• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০

 

হাত বাড়ালেই হাই-ভোল্টেজ তার! আতঙ্কে শতাধিক পরিবার

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ)
image

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ পৌরসভার আড়পাড়া ও চাপালী কুঠিপাড়া গ্রামের উপর দিয়ে যাওয়া ৩৩ হাজারের ‘হাই-ভোল্টেজ’ তারের নিচে চরম ঝুঁকির মধ্যে বসবাস করছে প্রায় শতাধিক পরিবারের লোকজন। এ বিভাগের নিয়ম অনুসারে ‘হাই-ভোল্টেজ’-এ তারের সঞ্চালন লাইনের নিচে কোন বসতবাড়ি বা স্থাপনা থাকার কথা না। পাশে কমপক্ষে ১০ ফুট ফাঁকা থাকতে হবে। কিন্তু বসতঘরের পাশ ঘেষেই ঝুলছে চরম ঝুঁকিপূর্ণ হাই ভোল্টেজের বিপজ্জনক তার। এ সমস্যা থেকে রেহাই পেতে এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট দপ্তরে লিখিত আবেদন করলেও সমাধানে কর্তৃপক্ষের কোন নজর নেই।

সরেজমিনে কালীগঞ্জ পৌর এলাকার আড়পাড়ার মধূপট্টি, নদীপাড়া, মাঠপাড়া,দরগাপাড়া,চাপালী কুঠিপাড়াসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণভাবে ঝুলে আছে ৩৩ হাজার হাই-ভোল্টেজের সঞ্চালন বিদ্যুত লাইনের তার।

আড়পাড়া দরগাপাড়া গ্রামের ব্যাংকার মোজাম্মেল হক ও পল্লী চিকিৎসক আব্দুল জব্বার জানান, তাদের বসতঘরের একবারে নিকট দিয়ে চলে গেছে হাই ভোল্টেজের এ বিদ্যুৎ লাইন। যে কারণে সব সময় পরিবারের শিশুদের নিয়ে চিন্তায় থাকতে হয়।

এ এলাকার আরেক বাসিন্দা হাবিব ওসমান জানান, আজ থেকে ৪০ বছর আগে বিদ্যুতের লাইনটি টানা হয়। তখন এতো জনবসতি ছিলনা। এখন ঘনবসতি গড়ে উঠেছে। আবার উদাসীনতার কারণে অনেকে বিপদজনক তার ঘেষেই ঘর তুলেছেন। এ এলাকায় অহরোহ ঘটছে দুর্ঘটনা। এলাকার সচেতন মহল দীর্ঘদিন ধরে তাদের ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থার কথা সংশ্লিষ্ট বিভাগকে জানালেও কোন সুরাহা হয়নি। এ সমস্ত এলাকার বাসিন্দারা জানান, তাদের বাসাবাড়ির ছাদ বা ঘরের অল্প ওপর দিয়েই চলে গেছে লাইন। যে কারণে অনেকে ঘরও করতে নির্মাণ করতে পারছে না। বসত বাড়ির ওপর দিয়ে যাওয়া বিপদজনক এই তারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যদি কভার পরানো দিয়ে তাহলেও কিছুটা হলেও নিরাপদে বসবাস করতে পারত।

এ ব্যাপারে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকোর) ভারপ্রাপ্ত আবাসিক প্রকৌশলী সাইদুল ইসলাম জানান, এটা অনেক আগে স্থাপিত হয়েছে। এ বিষয়ে ৩ মাস আগে ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আমি বিদ্যুৎ এলাকাটি সরেজমিনে পরিদর্শন করি। তিনি জানান, আসলেই পরিবারগুলো খুবই ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছে। বিষয়টি উপরের কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।

আটক চার জুয়াড়িকে ছেড়ে দিলো পুলিশ!

প্রতিনিধি, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)

image

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে জুয়া খেলার সরঞ্জাম ও টাকাসহ রাতে আটকের পর দিনে চার জুয়াড়িকে ছেড়ে দেওয়ার অভিয়োগ পাওয়া গেছে। বর্ষাকাল

প্রবল বৃষ্টিতে ভেসে গেছে শতাধিক পুকুরের মাছ

প্রতিনিধি, সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ)

image

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ার বালিয়াটি ইউনিয়নের জমিদার বাড়ির চারপাশের শতাধিক পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পরেছে

টয়লেট না থাকায় রোগী শূন্য ওয়ার্ড! রয়েছে আরও সমস্যা!

প্রতিনিধি, বটিয়াঘাটা (খুলনা)

image

বটিয়াঘাটা স্বাস্থ্যকেন্দ্রের তৃতীয় তলার পুরুষ ওয়ার্ডে কোন টয়লেট বা বাথরুম না থাকায় রোগী শূন্য হয়ে পড়েছে পুরুষ ওয়ার্ড। বটিয়াঘাটা

sangbad ad

কাঁচা মরিচের কেজি ২২০ টাকা

রামপ্রসাদ সরকার দীপু, মানিকগঞ্জ

image

মানিকগঞ্জের ৭টি উপজেলাতেই বেড়েছে কাঁচা মরিচের দাম। বর্তমানে জেলার বিভিন্নহাট বাজারে প্রতি কেজি বিন্দু মরিচ ২০০ টাকা থেকে ২২০ টাকা, ছিট মরিচ ১৮০ টাকা থেকে ২০০ টাকা

করোনায় আক্রান্ত রংপুর সিটি মেয়র ও তাঁর স্ত্রী

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

করোনায় আক্রান্ত হলেন রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান ও তাঁর স্ত্রী জেলী রহমান। রংপুর জেলা সিভিল সার্জন হিরম্ব কুমার রায় মঙ্গলবার এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,

চসিক প্রশাসক হলেন খোরশেদ আলম

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক

image

করোনাভাইরাসের মহামারীর মধ্যে নির্ধারিত সময়ে ভোট করতে না পারায় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে প্রশাসক বসিয়েছে সরকার। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ

ঈশ্বরদীর চামড়ার বাজার মন্দা

প্রতিনিধি, ঈশ্বরদী (পাবনা)

image

দাম কমে যাওয়ায় উত্তরাঞ্চলের অন্যতম বৃহত্তম ঈশ্বরদীর চামড়া বাজারে মন্দাভাব দেখা দিয়েছে। একটি চামড়া বিক্রি করে ১ কেজি

ফুলবাড়ীতে করোনায় আক্রান্ত শিক্ষক

প্রতিনিধি, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর)

image

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর আশিষ কুমার সাহা নামের এক সহকারী প্রধান শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। অভিযোগ তিনি করোনাকালে সরকারের বিধি নিষেধ অমান্য করেন বাড়ি বাড়ি

বাগেরহাটে নেই নতুন শনাক্ত, সুস্থ্য ৬০

প্রতিনিধি, বাগেরহাট

image

বাগেরহাট জেলায় গত ২৪ ঘন্টার করোনায় নতুন আক্রান্তের খবর পাওয়া যায় নি। তবে মারা গেছেন দুই জন। এ সময় সুস্থ হয়েছেন ৬০ জন। বাগেরহাট সিভিল সার্জন ডাঃ কে এম হুমাউন