• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

 

সরকারি হাসপাতালগুলোতে রোগী ভর্তি নিয়ে চরম অব্যবস্থা!

নিউজ আপলোড : ঢাকা , মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট ২০২০

সংবাদ :
  • বাকী বিল্লাহ

সারাদেশে সরকারি হাসপাতাল আছে ৬৫৪টি। এরমধ্যে মেডিকেল কলেজ ও স্পেশালাইজড হাসপাতাল ১৪০টি। আর উপজেলা পর্যায়ে আছে ৫১৪টি। এসব হাসপাতালে বেড সংখ্যা ৫১ হাজার ৩১৬টি। স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ বুলেটিনে বলা হচ্ছে, সরকারি হাসপাতালগুলোতে বেড খালি আছে। বাস্তবে বেড খালি হলেও করোনাভাইরাসের অজুহাতে অসংক্রামক রোগ (নন কোভিড) রোগী ভর্তি করা নিয়ে গড়িমসি করা হচ্ছে। বহিঃবিভাগে রোগী দেখা ও ডায়ানস্টিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করে রোগ নির্ণয় করার পর বলা হচ্ছে ভর্তি বন্ধ আছে কিংবা পরে আসেন। অধিকাংশ রোগীকে সরকারি হাসপাতাল থেকে ফেরত পাঠানো হচ্ছে। ফলে দেশে অসংক্রামক রোগে আক্রান্ত লাখ লাখ রোগীর দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন নিম্নমধ্যবিত্ত ও বিদেশ গিয়ে চিকিৎসা চেকআপ করা ক্রনিক রোগীরা। তাদের চিকিৎসা বন্ধ। তারা চিকিৎসার জন্য হাসপাতাল থেকে হাসপাতালে ঘুরছেন কিন্তু চিকিৎসা পাচ্ছে না। অনেকে ভারত, থাইল্যান্ড ও সিঙ্গাপুরসহ বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা ও চেকআপ করাত। তাও এখন করোনাভাইরাসের কারণে বন্ধ আছে। প্রতিমাসে কম পক্ষে ২০ হাজার রোগী সীমান্ত দিয়ে ভারতে চিকিৎসার জন্য যেত। এছাড়াও বহু রোগী বিদেশ গিয়ে ক্যানসার ও হার্টসহ নানা রোগের চিকিৎসা নিতেন। তাও বন্ধ রয়েছে।

ফরিদপুরের বাসিন্দা রাজধানীর পুরানা পল্টন এলাকার নিরাপত্তা কর্মী মো. মন্নু ওরফে মুন্না গত এক মাসের বেশি সময় ধরে খাদ্যনালী ও লিভার সমস্যায় ভুগছেন। তিনি গত এক সপ্তাহ ধরে টানা চেষ্টা করেও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হতে পারেনি। হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে তাকে ২১৮ নম্বর ওয়ার্ডে (সার্জারি বিভাগ) পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তার নানা পরীক্ষা নিরীক্ষা করেন। এ বাবদ তার ৬ হাজার টাকাও বেশি খরচ হয়। এরপর তাকে বলা হয়েছে করোনার কারণে ভর্তি আপাতত বন্ধ আছে। অবস্থার অবনতি হলে অবশেষে ১১ আগস্ট মঙ্গলবার এ দরিদ্র অসুস্থ ব্যক্তি ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে ভর্তি হন। তিনি শীর্ষ স্থানীয় দুইটি হাসপাতালে ভর্তির জন্য চিকিৎসকদের কাছে নানাভাবে বিনীত অনুরোধ করলেও কাজ হয়নি। শুধু মুন্নাই নয়। এভাবে রাজধানীসহ সারাদেশে লাখ লাখ নন কোভিড রোগী এখন চিকিৎসা ভোগান্তিতে দিন কাটছেন। অনেকেই কোন উপায় না পেয়ে অবশেষে প্রাইভেট হাসপাতালে যাচ্ছেন।

কয়েকজন বিশেষজ্ঞ নাম প্রকাশ না করা শর্তে বলেন, আগে সরকারি হাসপাতালের জরুরি ও বহিঃবিভাগে কয়েক হাজার নন কোভিড রোগী চিকিৎসা ও ভর্তির জন্য হাসপাতালে যেত। নিয়মতান্ত্রিকভাবে টিকিট নিয়ে হাসপাতালের বহিঃবিভাগে ডাক্তার দেখিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতেন। ভর্তির দরকার হলে চিকিৎসক ভর্তি লিখে দিতেন। আর সিট (বেড) খালি না থাকলে দুঃখিত বেড খালি নেই বলে রোগীকে বিদায় দিতেন। রোগী নানা তদবির করে বা কেবিন খালি থাকলে ভর্তি হতেন। এখন সব ডাক্তার আছে পরীক্ষা নিরীক্ষার রুম আছে, বেড আছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে বুলেটিনে বেড খালির কথা বলা হলেও রোগীর চিকিৎসা করা কঠিন হয়ে পড়েছে। রোগীদের বহিঃবিভাগে দেখার পর দিনের পর দিন নতুন তারিখ দিয়ে ঘোরানো হচ্ছে। অজুহাত করোনাভাইরাস আতঙ্ক। রোগীরা নানাভাবে তদবির করেও ভর্তি হতে পারেনি।

যশোর অফিস জানায়, যশোর বেনাপোলসহ বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে শুধু ভারতে মাসে ২০ হাজার রোগী চিকিৎসার জন্য যেত। এখন করোনাভাইরাসের কারণে রোগীদের বিদেশ যাওয়া যাচ্ছে না। ফলে রোগীরা দেশে হাসপাতালে চিকিৎসার চেষ্টা করেন। কিন্তু চিকিৎসা তো দূরের কথা চেকআপ করা কষ্টকর হয়ে পড়েছে।

ভারতে চিকিৎসা করত একজন রোগী বলেন, তিনি করোনাভাইরাসের আগে মাসে মাসে ভারতে গিয়ে চেকআপ ও ডায়াগোনস্টিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করতেন, এখন তা বন্ধ। কোন গতি না পেয়ে নানাভাবে তদবির করে একজন ডাক্তারের সাক্ষাৎ পাওয়ার পরও তিনি নিরাপদ দূরত্বে থেকে রোগীর কথা শুনে পরে দরজা বন্ধ করে রুমে ঢোকে রোগীকে চিকিৎসাপত্র দেন।

একজন আইসিইউ বিশেষজ্ঞ বলেন, ময়মনসিংহের ২ জন রোগী ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হতে না পেরে ঢাকা আসেন। ধারে ধারে ঘুরে ভর্তির চেষ্টা করেন। অবশেষে পরিচিত ডাক্তারের তদবিরে প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন।

এ বিশেষগজ্ঞ বলেন, সরকারি হাসপাতালগুলোতে নন কোভিড রোগীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা দরকার। কিন্তু ম্যানেজমেন্ট তাও ঠিকমত করছে না। রুটিন কিছু সার্জারি এখনও বন্ধ আছে। নন কোভিড রোগীদের ব্যাপারে জরুরি পদক্ষেপ না নিলে সমস্যা হবে। সারাদেশে হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগী সন্দেহে নন কোভিড রোগীদের দেখা নিয়ে এখনও সমস্যা হচ্ছে। আবার অনেক হাসপাতালে সেই ডাক্তারও ঠিকমত থাকে না। স্বাক্ষর দিয়ে চলে যান এমন বহু অভিযোগ রয়েছে। ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের হাসপাতালে উপস্থিতি নিশ্চিত করে পদক্ষেপ নিলে রোগীরা উপকৃত হবে। রোগী ভর্তিও জরুরি অপারেশন করা দরকার বলেও এ বিশেষগজ্ঞ মনে করেন।

কয়েকজন সিভিল সার্জন বলেন, করোনা রোগীর কারণে গুরুতর রোগী ছাড়া অন্য সমস্যা হলে রোগী ভর্তি কম করা হয়। অনেক ক্ষেত্রে করোনা রোগী হাসপাতালে আছে। এ ভয়ে অনেক রোগীও ভর্তি হচ্ছে না। জেলাগুলোতে রোগীরা ভিড় করে। করোনা ওয়ার্ডে আশপাশে খালি বেড়ে নন কোভিড রোগী ভর্তি হতে চায় না।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ডা. কনককান্তি বড়ুয়া বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনা সেন্টারে করোনা রোগী ভর্তি ছাড়াও কিছু কিছু বিভাগে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। হেমাটোলজি, মেডিসিনসহ কয়েকটি বিভাগে ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। সার্জারিসহ অন্যান্য বিভাগগুলোতে ভর্তির প্রক্রিয়া শুরু শীঘ্রই করা হবে।

এ সম্পর্কে মহাখালী রোগতত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মোস্তাক হোসেন বলেন, রোগী ভর্তি করা উচিত। প্রয়োজনে পিপিই বা পার্সোনাল প্রটেকশন পোশাক পরে রোগী দেখে চিকিৎসা ও ভর্তি করবেন।

করোনা সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি প্রফেসর ডা. ইকবাল আর্সলান বলেন, রোগী ভর্তি না করার বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।

মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক হসপিটালের দায়িত্ব প্রাপ্ত ডা. ফরিদ উদ্দিন মিয়া বলেন, খুবই তাড়তাড়ি এ বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান কর হবে। তিনি নন কোভিড ও কোভিড রোগীরা যাতে চিকিৎসার জন্য কষ্ট না পায় তার জন্য কাজ করবেন বলে জানিয়েছে।

প্রণোদনার ২ হাজার কোটি টাকা বিতরণ হলো না ৪ মাসেও

রেজাউল করিম

image

করোনায় বিপর্যস্ত পরিস্থিতিতে কর্মসংস্থান সৃষ্টি অব্যাহত রাখতে পিকেএসএফ, পল্লী সঞ্চয়, কর্মসংস্থান ও প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে

অস্ত্র মামলায় পাপিয়া দম্পতির যাবজ্জীবন চায় রাষ্ট্রপক্ষ

আদালত বার্তা পরিবেশক

image

নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক শামীমা নূর পাপিয়া

অনুমোদনের দু’বছর পরও কাজ শুরু হয়নি

ইবরাহীম মাহমুদ আকাশ

অনুমোদনের পর প্রায় দুই বছর অতিক্রম হলেও আলোর মুখ দেখেনি খুলনা-দর্শনা ডাবল লাইন রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প। ভারতের দ্বিতীয় লাইন

sangbad ad

আমনের ক্ষেত পানিতে ডুবে যাচ্ছে

বগুড়া প্রতিনিধি

গত কয়েক দিন ধরে টানা বৃস্টিপাতে বগুড়ায় নদী গুলোতে পানি বাড়তে

কক্সবাজারের ৮ থানার ওসিসহ ২৬৪ জনকে বদলি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

কক্সবাজারের ৮ থানার ওসি, ৩৪ জন ইনেসপেক্টর ও এসআই, এএসআইসহ মোট

করোনা কালে রংপুরে ৫০টিরও বেশী আত্মহত্যা ও খুনের ঘটনা ঘটেছে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক রংপুর

image

করোনাকালে রংপুর জেলায় ৫০টি আত্মহত্যা ও খুনের ঘটনা ঘটেছে সেই সাথে

মহশেখালী-কক্সবাজার যোগাযোগ ব্যবস্থা সংস্কাররে দাবতিে মানববন্ধন

কক্সবাজার প্রতনিধিি

image

বাংলাদশেরে একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ উপজলো মহশেখালীর সাথে কক্সবাজার এর যোগাযোগ সংস্কাররে দাবতিে

টেকনাফে গোলাগুলি পর ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার

প্রতিনিধি, কক্সবাজার

কক্সবাজারের টেকনাফে নাফনদীর তীর বেড়িবাঁধ এলাকায় বিজিবি ও মাদক পাচারকারি মধ্যে

মহেশপুরে ফেনসিডিল-কারসহ গ্রেফতার তিন

প্রতিনিধি, মহেশপুর (ঝিনাইদহ)

image

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) ভোরে বিশেষ অভিযান চালিয়ে উপজেলার কাকিলাদাড়ি নামক স্থান থেকে বিপুল পরিমাণ ফেনসিডিল