতাংশ।

ব্যাংকাররা বলছেন, সাধারণত বছরের প্রথম প্রান্তিক অর্থাৎ মার্চে খেলাপি ঋণ কিছুটা বাড়ে। এর কারণ ডিসেম্বরে বছর শেষের হিসাব হয় বিধায় ব্যাংকগুলো পুনঃতফসিল বাড়িয়ে দেয়। ঋণ আদায়েও বাড়তি চেষ্টা থাকে। এর বাইরে অন্য কারণও রয়েছে। যেমন- এ বছর ব্যবসায়ীদের কেউ কেউ কেন্দ্রীয় ব্যাংক ঘোষিত ঋণ পরিশোধের বিশেষ সুবিধা নেয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন। এ কারণে মোট খেলাপি ঋণ বেড়েছে। যদিও যেসব সুবিধা ঘোষণা করা হয়েছে তা এখনও কার্যকর হয়নি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ বলেন, মার্চ প্রান্তিকে খেলাপি ঋণ বাড়ার অন্যতম কারণ হলো, ডিসেম্বর প্রান্তিকে ব্যাংকগুলো অনেক খেলাপি ঋণ কৌশলে লুকিয়ে রাখে। কারণ ডিসেম্বর মাস ব্যাংকের বার্ষিক হিসাবের সমাপনী প্রান্তিক হওয়ায় খেলাপি ঋণ কম হলে ব্যাংকের লাভ। লুকিয়ে রাখা এসব খেলাপি ঋণ মার্চ প্রান্তিকে হিসাবে ঢুকেছে। তিনি আরও বলেন, ব্যাংকগুলোর ব্যবস্থাপনা দুর্বলতার কারণে অনেক বছর ধরেই খেলাপি ঋণ বাড়ছে। এটা কমানোর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ঋণকে খেলাপি হিসেবে শ্রেণীকৃত করার সময়সীমা বাড়িয়েছে। যদিও নিয়ম শিথিলের এই প্রভাব মার্চ প্রান্তিকে পড়েনি। আগামী জুন প্রান্তিকে পড়বে। কিন্তু কেন্দ্রীয় ব্যাংক যা করেছে তা একটা ভুল পদ্ধতি। এতে প্রকৃত অর্থে খেলাপি ঋণ কমবে না বলে তিনি মনে করেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ অনেক বেড়েছে। তিন মাসের ব্যবধানে বেসরকারি ৪০ ব্যাংকে খেলাপি ঋণ ১১ হাজার ৮১০ কোটি টাকা বেড়েছে। মার্চ শেষে বেসরকারি ব্যাংকে মোট খেলাপি ঋণ ৪৯ হাজার ৯৫০ কোটি টাকা, যা এসব ব্যাংকের বিতরণ করা ঋণের ৭ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। গত ডিসেম্বর শেষে বেসরকারি ব্যাংকে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ৩৮ হাজার ১৩৯ কোটি ৮৫ লাখ টাকা, যা ওই সময়ে তাদের বিতরণ করা ঋণের ৫ দশমিক ৫৪ শতাংশ।

মার্চ শেষে বিদেশি ৯ ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২৫৬ কোটি ৫১ লাখ টাকা, যা ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা ঋণের ৬ দশমিক ২০ শতাংশ। গত ডিসেম্বর শেষে এসব ব্যাংকে মোট খেলাপি ঋণ ছিল ২ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ। আর দুই বিশেষায়িত ব্যাংকের (কৃষি ও রাকাব) খেলাপি ঋণের পরিমাণ ৪ হাজার ৭৮৭ কোটি ৬৪ লাখ টাকা, যা অপরিবর্তিত রয়েছে। ব্যাংক দুটির বিতরণ করা ঋণের ১৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ খেলাপি।

ব্যাংক খাতে উচ্চমাত্রার খেলাপি ঋণ নিয়ে অর্থনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, উদ্যোক্তা মহলে ব্যাপক সমালোচনা রয়েছে। আ হ ম মুস্তফা কামাল অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই খেলাপি ঋণ কমানোর বিষয়ে ব্যাপক সরব। খেলাপি ঋণ কমাতে এরই মধ্যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। গত ২১ এপ্রিল বাংলাদেশ ব্যাংক ঋণ শ্রেণীকরণ ও প্রভিশনিং বিষয়ে নতুন নীতিমালা জারি করে। এতে খেলাপি হওয়ার সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া কেন্দ্রীয় ব্যাংক গত ১৬ মে তারিখে ঋণ পুনঃতফসিল ও এককালীন ঋণ পরিশোধ সংক্রান্ত বিশেষ নীতিমালা জারি করে। এর মাধ্যমে মাত্র ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়ে ৯ শতাংশ সুদে ১০ বছরে (এক বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ) পরিশোধের সুবিধা দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। সার্কুলারে বলা হয়, ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বরভিত্তিক মন্দমানের শ্রেণীকৃত ঋণের ক্ষেত্রে এই সুবিধা দেয়া যাবে। তবে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশন গত ২১ মে ওই সার্কুলারের কার্যকারিতার ওপর আগামী ২৪ জুন পর্যন্ত স্থিতাবস্থা জারি করে।

পুঁজিবাজারে চার ডজন কোম্পানির পরিচালকের নেই ন্যূনতম শেয়ার

এস এম জাকির হোসাইন

image

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির উদ্যোক্তাদের সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ এবং পরিচালকের ব্যক্তিগতভাবে ২ শতাংশ শেয়ার থাকা বাধ্যতামূলক। কিন্তু পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৩১৭ কোম্পানির মধ্যে ৪৮

কর ফাঁকি রোধে অ্যাপ তৈরি করবে এনবিআর

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

রাজস্ব ও কর ফাঁকি রোধে সফটওয়্যার এবং মোবাইল অ্যাপ তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। সফটওয়্যারের মাধ্যমে আয়কর বিভাগের ৬৪৯টি কর অঞ্চলকে মোবাইল অ্যাপের সঙ্গে যুক্ত

ঋণ প্রবাহ বাড়ানোর সঙ্গে কমাতে হবে সুদহার : এফবিসিসিআই

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য ৫৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে সরকার। এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সহজলভ্য

sangbad ad

এবারও কঠিন হবে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যপূরণ

রোকন মাহমুদ

image

বেসরকারি খাতে ১৪ দশমিক ৮০ শতাংশ ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যপূরণ করাও কঠিন হবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, চলতি

ব্যাংকারদের আইসিটিতে দক্ষতা বাড়ানোর পরামর্শ

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) ‘ইউজ অব

বেসকারি ঋণে অর্জন হয়নি মুদ্রানীতির লক্ষ্য

রোকন মাহমুদ

image

বেসরকারি খাতে ব্যাংকের ঋণপ্রবাহ কমছেই। এমনকি গত ছয় বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন ঋণ বিতরণ করেছে ব্যাংকগুলো। গত জুন পর্যন্ত বার্ষিক

রুগ্ণ পুঁজিবাজারে পতন হচ্ছে আরও

রোকন মাহমুদ

image

রুগ্ণ পুঁজিবাজার দিন দিন আরও জীর্ণশীর্ণ হচ্ছে। নানা অনিয়মে প্রাইমারি বাজারে বন্ধ হয়েছে নতুন কোম্পানির আবেদন গ্রহণ। আর সেকেন্ডারি

পুঁজিবাজারকে শক্ত ভিত্তিতে দাঁড় করাতে চান অর্থমন্ত্রী

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

পুঁজিবাজারের চলমান দুরবস্থায় বিনিয়োগকারীরা যখন রাস্তায় তখন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানালেন, পুঁজিবাজারকে শক্ত ভিত্তিতে

২০২১ সাল থেকে সকল স্কুল-মাদ্রাসায় কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বাংলাদেশে প্রতি বছর ২২ লাখ লোক শ্রমবাজারে প্রবেশ করে, কিন্তু কর্মসংস্থানের জন্য যে পরিমান দক্ষতা দরকার তা তাদের নাই। ফলে অধিকাংশই

sangbad ad