• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১

 

সেই ফেনীতেই প্রার্থী পাচ্ছে না বিএনপি

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১

সংবাদ :
  • ফয়েজ আহমেদ তুষার, ঢাকা ও সাবিহ মাহমুদ, ফেনী

১৯৯১ থেকে ২০০৮- চারটি জাতীয় নির্বাচন। সবগুলোতেই ফেনী-১ আসনে জয়ী হয়েছিল বিএনপি। প্রার্থী ছিলেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ১৯৯১ এবং ১৯৯৬- ফেনীর একটি আসন থেকে আওয়ামী লীগের জয়নাল হাজারী বিজয়ী হয়েছিলেন। ১৯৯১ থেকে ২০০৮- চারটি সংসদ নির্বাচনে বাকি সব আসনই বিএনপির দখলে ছিল। কিন্তু এখন সেই ফেনীতেই পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী দিতে পারছে না বিএনপি।

জেলার পাঁচ পৌরসভার তিনটিতে সম্প্রতি তফসিল ঘোষিত হয়েছে। দুটি মেয়র ছাড়া কাউন্সিলর পদে কোথাও প্রার্থী দিতে পারেনি বিএনপি। তিন পৌরসভায় তিনজন মেয়রসহ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরের মোট ৫১টি পদের ৩৫টিতে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী। অন্য দুই পৌরসভা ছাগলনাইয়া ও সোনাগাজীতে এখনও তফসিল ঘোষণা করেনি নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

স্থানীয় সূত্র বলছে, ক্ষমতার পালাবদলে ফেনীতে জয়নাল হাজারীর অস্তিত্ব বিলীন হয়ে গেছে। উত্থান হয়েছিল ভিপি জয়নালের (জয়নাল আবেদীন) রাজত্বের। প্রথম জন জাতীয় পার্টি হয়ে আওয়ামী লীগের এবং দ্বিতীয় জন বিএনপি মনোনীত সংসদ সদস্য ছিলেন ফেনী-২ আসনে। এখন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী ফেনীর একচ্ছত্র অধিপতি। পুরো জেলার রাজনীতি এখন তার আঙ্গুলের ইশারায় চলে।

স্থানীয় বিএনপির অভিযোগ, নিজাম হাজারী কর্মী-সমর্থক ফেনীর আনাচে-কানাচে ভীতি তৈরি করে রেখেছে। কেউ তাদের ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পায় না। স্থানীয় প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছেও তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে লাভ হয় না। বিএনপির কর্মীরা এখানে প্রতিনিয়ত ‘অত্যাচারের শিকার’। তাদের বিরুদ্ধে এখন নির্বাচনে দাঁড়ানোর মতো পরিস্থিতি বিএনপির স্থানীয় নেতাদের নেই।

জেলা বিএনপির সদস্য সচিব ও পৌর নির্বাচনে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী আলাল উদ্দিন আলাল বলেন, ‘নির্বাচনী আইন অনুযায়ী, দলীয় মনোনয়নে মেয়র পদপ্রার্থী হলেও কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়ন নেই। তারপরও বিএনপি থেকে কাউন্সিলর পদে ভোট করার জন্য মনোনয়নপত্র বিতরণ করা হয়েছিল। এদের অধিকাংশই মনোনয়নপত্র জমা দেননি। আর যারা জমা দিয়েছেন তারাও প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।’

পরশুরামে মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সির সব পদে অন্য কোন প্রার্থী না থাকায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আসনের (ফেনী-১, ফুলগাজী, পরশুরাম ও ছাগলনাইয়া) পৌরসভা পরশুরামে দলীয় প্রার্থী দিতে না পারায় জেলা ও উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

আগামী ১৪ ফেব্রুয়রি চতুর্থ ধাপে অনুষ্ঠ্যেয় পরশুরাম পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে একজন, ৯টি ওয়ার্ডে ৯ জন সাধারণ কাউন্সিলর এবং ৩ জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ক্ষমতাসীন দল ছাড়া আর কোন রাজনৈতিক দল এমনকি স্বতন্ত্র কোন প্রার্থীও নেই।

পরশুরামে আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে উচ্ছ্বাস বিরাজ করলেও বিএনপিতে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। তফসিল অনুয়ায়ী গত ১৭ জানুয়ারি এ পৌরসভায় মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় শেষ হয়। বিকেলে সংবাদ সম্মেলন করে বিভিন্ন অভিযোগ এনে নির্বাচন বয়কটের ঘোষণা দেয় উপজেলা বিএনপি।

সংবাদ সম্মেলনে পরশুরাম উপজেলা আহ্বায়ক আবদুল হালিম মানিক ও সদস্য সচিব ইব্রাহীম খলিল মনি স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়, ‘পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সম্ভাব্য মেয়র ও কাউন্সিলরদের বাড়িতে ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলাসহ বার বার হুমকি দিয়ে আসছে। এমন পরিস্থিতিতে নির্বাচনের কোন পরিবেশ না থাকায় দলীয় ঊর্ধ্বতন নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করে পৌরসভা নির্বাচন বয়কটের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

আবদুল হালিম মানিক স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সর্বশেষ দল থেকে সিদ্ধান্ত হয়, পরশুরাম পৌর বিএনপির আহ্বায়ক কাজী ইউসুফ মাহফুজকে মেয়র হিসেবে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হবে। মনোনয়ন জমা দেয়ার জন্য তিনি প্রস্তুতিও নিচ্ছিলেন। এ খবর পেয়ে কয়েকশ লোক মাহফুজের বাড়ি ঘেরাও করে এবং তাকে হত্যার হুমকি দেয়। পরে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শেখ ফরিদ বাহার জেলা পুলিশ সুপারকে জানালে ঘটনাস্থলে পুলিশ যায়। এরপর সন্ত্রাসীরা কিছুটা দূরে গিয়ে অবস্থান নেয়। এমন ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে পরশুরামে।’

তবে পরশুরাম উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান মেয়র নিজাম উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী সাজেল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বিএনপির অভিযোগ পুরোপুরি মিথ্যা ও বানোয়াট। তারা নিজেদের সাংগঠনিক দুর্বলতার কারণে নির্বাচনে অংশ নিতে পারেনি।’

পরশুরাম উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, তফসিল ঘোষণার পর এখানে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক ছিল। তবে সবকটি পদেই একক প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন।

তৃতীয় ধাপে আগামী ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠ্যেয় ফেনী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে বিএনপিসহ ৪টি রাজনৈতিক দলের প্রার্থী আছে। তবে কাউন্সিলর পদে বিএনপির কোন প্রার্থী নেই। এ পৌরসভায় সাধারণ ১৮টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১০টিতে (১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬, ৯, ১১, ১৩ ও ১৬) এবং সংরক্ষিত ছয়টি মহিলা ওয়ার্ডের ৫টিতে (১, ২, ৩, ৪ ও ৬) আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।

গত ১৬ জানুয়ারি দ্বিতীয় ধাপে দাগনভূঞা পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের ওমর ফারুক খান বিজয়ী হয়েছেন। এখনে বিএনপিসহ আরও তিনজন প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডের মধ্যে ৪টিতে (৩, ৫, ৬ ও ৯) এবং সংরক্ষিত ৩টি মহিলা ওয়ার্ডের তিনজনই বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদের ৫ কোটি টাকার ক্ষতি

জেলা বার্তা পরিবেশক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

হেফাজতে ইসলামের কর্মী-সমর্থকদের চালানো তান্ডবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদের আনুমানিক পাঁচ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল আলম এমএসসি।

চট্টগ্রামে বৈশাখী পোশাকে ক্রেতার সাড়া নেই

চট্টগ্রাম ব্যুরো

বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতিতে বৈশাখের আবহ নেই চট্টগ্রামে। এ অবস্থায় ফ্যাশন হাউজ ও বিপণিবিতানগুলো মুখ থুবড়ে বসে আছে।

একদিনে মৃত্যুর নতুন রেকর্ড, কমেছে আক্রান্ত

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

টানা দু’দিন শনাক্তের সংখ্যা কিছুটা কমলেও এই সময়ে দেড় শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে করোনায়।

sangbad ad

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে হামলা সংঘর্ষ, নিহত ২ আহত ১৫ বাড়িঘর ভাঙচুর

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, বরিশাল

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ উলানিয়ায় এলাকার আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে হামলা ও সংঘর্ষে দুজন নিহত হয়েছেন।

সালথায় সহিংসতায় ক্ষয়ক্ষতি ৩ কোটি টাকা

কেএম রুবেল, ফরিদপুর

ফরিদপুরের সালথায় বিভিন্ন সরকারি স্থাপনায় হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় অন্তত তিন কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

লকডাউনের আগে পোশাক শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের দাবি

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

লকডাউনের আগে পোশাক শ্রমিকদের রেশনের ব্যবস্থা ও সব পাওনা

খোলা থাকবে পোশাক কারখানা

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

image

লকডাউনে জরুরি সেবা ছাড়া সবকিছু বন্ধ থাকলেও তৈরি পোশাক কারখানা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

দেশব্যাপী রোববর (১১ এপ্রিল) করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন ২৩ হাজার ৬৫৭ জন এবং দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন এক লাখ ৬৫ হাজার ৬৯১ জন।

সিলেটের কানাইঘাটে বােরাে ধানের বাম্পার ফলন

প্রতিনিধি, সিলেট

image

সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় এ বছর রেকর্ড পরিমাণ বোরো ধানের আবাদ হয়েছে।