• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১

 

রংপুরে

খাদ্য বিভাগের ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান পুরোপুরি ব্যার্থ

তিন উপজেলায় এক কেজিও ধান ও চাল কেনা হয়নি

নিউজ আপলোড : ঢাকা , শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১

সংবাদ :
  • লিয়াকত আলী বাদল রংপুর
image

শষ্য ভান্ডার বলে খ্যাত রংপুরে আমন মৌসুমে খাদ্য বিভাগের ধান চাল সংগ্রহ অভিযান পুরোপুরি ব্যার্থ হয়েছে। আগামী ২৮ ফেরুয়ারী রোববার সংগ্রহ অভিযান শেষ হতে যাচ্ছে অথচ লক্ষ্য মাত্রার ১০ ভাগও পুরন হয়নি। অন্যদিকে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা এক ভাগও পুরন হয়নি। ধান কেনার লক্ষ্য মাত্রা যেখানে ছিলো ১০ হাজার ৩শ৮২ মেট্রিক টন, সেখানে কেনা হয়েছে মাত্র ২ হাজার মেট্রিক টন। অন্য দিকে চাল কেনার লক্ষ্য মাত্রা যেখানে ছিলো ১৭ হাজার ৬শ৩৮ মেট্রিক টন সেখানে কেনা হয়েছে মাত্র ১ হাজার ৩শ ৯১ মেট্রিকটন।

রংপুর জেলা খাদ্য কর্মকর্তার অধিদপ্তর সুত্রে জানা গেছে এবার আমন মৌসুমে শষ্য ভান্ডার বলে পরিচিতি রংপুর জেলা ও ৮ উপজেলার জন্য লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করে দেয় খাদ্য বিভাগ। কিন্তু খাদ্য বিভাগের নিবন্ধিত অটোমেটেক রাইস মিল সহ হাসকিং মিল যেখানে রয়েছে ৩শর বেশী। সেখানে খাদ্য বিভাগের সাথে চুক্তি করেছিলো মাত্র ৬৩ জন চালকল মালিক। তার পরেও চুক্তিবদ্ধ চালকল মালিকরাই তাদের সাথে চুক্তি করা চালই দিতে পারেনাই। গত বছর বোরো মৌসুমেও রংপুর জেলায় ধান চাল ক্রয় অভিযান ব্যার্থ হয়েছিলো। সেবারও খাদ্য বিভাগ ঘোষনা দিয়েছিলো যে সব চুক্তিবদ্ধ মিলার চুক্তি করেও চাল দেয়নি তাদের আর্নেষ্ট মানি বাজেয়াপ্ত করা সহ চুক্তি বাতিল করা হবে নতুন করে আর চুক্তি করা হবেনা কিন্তু খাদ্য বিভাগ নিজেদের নির্দ্দেশনা নিজেরাই বাস্তবায়ন করতে পারেনি।

একই ভাবে খাদ্য বিভাগের নির্ধারন করা মুল্যের চেয়ে বাজারে ধানের দাম বেশী হওয়ায় কৃষকরা এবার ধান বিক্রয় করতে রাজি হয়নি। তার উপর খাদ্য বিভাগেড়র কর্মকর্তাদের দুর্নিতী ঘুষ বানিজ্য হয়রানির কারনে এবারেও ধান বিক্রি করতে যায়নি খাদ্য বিভাগের কাছে।

খাদ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে রংপুর জেলায় এবার উপজেলা ওয়ারী ধান ও চাল কেনার লক্ষ্য মাত্রা যা ছিলো রংপুর সদর উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ১ হাজার ৭১ মেট্রিক টন এর বিপরীতে এক কেজি ধান কিনতে পারেনি খাদ্য বিভাগ। অন্যদিকে চাল কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ২ হাজার ৯শ ৬৬ মেট্রিক টন এর বিপরীতে কেনা হয়েওছে মাত্র ২শ ৬৭ মেট্রিকটন চাল। অপরদিকে বদরগজ্ঞ উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ১ হাজার ৬ মেট্রিক টন কেনা হয়নি এক কেজিও চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ১ হাজার ৮৪ মেট্রিক টন কেনা হয়েছে মাত্র ২০ মেট্রিক টন। মিঠাপুকুর উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ৪ হাজার ১শ ৯৮ মেট্রিক টন কেনা হয়নি এক কেজিও। চাল কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ৩ হাজার ৮শ ৫৮ মেট্রিক টন এর মধ্যে কেনা হয়েছে মাত্র ৪শ ১৯ মেট্রিক টন। পীরগজ্ঞ উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ১ হাজার ১শ ৯৪ মেট্রিক টন কেনা হয়েছে ২ হাজার টন। চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৩ হাজার ৮শ ২ মেট্রিক টন টন কেনা হয়েওছে মাত্র ৬শ ৭৯ মেট্রিক টন, তারাগজ্ঞ উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৫শ ২ মেট্রিক টন কেনা হয়নি এক কেজিও। চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ২ হাজার ৬শ ৭৪ মেট্রিক টন কেনা হয়নি এক কেজিও। অন্যদিকে গঙ্গাচড়া উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৮শ ৫০ মেট্রিক টন কেনা হয়নি এক কেজিও । চাল কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ৬শ ৭৬ মেট্রিক টন অথচ এক কেজিও চাল কেনা সম্ভব হয়নি খাদ্যৗ বিভাগের। কাউনিয়া উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৫শ ৯৪ মেট্রিক টন কেনা হয়নি এক কেজিও । চাল কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ১ হাজার ২শ ৯৪ মেট্রিক টন সেখানে চাল কেনা হয়েছে মাত্র ৪ হাজার ৬শ মেট্রিক টন। পীরগাছা উপজেলায় ধান কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ৯শ ৬৭ মেট্রিক টন কেনা হয়নি এক কেজিও , অন্যদিকে চাল কেনার লক্ষ্য মাত্রা ছিলো ১ হাজার ২শ ৮৪ মেট্রিক টন সেখানে এক কেজিও চাল কেনা সম্ভব হয়নি।

নাম প্রকাশে অনিশ্চুক এক খাদ্য কর্মকর্তা জানিয়েছেন তারাগজ্ঞ , গঙ্গাচড়া ও পীরগাছা খাদ্য বিভাগের গুদাম ও উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তারা এক কেজিও ধান ও চাল কিনতে পারেনি এ জন্য তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

সার্বিক বিষয়ে জানতে রংপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুল কাদেরের সাথে শুক্রবার বিকেলে তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জেলায় ধান চাল সংগ্রহ অভিযান সফল করা যায়নি বলে স্বীকার করেন। তিনি আরও বলেন আগামী ২৮ ফেরুয়ারী পর্যন্ত সময় সীমা রয়েছে। এটা বৃদ্ধি করার কোন আদেশ আসেনি। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান মাত্র ৬৩ জন মিলার তাদের সাথে চুক্তি করলেও তারাও চাল পুরোপুরি দিতে পারেনি। বাজার মুল্য বেশী হওয়ায় কৃষকরা ধান বিক্রি করতে অনীহা প্রকাশ করায় এবার ধান কেনা সম্ভব হয়নি বলে জানান তিনি।

তবে খাদ্য বিভাগের একটি সূত্র জানিয়েছে ২০১৯ সালে যখন বাজার মুল্যের চেয়ে ১০ টাকা বেশী দামে চাল কিনেছিলো খাদ্য বিভাগ সেবার তারাগজ্ঞের একটি অটো মেটিক রাইস মিল সহ জেলার অনেক মিল বন্ধ থাকলেও ঘুষ বানিজ্যের মাধ্যমে চাল কেনা দেখিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে। পুরো বিষয় উচ্চ পর্যায়ে তদন্ত করে দায়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবার দাবি খোদ খাদ্য বিভাগের।

পুলিশ মুভমেন্ট পাস ইস্যু ইতোমধ্যে ৫ লাখ

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

সরকার ঘোষিত লকডাউনে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কারও ঘর থেকে বের হওয়া নিরুৎসাহিত করা হয়েছিল পুলিশের পক্ষ থেকে।

সালমা আদিল ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় চিকিৎসকদের জন্য করোনা টেস্টিং বুথ স্থাপন

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

করোনা মহামারীর দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় সম্মুখসারিতে কর্মরত চিকিৎসকদের করোনা স্যাম্পল সংগ্রহে চট্টগ্রাম মেডিকেল

লকডাউনে স্বাস্থ্যকর্মীরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

করোনা মহামারীর মধ্যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জনগণের স্বাস্থ্যসেবা দিতে গিয়ে স্বাস্থ্যকর্মীরা পরিচয়পত্র দেখানোর পর ঘাটে ঘাটে পুলিশি হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

sangbad ad

দু’দিনে রেকর্ড মৃত্যু ১৫ দিনে হাজার পার

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

‘লকডাউনে’ গত দু’দিনে করোনার নমুনা পরীক্ষা কমেছে। এই দু’দিনে প্রায় চার হাজার করে নমুনা পরীক্ষা কমেছে।

লকডাউনেও ঠেকানো যাচ্ছে না মানুষের চলাচল

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

লকডাউন ঘোষণা করে সরকারি-বেসরকারি সব অফিস বন্ধ করে দেয়া হলেও ঠেকানো যাচ্ছে না রাস্তায় মানুষের চলাচল।

সিলেটে মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা, বৈষ্ণব গ্রেপ্তার

প্রতিনিধি, সিলেট

image

সিলেটের গোলাপগঞ্জের বাঘায় মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে এক বৈষ্ণব (পুরোহিত) কে গ্রেপ্তার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ।

চিকিৎসকের বাসায় ঢুকে জিনিসপত্র তছনছ

প্রতিনিধি, সিলেট

image

সিলেটে রােটারী ক্লাব নিয়ে বিরােধের জের ধরে একজন চিকিৎসকের বাসায় জােরপূর্বক ঢুকে ল্যাপটপ থেকে বিভিন্ন জায়গায় ই-মেইল পাঠিয়ে বাসার জিনিসপত্র তছনছ করার অভিযােগ পাওয়া গেছে।

ভােলাগঞ্জে অবৈধভাবে পাথর তুলতে গিয়ে শ্রমিকের মৃত্যু

প্রতিনিধি, সিলেট

image

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জ রেলওয়ে বাংকারে সরকারি জায়গায় অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে কালবৈশাখির কবলে পড়ে জহিরুল ইসলাম (১৭) নামে এক কিশোর শ্রমিকের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে।

সিলেটে নামাজের সময় গেটে তালা

প্রতিনিধি, সিলেট

image

মসজিদে ২০ জনের বেশি মুসল্লি নয়- সরকারের এমন নির্দেশনা মানতে গিয়ে সিলেটে মসজিদের গেইটে তালা মেরে দিলেও মুসল্লিদের জোর দাবি ও ক্ষোভের মুখে গেট খুলে দিতে বাধ্য হন মসজিদ কর্তৃপক্ষ।