• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১

 

মুশতাকের মৃত্যু নিয়ে প্রশ্ন

রাজধানীতে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ

নিউজ আপলোড : ঢাকা , শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১

সংবাদ :
  • সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image

কারাবন্দী মুশতাকের মৃত্যুর প্রতিবাদে রাজধানীর শাহবাগে বিক্ষোভ ও মশাল মিছিল -সংবাদ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের এক মামলায় কারাবন্দী লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যু নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিভিন্ন মহল। বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ হয়েছে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন, এই মৃত্যুর বিষয়ে তদন্ত করা হবে। শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে জানানো হয়, তার শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাতে গাজীপুরের কাশিমপুরের হাই সিকিউরিটি কারাগার থেকে তাকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. শাফী মোহাইমেন। তিনি বলেন, ‘মৃত্যুর কারণ জানতে ভিসেরা সংরক্ষণ করা হয়েছে। ঢাকার সিআইডির ল্যাবে কেমিক্যাল অ্যানলাইসিস এবং ঢাকা মেডিকেলে হিস্টোপ্যাথলজি পরীক্ষা করা হবে।’

শুক্রবার চট্টগ্রামে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নে জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সব মৃত্যুর বিষয়েই এনকোয়ারি হয়। একটা অস্বাভাবিক মৃত্যু বলুন বা স্বাভাবিক মৃত্যু বলুন। নানা প্রশ্ন আসে। যেকোন মৃত্যুর ঘটনায় কারাগারে হোক বা এক্সিডেন্ট হোক, একটা পোস্টমর্টেম হয়। পোস্টমর্টেমের পর সঠিকভাবে আমরা বলতে পারব কেন এই মৃত্যুটা হয়েছে। এনকোয়ারি কমিটি প্রয়োজন বোধে করব। কালকে তো হলো, নিশ্চয় এটার ব্যবস্থা আমরা করতে পারব।’

বৃহস্পতিবার রাতে গাজীপুরের কাশিমপুরে কারাবন্দী অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন ৫৩ বছর বয়সী লেখক মুশতাক আহমেদ। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের এক মামলায় গত বছর ৬ মে ঢাকার লালমাটিয়া থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। তার সঙ্গে কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরকেও গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি অনলাইনে লেখালেখিতে বেশ সক্রিয় ছিলেন। ২০২০ সালে ৭ মে ‘সরকারবিরোধী প্রচার ও গুজব ছড়ানোর’ অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তাদের বিরুদ্ধে রমনা থানায় মামলা করা হয়।

এই মামলায় রাষ্ট্রচিন্তার সংগঠনের দিদারুল ভূইয়া এবং ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সাবেক পরিচালক মিনহাজ মান্নানকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। তবে পরে এ দুজন জামিনে মুক্তি পান। মুশতাক ও কিশোরের পক্ষে বেশ কয়েকবার জামিনের আবেদন করা হলে আদালতে তা নাকোচ করেন। এই মামলায় আসামির তালিকায় আরও ছিলেন নেত্র নিউজের সম্পাদক সুইডেন প্রবাসী তাসনিম খলিল, জার্মানিতে থাকা ব্লগার আসিফ মহিউদ্দিন, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সাংবাদিক শাহেদ আলম, হাঙ্গেরি প্রবাসী জুলকারনাইন সায়ের খান (আল জাজিরার প্রতিবেদনের স্যামি), আশিক ইমরান, স্বপন ওয়াহিদ ও ফিলিপ শুমাখার। মোট ১১ জনের মধ্যে তদন্তের পর পুলিশ শুধু মুশতাক, কিশোর ও দিদারকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হয়। মিনহাজ মান্নানসহ বাকি আট আসামিকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়ার আবেদন করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘প্রথম কথা হলো, যে লেখকের কথা বললেন, মুশতাক আহমেদ। তিনি আগেও দুই-একবার তার লেখনিতে আইনশৃঙ্খলা কিংবা অন্যের বিশ্বাসের প্রতি আঘাত করেছিলেন। সেজন্য অনেকেই মামলা করেছিলেন। সম্প্রতি ২০২০ সালে যে মামলাটি হয়েছিল সেই মামলার জন্য তিনি কাশিমপুর জেলখানায় অন্তরীণ ছিলেন। হঠাৎ করেই আমাদের আইজি প্রিজন থেকে আমি যে সংবাদটা পেয়েছি, তিনি হঠাৎ করে অসুস্থ বোধ করলে কারাগারে যে হাসপাতাল আছে সেখানে চিকিৎসাসেবা পান। তারপর অবস্থা আরেকটু খারাপের দিকে গেলে গাজীপুর তাজউদ্দিন মেমোরিয়াল হাসপাতালে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে মৃত্যুবরণ করেন।’

বৃহস্পতিবার রাতে গাজীপুরের কাশিমপুরের হাই সিকিউরিটি কারাগারে তার মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন ওই কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার মো. গিয়াস উদ্দিন। কী কারণে ৫৩ বছর বয়সী মুশতাকের মৃত্যু হয়েছে, সে বিষয়ে স্পষ্ট কোন বক্তব্য তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়নি। কারা কর্মকর্তা গিয়াস সাংবাদিকদের বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রাত ৮টা ২০ মিনিটের দিকে হঠাৎ তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। দ্রুত তাকে শহীদ তাজউদ্দীন মেডিকেলে নেয়া হলে ডাক্তার মৃত বলে জানান।’

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানার ছোট বালাপুর এলাকার আবদুর রাজ্জাকের ছেলে মুশতাক বাংলাদেশে কুমির চাষের অন্যতম উদ্যোক্তা। মুশতাক যুক্তরাজ্যে পড়াশোনারে সুযোগে ফ্রান্সের বিভিন্ন খামার ঘুরে দেখে দেশে ফেরার পর এক যুগ আগে ময়মনসিংহের ভালুকায় প্রথম কুমির খামার করতে নেমেছিলেন। বাংলাদেশ থেকে কুমির রপ্তানি তার হাত দিয়েই শুরু হয়। এ বিষয়ে একটি বইও লিখেছেন তিনি।

র‌্যাবের করা মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে ফেইসবুক ব্যবহার করে জাতির জনক, মুক্তিযুদ্ধ, করোনাভাইরাস মহামারী সম্পর্কে গুজব, রাষ্ট্র/সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণœœ করার অভিপ্রায়ে অপপ্রচার বা বিভ্রান্তি ছড়ানো, অস্থিরতা-বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পাঁয়তারার অভিযোগ আনা হয়েছিল। হোয়াটস অ্যাপ ও ফেইসবুক মেসেঞ্জারে কিশোর ও মুশতাকের সঙ্গে তাসনিম খলিল, জুলকারনাইন সায়ের খান, শাহেদ আলম, আসিফ মহিউদ্দিনের ‘ষড়যন্ত্রমূলক চ্যাটিংয়ের প্রমাণ’ পাওয়ার দাবিও করেছিল র‌্যাব।

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের অন্য এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি করার জন্য অনেকে অনেক রকম কাজ করে যাচ্ছে। আল-জাজিরা যে নিউজ দিয়েছে বাংলাদেশের মানুষ তা বিশ্বাস করেনি। এদেশের মানুষ আল-জাজিরা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। সবগুলোই আমরা খতিয়ে দেখব। কেন এই মিথ্যা সংবাদ, কেন এই মিথ্যা নিউজ প্রচার করেছে তা তদন্ত করে দেখছি। এর সঙ্গে দেশের কেউ জড়িত কিনা তাও তদন্ত করে দেখা হবে।’

কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যু অনাকাক্সিক্ষত বলে উল্লেখ করেছেন আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘মুশতাক আইনি বৈষম্যের শিকার। যেখানে খুনের আসামিরা জামিন নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, সেখানে লেখালেখির কারণে মুশতাককে এত দীর্ঘ সময় কারাবন্দী করে রাখাটা আইনি বৈষম্য। আমরা বলছি দেশে গণতন্ত্র নেই। এটা তো আসলে কিছুই না। আসলে এই মৃত্যু বোঝাচ্ছে রাষ্ট্র ব্যবস্থাতে তো কিছুই নেই। মুশতাক আহমেদ সর্বশেষ ২৩ ফেব্রুয়ারি আদালতে হাজিরা দিয়েছিলেন। সেদিন তাকে দেখেছি। তার এমন কোন অসুস্থতা দেখিনি, যাতে মৃত্যু হতে পারে। আমার কাছে এই মৃত্যু খুবই রহস্যজনক মনে হচ্ছে। এ বিষয়ে স্বাধীন তদন্ত হওয়া দরকার।’

মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে বিক্ষোভ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাবন্দী অবস্থায় মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে সমাবেশে ও গায়েবানা জানাজা হয়েছে ঢাকার শাহবাগে। শুক্রবার বিকেলে জাতীয় জাদুঘরের সামনে এই প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে অবিলম্বে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানানো হয়। একইসঙ্গে এই আইনে গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তি ও ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানায় বিভিন্ন সংগঠন। এ ঘটনাকে ‘রাষ্ট্রীয় হত্যাকা-’ হিসেবে বর্ণনা করে সমাবেশ থেকে ৩ মার্চ সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় অভিমুখে বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। সমাবেশে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘লেখক মুশতাক আহমেদকে হত্যা করা হয়েছে। সরকার, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সঙ্গে যারা জড়িত, তারা প্রত্যেকে এজন্য দায়ী।’

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় আটক অবস্থায় মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে শাহবাগ মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে বামপন্থি ছাত্র সংগঠনগুলো। শুক্রবার সকাল ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে পরীবাগ ঘুরে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেন সংগঠনগুলোর শতাধিক নেতাকর্মী। এক ঘণ্টার বেশি সময় বিক্ষোভকারীদের অবস্থানের কারণে শাহবাগ মোড়ের চারপাশের রাস্তায় যানজট সৃষ্টি হয়। শাহবাগের অবস্থান থেকে সন্ধ্যায় টিএসসিতে মশাল মিছিল এবং ১ মার্চ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টায় টিএসসি অভিমুখে বিক্ষোভ মিছিলের মাধ্যমে কর্মসূচি শেষ করা হয়।

শুক্রবার শাহবাগে অবস্থান কর্মসূচিতে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের (বাসদ) কেন্দ্রীয় সভাপতি আল কাদেরী জয় বলেন, ‘সরকার দেশে লুটপাট ও মাফিয়াতন্ত্র তৈরি করেছে। পুরো দেশকে একটি পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করা হয়েছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন দিয়ে সরকার জনগণের কণ্ঠরোধ করছে। তারই বলি হয়েছেন লেখক মুশতাক। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও ধিক্কার জানাই। একই সঙ্গে অবিলম্বে এই নিবর্তনমূলক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানাই। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায় আমাদের আন্দোলন চলবে।’

প্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে কারাবন্দী লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানিয়েছে গণসংহতি আন্দোলন। একই সঙ্গে জনগণের স্বার্থে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি তোলেন দলটির নেতারা। শুক্রবার বিকেলে নগরীর চাষাঢ়ায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে এসব দাবি জানান তারা।

অপমৃত্যুতে মামলা ও আজিমপুরে দাফন

মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় গাজীপুর সদর থানায় একটি ‘অপমৃত্যু’ মামলা করে কারা কর্তৃপক্ষ। শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে মুশতাকের মরদেহ শুক্রবার বিকেলে ঢাকার লালমাটিয় বাসায় আনা হয়। পরে লালমাটিয়া সি ব্লকের মিনার মসজিদে জানাজা শেষে আজিমপুর কবরস্থানে তাকে দাফন করার কথা রয়েছে বলে পরিবার সূত্র জানায়।

এর আগে কাশিমপুর কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার মো. গিয়াস উদ্দিন নিজে বাদী হয়ে শুক্রবার গাজীপুর সদর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেন। এছাড়া গাজীপুরের নির্বাহী হাকিম ও সহকারী কমিশনার মো. ওয়াসিম উজ্জামান চৌধুরীর উপস্থিতিতে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মুশতাকের মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। এ বিষয়ে গাজীপুরের সদর থানার এসআই সৈয়দ বায়েজীদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘তার পিঠে আগের যেকোন সময় ঘা হওয়ার মতো দাগ পাওয়া গেছে। ডান হাতে হালকা লালচে-কালো ছোট দাগ পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, হাসপাতালে আনার সময় বা গাড়িতে ওঠানো-নামানোর সময় এ দাগ হয়ে থাকতে পারে।’

পুলিশ মুভমেন্ট পাস ইস্যু ইতোমধ্যে ৫ লাখ

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

সরকার ঘোষিত লকডাউনে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কারও ঘর থেকে বের হওয়া নিরুৎসাহিত করা হয়েছিল পুলিশের পক্ষ থেকে।

সালমা আদিল ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় চিকিৎসকদের জন্য করোনা টেস্টিং বুথ স্থাপন

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

করোনা মহামারীর দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় সম্মুখসারিতে কর্মরত চিকিৎসকদের করোনা স্যাম্পল সংগ্রহে চট্টগ্রাম মেডিকেল

লকডাউনে স্বাস্থ্যকর্মীরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

করোনা মহামারীর মধ্যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জনগণের স্বাস্থ্যসেবা দিতে গিয়ে স্বাস্থ্যকর্মীরা পরিচয়পত্র দেখানোর পর ঘাটে ঘাটে পুলিশি হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

sangbad ad

দু’দিনে রেকর্ড মৃত্যু ১৫ দিনে হাজার পার

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

‘লকডাউনে’ গত দু’দিনে করোনার নমুনা পরীক্ষা কমেছে। এই দু’দিনে প্রায় চার হাজার করে নমুনা পরীক্ষা কমেছে।

লকডাউনেও ঠেকানো যাচ্ছে না মানুষের চলাচল

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

লকডাউন ঘোষণা করে সরকারি-বেসরকারি সব অফিস বন্ধ করে দেয়া হলেও ঠেকানো যাচ্ছে না রাস্তায় মানুষের চলাচল।

সিলেটে মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা, বৈষ্ণব গ্রেপ্তার

প্রতিনিধি, সিলেট

image

সিলেটের গোলাপগঞ্জের বাঘায় মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে এক বৈষ্ণব (পুরোহিত) কে গ্রেপ্তার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ।

চিকিৎসকের বাসায় ঢুকে জিনিসপত্র তছনছ

প্রতিনিধি, সিলেট

image

সিলেটে রােটারী ক্লাব নিয়ে বিরােধের জের ধরে একজন চিকিৎসকের বাসায় জােরপূর্বক ঢুকে ল্যাপটপ থেকে বিভিন্ন জায়গায় ই-মেইল পাঠিয়ে বাসার জিনিসপত্র তছনছ করার অভিযােগ পাওয়া গেছে।

ভােলাগঞ্জে অবৈধভাবে পাথর তুলতে গিয়ে শ্রমিকের মৃত্যু

প্রতিনিধি, সিলেট

image

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জ রেলওয়ে বাংকারে সরকারি জায়গায় অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে কালবৈশাখির কবলে পড়ে জহিরুল ইসলাম (১৭) নামে এক কিশোর শ্রমিকের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে।

সিলেটে নামাজের সময় গেটে তালা

প্রতিনিধি, সিলেট

image

মসজিদে ২০ জনের বেশি মুসল্লি নয়- সরকারের এমন নির্দেশনা মানতে গিয়ে সিলেটে মসজিদের গেইটে তালা মেরে দিলেও মুসল্লিদের জোর দাবি ও ক্ষোভের মুখে গেট খুলে দিতে বাধ্য হন মসজিদ কর্তৃপক্ষ।