• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

 

শ্রদ্ধা ভালোবাসায় সমাহিত হলেন গোলাম সারওয়ার

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

জাতীয় প্রেসক্লাবে সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ারের মরদেহে সংবাদ পরিবারসহ সাংবাদিকদের শ্রদ্ধা নিবেদন-সংবাদ

ভালোবাসা ও রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষ বিদায় জানানো হলো দেশবরেণ্য সাংবাদিক ও সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ারকে। শহীদ মিনার এবং জাতীয় প্রেসক্লাবে কালো কাপড়ে তৈরি মঞ্চে দেশের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ এই একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিককে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। বৃহস্পতিবার (১৬ আগস্ট) আসরের নামাজ শেষে মিরপুরের শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তার মরদেহ দাফন করা হয়। বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ১১টায় লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্সে করে তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেয়া হয়। সেখানে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও সমকাল পরিবারের যৌথ আয়োজনে নাগরিক শ্রদ্ধা নিবেদন পর্বে তার মরদেহে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন শিক্ষক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, রাজনীতিবিদ, অধিকারকর্মী এবং বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন। শহীদ মিনারে জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, সংস্কৃতিবিষয়কমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ, তথ্য ও প্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি আআমস আরেফিন সিদ্দিক এবং বেসরকারি সংগঠন ‘নিজেরা করি’র খুশি কবিরসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ারের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরী বলেন, গোলাম সারওয়ার ছিলেন একজন বাতিঘর; যে বাতিঘর কখনো নিভে যাবে না। বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, সাংবাদিকতার নৈতিকতার বিকাশে তিনি ছিলেন সোচ্চার ও বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মরহুমের প্রতি শ্রদ্ধা জানান দলটির সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বাংলাদেশের গৌরবোজ্জ্বল মুক্তিযুদ্ধের আপসহীন কলমযোদ্ধা ছিলেন গোলাম সারওয়ার। মুক্তিযুদ্ধের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুর প্রশ্ন যখনই উঠে আসে- তখন সেই ইস্যুতে তার কলম ছিল মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে।

১৪ দলের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে আসেন মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, আমার রাজনৈতিক জীবনের ভরসা ছিলেন গোলাম সারওয়ার। তিনি সমালোচনা এবং প্রশংসার মাধ্যমে আমাদের দিকনির্দেশনা দিতেন। আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনাও তার পরামর্শ গ্রহণ করতেন।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘অ্যাজ মাই এসেসমেন্ট, হিজ ইজ অ্যা ভেরি কম্পোজড ম্যান। তিনি যা কিছু বলতেন, বুঝে বলতেন।’

জাসদের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, আজকে আমরা যখন সন্ত্রাস, জঙ্গি ও সাম্প্রদায়িকতামুক্ত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়তে চলেছি, তখন তার মতো একজন ব্যক্তির ভূমিকার বড় দরকার ছিল। তিনি শুধু সাংবাদিক ছিলেন না, তিনি ছিলেন গণমাধ্যমের অভিভাবক।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, গোলাম সারওয়ার আমার সমবয়সী ছিলেন। আমরা ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলাম। তার চলে যাওয়ায় ব্যক্তি পর্যায়েও ক্ষতি হলো আমার।

গোলাম সারওয়ারের সরাসরি শিক্ষক ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। তিনি বলেন, শিক্ষকের আগে আজ ছাত্র চলে গেল। সারওয়ার আজীবন সৎ সাংবাদিকতা করে গেছে। সাংবাদিকতা জগতে তার নাম স্থায়ী হয়ে থাকবে।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ গোলাম সারওয়ারকে ‘কিংবদন্তি’ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, তিনি শুধু সাংবাদিকই ছিলেন না, সামাজিক ও শিক্ষা খাতেও তিনি যুক্ত ছিলেন। নতুন প্রজন্ম তাকে অনুসরণ করতে পারে।

সমকালের প্রকাশক ও হা-মীম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে আজাদ বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী মানুষটি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় নিবেদিতপ্রাণ ছিলেন। সংবাদপত্র জগতে তিনি অমর হয়ে থাকবেন।

পরিবারের পক্ষ থেকে বড় ছেলে গোলাম শাহরিয়ার রঞ্জু বলেন, বাবার জীবনের চারটি অংশ ছিল প্রথমটি ‘সমকাল’ অফিস, দ্বিতীয় প্রেসক্লাব, তৃতীয়টি তার পরিবার চতুর্থটি তার জন্মস্থান। তিনি তার কাজকে ধর্মের মতো পালন করতেন। সারা জীবনভর মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের কথা বাবা বলতেন, আমাদেরও সে বিশ্বাসে বড় করেছেন।

অন্যদের মধ্যে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে আসে গণতন্ত্রী পার্টি, ছাত্রলীগ, যুবলীগ। ব্যক্তিগত পর্যায়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে আসেন গণস্বাস্থ্য সংস্থার ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী, সাবেক মুখ্য সচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, কথাসাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আআমস আরেফিন সিদ্দিক, ইটিভির সিইও মনজুরুল আহসান বুলবুল।

প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, বাংলা একাডেমি, শিশু একাডেমি, শিল্পকলা একাডেমি, সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম, কেন্দ্রীয় খেলাঘর আসর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন।

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত শ্রদ্ধা নিবেদনের পর গোলাম সারওয়ারের মরদেহ নেয়া হয় তার পাঁচ দশকের আড্ডাস্থল জাতীয় প্রেসক্লাবে। বেলা পৌনে ১টায় মরহুমের কফিন জাতীয় প্রেসক্লাবে এসে পৌঁছালে সাংবাদিকদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। মরহুমের কফিন কালো কাপড়ে নির্মিত মঞ্চে রাখা হয়। বাদ জোহর ক্লাব প্রাঙ্গণে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিএনপির সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, আবদুস সালাম আজাদ, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক সৈয়দ কামালউদ্দিন, শাহজাহান মিয়া, হাসান শাহরিয়ার, আবুল কালাম আজাদ, মতিউর রহমান চৌধুরী, নঈম নিজাম, শাহ আলমগীর কামরুল ইসলাম চৌধুরী, বিএফইউজের দুই অংশের রুহুল আমিন গাজী, এম আবদুল্লাহ, মোল্লা জালাল, শাবান মাহমুদ, ডিইউজের দুই অংশের আবু জাফর সূর্য, সোহেল হায়দার চৌধুরী, কাদের গনি চৌধুরী, শহিদুল ইসলাম, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাইফুল ইসলাম, শুক্কর আলী শুভ, ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের গোলাম মুস্তফা, কাজল হাজরা, ইআরএফের সাইফুল ইসলাম দিলাল, রাশেদুল ইসলাম, জাতীয় প্রেসক্লাবের আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, সাহেদ চৌধুরী, ইলিয়াস খান, মাইনুল আলম, নগর উন্নয়ন সাংবাদিক ফোরামের নেতৃবৃন্দসহ কয়েকশ সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ও পেশাজীবীরা অংশ নেন।

সেখানে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদনের পরে তাকে রাষ্ট্রীয় সম্মান (গার্ড অফ অনার) জানায় ঢাকা জেলা প্রশাসন। রাষ্ট্রপতির পক্ষ থেকে তার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মো. সারোয়ার হোসেন এবং প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে তার তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, প্রেস সচিব ইহসানুল করীম ও উপ তথ্য সচিব আশরাফুল আলম খোকন মরহুমের কফিনে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান। পরবর্তীতে প্রবীণ-নবীন সাংবাদিকরা তার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

গোলাম সারওয়ারের সাংবাদিকতা জীবনের অন্যতম অংশ জুড়ে ছিল ‘সংবাদ’ পত্রিকা। সংবাদ’র পক্ষ থেকে তাকে শেষ বিদায় জানান ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক খন্দকার মুনীরুজ্জামান, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক কাশেম হুমায়ূন, বার্তা সম্পাদক কাজী রফিক, চিফ রিপোর্টার সালাম জুবায়ের, স্টাফ রিপোর্টার রাকিব উদ্দিন, অমিত হালদার, মোস্তাফিজুর রহমান, ওয়ালিদ খান প্রমুখ।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ নোমান বলেন, সারওয়ার ভাই একজন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। একই সঙ্গে তিনি ছিলেন একজন প্রতিথযশা সাংবাদিক। অনেক গুণাবলি তাকে শ্রেষ্ঠ মানুষের কাছে নিয়ে গেছে। আমি তার মৃত্যতে গভীর শোক প্রকাশ করছি।

সাংবাদিক রিয়াজউদ্দিন আহমেদ বলেন, তিনি আমার সহকর্মী ছিলেন। দীর্ঘদিন আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। সাংবাদিকদের নানা সমস্যা এবং জাতীয় প্রেসক্লাবের বিভিন্ন সংকট সমাধানে তার উদ্যোগ স্মরণীয়।

ডেইলি স্টারের সম্পাদক ও সম্পাদক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ আনাম বলেন, সম্পাদক পরিষদের পক্ষ থেকে আমি তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করছি। এই সংগঠনের তিনি ছিলেন অন্যতম উদ্যোক্তা।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, ইটিভির সিইও মনজুরুল আহসান বুলবুল, সমকালের প্রকাশক একে আজাদ, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোস্তাফিজ শফি, প্রয়াত সম্পাদক গোলাম সারোয়ারের জ্যেষ্ঠ ছেলে গোলাম শাহরিয়ার রঞ্জন, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহাম্মদ শফিকুর রহমান, সহ-সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমীন, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি মোল্লা জালাল মরহুমের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন।

এছাড়া দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, জাতীয় প্রেস ক্লাবের কোষাধ্যক্ষ কার্তিক চ্যাটার্জি, সাবেক সাধারণ সম্পাদক স্বপন সাহা, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মনোজ কান্তি রায় উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সকাল সাড়ে ৮টার দিকে গোলাম সারওয়ারকে শেষবারের মতো তেজগাঁওয়ে তার প্রিয় কর্মস্থল সমকাল কার্যালয়ে নেওয়া হয়। সেখানে সমকাল পরিবারের সদস্যরা প্রিয় অভিভাবককে শেষ শ্রদ্ধা জানান। সকাল সোয়া ৯টার দিকে সমকাল কার্যালয়-সংলগ্ন বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের ওসমানী হল মাঠে গোলাম সারওয়ারের তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

গত ২৯ জুলাই অসুস্থ হয়ে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি হন ৭৫ বছর বয়সী গোলাম সারওয়ার। তার অবস্থার অবনতি হলে ৩ আগস্ট সিঙ্গাপুর নেওয়া হয়। গত ১৩ আগস্ট বাংলাদেশ সময় রাত ৯টা ২৫ মিনিটে সিঙ্গাপুরের জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। পরে মঙ্গলবার (১৪ আগস্ট) রাত ১০টা ৫০ মিনিটে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে আনা হয় তার মরদেহ। বিমানবন্দর থেকে মঙ্গলবার মধ্যরাতে মরদেহ নেওয়া হয় তার উত্তরার বাসভবনে। সেখান থেকে রাত পৌনে ১টার দিকে নিয়ে রাখা হয় বারডেমের হিমঘরে। বুধবার (১৫ আগস্ট) দুপুরে গোলাম সারওয়ারের মরদেহ হেলিকপ্টারে করে নিয়ে যাওয়া হয় তার জন্মস্থান বরিশালের বানারীপাড়ায়। সেখানে তার প্রথম জানাজার পর বিকেলেই মরদেহ ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হয়। সেদিন বাদ আসর উত্তরা-৪ নম্বর সেক্টর জামে মসজিদে তার দ্বিতীয় জানাজার পর মরদেহ রাখা হয় বারডেমের হিমঘরে।

বৃহস্পতিবার বিকাল চারটা ৪০ মিনিটে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সমকাল প্রকাশক এ. কে. আজাদ, সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি, নির্বাহী পরিচালক মেজর জেনারেল (অব.) এসএম শাহাব উদ্দিন, ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য আসলামুল হক আসলাম, বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল, প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান খান, সমকালের নগর সম্পাদক শাহেদ চৌধুরী, প্রধান প্রতিবেদক লোটন একরাম, ফিচার সম্পাদক মাহবুব আজীজ ও বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার ইমরান কাদির। গোলাম সারওয়ারের স্বজনদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তার ভাই গোলাম সালেহ মঞ্জু মোল্লা, জামাতা মিয়া নাইম হাবিব, পুত্র গোলাম শাহরিয়ার রঞ্জন ও গোলাম সাব্বির অঞ্জন।

নড়িয়া ও জাজিরার ভাঙন রোধে জরুরী পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান তৃণমূল বাংলাদেশের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

শরিয়তপুর জেলার নড়িয়া ও জাজিরা উপজেলাকে প্রমত্তা পদ্মার ভাঙন থেকে বাঁচাতে জরুরী

বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে প্রাণ গেল শিশু লিজার

প্রতিনিধি, কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ)

কটিয়াদীতে বাবাকে উদ্ধার করতে গিয়ে ট্রেনের নিচে কাটাপড়ে লিজা আক্তার (৬)

হোসেনী দালানে হামলার তিন বছরেও বিচারকাজে অগ্রগতি নেই

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

পুরান ঢাকার হোসেনী দালানে তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতির সময় শিয়া সম্প্রদায়ের ওপর বোমা

sangbad ad

আজ পবিত্র আশুরা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

১০ মহররম আজ। পবিত্র আশুরা। এই মাস দিয়েই হিজরি বর্ষের সূচনা হয়। মুসলিম উম্মাহর জন্য ১০ মহররম দিনটি তাৎপর্যময় ও শোকাবহ। ত্যাগ ও শোকের

প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ মুন্না-পুশকিনের পরিবার

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

জাতীয় ফুটবল ও হকিতে অনেক বড় অবদান মোনেম মুন্না ও জাহিদুর রহমান

দুই বাংলায় সিঁথির আলোড়ন

আরাফাত জোবায়ের

image

শ্রীকান্ত আচার্য, শান্তনু মৈত্র, কৌশিকী চক্রবর্তী, মোনালী ঠাকুর ও পণ্ডিত তন্ময় বোসের

শ্রীবরদী সীমান্তে হাতির তাণ্ডব : দিশাহারা কৃষক

সংবাদদাতা, শ্রীবরদী (শেরপুর)

image

শ্রীবরদী উপজেলার রানীশিমুল ইউনিয়নের সমীন্তবর্তী গ্রাম বালিজুরীতে প্রতিনিয়ত

সুন্দর নরসুন্দা এখন আবর্জনার ভাগাড়!

জেলা বার্তা পরিবেশক, কিশোরগঞ্জ

image

কিশোরগঞ্জ শহরের মাঝখান দিয়ে বয়ে যাওয়া নরসুন্দা এখন ময়লা আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। কিশোরগঞ্জ

নৌ পুলিশেল ওপর সন্ত্রাসী হামলা : আহত ৩

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

কিশোরগঞ্জে চাঁদার দাবীতে আটকে রাখা বাল্কহেড( মালবাহী জাহাজ) উদ্ধার করতে

sangbad ad