• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট ২০২০

 

শিবচরে শেখ হাসিনা তাঁতপল্লীতে খুঁজে পাওয়া যায় না ১৯’শ কোটি টাকা!

নিউজ আপলোড : ঢাকা , রোববার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, শিবচর (মাদারীপুর)
image

শেখ হাসিনা তাঁতপল্লীতে রাতারাতি গড়ে ওঠা ঘর-সংবাদ

শিবচরে শেখ হাসিনা তাঁত পল্লীতে কোটি টাকার দুর্নীতি অভিযোগ উপজেলা প্রশাসনের তদন্তে প্রমাণও মিলেছে। ক্ষতিপূরণের তালিকায় বেশকিছু বসতঘরে নেই দরজা-জানালা, নেই বিদ্যুত সংযোগও। এমনকি ঘরে থাকেন না কেউ। অথচ এসব স্থাপনাকে পুরনো দেখিয়ে কোটি কোটি টাকার ক্ষতিপূরণের তালিকা প্রস্তুত করেছে জেলা প্রশাসনের এলএ শাখা ও গণপূর্ত বিভাগ।

অভিযোগ আছে, মাদারীপুরের শিবচরের শেখ হাসিনা তাঁতপল্লী নির্মাণে জমি অধিগ্রহণের কার্যক্রম গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তারা দালালদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে একটি সিন্ডিকেট চক্র এসব তালিকা প্রস্তুত করেছেন। সরেজমিন একাধিক সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ‘শেখ হাসিনা তাত পল্লী’র ভিত্তিপ্রস্তর করেন। এ প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১৯শ’ ১১ কোটি টাকা। প্রকল্পটির জন্য জেলার শিবচর উপজেলার কুতুবপুরে ৬০ একর ও শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবায় ৪৮ একর জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ প্রকল্পে অসংখ্য ৬ তলা বিশিষ্ট ভবনে প্রত্যেক তাঁতীর জন্য ৬শ’ ফুটের কারখানা ও ৮শ’ ফুটের মধ্যে আবাসন সুবিধা থাকবে। সরকারের পক্ষ থেকে সুতা রংসহ কাঁচামালের সুবিধা দেয়া হবে। নির্মাণ হবে আন্তর্জাতিকমানের শোরুম। প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। তাঁতীদের ছেলে মেয়েদের জন্য থাকবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। প্রধানমন্ত্রীর ভিত্তিপ্রস্তরের পর ওই জমির মালিক ও এক শ্রেণির দালাল চক্র প্রকল্প এলাকায় সরকারের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিতে শত শত ঘরসহ স্থাপনা নির্মাণ ও গাছ লাগানো শুরু করে। এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার হলে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করে উভয় জেলা উপজেলা প্রশাসনের ভূমিকায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এরপর গত ২৭ জানুয়ারি ৭২ ঘণ্টার সময় বেধে দিয়ে অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিতে মাইকিং করে প্রশাসন। এরপরপরই শিবচরের কুতুবপুর উচ্ছেদ অভিযান শুরু করে প্রথমদিনেই ৮০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে প্রশাসন। ৩১ জানুয়ারি তাঁত বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাদাকাতুল বারির নেতৃত্বে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করে একইভাবে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। গত ৭ মে দুর্নীতি দমন কমিশনের ফরিদপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক কমলেশ মণ্ডলের নেতৃত্বে দুদকের একটি টিম তাঁত পল্লীর মাদারীপুরের শিবচর ও শরীয়তপুরের জাজিরা অংশ পরিদর্শন করেন। পর্যায়ক্রমে দুই উপজেলার প্রকল্প এলাকা থেকে হাজারো ঘর বাড়ি স্থাপনা উচ্ছেদ ও সরিয়ে নেয়া হয়। তুলে ফেলা হয় লক্ষাধিক গাছের চারা। রক্ষা পায় সরকারের হাজার কোটি টাকার লোপাট। তবে স্থানীয়রা জানায়, স্থাপনা ভেঙ্গে দেয়ার পরে রাতের আধারে আবারও নির্ধারিত ওই স্থানে নির্মাণ করা হয় ঘরবাড়ি, পুকুরসহ বিভিন্ন স্থাপনা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শেখ হাসিনা তাঁতপল্লীর নির্ধারিত স্থানে চারদিকে তাকালেই দেখা যাবে এখনো খালি মাঠে বেশ কয়েকটি ছোটবড় টিসসেড ঘর। কিন্তু এসব ঘরে কেউ থাকে না। এছাড়া মাছ চাষের জন্য বড় বড় সাইনবোর্ড থাকলেও পুকুরে দেখা মিলে না কোন মাছের। ওই এলাকায় গড়ে তোলা হয়েছে চারাগাছের একাধিক নার্সারি। এছাড়া ক্ষতিপূরণের আওতায় আসা বসত এলাকাতেও উঠানো হয়েছে নতুন নতুন স্থাপনা। জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখা ও গণপূর্ত বিভাগ জানায়, শিবচর উপজেলার কুতুবপুর ৯২নং দাগে ১টি মৌজায় শেখ হাসিনা তাঁতপল্লী নির্মাণের প্রথম ধাপে ২২টি পরিবারের নাম ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরি করেন জেলা প্রশাসনের এলএ শাখার সার্ভেয়ার সোহেল মিয়াজী ও মোস্তাফিজুর রহমান। পরে এই পরিবারগুলোর বিভিন্ন স্থাপনা বাবদ ৩ কোটি ৫ লাখ ৮৪ হাজার ৯৮০ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার প্রস্তাব করেন গণপূর্ত বিভাগ। পরবর্তীতে আরও ৫টি পরিবারকে এলএ শাখা থেকে ওই কর্মকর্তারা এই তালিকায় যোগ করেন। ইতোমধ্যে এসব পরিবারকে ৭ ধারা দিয়েছে ভূমি অধিগ্রহণ শাখা। পরবর্তীতে ৮ ধারা প্রদান করলে ওইসব পরিবারগুলো প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখিয়ে এই ক্ষতিপূরণের পুরোটাকা উত্তোলন করতে পারবেন জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ (এলএ) শাখা থেকে। ক্ষতিপূরণের এসব বিল দেয়ার প্রস্তাব দেন জেলার গণপূর্ত বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শাহরিয়ার হোসেন, মো. জোবায়ের মিথুন, উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. রাজিব আহম্মেদ তরফদার, মো. মাসুম বিল্লাহ, মো. আব্দুস সাত্তার খান। অভিযোগ আছে, সরকারের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিতে একটি চক্র দীর্ঘদিন ধরে এই কার্যক্রম করে আসছে। কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতিক মাদবর বলেন, যে প্রকল্প থেকে হাজার হাজার ঘরবাড়ি স্থাপনা গাছ গাছলা উচ্ছেদ হলো। সেখানে নতুন করে দুর্নীতি মেনে নেয়া যায় না। আমরা সংশ্লিষ্ট দোষী কর্মকর্তাদের বিচার চাই। শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, চীফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরীর নির্দেশ মোতাবেক জেলা প্রশাসনকে সঙ্গে নিয়ে আমরা অবৈধ ঘর, স্থাপনা, গাছপালা অপসারণ করেছি। এতে সরকারের কোটি কোটি টাকা লোপাটের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে। এরপরও কতিপয় অসাধু ব্যক্তিরা কিছু অবৈধ ঘর, স্থাপনা নির্মাণ করেছিল। যা ক্ষতিপূরণের আওতাভুক্ত হয়েছে। আমরা চীফ হুইপের স্যারের নির্দেশে তদন্ত করে সত্যতা পেয়েছি। ওই অবৈধ ঘরগুলোর বিল বাবদ আর্থিক সহযোগিতা যেন না পায় তার জন্য জেলা প্রশাসনকে অনুরোধ করেছি। আশা করি আর কোন অর্থলোভী দালালচক্র সরকারের টাকা লোপাটের সুযোগ পাবে না।

মাদারীপুর গণপূর্ত বিভাগ নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সালেহ মুহাম্মদ ফিরোজ বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, যেসব জায়গা আমরা ক্ষতিপূরণের আওতায় আনি তা গণপূর্ত বিভাগের নির্ধারিত রেট সিডিউলের ভিত্তিতে করা হয়। জেলা প্রশাসনের চাহিদা অনুয়ায়ী প্রতিটি স্থাপনা আমরা সঠিকভাবে ইস্টিমেট করে থাকি। যৌথ তদন্তের ভিত্তিতে যে সকল স্থাপনা তালিকাভুক্ত হয়ে থাকে আমাদের কর্মকর্তারা সরেজমিন তদন্ত করে তৈরি করেছেন। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের জাতীয় সংসদের চীফ হুইফ ও মাদারীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য নুর-ই-আলম চৌধুরী বলেন, ‘তাঁতপল্লী নির্মাণের জন্য নির্ধারিত স্থানে পূর্বে কোন পুরনো স্থাপনা থাকার কথা নয়। তবে পুরানো একটি গ্রাম রয়েছে। বাড়তি বিল দেয়ার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে কিনা বিষয়টি যাচাই-বাছাই করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শুভ জন্মাষ্টমী আজ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আজ মঙ্গলবার শুভ জন্মাষ্টমী। সনাতন হিন্দু সম্প্রদায়ের আরাধ্য ভগবান শ্রী কৃষ্ণের শুভ জন্মাষ্টমী আজ। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মতে, প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার বছর আগে দ্বাপর যুগে ভাদ্র মাসের কৃষ্ণপক্ষের অষ্টমী তিথিতে মহাবতার শ্রীকৃষ্ণ ধরাধামে আবির্ভূত হন। অত্যাচারী ও দুর্জনের বিরুদ্ধে শান্তিপ্রিয় সাধুজনের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কংসের কারাগারে জন্ম নেন তিনি। শিষ্টের পালন ও দুষ্টের দমনে তিনি ব্রতী ছিলেন।

বান্দরবানে খুলে যাচ্ছে পর্যটনকেন্দ্র

জেলা প্রতিনিধি, বান্দরবান

image

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১৭ আগস্ট থেকে বান্দরবানে সরকারি-বেসরকারি সব পর্যটনকেন্দ্র ও আবাসিক হোটেল-মোটেল খুলে দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। হোটেল-মোটেল খুলে দেয়ায় খুশি পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। পর্যটন খুলে দেয়ার আগাম সংবাদে হোটেল মোটেলে কর্মব্যস্ত হয়ে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।

ইন্টারনেট সংযোগ অপসারণে ক্ষতিগ্রস্ত অনলাইন শিক্ষা ও ব্যবসা

ফারুক আলম

image

করোনা মহামারীর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) পরিচ্ছন্ন শহর গড়তে বিদ্যুতের খুঁটিতে ঝুঁকিপূর্ণ ইন্টারনেট

sangbad ad

সাবমেরিন ক্যাবল কাটা পড়ার ঘটনায় মামলা ও গ্রেফতার ২

প্রতিনিধি, কুয়াকাটা (পটুয়াখালী)

image

বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি কুয়াকাটা ল্যান্ডিং স্টেশনের (সিমিউই-৫) পাওয়ার ক্যাবল কাটা পড়ার ঘটনায় মহিপুর থানায় মামলা হয়েছে

বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড যেন আর না হয় : সিনহার মা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান নিহতের ঘটনায় কক্সবাজার পুলিশ সুপার (এসপি) এবিএম মাসুদ হোসেনের প্রত্যাহার চেয়েছে

মাস্ক পরা বাধ্য করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে মানুষকে মাস্ক পরতে বাধ্য করা এবং এ নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে মোবাইল কোর্ট (ভ্রাম্যমাণ আদালত) পরিচালনায়

মির্জাপুরে পানিতে ডুবে প্রতিবন্ধী শিশুর মৃত্যু

প্রতিনিধি, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে পানিতে ডুবে তাওহিদ নামে প্রতিবন্ধী এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে

বর্ষালি ধানের বাম্পার ফলন

প্রতিনিধি, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা)

image

বৈরি আবহাওয়া এবং নানাবিধ প্রতিকূলতার মাঝেও চলতি মৌসুমে বর্ষালি (আউশ) ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। হতাশা কেটে এখন গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কৃষকদের মুখে হাসি দেখা দিয়েছে।

দুধকুমার নদী ভাঙনে বিলীন দেড় শতাধিক বাড়ি, শতশত বিঘা জমি

আসাদুজ্জামান খোকন, ভূরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম)

image

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে নদী ভাঙনে দু’টি গ্রামের দেড় শতাধিক বসতবাড়ি, শতশত বিঘা ফসলি জমি ও ৩টি মসজিদ নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। আরও চার শতাধিক পরিবার, তিনটি সরকারি